| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > এ শূণ্যতা কখনো পূরন হবার নয়   > প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার সফল বাস্তবায়নে ৩৬ বিসিএস আনসারের ১১জন কর্মকর্তার ব্যতিক্রমী উদ্যোগ   > আমাদের দাবি , ‘জাতীয় দাম্পত্য দিবস’   > ৫০ দিনে ৪০ হাজার ক্ষুধার্ত পরিবারকে খাদ্য সহায়তা   > অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে শরীয়তপুর পুলিশ সুপারের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ   > রাজশাহী জেলা আনসার ও ভিডিপি’র ত্রাণসামগ্রী বিতরণ   > গত ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনায় নতুন আক্রান্ত ৩০৯   > করোনায় মাদক-জঙ্গি রোধে কঠোরতর ব্যবস্থা : র‌্যাব ডিজি   > রাজশাহী জেলা আনসার ও ভিডিপি কার্যালয় করোনাভাইরাসের প্রভাব হ্রাসে নিরবে কাজ করছে   > ক্যামেরা জার্নালিস্টদের সহায়তা দিলো পারটেক্স গ্রুপ  

   ফিচার
  আমাদের সেই মহানায়ক
  Publish Time : 16 March 2020, 1:20:28:PM

ডেস্ক রিপোর্ট : ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ এর বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষনের মাধ্যমে মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। এই যুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে লাখ লাখ মানুষ নিরস্র ভাবে যার যা আছে তাই নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়ে। ১৯৭১ সালে ১১ই জুলাই মুক্তিবাহিনী গঠন করে। যা ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ৭ই মার্চের তেজ্বসী ভাষনের মুল মন্ত্র। ৩০,০০০ (ত্রিশ হাজার) নিয়মিত বাহিনীর নাম মুক্তিফৌজ, এক লক্ষ গেরিলা ও বেসামরিক যোদ্ধা মিলে তিনটি ব্রিগেট ফোর্সে ভাগ করা হয়। ১-কে ফোর্স ২-এস ফোর্স ৩-জেড ফোর্স। তাদের মুখে শ্লোগান ছিল জয় বাংলা এদের মধ্যে নারী ও পুরুষ দুই ভাগে প্রশিক্ষন নিয়ে সরাসরি যুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন। লক্ষ লক্ষ মা ও শিশু জীবন বাচানোর জন্য প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারতের লঙ্গর খানায় আশ্রয় গ্রহন করেন। ভারত সরকার এদেরকে খাদ্য, বস্ত্র, চিকিৎসা, সেবা ও সহায়তা প্রদান করেন। এদেরকে শরনার্থী বলা হয়। আর এক শ্রেণীর লোক মুক্তিযুদ্ধে না যাওয়ার অযুহাতে নিজেকে বাচানোর জন্য চিলে কোঠায়, গোলা ঘরে, জঙ্গলে পালিয়ে আত্ন গোপন করেছিলেন। 

আর এক শ্রেণীর লোক এরা পাকিস্তানীদের সহায়তার জন্য এদের দোসর সাজিয়ে রাস্তাঘাট দেখাতো, ভাষা বুঝাত ও রাতে ডাকাতি ও লুটতরাজ করত। মুক্তিযোদ্ধাদের গতিবিধির সংবাদ পাকিস্তানীদের সরবরাহ করত। এরা সমাজের ও দেশের শত্রু ও ঘৃনিত লোক এদেরকে রাজাকার, আলবদর, আসশামস্ বলা হয়। বর্তমানে এরা চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী হিসাবে বিচারের কাঠগড়ায়। কিছু রাজাকারের শাস্তি কার্যকর হয়েছে। এটা বর্তমান শেখ হাসিনা সরকারের কৃতিত্ব। এদিকে মুক্তিযোদ্ধারা নিজের মাতা পিতা স্ত্রী সন্তান এমনকি নববধূসহ নানা প্রকার ভোগ বিলাস পরিহার করে নিজ মাতৃভূমিকে রক্ষা করা তথা স্বাধীনতার জন্য নিজেদের মন প্রান উজাড় করে দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখ যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েন। যুদ্ধকালীন সময়ে এদের দেখ ভালের কেউ ছিল না।

জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু ছিল পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি। এই বীর মুক্তিযোদ্ধারা জীবনের ঝুকি নিয়ে আত্নমন বিসর্জন দিয়ে একটাই সংকল্প ছিল যেদেশ রক্ষা। এই যুদ্ধকালীন সময়ে তারা লোমহর্ষক বেদনার মধ্য দিয়ে তাদের যুদ্ধ করতে হয়েছিল। না ছিল খাদ্য, না ছিল বস্ত্র, পানি আশ্রয়। কোন কোন সময় তাদের ৫/৭ দিন পর্যন্ত না খেয়ে যুদ্ধ করতে হয়েছিল। এই ভয়াল দিন গুলিতে তারা ক্ষুধার তাড়নায় কাঁচা লাউ, কাঁচা কুমড়া, আলু খেয়েছেন। তবু তারা যুদ্ধ করেন একটাই চিন্তা যে, আমাদের দেশ স্বাধীন করতেই হবে। এবং বঙ্গবন্ধুর সম্মান চির উন্নত রাখতেই হবে। এই বিপদের সময় তাদের দূর্দিন চরমে ঠিক তখন এক শ্রেণীর লোক যারা পাকিস্তানীদের ভয়ে পালায়নি মহিলা ও পুরুষ কিশোর তাদের সাহায্যের হাত অন্য ভাবে বাড়িয়ে দিয়ে তাদেরকে সঠিক ভাবে যুদ্ধ করার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য ও খাদ্য, বস্ত্র, চিকিৎসা আশ্রয় দিয়ে সহযোগিতা করতে থাকেন। কেহ রান্না করে ঝোপ ঝাড়ে লুকিয়ে থাকা মুক্তিবাহিনীদের খাদ্য ও পানি পৌছিয়ে দেন। কেহ বা ব্যাংকার খননের সহায়তা করেন। কেহ গাছের গুড়ি, বাঁশ, গাছ, কুড়াল, খন্তা আনার কাছে সহায়তা করেন। কেহ গোলা বারুদ বহন করেন। আবার কেহ বা ঝড় বৃষ্টির দিনে নিজ গৃহেই একটু সাময়িক ঠাঁই দেন। আবার কেহ কেহ কলা ও মাছ বিক্রি করার ছলে হাটে বাজারে যাওয়ার সময় পাকবাহিনীদের খবর ও অবস্থান নির্ণয় করেন। সঠিক সংবাদ সংগ্রহ করে মুক্তিবাহিনীদেরকে অবহিত করার কাজে সদা সর্বদাই নিয়োজিত ছিল। এমনি এক সহযোগী মহিলার কথা আমি এখানে তুলে ধরলাম।
নাম জানা নেই তবে আসির চাচার বউ। আমি সন্ধ্যার একটু আগে ওয়াবদার কেনালে বসে ছিলাম। দেখি একজন মহিলা ঢাকিতে কি যেন নিয়ে খারির জঙ্গলের দিকে যাইতেছে হাতে একটি পানির কলসি । আমার সামনে আসলে আমি তাকে বললাম কি বারে কেত যাবেন। চাচী বলল বারে হামার ছুয়ালা রাতি করে গুলাগুলি করে যাবা পারেনি ঐ বাগডোকড়া জঙ্গলের ধাদনি খানত সারাদিন নুকায় আছে। উমার তানে চাইটা ভাত আর আলু ভর্তা ধরে যাছু বা। রাতি করে আরো কুনতি ওমাক যাবা হবে। আমি বললাম চাচী তুই কেংক বুঝা পালো উমরা জঙ্গলত লুকায় আছে। ওবা মুই দুইপহরে খরি নুরিবা গেইছিনু একটা ছুয়া মোক কহিল চাচী হামাক চাডিক ভাত আনে দেন। কালি হতে হামরা কিছু খাই নি। এমনি দেখেছি কুলা বেচার বউ চাচীকেউ। স্থান সালটিয়া পাড়া নুনিয়া পাড়া বর্ডারের চাওয়াই নদী সংলগ্ন। জানি না এভাবে কত চাচা চাচী ও মা বোনেরা যুদ্ধকালীন সময়ে নিজের রান্না করা খাবার থেকে একটু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। যুদ্ধে অনেক সময় আগাতে পিছাতে দেখেছি ঐ সময় একজন মুক্তিযোদ্ধাকে তার নিরাপদ জায়গায় মাল-ছামান নিয়ে দেওয়াও ছিল অনেক সাহায্যকারীর কাজ এরা “৭১”-এর সহযোগী মুক্তিযোদ্ধা। এদের প্রধান কাজ যে যে ভাবে পারেন মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বাঙ্গীন সঠিক ভাবে সহযোগীতা করা যেন তারা (মুক্তিযোদ্ধারা) সঠিক ভাবে যুদ্ধ পরিচালনা করতে সক্ষম হন। সঠিক যুদ্ধের ফলে দেশ স্বাধীন হয়েছে। তাই তারা বীর মুক্তিযোদ্ধার খেতাব, সম্মান, পুরস্কার পেয়েছেন। তাতে আমরাও আনন্দিত ও গর্বিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদেরকে জতি সদা সর্বদা শ্রদ্ধা করে। তবে ৭১-এর সহযোগী মুক্তিযোদ্ধাদেরও মুক্তিযুদ্ধে অবদান অপরিসীম। মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে এরা ওতোপ্রতো ভাবে জড়িত ছিলেন। বর্তমানেও এরা মক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বর্তমান প্রজন্মকে অবহিত করে চলেছেন। তাহা কোন মুক্তিযোদ্ধারাই অস্বীকার করতে পারেন না। তাদের প্রাপ্ত সম্মানটুকু বহন করার সুযোগ তাদের আপনাদেরকেই করে দিতে হবে। এবং আপনার ভাতা, আপনার সম্মান এমনকি আপনাদেরকে সদা সর্বদা শ্রদ্ধার আসনেই রাখবে। আপনাদের অধিকার খর্ব হলে আমরাই আবারও ঢাল হয়ে কাজ করব। তাই আমাদেরকে মর্যদা পেতে সঠিক সহায়তা দিন যেমনি ভাবে ৭১-এ আমরা আপনাদেরকে সহযোগীতা করেছি।
১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ এর ঐতিহাসিক ভাষন ও ২৬শে মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষনার মাধ্যমে মহান মুক্তিযুদ্ধের শুরু হয় এই জন্য ২৬শে মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়। ১৯৭১ সালের ১০ই এপ্রিল গঠন করা হয় বাংলাদেশের প্রথম সরকার যা মুজিবনগর সরকার নামে বিশ্বে পরিচিত। ১৭ই মার্চ এই নবগঠিত সরকার শপথ গ্রহন করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বাধীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হিসাবে ঘোষণা করা হয়। তিনি পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি থাকার কারনে উপরাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন।

অন্যান্য সদস্যরা হলেন প্রধান মন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ। ক্যাপ্টেন এম. মনসুর আলী, এ.এইচ. এম কামরুজ্জামান মজিব নগর সরকার গঠনের পর মুক্তিযুদ্ধের গতি বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে। মুক্তিবাহিনীকে তিনটি ব্রিগেড ফোর্সে ভাগ করা হয়। ১-কে ফোর্স, ২-এস ফোর্স, ৩-জেড ফোর্স। মুক্তিযুদ্ধকে সহজ ও সুবিধার জন্য মুক্তিবাহিনীকে ১১টি সেক্টরে ভাগকরা হয়।এই ১১টি সেক্টর সারা বাংলাদেশের তৎকালীন প্রতিটি জেলাকে কভার করে। এই ১১টি সেক্টরের মুক্তিবাহিনীর প্রধান সেনাপতি (নায়ক) ছিলেন জেনারেল আতাউল গনি ওসমানি। প্রতিটিই সেক্টরে গেরিলা বাহিনীর জন্য বিশেষ নির্দেশনা ছিল। ১- অ্যাকশন গ্রুপ অস্ত্র বহন করত এবং সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নিতেন। ২- ইনটেলিজেন্ট গ্রুপ খবরাখবর ও তথ্য সগ্রহ করতেন। ১৯৭১ সালের ২১ শে নভেম্বর ভারতীয় মিত্র বাহিনী গঠন করা হয়। মিত্র বাহিনীর প্রধান নায়ক ছিলেন লেফটন্যান্ট জেনারেল জগজিত সিং অরোরা ।

১০ই ডিসেম্বর থেকে ১৪ই ডিসেম্বর পাক-বাহিনী এদেশের অনেক অপার সম্ভবনা ময় জ্ঞানী -গুনি, শিক্ষক, শিল্পি, চিকিৎসক, সাংবাদিক, কবি, সাহিত্যিক ও দেশ প্রেমিকদের ধরে নিয়ে নির্মম ভাবে হত্যা করে।এই জন্য ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজিবী দিবস পালন করা হয়। ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনী সম্পূর্ণ ভাবে আত্ন সর্ম্পনের মাধ্যমে দেশ পরাধীনতার হাত থেকে মুক্তিপায়। দেশ ও জাতি বিজয় উল্লাসে মেতে উঠে আনন্দে ও উল্লাসে মেতে উঠে সারা দেশ। তাই প্রতি বছর ১৬ই ডিসেম্বর আমরা বিজয় দিবস পালন করি।
১৯৭২ সালের ০৮ই জানুয়ারী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি জাতির জনক পাকিস্তানের কারাগার থেকে নিঃর্শত ভাবে মুক্তি লাভ করেন। ১৯৭২ সালের ১০ই জানুয়ারী এই মহান ব্যাক্তি স্বদেশ তথা স্বাধীন বাংলার মাটিতে প্রত্যাবর্তন করেন। এই দিনটিও আমরা স্মরন করি, জাঁক জমক ভাবে পালন করি। এই দিনটি স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস হিসাবে পালিত হয়ে থাকে।
ভাবার বিষয়: এই যে মুক্তিযুদ্ধের সময় মুক্তিবাহিনী ছাড়া ও অন্যান্য আঞ্চলিক বাহিনী ছিল তাদের আলাদা আলাদা প্রধান (নায়ক) ছিল। ১৯৭১ সালের ১১ই জুলাই মুক্তিবাহিনী নামে একটি বাহিনী গঠন করা হয়। এই বাহিনীর প্রধান নায়ক ছিলেন জেনারেল আতাউল গনি ওসমানী। সম্মুখ যুদ্ধে মুক্তি যোদ্ধাদের সহায়তা দেওয়ার জন্য মিত্র বাহিনীর নামে একটি সহায়তা কারী বাহিনী গঠন করেন এই বাহিনীর প্রধান (নায়ক) ছিলেন জেনারেল জগজিৎ সিং আরোরা।
প্রত্যেক বাহিনীর মুক্তিযুদ্ধের অবদান আছে। কিন্তু এর উপরেও একটি শক্তিছিল সেই শক্তিবান মহা নায়ক কে ছিলেন? তিনি বাঙ্গালী জাতির গর্ব যিনি সারা জীবন বাঙ্গালী জাতির জন্য ভাবতেন। বার বার আন্দোলন, জেল, জুলুম, নির্যাতন সইতে কুন্ঠাবোধ করেননি। এই বাঙ্গালী জাতির চিন্তা ভাবনা ছাড়া যেন তিনি আর কিছুই ভাবেননি। সংসার, পরিবার,চাকুরী, ব্যবসা, মন্ত্রিত্ত সবকিছুকে উপেক্ষা করে একমাত্র নিপিড়িত, নিগৃহ, লাঞ্চিত বাঙ্গালী জাতির জন্য একটি মাতৃভূমি ছিনিয়ে আনলেন। বিশ্বের বুকে উপহার দিলেন একটি ভাষা যার নাম বাংলা ভাষা বিশ্বের বুকে একটি জাতি যে জাতির নাম বাঙ্গালী আরো উপহার দিয়ে গেলেন একটি লাল সবুজের পতাকা ও একটি স্বাধীন দেশ যার নাম বাংলাদেশ। বাংলা নামে একটি শস্য শ্যামল দেশ যার নাম বাংলাদেশ। তিনি কে? তিনিই স্বাধীনতার মহান স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী তিনিই মহানায়ক যার নাম জাতির জনক মঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান। তার ১০০ তম জন্ম শত বার্ষিকীতে আমরা জানাই জাতীয় ভাবেশত শস্ত্র শ্রদ্ধা এই দিবসটি উৎজ্জাপীত হওয়ার কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে অশেষ ধন্যবাদ। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু জয় হউক শেখ হাসিনার। মুজিব শতবর্ষ সুখ সমৃদ্ধ বয়ে আনুক। মজিব বর্ষ সফল হউক, বাংলাদেশ চিরজীবি হউক।



 



সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 66        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     ফিচার
শাল, গজারি, আদিবাসী, আনারস, রাবার চাষ সহ নানা ঐতিহ্যের মধুপুর
.............................................................................................
আমাদেরকে কী সবকিছুই আইন করেই মানাতে হবে?
.............................................................................................
‘৩২ নম্বর’ বাড়িটি এখন ইতিহাস
.............................................................................................
জলবায়ু পরিবর্তন চ্যালেঞ্জ : পানি ও পরিবেশ
.............................................................................................
১৩৬ বছরেও কাজ করছেন সোনাভান
.............................................................................................
আমাদের সেই মহানায়ক
.............................................................................................
সুতাং নদীর দূষিত পানিতে মারা যাচ্ছে জলজ প্রাণী
.............................................................................................
মহম্মদপুরে ঋতুরাজ বসন্তের শিমুল ফুল
.............................................................................................
কালিয়াকৈরে নবনির্মিত ব্রিজ সংলগ্ন সড়কে গর্ত, দুর্ঘটনার আশঙ্কা
.............................................................................................
জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবের মুখে বাংলাদেশ
.............................................................................................
বীরগঞ্জে গাছে গাছে শিমুল ফুল
.............................................................................................
বীরগঞ্জে বিলুপ্তির পথে বাঁশ শিল্প
.............................................................................................
ইসলামপুর পৌরবাসীর প্রিয় নেতা মেয়র সেখ মো: আ: কাদের
.............................................................................................
ফুলপুরে কংশ নদীতে পারাপার ঝুঁকিতে দশ গ্রামের মানুষ
.............................................................................................
সাহেবের আলগা হতে দাঁতভাংগা পর্যন্ত রাস্তাটির বেহালদশা
.............................................................................................
সুনামগঞ্জের পাখির গ্রাম মুরাদপুর
.............................................................................................
প্রায় ৮ হাজার নারী-পুরুষের কর্মসংস্থান
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধু’র আদর্শকে ধারণ করে চলছেন আবদুল খালেক
.............................................................................................
ডেপুটেশনের ফাঁদে ধ্বংস হচ্ছে কুড়িগ্রামের প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা
.............................................................................................
আধুনিকতার ছোঁয়ায় বিলুপ্তির পথে আত্রাইয়ে মাটির ঘর
.............................................................................................
নারী জাগরনের অগ্রদূত -বেগম রোকেয়া
.............................................................................................
অসহায় মানুষের জীবনে দ্বীপ জ্বালাতে চান রেশমা জাহান
.............................................................................................
লাখো ভক্তের স্বপ্নসারথী ইকবাল হোসেন অপু প্রকৃত অর্থেই একজন জননেতা
.............................................................................................
“নারীবাদ নাকি সমকামিতা, কোন পথে আমরা”
.............................................................................................
কি ঘটে জানুয়ারির প্রথম সোমবারে?
.............................................................................................
নারী পুরুষের ১০টি মানসিক পার্থক্য
.............................................................................................
শিশুর যত সুন্দর নাম
.............................................................................................
সৌভাগ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ যে চারটি বিষয়
.............................................................................................
মানসিক সমস্যা সারিয়ে তুলতে পারেন দাদা-দাদি
.............................................................................................
যে গ্রামে পুরুষ প্রবেশ নিষেধ
.............................................................................................
স্বাধীন ভারতের বীরপুত্র
.............................................................................................
বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন খাবারের সন্ধান
.............................................................................................
৩৬২ কোটি টাকা এক খণ্ড হিরের দাম
.............................................................................................
কুকুর শনাক্ত করবে ম্যালেরিয়া রোগ
.............................................................................................
হঠাৎই হারিয়ে গেল জাপানের আস্ত একটি দ্বীপ!
.............................................................................................
৪০০ কোটি বছরেরও পুরোনো গোমেদ পাথর!
.............................................................................................
যে কারণে সুইসাইড স্পট হয়ে ওঠে এই স্টার হোটেলটি
.............................................................................................
আমার শরীরটা পুরুষের ছিল, কিন্তু মনটা ছিল নারীর
.............................................................................................
এই পান্নার দাম ১৫ কোটি টাকা!
.............................................................................................
অসাধারণ জীবনীশক্তি মিঠা পানির জেলিফিশের
.............................................................................................
দাবানল ঠেকাবে ছাগল বিগ্রেড
.............................................................................................
নিজের স্বরের এই ৭ তথ্য আপনি জানেন কি?
.............................................................................................
পাঁচ মাস বয়সেই যুক্তরাষ্ট্রের ৫০ অঙ্গরাজ্য ভ্রমণ
.............................................................................................
বিশ্বের উষ্ণতা কমানোর ৫ উপায়
.............................................................................................
ভারতের যেসব মন্দিরে নারীদের প্রবেশ নিষেধ
.............................................................................................
চুল শুকাতে সোনার হেয়ার ড্রায়ার!
.............................................................................................
১৯ বছর ধরে যে শহরে চলে না গাড়ি
.............................................................................................
বরফের নিচে আশ্চর্য শহর
.............................................................................................
মোগলাই খাবার এত স্পাইসি হয় কেন?
.............................................................................................
সেতুও আবার রোলার কোস্টার হয় নাকি
.............................................................................................
Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale
Digital Load Cell
Digital Indicator
Digital Score Board
Junction Box | Chequer Plate | Girder
Digital Scale | Digital Floor Scale

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম ।
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন ।
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন ।

সম্পাদক কর্তৃক শরীয়তপুর প্রিন্টিং প্রেস, ২৩৪ ফকিরাপুল, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত । সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্ল্যাক্স (৬ষ্ঠ তলা) । ২৮/১ সি টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল, বা/এ ঢাকা-১০০০ । জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা ।
ফোন নাম্বার : ০২-৯৫৮৭৮৫০, ০২-৫৭১৬০৪০৪
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, ০১৯১৬৮২২৫৬৬ ।

E-mail: dailyganomukti@gmail.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD