ঢাকা,সোমবার,১২ আশ্বিন ১৪২৮,২৭,সেপ্টেম্বর,২০২১ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > কোস্টগার্ডের অভিযানে ইয়াবা ও গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক   > বাণিজ্য সম্প্রসারণে বৈশ্বিক ভিত্তি বঙ্গবন্ধুর তৈরি করা   > সাবেক প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তাঁর স্ত্রীর বিচার শুরু   > করোনায় শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২১   > প্রধানমন্ত্রী ওয়াশিংটনে অবস্থান করছেন   > একদিনে ৮০ লাখ ডোজ টিকা   > রাজবাড়ীতে জন্ম নিবন্ধন তৈরিতে নাজেহাল সনদ গ্রহিতারা   > গ্রাম ও শহরের মধ্যে পার্থক্য থাকবে না : এমপি নয়ন   > সোনাইমুড়ীতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন   > নন্দীগ্রামে ১৫ বছরেও চালু হয়নি হাসপাতাল  

   ফিচার
  হারিয়ে গেছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য হারিকেন
  Publish Time : 8 September 2021, 2:23:17:PM

জি এম ফিরোজ উদ্দিন, মণিরামপুর : আবহমান গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য হারিকেন এখন শুধুই স্মৃতি। যারা টেবিলের মাঝখানে হারিকেন রেখে চার পাশে বসে হারিকেনের মিট মিট আলো তে পড়া লেখা করে ছেন তারা আজ অনেক বড় বড় কর্মকর্তা উচ্চপদস্থ সরকারি বেসরকারি লোক। পথিকের পথের সাথী হারিকেন আজ শতভাগ বিদ্যুতায়নের যুগে কালের বিবর্তনে বিলুপ্তির পথে। গ্রামের মানুষের নিত্যা সঙ্গী ছিলো যে হারিকেন। যা দিয়ে গ্রাম বাংলার রাতের আঁধার দূরীভৃত হতো তা আজ টর্চ লাইট বা গ্যাস লইট দিয়ে খুজে পাওয়া মুশকিল। এই কেরোসিন তেলের হারিকেন জ্বালিয়ে রাতে কৃষকরা হালচাষ করতে দেখা গেছে। রাতে মাছ শিকার করেছে। তা আর দেখা যায় না গ্রামে। হারিকেন দেখতে কেমন এ প্রশ্নের উত্তর খোঁজার জন্য পরবর্তী প্রজন্ম ছেলে মেয়ে রা জাদুঘরে যেতে হবে।হারিকেন গ্রামীণ ঐতিহ্যের প্রতীকগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি। বিদ্যুৎবিহীন গ্রামের আলোর চাহিদা মিটানো বা অন্ধকার দূর করতে এক সময় গ্রামের মানুষের অন্যতম ভরসা ছিলো হারিকেন। যার জ্বালানি হিসাবে ব্যবহার হতো কেরোসিন। যার অন্যতম জ্বালানি উপাদান ছিলো কেরোসিন। তখনকার সময় এসব জ্বালানি গ্রামঅঞ্চলে রাতে বিয়ে, যাত্রাগান, জারি সারি গান, মিলাদ মাহফিল ইত্যাদি অনুষ্ঠান করা হতো। হারিকেন জ্বালিয়ে বাড়ীর ওঠানে বা ঘরের বারান্দায় ছাত্র, ছাত্রী রা বসে এক সাথে পড়াশুনা করতো।আবার রাতে খাবার ও খেতো। আজ আধুনিকতার ছোয়ায় বদলে গেছে সেসব। সেই হারিয়ে যাওয়ার ধারাবাহিকতায় হারিয়ে গেছে এক সময়ের রাতের সঙ্গী হারিকেন। কয়েকদশকের বেড়ে ওঠা মানুষের স্মর্তির সাথে জড়িয়ে আছে হারিকেন শব্দ টা কিংবা জ্বলার দৃশ্যটা। জ্বালানোর আগে ঘরের গৃহিনীরা ওটাকে পরিস্কার করে যেনে আলো আরো ভালো পরিস্কার দেখা যায়। এখন অনেকেই চিনতে পারবে না। এই প্রযুক্তিটি। হারিকেন কেবল ঘরকে আলোকিত করবার জন্যই রাখা হতো না অন্ধকারে বাড়ীর বাইরে কোথাও গেলে এই হারিকেন ব্যবহার করা হতো। তখন রাতের সাথী ছিলো হারিকেন। আলোও হতো বেশ। যদি ও এখনকার সাদা আলোর মতো নয়। তখন এই ছিলো বেশ ভালো আলো। যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলা জুড়ে আগের মত এখন আর হারিকেনের ব্যবহার দেখা যায় না।দোকান গুলোতে পাওয়া যায় না হারিকেন। ভ্যান গাড়ীতেও মিলছে না হারিকেন। মো আব্দুল মাজিদ গাজি ও মো সদর আলী গাজি বয়স ৭৫/৭৬ ছুই ছুই আমাদের সময় ঐ লম্প,হারিকেন এর ব্যবহার খবে বশীই ছিলো। সব কাজে লাগতো এই হারিকেন। আমাগে সময় কারেন্টের কোন দেখা মিলতো না। তখন আমরা টেলিভিশন দেখতে অনেক দুরে যেতে হতো তাও আবার চার্জ এর ব্যাটারি তে। তারা আরো স্মতিচারন করেন, খুব মনে পড়ে সে সব দিনের কথা যখন ছোট ছিলাম ইলেকট্রনিক যত্রাংশ ছিলো না ঘরে। আমরা পড়তে সন্ধ্যায় বসতাম পাটি নেছে মাঝে রেখে দিতাম তার আলোতে পড়াশুনা করতাম। আলো কম যদি থাকতো তাহলে। বকাবকি করলে মা রান্না ঘর থেকে কুপি বাতি এনে দিতো।আর একটু ঝড়, বৃষ্টি হলে হারিকেন আর কুপির আলো নিভু নিভু করতো। তখন পড়া থেকে বেঁচে যেতাম।রাতে সুবার ঘুমাবার সময় হারিকেন নিভু নিভু করে রাখতেন।যদি কোন কিছু আসে তার জন্য। সে সময় খুব মজা হতো যখন পড়া আর হতো না। সে সময় আমরা বাবা, মা, দাদা, দাদী, ভাই, বোন সভাই এক সাথে খেতাম হারিকেনের আলোতে। তখনকার কথা মনে পড়লে শুধু ই ভালো লাগে কি ভাবে দিন কাটিয়েছি। খুব সুন্দর সময় ছিলো সে সময়। মো রফিক, সহ আরো অনেকেই বলেন ২০০৩/২০০৪ সালের কথা তখনও হারিকেনের আলোয় পড়াশুনা করেছি। বিদ্যুৎ ছিলো কিন্তু যখন লোডশেডিং হতো তখন হারিকেন, কেই বা ল্যাম্প, বা মোমবাতির আলোতে পড়েছি। এস এস সি পরীক্ষা দিতে হবে তার জন্য স্কুলে থেকে পড়তে হবে সেখানেও হারিকেনের আলোতে পড়েছি। কিন্তু সেই হারিকেন, ল্যাম্প বাতী এখন আর সে ভাবে চোখে মেলে না। বাজারের এক ব্যবসায়ী বলেন আমি বিগত দিনে হারিকেন, ল্যাম্প বিক্রয় করেছি কিন্তু এখন আর বিক্রয় নেই বলতে গেলে চলে। হারিকেনের দামছিলো ১০০ টাকা থেকে ২৫০ টাকা পযন্ত বিক্রয় করেছি আর ল্যাম্প ১০/২০ টাকা বিক্রয় করেছি।



সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 89        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     ফিচার
হারিয়ে গেছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য হারিকেন
.............................................................................................
নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
কালের আবর্তে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য স্বাধীন বাহন পালকী
.............................................................................................
মির্জাগঞ্জে ব্যস্ত সময় পার করছে কামাররা
.............................................................................................
বীরগঞ্জে কর্মহীন নারীদের ভাগ্য বদলে দিয়েছে পরচুলা শিল্প
.............................................................................................
গাংনীর জমিদার বাবু যাবে ঢাকায়
.............................................................................................
ঐতিহাসিক কান্তজীউ মন্দির টেরাকোটা অনন্য নিদর্শন
.............................................................................................
চলনবিলে নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা
.............................................................................................
শরীয়তপুর জেলা পরিষদ যার প্রতিটি স্থানেই নান্দনিকতার ছোঁয়া
.............................................................................................
হালদার বিল পর্যটন কেন্দ্রের সম্ভবনা
.............................................................................................
মির্জাগঞ্জে চাই বেচাকেনার হিড়িক
.............................................................................................
গরমে স্বস্তি পেতে তালের শাঁস
.............................................................................................
চরবালুয়া দ্বীপ যেন নোয়াখালীর ছিটমহল
.............................................................................................
কাউয়াদিঘি হাওরে ধান কাটা উৎসব
.............................................................................................
সুনসান নিরবতায় পর্যটন কেন্দ্র বিছনাকান্দি
.............................................................................................
গোয়াইনঘাটে চলছে ধান কাটার উৎসব
.............................................................................................
বাগাতিপাড়ায় অস্তিত্ব সংকটে শিমুল গাছ
.............................................................................................
দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে কোটি টাকার মধু সংগ্রহ
.............................................................................................
খাগড়াছড়িতে তৈরি কোটি টাকার খাট
.............................................................................................
পাখিদের রক্ষায় গাছে গাছে কৃত্রিম হাড়ি স্থাপন
.............................................................................................
রাণীশংকৈলে যত্রতত্র অবস্থায় ঐতিহ্যবাহী শিব মন্দির
.............................................................................................
তালা উপজেলার গ্রামগঞ্জ থেকে হারিকেন বিলুপ্ত
.............................................................................................
মির্জাগঞ্জে দেখা মিললো বিলুপ্তপ্রায় পলাশ গাছের
.............................................................................................
বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে ঝালকাঠির শঙ্খশিল্প
.............................................................................................
দেওয়ানগঞ্জে ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা
.............................................................................................
কুমিল্লায় পলো দিয়ে মাছ শিকার
.............................................................................................
পৈত্রিক পেশা ঘোড়া দিয়ে ঘানি ভাঙা
.............................................................................................
বিদেশি পর্যটক আকৃষ্টে পতেঙ্গায় হচ্ছে বিশ্বমানের ট্যুরিস্ট জোন
.............................................................................................
নবীনগরে বিলুপ্তির পথে বাঁশশিল্প
.............................................................................................
মেহেরপুর বিলুপ্তির পথে ঘটকালী প্রথা
.............................................................................................
ঠাকুরগাঁওয়ে ব্যস্ত মৌ-চাষীরা
.............................................................................................
কমলগঞ্জের তাঁতশিল্পে উৎপাদিত পণ্যের চাহিদা বাড়ছে বিশ্ববাজারে
.............................................................................................
থামছেই না টাঙ্গুয়ায় পাখি শিকার
.............................................................................................
হারিয়ে যাচ্ছে শরীয়তপুরের কুটির শিল্প
.............................................................................................
কালের সাক্ষী ৪০০ বছরের বলিয়াদী জমিদার বাড়ি
.............................................................................................
বরগুনায় নৌকা জাদুঘর
.............................................................................................
রাজবাড়ীতে এক বাড়িতে ৫০টি মৌচাক
.............................................................................................
কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে গরুর গাড়ির দৌড় প্রতিযোগিতা
.............................................................................................
চৌহালীতে সরিষা ক্ষেতে মধু চাষ
.............................................................................................
ফুরবাড়িতে ভাপা পিঠা বিক্রি করে স্বাবলম্বি সুজন
.............................................................................................
অতিথি পাখিদের কলরবে মুগ্ধ দিনাজপুরের শেখপুরা ইউনিয়নে ভাটিনা গ্রামের মানুষ
.............................................................................................
ঐতিহ্য হারাচ্ছে দাগনভূঞার জমিদার বাড়ি
.............................................................................................
জয়পুরহাটে পরিযায়ি পাখির অভয়ারণ্য পুন্ডুরিয়া গ্রাম
.............................................................................................
কাস্তে বানাতে ব্যস্ত মির্জাগঞ্জের কামারা
.............................................................................................
কুমিল্লার কুচিয়া যাচ্ছে বিদেশে
.............................................................................................
ফুলবাড়িতে বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ী
.............................................................................................
অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা রাঙ্গাবালী
.............................................................................................
জাবি ক্যাম্পাসে পরিযায়ী পাখিদের আনাগোনা
.............................................................................................
ঝুটের জোড়া তালির কম্বলে নারীদের ভাগ্য বদলে চেষ্টা
.............................................................................................
সুপারি কেনা-বেচায় ভালো দাম পাওয়ায় ক্রেতা-বিক্রেতাদের মুখে হাসি
.............................................................................................
Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale
Digital Load Cell
Digital Indicator
Digital Score Board
Junction Box | Chequer Plate | Girder
Digital Scale | Digital Floor Scale

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop