ঢাকা,বুধবার,৬ মাঘ ১৪২৮,১৯,জানুয়ারী,২০২২ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাংচুরের মামলার বাদির উপর হামলা   > ‘গানে গানে চলছে প্রার্থীদের প্রচারণা’   > ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ১৫ জানুয়ারী থেকে পরিবহন বন্ধের ঘোষণা   > বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাঙচুরকারী বিআইডব্লিউটিএ’র আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা   > নর্থ সাউথের আরও দুই ট্রাস্টি রেহেনা ও বেনজীরকে দুদকে তলব   > ঢাকায় অবৈধ রিকশার বিরুদ্ধে ডিএসসিসির অভিযান   > পথ যত কণ্টকাকীর্ণ হোক, আমরা থেমে থাকব না : প্রধানমন্ত্রী   > বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর মুক্তিযোদ্ধারা পরিচয় দিতে পারেনি : আবুল হাসেম খান এমপি   > শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই জাতি আজ ঐক্যবদ্ধ: এনামুল হক শামীম   > আগামী দুইদিনে শৈত্যপ্রবাহের মাত্রা বাড়বে  

   ধর্ম -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ইসলামের মৌলিক কথা বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে সরকার: শ ম রেজাউল করিম

স্টাফ রিপোর্টার : বর্তমান সরকার ইসলামের মৌলিক কথা বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে বলে নিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে আন্তর্জাতিক কেরাত সম্মেলন ২০২১ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা জানান। আন্তর্জাতিক কুরআন তিলাওয়াত সংস্থা (ইক্বরা) এ সম্মেলন আয়োজন করে। আন্তর্জাতিক কুরআন তিলাওয়াত সংস্থার সভাপতি শাইখ আহমাদ বিন ইউসুফ আল আযহারীর সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সচিব মোহাম্মদ আবদুল কাদের শেখ, পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান সুফি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন আন্তর্জাতিক কুরআন তিলাওয়াত সংস্থার মহাসচিব সাখাওয়াত খান। এছাড়া বাংলাদেশে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের দূতাবাস ও হাইকমিশনের প্রতিনিধিবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী আরো বলেন, "ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন বিধান। ইসলামকে যদি পরিপূর্ণভাবে অনুসরণ করা যায়, নিজের জীবনে চর্চা করা যায়, তাহলে আমরা নিজেরা যেমন ভাল থাকবো, তেমনি দেশ ও দেশের মানুষের জন্য ভালো কিছু করতে পারবো। আল্লাহর সকল সৃষ্টির জন্য আমাদের কর্তব্য রয়েছে। সেটাকে অনুসরণ করা প্রতিটি মুসলমানের জন্য অনিবার্য দায়িত্ব। এ জন্য দরকার ইসলামকে পরিপূর্ণভাবে জানা। যত অসম্পূর্ণভাবে ইসলামকে আমরা জানবো, ততো আমাদের ভেতরে দীনতা থেকে যাবে। খন্ডিত ইসলাম প্রকৃত ইসলাম নয়। ইসলামের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টিকারীরা ইসলামের মঙ্গল কামনা করে না"। ইসলামের উন্নয়নে শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন উল্লেখ করে এ সময় মন্ত্রী বলেন, "প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ সরকার কুরআন-সুন্নাহ পরিপন্থী কোন আইনে দেশে পাস করবে না। তাঁর সরকার দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলায় মডেল মসজিদের নামে পরিচিত ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করছে। মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকায়ন করছে। মাদ্রাসার সর্বোচ্চ শিক্ষাকে এমএ পাসের মর্যাদা দিয়েছে। সরকারি অর্থে মাদ্রাসায় বহুতলবিশিষ্ট ভবন নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে। মাদ্রাসা শিক্ষকদের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। আলেম-ওলামাদের সরকারি খরচে হজ পালনের সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে। মসজিদকেন্দ্রিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করা হয়েচ্ছে।
ইসলামের নামে যারা সন্ত্রাস ছড়ায়, বোমাবাজি করে, উগ্রতা সৃষ্টি করে, অন্য ধর্মাবলম্বীদের প্রতি আক্রমণ করে তাদের কথায় বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য এ সময় আহ্বান জানান মন্ত্রী। রাসূলুল্লাহ (সা.) এর বিদায় হজের বাণীর কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে মন্ত্রী এ সময় বলেন, "আল্লাহর সৃষ্টির প্রতি ইসলামের দায়িত্ব রয়েছে, মুসলমানের দায়িত্ব রয়েছে। আমাদের মনে রাখতে হবে, ইসলামকে পরিপূর্ণভাবে বিশ্বাস করলে, নিজের জীবন চর্চা করলে, আমার কাছে কেউই ক্ষতিকর নয়। আমার কাছে সব ধর্মের মানুষই নিরাপদ। এ জন্য কুরআনকে বুঝতে হবে।
কুরআনের বক্তব্যকে নিজেদের জীবনে অনুধাবন করতে হবে"। মন্ত্রী আরো যোগ করেন, "জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইসলামের কল্যাণে কাজ করেছেন। তিনি ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে বলেছিলেন এদেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো, ইনশাল্লাহ। তাঁর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনাও পরিপূর্ণভাবে ইসলামে বিশ্বাস করেন। তিনি ইসলামের উন্নয়নে নানা গ্রহণ করেছেন"। কেরাত সম্মেলনে ইরান, আফগানিস্তান ও ফিলিপাইনের কারিগণ কুরআন তিলাওয়াতে অংশগ্রহণ করেন।

ইসলামের মৌলিক কথা বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে সরকার: শ ম রেজাউল করিম
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : বর্তমান সরকার ইসলামের মৌলিক কথা বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে বলে নিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। শুক্রবার (২৪ ডিসেম্বর) বিকেলে রাজধানীর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে আন্তর্জাতিক কেরাত সম্মেলন ২০২১ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা জানান। আন্তর্জাতিক কুরআন তিলাওয়াত সংস্থা (ইক্বরা) এ সম্মেলন আয়োজন করে। আন্তর্জাতিক কুরআন তিলাওয়াত সংস্থার সভাপতি শাইখ আহমাদ বিন ইউসুফ আল আযহারীর সভাপতিত্বে সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সচিব মোহাম্মদ আবদুল কাদের শেখ, পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান সুফি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন আন্তর্জাতিক কুরআন তিলাওয়াত সংস্থার মহাসচিব সাখাওয়াত খান। এছাড়া বাংলাদেশে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের দূতাবাস ও হাইকমিশনের প্রতিনিধিবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী আরো বলেন, "ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন বিধান। ইসলামকে যদি পরিপূর্ণভাবে অনুসরণ করা যায়, নিজের জীবনে চর্চা করা যায়, তাহলে আমরা নিজেরা যেমন ভাল থাকবো, তেমনি দেশ ও দেশের মানুষের জন্য ভালো কিছু করতে পারবো। আল্লাহর সকল সৃষ্টির জন্য আমাদের কর্তব্য রয়েছে। সেটাকে অনুসরণ করা প্রতিটি মুসলমানের জন্য অনিবার্য দায়িত্ব। এ জন্য দরকার ইসলামকে পরিপূর্ণভাবে জানা। যত অসম্পূর্ণভাবে ইসলামকে আমরা জানবো, ততো আমাদের ভেতরে দীনতা থেকে যাবে। খন্ডিত ইসলাম প্রকৃত ইসলাম নয়। ইসলামের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টিকারীরা ইসলামের মঙ্গল কামনা করে না"। ইসলামের উন্নয়নে শেখ হাসিনা কাজ করে যাচ্ছেন উল্লেখ করে এ সময় মন্ত্রী বলেন, "প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ সরকার কুরআন-সুন্নাহ পরিপন্থী কোন আইনে দেশে পাস করবে না। তাঁর সরকার দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলায় মডেল মসজিদের নামে পরিচিত ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করছে। মাদ্রাসা শিক্ষার আধুনিকায়ন করছে। মাদ্রাসার সর্বোচ্চ শিক্ষাকে এমএ পাসের মর্যাদা দিয়েছে। সরকারি অর্থে মাদ্রাসায় বহুতলবিশিষ্ট ভবন নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে। মাদ্রাসা শিক্ষকদের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। আলেম-ওলামাদের সরকারি খরচে হজ পালনের সুযোগ করে দেয়া হচ্ছে। মসজিদকেন্দ্রিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করা হয়েচ্ছে।
ইসলামের নামে যারা সন্ত্রাস ছড়ায়, বোমাবাজি করে, উগ্রতা সৃষ্টি করে, অন্য ধর্মাবলম্বীদের প্রতি আক্রমণ করে তাদের কথায় বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য এ সময় আহ্বান জানান মন্ত্রী। রাসূলুল্লাহ (সা.) এর বিদায় হজের বাণীর কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে মন্ত্রী এ সময় বলেন, "আল্লাহর সৃষ্টির প্রতি ইসলামের দায়িত্ব রয়েছে, মুসলমানের দায়িত্ব রয়েছে। আমাদের মনে রাখতে হবে, ইসলামকে পরিপূর্ণভাবে বিশ্বাস করলে, নিজের জীবন চর্চা করলে, আমার কাছে কেউই ক্ষতিকর নয়। আমার কাছে সব ধর্মের মানুষই নিরাপদ। এ জন্য কুরআনকে বুঝতে হবে।
কুরআনের বক্তব্যকে নিজেদের জীবনে অনুধাবন করতে হবে"। মন্ত্রী আরো যোগ করেন, "জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইসলামের কল্যাণে কাজ করেছেন। তিনি ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে বলেছিলেন এদেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো, ইনশাল্লাহ। তাঁর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনাও পরিপূর্ণভাবে ইসলামে বিশ্বাস করেন। তিনি ইসলামের উন্নয়নে নানা গ্রহণ করেছেন"। কেরাত সম্মেলনে ইরান, আফগানিস্তান ও ফিলিপাইনের কারিগণ কুরআন তিলাওয়াতে অংশগ্রহণ করেন।

হেফাজত মহাসচিব নুরুল ইসলাম আর নেই
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব ও তাহাফফুজে খতমে নবুওয়াত বাংলাদেশের আমির আল্লামা নুরুল ইসলাম জিহাদী আর নেই। গতকাল সোমবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি ইন্তেকাল করেন। নুরুল ইসলামের বয়স হয়েছিল ৭৩ বছর। সোমবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে তার ছেলে খালেদ বিন নূর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেওয়া এক স্ট্যাটাসে এ তথ্য জানিয়েছেন। এর আগে শনিবার রাতে গুরুতর অসুস্থ হলে নুরুল ইসলামকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তাকে নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রের (আইসিইউ) লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার আগে নুরুল ইসলাম জিহাদী স্ট্রোক করেন বলে জানান তার ছেলে মাওলানা রাশেদ বিন নূর। শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে মাগরিব নামাজের পর ওলামা মাশায়েখদের একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেন। রাতে খিলগাঁওয়ের বাসায় ফেরার পথে তিনি স্ট্রোক করেন।
গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর হেফাজত ইসলামের মহাসচিব নুর হোসাইন কাসেমী মারা যাওয়ার পর ২৩ ডিসেম্বর নুরুল ইসলাম জিহাদীকে সংগঠনটির দ্বিতীয় শীর্ষস্থানীয় পদ মহাসচিবের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তখন হেফাজতের আমির ছিলেন জুনায়েদ বাবুনগরী। গত ১৯ আগস্ট তিনি মারা যাওয়ার পর এখন তার মামা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী আমিরের দায়িত্ব পালন করছেন।

মসজিদের পাশাপাশি খোলা জায়গায় ঈদের জামাত
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা মহামারির মধ্যে তিনটি ঈদের পর এবার ঈদগাহে ঈদের নামাজের জামাতে অংশ নেওয়ার সুযোগ আসছে। গতকাল ধর্ম মন্ত্রণালয়ের একটি জরুরি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আসন্ন ঈদুল আজহার জামাত মসজিদের পাশাপাশি ঈদগাহ বা খোলা জায়গায়ও আয়োজন করা যাবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের স্থানীয় পরিস্থিতি ও মুসল্লিদের জীবন-ঝুঁকি বিবেচনা করে স্থানীয় প্রশাসন জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে আলোচনা এবং সমন্বয় করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পবিত্র ঈদুল আজহার জামাত মসজিদ, ঈদগাহ বা খোলা জায়গায় আয়োজনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। ঈদের জামাত আয়োজনে বেশ কয়েকটি শর্ত মানতে হবে। সেগুলো হলো মসজিদে ঈদের নামাজ আয়োজনের ক্ষেত্রে কার্পেট বিছানো যাবে না। নামাজের আগে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবাণুনাশক দিয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। মুসল্লিরা নিজ দায়িত্বে জায়নামাজ নিয়ে আসবেন। এ ছাড়া প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসা থেকে অজু করে মসজিদ বা ঈদগাহে আসতে হবে এবং অজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান–পানি দিয়ে হাত ধুয়ে নিতে হবে। শর্তের মধ্যে আরও রয়েছে, মসজিদ বা ঈদগাহে অজুর স্থানে সাবান, পানি ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখা এবং প্রবেশদ্বারেও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান ও পানি রাখতে হবে। মুসল্লিদের অবশ্যই মাস্ক পরে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না। ঈদের নামাজ আদায়ের সময় কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি অবশ্যই অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে এবং এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে। শিশু, বয়োবৃদ্ধ, অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিদের ঈদের নামাজের জামাতে অংশগ্রহণে নিরুৎসাহিত করছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। আর ঈদের জামাত শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো পরিহার করতে হবে।
সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নির্দেশনা অনুসরণ করতে বলেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। নির্দেশনা লঙ্ঘিত হলে স্থানীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবে বলেও সতর্ক করা হয়েছে।

আত্মগোপনে থাকা ইসলামি বক্তা ত্ব-হা’র সন্ধান
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ইসলামি বক্তা নিখোঁজ ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার বিকাল পৌনে ৫টার দিকে রংপুর ডিবি কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলন শুরু হয়। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ঢাকা থেকে ফিরে বন্ধুর বাসায় ছিলেন ত্ব-হা ও সঙ্গীরা। তার বন্ধুর নাম সিয়াম। পুলিশ জানায়, তার বন্ধু বাসায় ছিলেন না। তার মা বাসায় ছিলেন। তারা একটি ব্যক্তিগত কারণে স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে ছিলেন। তারা ওই রাতেই ঢাকা থেকে ফিরেছে অন্য কোথাও অবস্থান করেনি। পুলিশ দাবি করে ব্যক্তিগত কারণে তারা আত্মগোপনে ছিলেন। তবে ব্যক্তিগত কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে পুলিশ জানায় এই মুহূর্তে তারা বলতে পারবেন না। সেটা ভেরিফাই করতে হবে। তাদের তথ্য যাচাই-বাছাই করব। আসলে সব ব্যক্তিগত কারণ তো বলা যায় না। এর আগে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে আবু ত্ব-হাকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়। ৮ দিন ধরে নিখোঁজ থাকার পর সন্ধান মিলেছে রংপুরের আলোচিত বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের। শুক্রবার দুপুরে তার শ্বশুরের বাসায় তাকে পাওয়া যায়। রংপুর মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রশিদ জানান, বিকাল ৩টার দিকে তাকে রংপুর নগরের আবহাওয়া অফিস সংলগ্ন মাস্টার পাড়ার শ্বশুরবাড়ি থেকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

বাংলাদেশিরা এবারও হজ্বে যেতে পারছেন না
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যে এবারও বাইরের কোনো দেশ থেকে সৌদি আরবে পবিত্র হজ পালন করতে যেতে পারবেন না মুসল্লিরা। ফলে বাংলাদেশিরাও এবার হজ পালন করতে পারছেন না। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান গতকাল শনিবার বলেন, ‘সৌদি আরব সরকার জানিয়েছে, করোনা মহামারি পরিস্থিতি বিবেচনায় এ বছরও সৌদি আরবের বাইরের কোনো দেশ থেকে যাত্রীরা হজের সুযোগ পাবেন না।’ ‘সৌদি আরবের নাগরিক এবং সৌদি আরবে অবস্থানকারী অন্যান্য দেশের মুসলিমদের নিয়ে সীমিত আকারে হজ পালিত হবে’, সচিবালয় থেকে ভিডিওবার্তায় যোগ করেন প্রতিমন্ত্রী। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গত বছরও ‘সীমিত পরিসরে’ হজ অনুষ্ঠিত হয়। গত বছরও বাংলাদেশ থেকে কেউ সৌদি আরবে গিয়ে হজ করার সুযোগ পাননি। স্বাভাবিক সময়ে প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে হজ পালনে সৌদি আরব যেতে পারেন সোয়া লাখেরও বেশি বাংলাদেশি। প্রতিবছর হজে কয়েক লাখ মানুষ সৌদি আরবের মক্কা নগরীতে জমায়েত হন। এই বিপুল সংখ্যক মানুষের সমাগম বর্তমান করোনাভাইরাসের পরিপ্রেক্ষিতে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এই বিবেচনায় সৌদি সরকার ‘সীমিত পরিসরে’ হজ পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ বছরও হজ পালনের আশায় দেশে ৬০ হাজার মানুষ প্রাক-নিবন্ধন করেছিলেন। ‘টাকা যদি কেউ উঠিয়ে নিতে চায় সেটা তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়। দিচ্ছেও। যারা উঠিয়ে নিতে চাচ্ছেন তাদের দিচ্ছেও। কেউ আংশিক উঠিয়ে নিচ্ছে তাঁর বিপদের জন্য। তাঁর সিরিয়ালটা যেন নষ্ট না হয়। এরকমও করেছেন অনেকে।’

রোজা রেখে করোনার টিকা নেওয়া যাবে: ইসলামিক ফাউন্ডেশন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রোজা রেখে করোনাভাইরাসের টিকা নেওয়া যাবে বলে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মতবিনিময় সভায় একমত পোষণ করা হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ড. মো. মুশফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে দেশের বরেণ্য উলামায়ে কেরাম এবং ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে ওই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নূরুল ইসলাম সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। সভায় পবিত্র রমজান মাসে কোভিড-১৯ এর চলমান টিকা কার্যক্রম বিষয়ে আলোচনা করা হয় এবং দেশের জনগণের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা ও জীবন রক্ষার স্বার্থে করোনার টিকা গ্রহণের প্রতি গুরুত্ব আরোপ করা হয়।
আলোচনায় উপস্থিত আলেম সমাজ সর্বসম্মতভাবে একমত পোষণ করেন যে, যেহেতু করোনাভাইরাসের টিকা মাংসপেশিতে গ্রহণ করা হয় এবং তা সরাসরি খাদ্যনালী ও পাকস্থলীতে প্রবেশ করে না, সেহেতু রমজান মাসে রোজাদার ব্যক্তি দিনের বেলায় শরীরে করোনাভাইরাসের টিকা গ্রহণ করলে রোজা ভঙ্গ হবে না। উল্লেখ্য যে, এ মর্মে মুসলিম বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় আলেমরাও একইরূপ মত পোষণ করেছেন। কাজেই রোজা রেখে করোনাভাইরাসের টিকা গ্রহণ করা যাবে।

পবিত্র শবে মেরাজ ১১ মার্চ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের আকাশে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় রজব মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। আগামী রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) থেকে ১৪৪২ হিজরির রজব মাস গণনা শুরু হবে। পবিত্র শবে মেরাজ পালিত হবে আগামী ১১ মার্চ (২৬ রজব) বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে।
রাজধানীর বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আলতাফ হোসেন চৌধুরী। শবে মেরাজের দিন বাংলাদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকে। তবে সরকারি প্রতিষ্ঠানে এ দিন ঐচ্ছিক ছুটি।
সভায় অতিরিক্ত সচিব জানান, সব জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, আবহাওয়া অধিদফতর, মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশের আকাশে ১৪৪২ হিজরির রজব মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। এজন্য শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) জামাদিউস সানি মাসের ৩০ দিন পূর্ণ হচ্ছে। রোববার থেকে রজব মাস গণনা শুরু হবে। আগামী ১১ মার্চ পবিত্র শবে মেরাজ পালিত হবে। ‘শবে মেরাজ’ অর্থ ঊর্ধ্ব গমনের রাত। মুসলমানদের ধর্ম বিশ্বাস অনুযায়ী, ২৬ রজব দিবাগত রাতে ঊর্ধ্বাকাশে ভ্রমণ করে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স.) আল্লাহ তায়ালার সাক্ষাৎ লাভ করেছিলেন। এ বছর সেই রাতটি পড়েছে আগামী ১১ মার্চ।
শবে মেরাজ মুসলমানদের কাছে বিশেষ মর্যাদার। ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা নফল ইবাদত বন্দেগির মধ্য দিয়ে এই মূল্যবান রাত কাটান। এইদিন অনেকে নফল রোজাও রাখেন।
সভায় তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মিজান-উল-আলম, ওয়াকফ প্রশাসক আব্দুল্লাহ সাজ্জাদ, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক ফারুক আহম্মেদ, বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানের পিএসও আবু মোহাম্মদ, মাদরাসা-ই-আলিয়ার অধ্যক্ষ মো. আলমগীর রহমান, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমান, লালবাগ শাহী জামে মসজিদের খতিব মুফতি মুহাম্মদ নেয়ামতুল্লাহ ও চকবাজার শাহী জামে মসজিদ এর খতিব মুফতি শেখ নাঈম রেজওয়ান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

দেওয়ানবাগী পীর সৈয়দ মাহবুব আর নেই
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকার আরামবাগ এলাকায় `দেওয়ানবাগ দরবার শরীফ` এর প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ মাহবুব-এ-খোদা মারা গেছেন, যিনি `দেওয়ানবাগী পীর হিসাবে` পরিচিত ছিলেন। গতকাল সোমবার ভোরে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়ে বলে দেওয়ানবাগ শরীফের ফেসবুক পাতায় নিশ্চিত করা হয়েছে। দেওয়ানবাগ দরবার শরীফের ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, তার পুরো নাম মাহবুব-এ খোদা। তবে ভক্তদের কাছে তিনি `দেওয়ানবাগী` হিসাবে পরিচিত ছিলেন। তার বড় একটি ভক্ত শ্রেণী রয়েছে। তার ভক্তরা বলেন, "ধর্মীয় নেতাদের অনেকেই তাকে নিয়ে বিতর্ক তৈরি করার চেষ্টা করেছে, কিন্তু আমরা মনে করি তার অবস্থান সঠিক, এবং সেজন্য সাধারণ মানুষসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশায় তার অনেক ভক্ত তৈরি হয়েছে।"
১৯৪৯ সালের ১৪ই ডিসেম্বর ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। সেখানকার তালশহর কারিমিয়া আলিয়া মাদ্রাসা থেকে ফাজিল পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন তিনি। ফরিদপুরের চন্দ্রপাড়া দরবারের প্রতিষ্ঠাতা আবুল ফজল সুলতানা আহমেদ চন্দ্রপুরীর মেয়ে হামিদা বেগমকে বিয়ে করেন। এর কিছুদিন পরে নিজেই নারায়ণগঞ্জে দেওয়ানবাগ নামের একটি স্থানে আস্তানা তৈরি করেন এবং নিজেকে সুফি সম্রাট হিসাবে পরিচয় দিতে শুরু করেন। সেখান থেকেই তার নামের সঙ্গে দেওয়ানবাগী শব্দটি যুক্ত হয়। পরবর্তীতে মতিঝিলের ১৪৭ আরামবাগে স্থায়ী দরবার গড়ে কার্যক্রম শুরু করেন।

শাহজাদপুরে বৌদ্ধ পরিবারের ৪ জনের ইসলাম গ্রহণ
                                  

জাহিদ হাসান, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের বাঘাবাড়ী দক্ষিণ পাড়ে এক বৌদ্ধ পরিবারের দুইজন নারী ও দুইজন পুরুষসহ মোট চারজন ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। সম্প্রতি স্থানীয় মসজিদের এক ইমামসাহেব তাদের কালেমা পাঠ করান। এর আগে নোটারী পাবলিক মোকাম সিরাজগঞ্জের মাধ্যমে তারা হলফনামায় স্বাক্ষর করেন। নেপালী বংশদ্ভূত এই বৌদ্ধ পরিবারের ইসলাম ধর্ম গ্রহণকারীগণ হচ্ছেন, মোঃ নজরুল ইসলাম ( নন্দ বাহাদুর), মোছাঃ খাদিজা খাতুন ( সুমিতা রানী), মোছাঃ নুরজাহান ( পিংকি রাণী) ও আবুল কালাম আজাদ ( কালু বাহাদুর)। এ ব্যাপারে নুরজাহান খাতুন সাংবাদিকদের জানান, ইসলাম শান্তি ও সম্প্রীতির ধর্ম। এই ধর্মের মাধ্যমেই পরকালীন জীবনে মুক্তি সম্ভব। আমরা মুসলমানদের সাথে মিশে তাদের আচার ব্যবহারে মুগ্ধ হয়ে এ ধর্মের প্রতি অনুপ্রাণিত হয়েছি। খাদিজা খাতুন ( সুমিতা রাণী) জানান, আমাদের পূর্বপুরুষ নেপালে বাস করছেন। আমার স্বামীর বাড়ি নেপালের কাঠমুন্ডু। অনেকদিন ধরেই আমরা ইসলামের প্রতি আসক্ত। ফলে আলাপ আলোচনা করে স্বপরিবারে ইসলাম কবুল করে ভাল লাগছে। এখানকার সবাই আমাদের সহযোগিতা করছেন। এ ব্যাপারে বাঘাবাড়ী দক্ষিণপাড়ের বিশিষ্ট ব্যবসায়ি হাজী সোলায়মান হোসেন জানান, বৌদ্ধ পরিবারটি দীর্ঘদিন ধরে এখানে বসবাস করছেন। তারা স্বইচ্ছায় ইসলাম কবুল করায় আমরা তাদের পাশে সাধ্যমত থাকার চেষ্টা করছি। অন্যান্যদের এই নও মুসলিমদের সাহায্যে এগিয়ে আসা উচিৎ। নও মুসলিম পরিবারের বিকাশ নং ০১৭৮৯৩৯৮১৮৫ এ সহযোগিতার জন্য দেওয়া হল।

পবিত্র ওমরাহ পালন শুরু
                                  

গণমুক্তি ডেস্ক : করোনার কারণে দীর্ঘ সাত মাস বন্ধ থাকার পর আজ থেকে সীমিত পরিসরে শুরু হচ্ছে পবিত্র ওমরাহ পালন। আপাতত সুযোগ পাচ্ছেন শুধুমাত্র সৌদিতে অবস্থানরত মুসল্লিরা। এখন গড়ে দৈনিক ৬ হাজার মুসল্লি ওমরাহ করতে পারবেন।

করোনার প্রকোপ শুরু হওয়ার পরপরই সৌদি সরকার দেশটির সমগ্র মুসলিম বিশ্বের জন্য সাময়িকভাবে স্থগিতকরে ওমরাহ পালন। প্রায় সাত মাস পর সে নিষেধাজ্ঞা তুলে দিয়ে সীমিত পরিসরে আবার তা চালু করা হয়েছে।

প্রাথমিক অবস্থায় শুধুমাত্র সৌদিতে অবস্থানরত মুসল্লিরাই নিবন্ধনের মাধ্যমে বিশেষ অনুমতি নিয়ে ওমরাহ পালনের সুযোগ পাচ্ছেন। মোবাইলে একটি অ্যাপের মাধ্যমে অনুমতি পাওয়ার পরই ধারাবাহিকভাবে ওমরাহ হজে অংশ নিতে পারছেন তারা। সৌদি সরকারের এ সিদ্ধান্তে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন দেশটিতে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশীরা।

এবার ধারণ ক্ষমতার মাত্র ৩০ শতাংশ মুসল্লি ওমরাহ পালন করছেন। তবে আগামী পহেলা নভেম্বর থেকে সারা বিশ্বের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরাও সে সুযোগ পাবেন।

আপাতত প্রতিদিন গড়ে ছয় হাজার মুসল্লি ওমরায় অংশ নিতে পারলেও চলতি মাসের ১৮ তারিখ থেকে প্রায় ১৫ হাজার এবং আগামী ১ নভেম্বর থেকে বিদেশিসহ দিনে গড়ে ৬০ হাজার মানুষ ওমরাহ করতে পারবেন বলে জানিয়েছে সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ওমরাহ পালনে খুলে দেয়া হচ্ছে কাবা ঘর
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ওমরাহ পালনের জন্য কাবা ঘর খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সৌদি আরব। আগামী ৪ অক্টোবর থেকে মুসল্লিদের জন্য কাবা খুলে দেওয়া হচ্ছে। ফলে মুসল্লিরা আবারও ওমরাহ পালন করতে পারবেন।

সৌদি আরবের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গতকাল মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে কাবা ঘর খুলে দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারি পরিস্থিতির কারণে গত মার্চ মাস থেকেই কাবা ঘর বন্ধ রাখা হয়েছে।

দীর্ঘ ৬ মাসের বেশি সময় পর অবশেষে ওমরাহ পালনের জন্য কাবার দরজা উন্মুক্ত করতে যাচ্ছে সৌদি প্রশাসন। দীর্ঘদিন ধরে কাবা ঘর বন্ধ করে রাখায় এ বছর ওমরাহ পালন নিয়ে অনেকটাই হতাশায় ছিলেন মুসল্লিরা। তাদের জন্য এটা আনন্দের খবর যে এ বছরই তারা ওমরাহ পালন করতে পারবেন।

তবে প্রথমেই হয়তো সৌদির বাইরের নাগরিকদের ওমরাহ পালনের অনুমতি দেওয়া হবে না। প্রথম ধাপে শুধুমাত্র সৌদির নাগরিক ও বাসিন্দারা ওমরাহ পালনের অনুমতি পাবেন বলে জানানো হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির বরাত দিয়ে সৌদি প্রেস এজেন্সি জানিয়েছে, আগামী ৪ অক্টোবর থেকে প্রতিদিন সৌদির ৬ হাজার নাগরিক ও বাসিন্দা ওমরাহ পালনের অনুমতি পাবেন।

তবে সৌদির বাইরের বিদেশি পর্যটকরা আগামী ১ নভেম্বর থেকে কাবা ঘরে প্রবেশের অনুমতি পাবেন। মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আগামী ১ নভেম্বর থেকে প্রতিদিন ২০ হাজার হজযাত্রীকে ওমরাহ পালনের সুযোগ দেওয়া হবে।

বান্দার যে প্রশ্নে ব্যথিত হন আল্লাহ
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : বর্তমানে মুসলিম-অমুসলিম নির্বিশেষে প্রায় সবার মধ্যেই সাধারণ একটি মানসিক হতাশা রয়েছে। আমাদের অনেকের মনে প্রায়ই প্রশ্ন জাগে, ‘পৃথিবীতে এত দুঃখ-কষ্ট, এত খুনোখুনি, ক্ষুধা, রোগশোক ও অন্যায় যখন বিরাজ করছে, নিশ্চিতই যদি আল্লাহ থেকে থাকেন তবে কি তিনি তা দেখছেন না? এ সবকিছু সমাধান করা কি তার ক্ষমতার বাইরে?’

আবার কখনো ব্যক্তিগত পর্যায়ে কোন সমস্যার সম্মুখীন হলে মনে প্রশ্ন জাগে, ‘আল্লাহ যদি আসলেই থাকতেন, তবে কেন আমি কিছু না করার পরও আমার চাকরি চলে গেল?’ অথবা, ‘কী এমন পাপ করেছিলাম যে, আমার আজ এই রোগ হলো?’ বিভিন্ন দুঃসহ পরিস্থিতিতে আমাদের চিন্তা জাগে, কেন আল্লাহ আমাকে এই পরিস্থিতিতে ফেললেন? শুধু অমুসলিমই নয়, বিশ্বাসী ঈমানদার মুসলমানদের মনেও অগোচরে এই চিন্তা চলে আসে। যখন কোন ব্যক্তি কোন সমস্যায় পড়ে, সে চিন্তা করতে থাকে, কেন আল্লাহ আমার সাথে এমন করছেন? কি এমন করেছি আমি? কেউ অসুস্থ হলে চিন্তা করে, ‘এমন কি গুনাহ আমি করেছি যে, আল্লাহ আমাকে এমনভাবে অসুস্থ করে দিলেন?’

কুরআনের প্রথম অধ্যায়, সূরা ফাতিহা যদি পাঠ করলে আমরা দেখি যে, আল্লাহ তাঁর নিজের পরিচয় দিচ্ছেন ‘রাব্বুল আলামীন’ অর্থাৎ সৃষ্টিজগতের অধিকর্তা হিসেবে।

আল্লাহ শুধু আমাদের সৃষ্টিকর্তা, আমাদের পালনকর্তা বা আমাদের প্রতি দয়া ও করুণার আধারই নন, তিনিই আমাদের প্রকৃত অধিকারী। সৃষ্টিজগতের সকল কিছুই তার অধীন।

সৃষ্টিজগতের অধিকর্তা হিসেবে সকল সৃষ্টির উপরই সৃষ্টির নিজস্ব অধিকারের চেয়ে বেশি আল্লাহর অধিকার রয়েছে। সৃষ্ট বস্তুটি তার নিজস্ব সৃষ্টির জন্য আল্লাহকে বিনিময় দেয়নি। আল্লাহই বরং নিজের অনুগ্রহে প্রতিটি বস্তু সৃষ্টি করেছেন।

যদি আমাদের দৈনন্দিন ব্যবহারের কোন কম্পিউটার কাজ না করে বা নষ্ট হয়ে যায়, তবে আমরা তা বদলে নতুন কম্পিউটার আনি। এখানে পুরাতন কম্পিউটারটি আমাদের কাছে কোন প্রকার অভিযোগ করতে পারে না। কেননা, সেটি ছিল আমাদের অধীন। তার নিজস্ব কিছু সৃষ্টির জন্য আমরা তাকে তৈরি করিনি বরং আমরা আমাদের প্রয়োজনেই তা তৈরি করেছি। তেমনি বিশেষ উদ্দেশ্যে আল্লাহ আমাদের তৈরি করেছেন। আমাদের সৃষ্টিতে আমাদের নিজস্ব কোন ভূমিকা ছিল না। আমরা যে নেয়ামত উপভোগ করছি, তার সকল কিছুই আল্লাহ আমাদের দিয়েছেন।

সুতরাং আল্লাহর প্রতি আমাদের কোন প্রকার অনুযোগ বা অভিযোগ থাকতে পারে না। বরং আমাদেরকে আল্লাহ যেই উদ্দেশ্যে তৈরি করেছেন, আমাদের উচিত সেই উদ্দেশ্যের প্রতি মনোযোগ দেওয়া।

মুমিনের যে আমল আল্লাহর কাছে সবচেয়ে উত্তম
                                  

ধর্ম ডেস্ক : ইসলামের প্রধান ইবাদত নামাজ। মুমিন মুসলমানের জন্য নিয়মিত ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করা ফরজ। শুধু তাই নয়, নিশ্চয় নির্দিষ্ট সময়ে মুসলমানদের উপর নামাজ আদায় করা ফরজ। নামাজ আদায়ের মধ্যেই রয়েছে মুমিনের সবচেয়ে উত্তম আমল।

যথাসময়ে নামাজ আদায় করাকে মুমিনের অন্যতম বৈশিষ্ট্য ও আমল হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। আল্লাহ তাআলা নামাজের ব্যাপারে তাগিদ দিয়ে বলেন-

حَافِظُواْ عَلَى الصَّلَوَاتِ والصَّلاَةِ الْوُسْطَى وَقُومُواْ لِلّهِ قَانِتِينَ - فَإنْ خِفْتُمْ فَرِجَالاً أَوْ رُكْبَانًا فَإِذَا أَمِنتُمْ فَاذْكُرُواْ اللّهَ كَمَا عَلَّمَكُم مَّا لَمْ تَكُونُواْ تَعْلَمُونَ

`(সময় মতো) সব (ফরজ) নামাজের প্রতি যত্নবান হও, বিশেষ করে মধ্যবর্তী নামাজের ব্যাপারে। আর আল্লাহর সামনে একান্ত আদবের সাথে দাঁড়াও। অতপর যদি তোমাদের কারো ব্যাপারে ভয় থাকে, তাহলে পদচারণা অবস্থাতেই (নামাজ) পড়ে নাও অথবা সওয়ারীর উপরে। তারপর যখন তোমরা নিরাপত্তা পাবে, তখন আল্লাহকে স্মরণ কর, যেভাবে তোমাদের শেখানো হয়েছে, যা তোমরা ইতিপূর্বে জানতে না।` (সুরা বাকারা : আয়াত ২৩৮-২৩৯)

উল্লেখিত আয়াতে যথা সময়ে নামাজ আদায়ের ব্যাপারে তাগিদ দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন অজুহাতে মানুষ নামাজে দেরি করে। অবহেলায় সময় কাটিয়ে দেয়। অথচ কুরআনুল কারিমের নির্দেশনা হলো- সময় মতো নামাজ পড়া। এমনকি যদি কারো কোনো ভয় কিংবা কেউ সফরে সাওয়ারির উপরও থাকে তবে তাকে সময় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নামাজ আদায়ের তাগিদ দেয়া হয়েছে। নামাজ পড়ার সময় একান্ত আদবের সঙ্গে আদায় করার কথাও বলা হয়েছে। কেননা নামাজ পড়া হয় মহান আল্লাহর জন্য।

নামাজ ফরজ ইবাদত। কিন্তু যথা সময়ে নামাজ আদায় করা মুমিন মুসলমানের জন্য সবচেয়ে উত্তম আমল। এ কথা ঘোষণা করেছেন স্বয়ং বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। হাদিসে এসেছে-

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, আমি জিজ্ঞাসা করলাম- হে আল্লাহ্‌র রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আল্লাহ‌র কাছে কোন আমল সবচেয়ে উত্তম? তিনি বললেন, `সময় মতো সালাত আদায় করা`। (আমি) বললাম, তারপর কোনটি? তিনি বললেন, `বাবা-মার সঙ্গে ভালো ব্যবহার করা। (আমি) বললাম, তারপর কোনটি? তিনি বললেন, `আল্লাহ্‌র পথে জিহাদ করা।` (বুখারি ও মুসলিম)

মনে রাখতে হবে
ইচ্ছাকৃতভাবে নামাজে অবহেলা করা বা দেরি করে নামাজ আদায় করা মারাত্মক ক্ষতি। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমের সুরা মাউন-এ ঘোষণা করেন-
فَوَيْلٌ لِّلْمُصَلِّينَ - الَّذِينَ هُمْ عَن صَلَاتِهِمْ سَاهُونَ
`অতএব দুর্ভোগ সেসব নামাজির জন্য যারা তাদের নামাজ সম্বন্ধে বে-খবর।` (সুরা মাউন : আয়াত ৪-৫)

ফরজ ইবাদত নামাজ যথা সময়ে আদায়ে যেমন কুরআনের জোর দাবি এসেছে। তেমনি হাদিসে পাকে যথা সময়ে নামাজ আদায়কে মুমিনের সবচেয়ে উত্তম হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। আবার ইচ্ছাকৃতভাবে দেরি করে কিংবা অবহেলা করে নামাজ আদায়ের ব্যাপারে মারাত্মক ক্ষতির কথা ঘোষণা করেছেন মহান আল্লাহ। সুতরাং যথা সময়ে নামাজ আদায় করে কুরআন-সুন্নাহর উপর যথাযথ আমল করার মুমিন মুসলমানের ঈমানের একান্ত দাবি।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে যথাসময়ে নামাজ আদায় করে কুরআন-সুন্নাহ ঘোষিত উত্তম আমলে নিজেদের নিয়োজিত করার তাওফিক দান করুন। ইচ্ছাকৃতভাবে দেরি কিংবা অবহেলা করে ক্ষতির সম্মুখীন হওয়া থেকে বিরত থাকার তাওফিক দান করুন। আমিন।

এবার বাংলাতেও হবে হজের খুতবা
                                  

গণমুক্তি ডেস্ক : মুসলিম ধর্মের ৫টি গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম হজ। প্রতি বছর আরাফার ময়দানে ৯ জ্বিলহজ হজের খুতবা অনুষ্ঠিত হয়। সাধারণত আরবি ভাষাতেই এই খুতবা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

তবে গত বছর ৫টি ভাষায় এই খুতবার অনুবাদ প্রচারিত হয়েছিল। চলতি বছর বাংলা-সহ আরও ৫টি ভাষায় প্রচারিত হবে হজের খুতবা। অর্থাৎ এ বছর মোট ১০টি ভাষায় হজের খুতবা শোনা যাবে।

গ্র্যান্ড মসজিদ ও মসজিদে নববীর জেনারেল অ্যাফেয়ার্সের চেয়ারম্যান ড. আব্দুল রহমান বিন আব্দুল আজিজ আল সুদাইস জানিয়েছেন, এ বছর আরবি ছাড়াও ইংরেজি, মালয়, উর্দু, ফার্সি, ফ্রেঞ্চ, মান্দারিন, তুর্কি, রুশ, হাবশি ও বাংলা ভাষায় হজের খুতবা অনুষ্ঠিত হবে।

চলতি বছর করোনা মহামারির কারণে বিপাকে পড়েছে সৌদি। আগের মতো বিশাল পরিসরে এবার হজের আনুষ্ঠানিকতা হচ্ছে না। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, এক সপ্তাহ আগে অর্থাৎ ১৯ জুলাই থেকে হজে অংশগ্রহণকারীদের আইসোলেশনের মাধ্যমে এবারের হজের কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা জানায় সৌদির হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়।

এক টুইট বার্তায় জানানো হয় যে, স্বাস্থ্যবিধি অনুযায়ী এবার বিশেষ শর্তে মুসল্লিদের হজ পালনের সুযোগ দেয়া হয়েছে। হজ শুরুর আগে হজে অংশগ্রহণকারী প্রটোকল অনুযায়ী ৭ দিনের আইসোলেশনে রয়েছেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে গত ২২ জুন এক ঘোষণায় সৌদি কর্তৃপক্ষ জানায়, দেশটি বসবাসকারী সব দেশের নাগরিকদের এবারের হজে সীমিত আকারে অংশগ্রহণের অনুমতি দেবে।

মহামারি করোনা ভাইরাস যেন হজের সময় কারও মধ্যে না ছড়ায় সে লক্ষ্যে বিভিন্ন সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নিয়েছে সৌদি সরকার। পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি বিনা অনুমতিতে মক্কা ও এর আশপাশের এলাকায় প্রবেশের ওপর কড়া নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

সূত্র : গালফ নিউজ

এবারের হজে কাবা ছোঁয়া নিষিদ্ধ
                                  

গণমুক্তি ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে এবার সীমিত পরিসরে অনুষ্ঠিত হবে হজ। এই হজব্রত পালনের সময় পবিত্র কাবাঘর স্পর্শ করা যাবে না বলে নির্দেশনা দিয়েছে সৌদি কর্তৃপক্ষ।

এবার প্রথমবারের মতো সৌদি আরবের বাইরে থেকে কেউ হজে অংশ নিতে পারবেন না। দেশটিতে বসবাসরত হাজার খানেক মুসল্লি হজব্রত পালন করবেন।

করোনাকালের এই হজের বিষয়ে এক স্বাস্থ্য নির্দেশনায় সৌদি কর্তৃপক্ষ জানায়, সীমিত পরিসরের এবারের হজে আল্লাহর ইবাদতের জন্য মুসলিমদের কেবলা পবিত্র কাবাঘর স্পর্শ করা যাবে না। নামাজের সময় এমনকি কাবা শরিফ তাওয়াফের সময় দেড় মিটার দূরত্ব বজায় রাখতে হবে হাজিদের।

সৌদি প্রেস এজেন্সির বরাত দিয়ে সিঙ্গাপুরভিত্তিক সংবাদমাধ্যম স্ট্রেইটস টাইমস আরও জানায়, সোমবার সৌদির রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র (সিডিসি) এক বিবৃতিতে বলেছে, কাবা শরিফ স্পর্শ না করা, নামাজসহ অন্যান্য অনুষ্ঠানিকতা পালনের সময় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি সীমিত সংখ্যক হাজি মিনা, মুজদালিফা ও আরাফাতে যাওয়ার অনুমতি পাবেন।

আগামী ১৯ জুলাই এবারের হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। চলবে ২ আগস্ট পর্যন্ত। এই সময়ে হাজি ও আয়োজকদের সর্বদা মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে গত মার্চ থেকে বন্ধ ছিল কাবা শরিফ। এবার হজ পালন হবে কি না সংশয় ছিল। গত মাসে অভ্যন্তরীণ এক হাজার সৌদি নাগরিককে হজের অনুমতি দেয় সৌদি কর্তৃপক্ষ।

মহামারী বা দূরারোগ্য ব্যধি থেকে পরিত্রাণের দোয়া
                                  

গণমুক্তি ডেস্ক : বিভিন্ন প্রতিরোধক ব্যবস্থা নেওয়ার পাশাপাশি দূরারোগ্য ব্যধি কিংবা মহামারী থেকে একমাত্র আল্লাহর কাছে আশ্রয় চাওয়াটাই সর্বোত্তম পন্থা। এমন পরিস্থিতিতে সব সময় এ দোয়াটি পড়ার অভ্যাস করা সমীচীন, যা রাসুল (সা) শিখিয়ে দিয়েছেন:

اَللَّهُمَّ اِنِّىْ اَعُوْذُ بِكَ مِنَ الْبَرَصِ وَ الْجُنُوْنِ وَ الْجُذَامِ وَمِنْ سَىِّءِ الْاَسْقَامِ

উচ্চারণ : আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিনাল বারাসি ওয়াল জুনুন ওয়াল ঝুজাম ওয়া মিন সায়্যিল আসক্বাম।’
-সূনানে আবু দাউদ, সূনানে তিরমিজি

অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আপনার কাছে আমি শ্বেত রোগ থেকে আশ্রয় চাই। মাতাল হয়ে যাওয়া থেকে আশ্রয় চাই। কুষ্ঠু রোগে আক্রান্ত হওয়া থেকে আশ্রয় চাই। আর দূরারোগ্য ব্যাধি (যেগুলোর নাম জানিনা) থেকে আপনার আশ্রয় চাই।’

তিরমিজিতে এসেছে, আরও একটি দোয়া পড়তে বলেছেন রাসুলূল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম :

اللَّهُمَّ إِنِّي أَعُوذُ بِكَ مِنْ مُنْكَرَاتِ الأَخْلاَقِ وَالأَعْمَالِ وَالأَهْوَاءِ وَ الْاَدْوَاءِ

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিন মুনকারাতিল আখলাক্বি ওয়াল আ’মালি ওয়াল আহওয়ায়ি, ওয়াল আদওয়ায়ি।’

অর্থ : হে আল্লাহ! নিশ্চয় আমি তোমার কাছে খারাপ (নষ্ট-বাজে) চরিত্র, অন্যায় কাজ ও কুপ্রবৃত্তির অনিষ্টতা এবং বাজে অসুস্থতা ও নতুন সৃষ্ট রোগ বালাই থেকে আশ্রয় চাই।’ _সূনানে তিরমিজি।


   Page 1 of 17
     ধর্ম
ইসলামের মৌলিক কথা বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে সরকার: শ ম রেজাউল করিম
.............................................................................................
হেফাজত মহাসচিব নুরুল ইসলাম আর নেই
.............................................................................................
মসজিদের পাশাপাশি খোলা জায়গায় ঈদের জামাত
.............................................................................................
আত্মগোপনে থাকা ইসলামি বক্তা ত্ব-হা’র সন্ধান
.............................................................................................
বাংলাদেশিরা এবারও হজ্বে যেতে পারছেন না
.............................................................................................
রোজা রেখে করোনার টিকা নেওয়া যাবে: ইসলামিক ফাউন্ডেশন
.............................................................................................
পবিত্র শবে মেরাজ ১১ মার্চ
.............................................................................................
দেওয়ানবাগী পীর সৈয়দ মাহবুব আর নেই
.............................................................................................
শাহজাদপুরে বৌদ্ধ পরিবারের ৪ জনের ইসলাম গ্রহণ
.............................................................................................
পবিত্র ওমরাহ পালন শুরু
.............................................................................................
ওমরাহ পালনে খুলে দেয়া হচ্ছে কাবা ঘর
.............................................................................................
বান্দার যে প্রশ্নে ব্যথিত হন আল্লাহ
.............................................................................................
মুমিনের যে আমল আল্লাহর কাছে সবচেয়ে উত্তম
.............................................................................................
এবার বাংলাতেও হবে হজের খুতবা
.............................................................................................
এবারের হজে কাবা ছোঁয়া নিষিদ্ধ
.............................................................................................
মহামারী বা দূরারোগ্য ব্যধি থেকে পরিত্রাণের দোয়া
.............................................................................................
সীমিত আকারের হজে সুযোগ নেই বিদেশীদের
.............................................................................................
আবারও আইসিইউতে আল্লামা আহমদ শফী
.............................................................................................
তাবলিগের নিজামুদ্দিন মারকাজ নিয়ে বিশেষ বার্তা দিল দেওবন্দ মাদ্রাসা
.............................................................................................
বোয়ালমারীতে মসজিদ ও বাজার উদ্বোধন
.............................................................................................
মালয়েশিয়ায় সবচেয়ে ‘বড় মাহফিলে’ আজহারী
.............................................................................................
কাঁঠালিয়ায় চিশতীয়ায় বার্ষিক ওরশ শরীফ বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন
.............................................................................................
টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে কালীমন্দিরে দুর্বৃত্তদের হামলা
.............................................................................................
হোসেনপুরে আ : রহিম ফকির স্মরণে ওরশ মোবারকে দুই পক্ষের দ্বিধাদ্বন্দ্ব
.............................................................................................
গৌরীপুরে একসঙ্গে তিন হিন্দু যুবকের ইসলাম ধর্ম গ্রহন
.............................................................................................
আনোয়ারার বরুমচড়া মাদ্রাসার সভা ও পুরস্কার বিতরণী
.............................................................................................
পবিত্র হজ্ব ও মক্কা-মদিনা নিয়ে কটুক্তিকারী আবুল বাসারের বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ
.............................................................................................
দেশ বরেণ্য আলেম আযহার আলী আনোয়ার শাহ হুজুরের দাফন সম্পন্ন
.............................................................................................
ধর্মান্তরিত ১২ সদস্যের পরিবারটিকে ভারতে ফেরত পাঠানোর নেপথ্যে
.............................................................................................
আগামীকাল আখেরি মোনাজাত
.............................................................................................
ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্ক অনেক গভীর-অনিন্দ্য ব্যানার্জী
.............................................................................................
বান্দরবানের লামা উপজেলার জীনামেজু রাজামুনি বুদ্ধমূর্তির অভিষেক ও উৎসর্গ অনুষ্ঠান সম্পন্ন
.............................................................................................
আজ বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু আম বয়ানে
.............................................................................................
আখেরি মোনাজাতে মুসলিম জাতির শান্তি-ঐক্য কামনা
.............................................................................................
আরও ৪ জনের মৃত্যু ইজতেমায়
.............................................................................................
আজ বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু
.............................................................................................
আগামী শুক্রুবার থেকে বিশ্ব ইজতেমা শুরু
.............................................................................................
১০-১২ জানুয়ারির ৫৬তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথমপর্ব
.............................................................................................
৭৯ সালে কাবা শরিফ অবরোধ : সৌদি আরবের ইতিহাস পাল্টে দেয়া ঘটনা
.............................................................................................
আজ সারা দেশে শুভ বড়দিন উদযাপিত
.............................................................................................
বাংলাদেশে পীর-সুফিদের রাজনৈতিক দলগুলোর উদ্দেশ্য আসলে কী?
.............................................................................................
হজ কোটা বিভিন্ন দেশের জন্য যেভাবে নির্ধারিত হয়
.............................................................................................
শুরু হচ্ছে বিশ্ব ইজতেমা
.............................................................................................
আজ বাংলাদেশ-সৌদি হজ চুক্তি
.............................................................................................
মার্কিন গবেষণায় পাঁচওয়াক্ত নামাজে সুস্থ থাকা সম্ভব
.............................................................................................
তাফসীরুল কুরআন মাহফীল
.............................................................................................
কুমিল্লায় তিনজন মাওলানা নিষিদ্ধ, কিন্তু বয়ান নিয়ে এখনো কোন নীতিমালা নেই
.............................................................................................
মুন্সীগঞ্জে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী পালিত
.............................................................................................
ওজনে কম দেয়া, ঠকবাজি, প্রতারণায় দুনিয়া-আখিরাতে শাস্তি
.............................................................................................
নামাজে মনোযোগী হওয়ার উপায়
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop