ঢাকা,শনিবার,১১০ মাঘ ১৪২৭,২৩,জানুয়ারী,২০২১ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > করোনায় ৫৮ শতাংশ তৈরি পোশাক শ্রমিকের আর্থিক চাপ বেড়েছে   > নাসিরনগরে বাড়ছে ডায়রিয়ার প্রকোপ   > ভাঙ্গন আতঙ্কে তিন উপজেলার মানুষ   > সাপাহারে দম্পতি মেলা   > রূপগঞ্জে ইটভাটায় বিলীন হচ্ছে ফসলি জমি   > ‘বস’ হয়ে আসছেন খন্দকার ইসমাইল   > শীর্ষ গোলদাতা এখন রোনালদো   > ৭ কেজি স্বর্ণ নিয়ে গোপনে বিমানবন্দর ত্যাগ করছিলেন সারোয়ার   > বৃদ্ধাকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনকারি রেখা স্বামীসহ ৮ দিনের রিমান্ডে   > ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে এমপি একরামুল করিমের ‘রাজাকার’ লাইভ বক্তব্য ভাইরাল  

   ফিচার
  অতিথি পাখিদের কলরবে মুগ্ধ দিনাজপুরের শেখপুরা ইউনিয়নে ভাটিনা গ্রামের মানুষ
  Publish Time : 21 December 2020, 12:59:43:PM

রাজু বিশ্বাস, দিনাজপুর প্রতিনিধি : পাখি দেখে যেন মনটা জুড়ে যায়। এমনি দৃশ্য চোখে পড়ে শেখপুরা ইউনিয়নে ভাটিনাগ্রামে। লোকালয়ের শব্দের মাঝে শুনা যায় মিষ্টি শব্দের চেঁচামিচি। পুকুর পাড়ে বাঁশের ঝোপে চোখ তাকালেই শত শত পানকৌড়ি ও ঘুঘুর পাখির সমাগম। ভাটিনা গ্রামটির চারিদিকে সৌন্দর্য়ের এক অপরিসীম সৌন্দর্য নানা রকমের পাখির কলারবের দৃশ্য পরিলক্ষিত। মনে হচ্ছে পাখির অভয়অরণ্য গড়ে উঠেছে। শুধু পাখির কিচি-মিচির শব্দ মুগ্ধ করেছে চারদিক। কেউবা বসছে তারের উপরে কেউবা উড়ে গিয়ে বসছে গাছের ডালে। শত শত পাখির কোলাহল এই রকম দৃশ্য কম গ্রামে দেখা যায়। এই গ্রামে পাখি সংরক্ষনের জন্য বিভিন্ন রকম পন্থা অবলম্বন করেছেন এইখানের মানুষ। তাদের মধ্যে পরিবেশবীদ খেতাবে ভুষিত নাম না জানা ব্যক্তিত বীর মুক্তযোদ্ধা মোঃ আবুল হাসেম তালুকদার। তার আক্রান্ত পরিশ্রমের ফসলে হয়ে উঠেছে এই মনোমুগ্ধকর পরিবেশ। এখানকার মানুষেরা কোন জীব নিধন করে না, বরং সংরক্ষনে রাখার চেষ্টা করে আসছে। এইখানে সব জীব যেন নিরাপদে চলাচল করে। এ সমস্ত প্রাকৃতিক সৌন্দর্য চোখে পড়ার মত। পুকুড়ের পাশে বাঁশ ঝোপে ঝাকে ঝাকে রাত চোড়া পাখি ও নানা রকমের বক দেখা যায়। এই গ্রামটিতে পাখিদের অভয়অরেন্যের জন্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরুপ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবুল হাসেম তালুকদারকে জাতীয় পুরষ্কারে ভুষিত করা হয়েছে। শুধু তাই নয় কথা প্রসঙ্গে জানান শৈশবে ও কৈশরে পাখিদের যে কোলাহল দেখেছিলাম দিন দিন তা হারিয়ে যেতে বসেছে। তাই প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে ও প্রকৃতির সৌর্ন্দযের পরিবেশ থাকায় ১৯৮৫ সালে নিজ গ্রামটিতে বসবাসের জন্য আসি। এক সময় শহরে বসবাস করতাম। আমাদের দেশে জীব বৈচিত্র প্রাকৃতিক মনোমুগ্ধকর পরিবেশ তৈরিতে নিজে স্বপ্ন দেখি। প্রকৃতির বিভিন্নরুপতা হ্রাস পেতে বসেছে। ভাবলাম আমার নিজ গ্রামটিকে পাখিদের নিরাপদ অভয় অরন্য গড়ে তুলব। এখানে মাছরাঙ্গা, রাতচোরা, বুলবুলি, চড়ুই, কাকাতুয়া, দোয়েল, গাংচিল, ভেটকই, গেওরা, শালিক, কোকিল, পানকৌড়ি, ঘুঘু ও চার রকমের বকসহ নানা জাতের ছোট পাখি দেখা যায়। বিশেষ করে খরগোস, বিজি, শিয়াল ও বারবিড়ালসহ ছোট ছোট বন্য প্রানী এবং নানারকম পাখি এই গ্রামের সৌন্দর্যকে আরও সুন্দর করে তুলেছে। সময়ের সঙ্গে এই সব প্রানী হারিয়ে যেতে বসেছে। পাখি সংরক্ষনের জন্য প্রতিটি পাড়ায় সাইনবোর্ড লাগাই এবং মাইকিং করি হাটে-বাজারে প্রচার ও লিফলেট বিতরন করি। নিজেকে কঠোর পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে এলাকার জনগনকে বন্য প্রানী ও পাখি সংরক্ষনে উদ্বুদ্ধকরন করার জন্য যা যা পদক্ষেপ দরকার তা গ্রহন করি। এখানকার মানুষদের বোঝাই তারা বুঝে। বীর মুক্তযোদ্ধা মোঃ আবুল হাসেম তালুকদার আরও জানান, জাহাঙ্গীনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাখি পর্যবেক্ষক টিম তিন দিনের সফরে এখানে এসেছিল তাদের গবেষনায় এখানে ৬৫ ধরনের পাখির সন্ধান পেয়েছে।
১৯৮৫ সাল থেকে আমার পাখি সংরক্ষনের উদ্যোগ এখনও পর্যন্ত চালিয়ে যাচ্ছি। আমার একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস। পাখি সংরক্ষনে বৃহদাকারভাবে ধারন করার জন্য নতুন প্রজন্মকে আহবান জানান যেন বাংলার চিরায়ত রুপে পাখিদের সমাহারে পরিনত করতে পারি। এইখানে বাংলার চিরাচরিত রুপকে ফিরে পাব। পাখিদের ডাক ও কোলাহলের প্রকৃতির সুর মনকে সতেজ করে। শিশুরা পাখিদের ভালবাসতে পারলে সুন্দর মন গড়ে উঠবে। যারা বন্য প্রানীকে ভালবাসে তারা ভাল মানুষ হয় ভবিষৎ জীবনে সুন্দর সমাহারে একটি ভাল মানুষের রুপ নেয় শিশুদেরকে এটি বুঝাতে হবে তারা আগামী দিনের এই দেশের সম্পদ। শিশুদের পাঠ পুস্তকে জীব বৈচিত্রময় ও পাখিদের সংরক্ষনের কথা বুঝাতে হবে। তাহলে ভবিষৎতে আমাদের প্রকৃতিতে নির্মল আনন্দদায়ক থাকার মত পরিবেশ আসবে যা আগে ছিল। আমাদের সকলের উচিত প্রকৃতিকে ভলবাসতে। ১৯১৩ সালে বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড ফর ওয়াইল্ড লাইফ পুরস্কারে রাষ্ট্রীয় ভাবে ভুষিত করা হয়। নেপাল, ভুটান, বাংলাদেশ ও ভারত বিশ্বব্যাংকের ওয়ার্ল্ড প্রজেক্ট থেকে ২০১৬ সালে পাখি সংরক্ষনের জন্য বিশেষ পুরষ্কার পান।



সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 92        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     ফিচার
থামছেই না টাঙ্গুয়ায় পাখি শিকার
.............................................................................................
হারিয়ে যাচ্ছে শরীয়তপুরের কুটির শিল্প
.............................................................................................
কালের সাক্ষী ৪০০ বছরের বলিয়াদী জমিদার বাড়ি
.............................................................................................
বরগুনায় নৌকা জাদুঘর
.............................................................................................
রাজবাড়ীতে এক বাড়িতে ৫০টি মৌচাক
.............................................................................................
কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে গরুর গাড়ির দৌড় প্রতিযোগিতা
.............................................................................................
চৌহালীতে সরিষা ক্ষেতে মধু চাষ
.............................................................................................
ফুরবাড়িতে ভাপা পিঠা বিক্রি করে স্বাবলম্বি সুজন
.............................................................................................
অতিথি পাখিদের কলরবে মুগ্ধ দিনাজপুরের শেখপুরা ইউনিয়নে ভাটিনা গ্রামের মানুষ
.............................................................................................
ঐতিহ্য হারাচ্ছে দাগনভূঞার জমিদার বাড়ি
.............................................................................................
জয়পুরহাটে পরিযায়ি পাখির অভয়ারণ্য পুন্ডুরিয়া গ্রাম
.............................................................................................
কাস্তে বানাতে ব্যস্ত মির্জাগঞ্জের কামারা
.............................................................................................
কুমিল্লার কুচিয়া যাচ্ছে বিদেশে
.............................................................................................
ফুলবাড়িতে বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ী
.............................................................................................
অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা রাঙ্গাবালী
.............................................................................................
জাবি ক্যাম্পাসে পরিযায়ী পাখিদের আনাগোনা
.............................................................................................
ঝুটের জোড়া তালির কম্বলে নারীদের ভাগ্য বদলে চেষ্টা
.............................................................................................
সুপারি কেনা-বেচায় ভালো দাম পাওয়ায় ক্রেতা-বিক্রেতাদের মুখে হাসি
.............................................................................................
ঠাকুরগাঁও বুড়ির বাঁধে মাছ ধরা উৎসব
.............................................................................................
ঠাকুরগাঁওয়ের একমাত্র ভারী শিল্প কারখানা সুপ্রিয় জুটমিল
.............................................................................................
গোপালগঞ্জের শাপলার বিল
.............................................................................................
সিরাজদিখানের কোলা ভিলেজ পার্ক
.............................................................................................
শামুক নিধনে ঝুঁকিতে জীববৈচিত্র্য
.............................................................................................
বর্ষার পানি মিলছে দেশি প্রজাতির মাছ
.............................................................................................
স্ট্রিট লাইটের আলোয় আলোকিত ধোবাউড়ার জনপদ
.............................................................................................
পিলপিলের ৪৪ ডিমে চারটি বাচ্চার জন্ম
.............................................................................................
পর্যটকদের জন্য খুলেছে বান্দরবান
.............................................................................................
কদর বেড়েছে মৌসুমি ছাতার কারিগরদের
.............................................................................................
আদর্শ নগর পর্যটন কেন্দ্র হচ্ছে আদর্শ নগরে
.............................................................................................
সুন্দরবনে বেড়েছে মধু উৎপাদন, খুশি মৌয়াল
.............................................................................................
বীরগঞ্জে হারিয়ে যাওয়া মাছ ধরার সামগ্রীর চাহিদা বাড়ছে
.............................................................................................
রামসাগর জাতীয় উদ্যানে কোলাহল মুক্ত পরিবেশে চিত্রা হরিন দল
.............................................................................................
দস্যুতা দমন ও মৎস্য সম্পদ রক্ষায় কাজ করছে পুলিশ-কোস্টগার্ড-র‌্যাব
.............................................................................................
নৌকা তৈরী ও কেনাবেচার ধুম!
.............................................................................................
কোরবানীর হাট মাতাতে আসছে ‘বাংলার বস’ ও ‘বাংলার সম্রাট’
.............................................................................................
করোনাকালে জলকেলিতে ব্যস্ত পথশিশু-কিশোরেরা
.............................................................................................
করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হলে বন্ধ থাকবে সিলেটের সব হোটেল
.............................................................................................
নাজিরপুরে বর্ষা মৌসুমে জমে উঠেছে চাইয়ের হাট
.............................................................................................
রাসিক মেয়র লিটনের স্বপ্ন নগরীতে এখন ফুলের সুবাস
.............................................................................................
শরীয়তপুর উন্নয়নের স্বপ্ন
.............................................................................................
যেভাবে করোনাভাইরাস পরীক্ষা করা হয়
.............................................................................................
দিনাজপুরে উঠছে প্রচুর রসালো মিষ্টি লিচু
.............................................................................................
শাল, গজারি, আদিবাসী, আনারস, রাবার চাষ সহ নানা ঐতিহ্যের মধুপুর
.............................................................................................
আমাদেরকে কী সবকিছুই আইন করেই মানাতে হবে?
.............................................................................................
‘৩২ নম্বর’ বাড়িটি এখন ইতিহাস
.............................................................................................
জলবায়ু পরিবর্তন চ্যালেঞ্জ : পানি ও পরিবেশ
.............................................................................................
১৩৬ বছরেও কাজ করছেন সোনাভান
.............................................................................................
আমাদের সেই মহানায়ক
.............................................................................................
সুতাং নদীর দূষিত পানিতে মারা যাচ্ছে জলজ প্রাণী
.............................................................................................
মহম্মদপুরে ঋতুরাজ বসন্তের শিমুল ফুল
.............................................................................................
Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale
Digital Load Cell
Digital Indicator
Digital Score Board
Junction Box | Chequer Plate | Girder
Digital Scale | Digital Floor Scale

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop