ঢাকা,সোমবার,১২ আশ্বিন ১৪২৮,২৭,সেপ্টেম্বর,২০২১ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > ঠাকুরগাঁওয়ে ট্রাক-ট্যাংকলরী ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন   > নদী খাল দখলের প্রতিবাদে মোংলায় মানববন্ধন   > আবর্জনা ফেলার স্থানে পরিণত যাত্রী ছাউনি   > ঝুঁকিপুর্ণ পোনা নদীর সেতু   > অসাধু ডাক্তারের হাতে সরকারি হাসপাতালের সেবা   > চমক নিয়ে ব্রাজিলের দল ঘোষণা   > ‘বাকের খনি’র ট্রিপল সেঞ্চুরি   > কোস্টগার্ডের অভিযানে ইয়াবা ও গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক   > বাণিজ্য সম্প্রসারণে বৈশ্বিক ভিত্তি বঙ্গবন্ধুর তৈরি করা   > সাবেক প্রতিমন্ত্রী মান্নান ও তাঁর স্ত্রীর বিচার শুরু  

   অপরাধ জগত -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ব্যাংক ডাকাতির পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের: র‍্যাব

স্টাফ রিপোর্টার : ময়মনসিংহ সদর উপজেলার খাগডহর এলাকা থেকে অস্ত্রসহ ৪ জঙ্গিকে আটক করেছে র‍্যাব-১৪। গতকাল শনিবার দুপুরে ময়মনসিংহ র‍্যাব কার্যালয়ে এক ব্রিফিং এ তথ্য জানানো হয়। সাংবাদিকদের বিষয়টি অবহিত করেন র‍্যাবের লিগ্যাল এবং মিডিয়া উইং এর পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল আমীন। জানা গেছে, আটককৃতরা স্থানীয় ভাবে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। র‍্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা এবং র‍্যাব ১৪ যৌথভাবে এ অভিযান পরিচালনা করে। ব্রিফিং এ বলা হয়, সম্প্রতি গোয়েন্দাসূত্রে ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ ও জামালপুরে জঙ্গিদের বিভিন্ন গতিবিধি নজরে আসে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে খাগডহর এলাকা থেকে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য জুলহাস উদ্দিন (৩৪), মোহাম্মদ রোবায়েদ আলম (৩৩), মো. আলাল (৪৮) এবং মো. আবু আইয়ুবকে (৩৬) গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযানে জব্দ করা হয় একটি বিদেশী পিস্তল, একটি ম্যাগাজিন, তিন রাউন্ড গোলাবারুদ, আটটি বোমা সদৃশ্য বস্তু, চারটি ব্যাগ, দরজা ও লক ব্রেকিং বিভিন্ন সরঞ্জামাদি এবং একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা।

ব্যাংক ডাকাতির পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের: র‍্যাব
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ময়মনসিংহ সদর উপজেলার খাগডহর এলাকা থেকে অস্ত্রসহ ৪ জঙ্গিকে আটক করেছে র‍্যাব-১৪। গতকাল শনিবার দুপুরে ময়মনসিংহ র‍্যাব কার্যালয়ে এক ব্রিফিং এ তথ্য জানানো হয়। সাংবাদিকদের বিষয়টি অবহিত করেন র‍্যাবের লিগ্যাল এবং মিডিয়া উইং এর পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল আমীন। জানা গেছে, আটককৃতরা স্থানীয় ভাবে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। র‍্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা এবং র‍্যাব ১৪ যৌথভাবে এ অভিযান পরিচালনা করে। ব্রিফিং এ বলা হয়, সম্প্রতি গোয়েন্দাসূত্রে ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ ও জামালপুরে জঙ্গিদের বিভিন্ন গতিবিধি নজরে আসে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে খাগডহর এলাকা থেকে ডাকাতি প্রস্তুতিকালে জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য জুলহাস উদ্দিন (৩৪), মোহাম্মদ রোবায়েদ আলম (৩৩), মো. আলাল (৪৮) এবং মো. আবু আইয়ুবকে (৩৬) গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযানে জব্দ করা হয় একটি বিদেশী পিস্তল, একটি ম্যাগাজিন, তিন রাউন্ড গোলাবারুদ, আটটি বোমা সদৃশ্য বস্তু, চারটি ব্যাগ, দরজা ও লক ব্রেকিং বিভিন্ন সরঞ্জামাদি এবং একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা।

করোনা ও ক্যান্সারের নকল ওষুধ সরবরাহ, গ্রেপ্তার ৭
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : জীবন বাঁচাতে যেসব ওষুধের ওপর নির্ভর করে সাধারণ মানুষ, সেসব ওষুধকেই বিষে পরিণত করছে একদল প্রতারক চক্র। দেহের ক্ষতিকর উপাদান দিয়ে প্রস্তুত করা নকল ওষুধ বাজারজাত করছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। এ রকম এক প্রতারক চক্রের সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) লালবাগ বিভাগ। তাদের কাছ থেকে ক্যান্সার ও করোনা মহামারিতে বহুল ব্যবহৃত দেশি ও বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নকল ওষুধ এবং ওষুধ তৈরির সরঞ্জাম জব্দ করা হয়েছে।
আজ শুক্রবার ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।
গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন তরিকুল ইসলাম, সৈয়দ আল মামুন, সাইদুল ইসলাম, মনোয়ার, আবদুল লতিফ, নাজমুল ঢালী ও সাগর আহমেদ মিলন। এ সময় তাদের কাছ থেকে একমি কোম্পানির মোনাস-৭০০ বক্স, স্কয়ার কোম্পানির সেকলো-৫০ বক্স, জেনিথ কোম্পানির ন্যাপ্রোক্সেন প্লাস-৭৪৮ বক্সসহ অন্যান্য কোম্পানির বিপুল পরিমাণ নকল ওষুধ, ওষুধ তৈরির মেশিন, ডায়াস ও ওষুধের খালি বক্স উদ্ধার করা হয়।
এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, ‘একটি অসাধু চক্র নকল ওষুধ বাজারজাত করছে। এ চক্রের সদস্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করে গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগ। বুধবারের ধারাবাহিক অভিযানে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।’
ডিবির প্রধান বলেন, ‘গ্রেপ্তারকৃত তরিকুল ইসলাম ও সৈয়দ আল মামুন কারখানা স্থাপন করে জীবন রক্ষাকারী এ সব নকল ওষুধ তৈরি করতেন। সাইদুল ইসলাম এ নকল ওষুধ তৈরির প্রধান কারিগর। মনোয়ার ফয়েল ও আবদুল লতিফ ওষুধের পাতায় ছাপ দেওয়ার গুরুত্বপূর্ণ উপাদানসহ সিলিন্ডার সরবরাহ করতেন। গ্রেপ্তারকৃত নাজমুল ঢালী ওষুধের বক্সে ছাপ দেওয়ার পর তৈরিকৃত এ সব নকল ওষুধ গ্রেপ্তারকৃত সাগর আহমেদ মিলনের নেতৃত্বে মিটফোর্ডের কয়েকটি গ্রুপের মাধ্যমে বাজারজাত করা হতো।’
এ কে এম হাফিজ আক্তার আরও বলেন, ‘এই সব নকল ওষুধের ইনগ্রিডিয়েন্টসে মূলত প্রয়োজনীয় কোনো সক্রিয় উপাদান থাকে না। এ ছাড়া মেইন স্টার্চ নিম্ন গ্রেডের ব্যবহৃত হয়। এমনকি স্টেরয়েড ও ডাই ব্যবহৃত হতে পারে। নন ফার্মাসিউটিক্যালস গ্রেডের এসব কেমিক্যাল সেবনের ফলে মানুষের কিডনি, লিভার, হৃদযন্ত্রে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। এ সব নকল ওষুধ সাধারণ মানুষের জন্য মরণ ফাঁদ।’
‘বিশ্ব বাজারে ১৪৫টি দেশে রপ্তানি হচ্ছে বাংলাদেশের ওষুধ। ভেজাল ও নকল এসব ওষুধ এই সুনাম এবং আস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। মফস্বলের ওষুধ ফার্মেসিগুলোকে টার্গেট করে একটি অসাধু সংঘবদ্ধ চক্র সারা দেশে ভেজাল ও নকল ওষুধ ছড়িয়ে দিচ্ছে। এ ধরনের ওষুধ মাদকের চেয়েও ভয়াবহ’, যোগ করেন ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে বংশাল থানায় মামলা করা হয়েছে। পরবর্তীতে তাদের আদালতে পাঠানো হলে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

ওয়াজ মাহফিলের আড়ালে চলছিল গুনবীর জঙ্গি রিক্রুট
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে অংশ নিয়ে তার আড়ালে এবং বিভিন্ন বক্তব্যের মাধ্যমে জঙ্গিবাদের প্রচারণা এবং জঙ্গিদের রিক্রুট করতো দাওয়াত-ই ইসলাম নামক ইসলামী সংগঠনের সভাপতি ও নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের আধ্যাত্মিক নেতা মাহমুদ হাসান গুনবী ওরফে হাসান। রাজধানীর মিরপুর বেড়িবাঁধ এলাকা থেকে জঙ্গি সংগঠনের সক্রিয় এই সদস্যকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। র‌্যাবের দাবি, গ্রেফতারকৃত মাহমুদ হাসান গুনবী ওরফে হাসান মানুষকে এতটাই মোটিভেট করতে পারত যে, যে কেউ তাদের মতাদর্শে জড়িয়ে পড়তে কোন পিছপা হতো না।
গতকাল শুক্রবার রাজধানীর কাওরান বাজারে মিডিয়া সেন্টারে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, অনেককেই নিজের মোটিভেশনাল শক্তির মাধ্যমে অন্য ধর্ম থেকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করতো সে। যারা ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করতো তাদের ভেতরে নানা ধরনের অনুশোচনাবোধ জাগিয়ে তুলতো এবং জঙ্গিবাদের বিভিন্ন মতাদর্শ তাদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতো। উগ্রবাদী বক্তব্যের মাধ্যমে সন্ত্রাসবাদকে উস্কে দিতো গুনবী। বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলের অংশ নিয়ে তার মোটিভেশনাল পাওয়ারের মাধ্যমে জঙ্গিবাদ নিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তিদের মনস্তাত্ত্বিক বোধ জাগিয়ে তুলতো।
খন্দকার আল মঈন বলেন, সম্প্রতি আনসার আল ইসলামের সক্রিয় সদস্য ওসামা এবং সাকিবকে গ্রেফতারের পর তার সম্পর্কে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পায় র‌্যাব। তাদের গ্রেফতারের পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জানতে পারে, সংসদ এলাকায় জড়ো হয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর হামলার পরিকল্পনা ছিল তাদের। এ বিষয়ে গুনবীর সম্পৃক্ততা না পেলেও জঙ্গিবাদের উদ্বুদ্ধ করে জঙ্গি সংগঠনগুলোকে সদস্য বাড়াতে বিভিন্ন উগ্রবাদী মতবাদ প্রচারের বিষয়টি নিশ্চিত হয় র‌্যাব। ওসামা ও সাকিব গ্রেফতারের পর থেকে সে বিভিন্ন সময় খাগড়াছড়ি, বান্দরবান, কক্সবাজারসহ উত্তর বঙ্গ এবং রাজধানীসহ বিভিন্ন জায়গায় গ্রেফতার এড়াতে আশ্রয় নেয়। এ ছাড়া সম্প্রতি দেশত্যাগের পরিকল্পনা ছিল তার। কিন্তু তাদের চলমান অভিযানে গত বৃহস্পতিবার তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার কাছ থেকে বিভিন্ন উগ্রবাদী বিষয়ক বই এবং পুস্তিকা জব্দ করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, গ্রেফতারকৃত গুনবীরের খাগড়াছড়িতে একটা মাদ্রাসা রয়েছে। সেখানে নির্দিষ্ট একটি গ্রুপকে সে আলাদা করতো। যেখানে তার যাতায়াত ছিল। অনেককে সেখানে নিয়ে যেত। এ ছাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মাদ্রাসাগুলোতে সে প্রচারণা এবং ওয়াজ মাহফিলে অংশ নিত। সেখানে বিভিন্ন ধরনের উগ্রবাদ বিষয়ক বক্তব্য দিয়েছিল গুনবী। এমনকি বিভিন্ন বিষয়কে কেন্দ্র করে উগ্রবাদ ছড়ানোর পরিকল্পনা ছিল তার। এ ছাড়া জঙ্গিনেতা ওসামার প্রতিষ্ঠিত রাজবাড়ীতে একটি মাদ্রাসাতেও উপদেষ্টা হিসেবে ছিলেন গুনবীর।
এই কর্মকর্তা আরও জানান, সময়োচিত পদক্ষেপ এবং বিভিন্ন অভিযানে জঙ্গি মাথাচাড়া দিয়ে ওঠতে পারেনি। জঙ্গিবাদ আমরা নিয়ন্ত্রণে রেখেছি তবে এতে আমরা কোনও আত্মতুষ্টিতে ভুগছি না। যারা বিভিন্ন মাহফিলে অংশগ্রহণ বিষয়ক বক্তব্য রাখছেন তাদের বিষয়টি আমরা নজর রাখছি এবং আইন অনুযায়ী বিভিন্ন অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। আনসার আল ইসলাম মতাদর্শের সদস্যরা রাজধানীর মিরপুর এবং গাজীপুর এলাকায় তাদের অবস্থান কিছুটা বেশি রয়েছে। তবে এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি রয়েছে। গুনবীরের কাছে থেকে আমরা আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছি সে বিষয়ে আমরা কাজ করছি। সে আনসার আল ইসলাম এবিটিএ পক্ষে অন্যতম একজন দর্শন পরিবর্তনকারী। গোপন আস্তানায় বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়, যেখানে প্রশিক্ষণার্থীরা আত্মীয়-স্বজন, পরিবার, বন্ধু-বান্ধব থেকে বিচ্ছিন্ন থাকে। গ্রুপের প্রথমে হুজুরের সঙ্গে যুক্ত ছিল। পরবর্তীতে জসীমউদ্দিন রাহমানীর সঙ্গে তার পরিচয় ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়। ঘনিষ্ঠতা কারণে সে আনসার আল ইসলাম বাংলা টিমের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়। জসিম উদ্দিন রহমানি গ্রেফতারের পর সে পক্ষপাতিত্ব প্রচারক হিসেবে নিজেকে অধিষ্ঠিত করে।
এবছর এখন পর্যন্ত আনসার আল ইসলামের ৮৭ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে- এমন তথ্য জানিয়ে খন্দকার আল মঈন আরও বলেন, সম্প্রতি দেখা যাচ্ছে আনসার আল ইসলামের সদস্যরাই বেশি ধরা পড়ছে, যারা উগ্রবাদী মতবাদের উসকে দিচ্ছে। গুনবী হেফাজতের কোনও কমিটিতে ছিল না এবং কোনও পদে ছিল না। তবে হেফাজতের বিভিন্ন প্রোগ্রামে সে অংশ নিয়েছে। নিজেকে জাহির করতে বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিল সে। সংগঠনের ভেতরে উগ্রবাদী মতাদর্শের প্রচারণায় সে ছায়া সংগঠন পরিচালনা করতো, যাদেরকে মানহাজি সদস্য বলা হয়। বাংলাদেশকে উগ্রবাদী রাষ্ট্রে পরিণত করতে আগ্রহ মতাদর্শ প্রচার পরিকল্পনা ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে বেশ কয়েকবার গোপন বৈঠক করেছে বলেও জিজ্ঞাসাবাদে জানিয়েছে গুনবীর। বিভিন্ন বিশ্বকে কেন্দ্র করে সুযোগসন্ধানীর অপপ্রয়াস চালায় সে।
গুনবী পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ার পর মাদ্রাসায় ভর্তি হয়। ২০০৮ সালে জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মোহাম্মদপুর থেকে তাইসির দাওরায়ে হাদিস সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে ঢাকাসহ কুমিল্লা-নোয়াখালী খাগড়াছড়ি বান্দরবান ও কক্সবাজারের বিভিন্ন মাদ্রাসায় শিক্ষকতা শুরু করেন। পাশাপাশি ধর্মীয় মতাদর্শের বিভিন্ন সংগঠনের সাথে যুক্ত হন। ২০১৪ সাল থেকে ধর্মীয় বক্তব্য প্রচারে নিজেকে সম্পৃক্ত করেন এবং সে ধর্মীয় বইয়ের ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েন।

রূপগঞ্জ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার গ্রেফতার ১
                                  

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার কাঞ্চন পৌর মেয়র রফিকুল ইসলামের বাড়ির পাশের কেন্দুয়াপাড়া বেপারীপাড়া জামে মসজিদের ২য় তলা ও ওজুখানার ছাদ থেকে গতকাল ৩০ জুন বুধবার সন্ধ্যায় রামদা, ছোড়া, সামুরাই, চাপাতি ও চাইনিজ কুড়ালসহ শতাধিক দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয় । এসময় কাউছার (২৫) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করে রূপগঞ্জ থানা পুলিশ। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও এশিয়ান হাইওয়ে বাইপাস সড়কের বালু ভরাটের কাজকে কেন্দ্র দীর্ঘদিন ধরে কাঞ্চন পৌরসভার মেয়র রফিকুল ইসলাম রফিক এবং তার ছোট ভাই সফিকুল ইসলামের সঙ্গে কাঞ্চন পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসুল কলির দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। এই বিরোধের জের ধরে ইতিপূর্বে কয়েকদফা সংর্ঘষ ও একাধিক পাল্টাপাল্টি মামলাও হয়। গত ২৯ জুন মঙ্গলবার দুই গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে ফাঁকা গুলিবর্ষণের ঘটনাও ঘটানো হয়। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ১০/১২ জন আহত হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গতকাল বুধবার উভয়পক্ষ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে উভয় পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছালে দু’পক্ষের লোকজন ছটকে পরে। এসময় সফিকুল গ্রুপের সন্ত্রাসী কাওছার হোসেনকে আটক করে পুলিশ । পরে তার দেখানো তথ্য মতে পুলিশ বুধবার সন্ধ্যায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করে। নারায়ণগঞ্জ জেলার (গ) সার্কেল সহকারি পুলিশ সুপার আবির হোসেন জানান, স্থানীয় প্রভাবশালী দুইটি রাজনৈতিক গ্রুপের মধ্যে যে দ্বন্দ্ব সংঘাত চলছে এরই ধারাবাহিকতায় পুনরায় মহড়া দেয়ার উদ্দেশ্যে অস্ত্রগুলো মজুদ করে রাখা হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়াসহ আটককৃত যুবক কাওছার হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এছাড়া মজুদকৃত অস্ত্রের সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।

ময়মনসিংহে দস্যুতা ও কিশোর গ্যাং এর চার জনকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১৪
                                  

জহির রায়হান, ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহে র‍্যাব-১৪’র অভিযানে দস্যুতা এবং কিশোর গ্যাং এর ৪ জন গ্রেফতার হয়েছে। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ ময়মনসিংহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় কিশোর গ্যাং-এর নেতৃত্ব দিয়ে ছিনতাই, দস্যুতা এবং আধিপত্য বিস্তারের মাধ্যমে অবৈধ কর্মকান্ড করে আসছিল। ২১ জুন ২০২১ খ্রি. (সোমবার) সকালে ময়মনসিংহ নগরীর রঘুরামপুর থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন-মোঃ মিজানুর রহমান @ মুরগী মিজান (৪০), মোঃ সবুজ মন্ডল (৩৪), মোঃ শামিম (২১) ও মোঃ হানিফ (১৯)।
র‍্যাব সূত্রে জানা যায়, ২১ জুন ২০২১খ্রিঃ সকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‍্যাব-১৪ ময়মনসিংহের একটি আভিযানিক দল ময়মনসিংহের রঘুরামপুর এলাকা থেকে দস্যুতার প্রস্তুতিকালে মোঃ মিজানুর রহমান @ মুরগী মিজান (৪০), মোঃ সবুজ মন্ডল (৩৪), মোঃ শামিম (২১) ও মোঃ হানিফ (১৯)-কে গ্রেফতার করে। এ সময় তাদের হেফাজত হতে দেশীয় পাইপ গান-১টি, রিভলবার সাদৃশ্য-১টি, পিস্তলের গুলি-২ রাউন্ড, শর্টগানের গুলি-২ রাউন্ড, মোবাইল-২টি, নগদ ২ লাখ ৭৬ হাজার টাকা, রামদা -২টি, চা-পাতি-১টি, চাকু-৪টি, কুড়াল-১টি, করাত-১টি, দা-২টি, হাতুড়ি-১টি, স্টিলের রড-১টি, পেনড্রাইভ-২টি, পাসপোর্ট-১টি, চেকবই-১টি এবং মোটর সাইকেল-১টি উদ্ধার করা হয়।
গ্রেফতারকৃত আসামীদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ ও অনুসন্ধানে জানা যায় যে, তারা ঘটনাস্থলে অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে দস্যুতার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। তারা দীর্ঘদিন যাবৎ ময়মনসিংহ জেলার বিভিন্ন এলাকায় দলে-উপদলে বিভক্ত কিশোর গ্যাং-এর নেতৃত্ব দিয়ে ছিনতাই, দস্যুতা এবং আধিপত্য বিস্তারের মাধ্যমে অবৈধ কর্মকান্ড করে আসছিল যা জনমনে ভীতি ও উদ্বেগ-উৎকন্ঠার সৃষ্টি করে। এ সকল কিশোর গ্যাং-এর নেতৃত্বদানকারীসহ সকল অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে সমাজে শান্তি শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় র‌্যাবের অভিযান অব্যাহত থাকবে। উক্ত বিষয়ে ধৃত আসামীদের বিরুদ্ধে ময়মনসিংহ জেলার কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
জানা যায়, র‍্যাব প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে জঙ্গিবাদ, মাদক চোরাচালান, সন্ত্রাসবাদ, ছিনতাই, ডাকাতি, জুয়া, প্রতারকচক্র, অপহরণ, খুন, ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধরণের অবৈধ কর্মকান্ড থেকে রক্ষার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

বিটকয়েন বেচাকেনার হোতাসহ চারজন গ্রেফতার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর দারুস সালাম থানা এলাকা থেকে চারজনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। তাদের দাবি, গ্রেফতারকৃতরা অবৈধ বিটকয়েন বা ভার্চুয়াল মুদ্রা ক্রয়-বিক্রয়ের মাধ্যমে বিদেশে অর্থপাচারের সঙ্গে জড়িত। র‍্যাব-৪ গতকাল রোববার জানিয়েছে, শনিবার দিবাগত রাতে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। তারা হলো হামিম প্রিন্স খাঁন (৩২), রাহুল সরকার (২১), সঞ্জিব দে ওরফে তিতাস (২৮) ও মো. সোহেল খান (২০)। আসামিদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে তিনি জানান, গ্রেপ্তারকৃতরা অবৈধ ভার্চুয়াল মুদ্রা, ক্রিপ্টোকারেন্সি, বিটকয়েন কেনাবেচার করে থাকে। তারা মোবাইল ব্যাংকিং বা ইলেক্ট্রনিক মানি ট্রান্সফারের মাধ্যমে বাংলাদেশি বেশকিছু অসাধু ডোমেইন হোল্ডার বার ব্যবসায়ীচক্রের সঙ্গে অর্থ লেনদেন করে। এ ছাড়া, পর্ণোগ্রাফি কিনে পরে সেগুলো অর্থের বিনিময়ে ছড়িয়ে দেয়। গ্রেফতারকৃতরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিটকয়েন নিয়ে প্রচার চালায় ও অন্যদের প্রলুব্ধ করে। আগ্রহীদের অর্থের বিনিময়ে ক্রিপ্টোকারেন্সি প্রশিক্ষণ দিয়ে প্রতারণা করে বলেও উল্লেখ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। এতে আরও বলা হয়, গ্রেপ্তারকৃতরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি গ্রুপের সঙ্গে জড়িত যেখানে বিটকয়েন ব্যবসায় আগ্রহীরা যুক্ত রয়েছে। গ্রুপে কয়েক হাজার সদস্য রয়েছে। তারা প্রতি মাসে প্রায় দেড় কোটি টাকা লেনদেন করে। হামিম প্রিন্স খাঁন ২০১৩ সালে ফরিদপুরের একটি কলেজ থেকে ইংরেজিতে স্নাতক পাস করেন। পরবর্তীতে তিনি নিজে কম্পিউটারের ওপর দক্ষতা লাভ করে প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছিলেন। ক্রিপ্টোকারেন্সির ওপর দক্ষতা লাভ করে অর্ধশতের বেশি মানুষকে বিটকয়েন লেনদেন প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। তিনি বিটকয়েন ছাড়াও লিটকয়েন, ডগকয়েন, ইথারিয়াম, ব্রাস্ট, ন্যানো ইত্যাদি লেনদেনের সঙ্গে জড়িত। তিনি মূলত যুক্তরাষ্ট, যুক্তরাজ্য এবং কানাডাসহ উন্নত বিশ্বের অন্যান্য দেশে এ কার্যক্রম চালিয়ে দেশের বিপুল পরিমাণ অর্থপাচার করে আসছিলেন। তার বিরুদ্ধে ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতির অভিযোগ রয়েছে। ভার্চুয়াল জগতে তার ১৫/১৬টি ওয়ালেট রয়েছে। রাহুল সরকার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার বিজ্ঞানে অধ্যয়নরত। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তার হামিমের সঙ্গে পরিচয় হয়। পরবর্তীতে হামিমের মাধ্যমে উদ্ধুদ্ধ হয়ে ২০২০ সালের শেষের দিকে তিনি বিটকয়েন লেনদেনের সঙ্গে জড়িত হয়। তার বেশ কয়েকটি ওয়ালেট রয়েছে। সঞ্জিব দে ওরফে তিতাস ফরিদপুরের স্থানীয় একটি কলেজে অধ্যয়নরত। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে হামিমের সঙ্গে পরিচয়ের পর থেকেই হামিম তাকে লাভবান হওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে বিটকয়েন লেনদেনে উদ্বুদ্ধ করে। মো. সোহেল খান অনলাইনে ব্যবসা করতেন। পরে চটকদার বিজ্ঞাপনে লোভে পরে হামিমের সঙ্গে বিটকয়েন লেনদেনে যুক্ত হন। তারও বেশ কয়েকটি ওয়ালেট রয়েছে।

ময়মনসিংহে র‍্যাব-১৪’র অভিযানে এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার
                                  

জহির রায়হান, ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহের দাপুনিয়া উপজেলা থেকে এক কেজি গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১৪। এ সময় তার হেফাজত হতে ১টি মোবাইল সেট ও নগদ ৫শ’৫০টাকা উদ্ধার করা হয়।
জানা যায়, র‍্যাব তার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে জঙ্গি ও সন্ত্রাস, মাদক, অস্ত্র, অপহরণ, হত্যাসহ বিভিন্ন প্রকার অবৈধ কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে আপোষহীন অবস্থানে থেকে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে ।
এরই ধারাবাহিকতায় ১৯ জুন ২০২১ইং র‍্যাব-১৪, সিপিএসসি, টিটিসি, ময়মনসিংহ ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মেজর আখের মুহম্মদ জয়, র‍্যাব-১৪, সিপিএসসি এর নেতৃতে ময়মনসিংহের দাপুনিয়া বাজার হতে মোঃ সবুজ হোসেন (২৪)-কে গ্রেফতার করে। এসময় তার হেফাজত হতে ০১ কেজি গাঁজা, ০১টি মোবাইল সেট, ও নগদ ৫৫০ টাকা সহ উদ্ধার করা হয়। এ প্রেক্ষিতে র‍্যাব বাদী হয়ে ময়মনসিংহ জেলার কোতয়ালী থানার মামলা দায়ের করেন।

গণপূর্তে আ’লীগের দুই নেতা অস্ত্র নিয়ে মহড়ার পর অস্ত্র জমা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িত দুই ঠিকাদার পাবনা সদর থানায় তাদের বৈধ অস্ত্র জমা দিয়েছেন। গতকাল রোববার বিকেলে পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গণমাধ্যম কর্মীদের হাতে আসা সিসিটিভি ফুটেজ ও ছবিতে থেকে দেখা গেছে, গত ৬ জুন দুপুরে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক হাজী ফারুক, পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ আর খান মামুন এবং জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শেখ লালুর নেতৃত্বে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ জনের একটি দল আগ্নেয়াস্ত্র হাতে গণপূর্ত ভবনে আসে। তারা অস্ত্র হাতে অফিসের বিভিন্ন কক্ষে প্রবেশ করে এবং কিছুক্ষণ পরে বের হয়ে চলে যায়। গণমাধ্যমে ঘটনাটি প্রকাশ পাওয়ার পরে অস্ত্র প্রদর্শনকারী দুই ঠিকাদার এ আর খান মামুন ও শেখ লালু গতকাল সকালে পাবনা সদর থানায় তাদের দুটি লাইসেন্সকৃত শটগান থানায় জমা দিয়েছেন। সরকারি দপ্তরে অস্ত্র হাতে প্রবেশ করার ঘটনায় পাবনা সদর থানায় দুটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) হয়েছে, পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। অস্ত্র বৈধ হলেও জনমনে ভীতির সৃষ্টি হতে পারে এমনভাবে অস্ত্র প্রদর্শনের সুযোগ নেই। অস্ত্র আইনের শর্ত ভঙ্গ হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে এ ঘটনায় পূর্ত বিভাগের পক্ষ থেকে কোনো মামলা বা অভিযোগ করা হয়নি। পাবনা পূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিম বলেন, ‘ঘটনার সময় আমি অফিসের বাইরে ছিলাম। তবে, সিসিটিভি ফুটেজে দেখেছি, অস্ত্র হাতে অনেকে এসেছেন। তারা আমাকে সরাসরি বা ফোনে কোনো হুমকি দেননি, কথাও হয়নি। তাই, আমরা লিখিত অভিযোগ করিনি। যেহেতু তারা কোনো অনিষ্ট করেননি সেহেতু এ ব্যাপারে কোনো মামলা করার পরিকল্পনা গণপূর্ত বিভাগের নেই।’ এ বিষয়ে পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রেজাউল রহিম বলেন, ‘আওয়ামী লীগ কখনো এ ধরনের অনৈতিক কোনো কর্মকাণ্ড সমর্থন করে না। আর এটি দলীয় কোনো ব্যাপার নয়।’ অস্ত্র হাতে গণপূর্ত বিভাগে প্রবেশের কারণ জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ নেতা ও ঠিকাদার ফারুক বলেন, ‘এটি একটি ভুলবশত ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা।

কোস্ট গার্ডের অভিযানে ২০ লক্ষ পিস গলদা ও বাগদা রেণু জব্দ
                                  

বরগুনা প্রতিনিধি : গত ০৮ জুন ২০২১ তারিখ সন্ধ্যায় বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড দক্ষিণ জোনের অধিনস্থ বিসিজি স্টেশন নিদ্রাসকিনা কর্তৃক বরগুনা জেলার তালতলী উপজেলাধীন ফকির হাট সংলগ্ন এলাকায় মাছের আড়ৎ এর একটি দোকানে অভিযান পরিচালনা করে ২০,০০,০০০ পিস গলদা ও বাগদা চিংড়ি রেণু পোনা জব্দ করা হয়। গতকাল বুধবার দুপুরে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড সদর দপ্তরের মিডিয়া কর্মকর্তা লেঃ কমান্ডার আমিরুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উক্ত এলাকায় এ অভিযানা পরিচালনা করা হয়। এ সময় কোস্ট গার্ডের উপস্থিতি টের পেয়ে রেণু পাচারকারীগণ পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয় নাই। পরবর্তীতে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মাহবুবুল আলম এর উপস্থিতিতে জব্দকৃত রেণু পোনা সকিনার খালে অবমুক্ত করা হয়। তিনি আরও বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের এখতিয়ারভুক্ত এলাকাসমূহে আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ, জননিরাপত্তার পাশাপাশি বনদস্যুতা, ডাকাতি দমন ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন এর পাশাপাশি অবৈধ মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধ করণের লক্ষ্যে নিয়মিত অভিযান অব্যাহত আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।

স্বামীকে ৬ টুকরো করে হাত-পা মহাখালি মাথা বনানীতে ফেললেন স্ত্রী
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : সম্প্রতি রাজধানীর মহাখালি থেকে এক ব্যক্তির হাত-পা উদ্ধার হলেও পরে মাথা পাওয়া যায় বনানী এলাকায়। শরীরের বিভিন্ন অংশ নগরীর বিভিন্ন্ এলাকা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশ জানতে পারে এটি ময়না মিয়ার খন্ডিত লাশ। কিছুদিন আগে গোপনে তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেন। তার স্ত্রী ফাতেমা খাতুনকে করাইল বস্তীতে ঘুমের বড়ি খাইয়ে এই খুন সম্পন্ন করেছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় প্রথম স্ত্রী ফাতেমা খাতুনকে ৫ দিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। গতকাল মঙ্গলবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কাজী শরীফুল ইসলাম আসামিকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আবেদনের প্রেক্ষিতে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরীর আদালত তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ময়না মিয়াকে হত্যার ঘটনায় তার দ্বিতীয় স্ত্রী মোছা. ইাসরিন বনানী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। গত রোববার দিবাগত রাত ৯টার দিকে রাজধানীর মহাখালী আমতলী সড়কের পাশে একটি নীল রঙের ড্রামের ভেতরে বস্তাবন্দি অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়। তবে মৃতদেহের সঙ্গে মাথা ছিল না। এছাড়া দুই হাত ও দুই পা বিচ্ছিন্ন ছিল। সেগুলোও লাশের সঙ্গে ছিল না। খণ্ডিত লাশের রহস্য উদঘাটনে তদন্তে নামে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। পরে রহস্য উদঘাটন করে ডিবি পুলিশ। নিহত ওই ব্যক্তির নাম নাম ময়না। দ্বিতীয় বিয়ে করায় স্বামী ময়না মিয়াকে ঘুমের ট্যাবলেট খাইয়ে অচেতন করে হত্যা করেন প্রথম স্ত্রী ফাতেমা খাতুন। পরে লাশ ছয় টুকরো করে বস্তায় ভরে মহাখালী এলাকার সড়কে ফেলে দেন তিনি। খণ্ডিত মাথা ফেলেন বনানীর লেকে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত প্রথম স্ত্রী ফাতেমাকে গ্রেফতারের পর পুলিশের কাছে স্বামী হত্যার বর্ণনা দেন তিনি।

কিশোরগঞ্জের নিকলীতে পিস্তল-গুলি-রামদাসহ দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী মুরগী সোহেল গ্রেফতার
                                  

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি : কিশোরগঞ্জের নিকলীতে দেশীয় অস্ত্র ও গুলিসহ দুর্র্ধষ সন্ত্রাসী নাজিউর রহমান সোহেল ওরফে মুরগী সোহেলকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। রোববার (৩০ মে) দিবাগত রাত ২টার দিকে র‌্যাব-১৪ এর সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের একটি অপারেশনাল টিম নিকলী উপজেলার খালিসাহাটি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে।এ সময় দুই রাউন্ড গুলিসহ একটি পিস্তল, দুইটি পাইপগান, পাঁচ রাউন্ড কার্তুজ, চারটি দেশীয় রামদা ও একটি চাপাতি উদ্ধার করা হয়। আটক সোহেল নিকলী খালিসাহাটি গ্রামের মো. নূরুল ইসলামের ছেলে। র‌্যাব-১৪ এর সিপিসি-২, কিশোরগঞ্জ ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লে. কমান্ডার এম শোভন খান বিএন এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গত ১১ মে সোয়াইজানি নদী জলমহাল দখলকে কেন্দ্র করে দুর্র্ধষ সন্ত্রাসী নাজিউর রহমান সোহেল ওরফে মুরগী সোহেল আগ্নেয়াস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে। একপর্যায়ে মুরগী সোহেল এর কাছে থাকা আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে ছররা গুলি ছুঁড়ে। এতে চার শিশুসহ মোট ১০ জন গুরুতর আহত হয়। এ ঘটনায় পরদিন নিকলী থানায় মামলা দায়ের করা হয়। পরে তাকে গ্রেফতারের জন্য র‌্যাবের নিরবচ্ছিন্ন গোয়েন্দা নজরদারি চালানো হয়। এর প্রেক্ষিতে রোববার (৩০ মে) দিবাগত রাতে খালিসাহাটি এলাকায় র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে সন্ত্রাসী নাজিউর রহমান সোহেল ওরফে মুরগী সোহেলকে দুই রাউন্ড গুলি ও একটি পিস্তলসহ হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তিতে তাকে সঙ্গে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করে বাড়ির টয়লেটের পেছনে মাটির নিচে লুকিয়ে রাখা দুইটি পাইপগান, পাঁচ রাউন্ড কার্তুজ, চারটি দেশীয় রামদা ও একটি চাপাতি উদ্ধার করা হয়। লে. কমান্ডার এম শোভন খান বিএন আরও জানান, নাজিউর রহমান সোহেল ওরফে মুরগী সোহেল এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত নদী জলমহাল দখল, ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। তার সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ ছিল। উদ্ধারকৃত অস্ত্র কোথা থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে এবং যোগানদাতা কে তা জানার জন্য র‌্যাবের তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া অস্ত্রসহ আটকের ঘটনায় তার বিরুদ্ধে নিকলী থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

অন্যের নামে সিম কিনে তারা হত্যার পরিকল্পনা করেন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : যুবক আজহারুলকে হত্যার পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করতে মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুর রহমান তার এক ছাত্রের নামে একটি মোবাইল ফোন ও সিম কিনে আসমা আক্তারকে দেন। ওই ফোনে হত্যা সম্পর্কে আলোচনা করতেন তারা। আসমা ইমামকে আশ্বাস দিয়েছিলেন বিয়ে করার। আজহারুলকে হত্যা করে মসজিদের অজুখানার পানি ট্যাংকির ভেতরে ফেলে দিলে দুর্গন্ধ বের হয়। এক পর্যায়ে মসজিদে রাখা সিমেন্ট দিয়ে ঢালাই করে দেন ইমাম আবদুর রহমান। তারপরও হত্যার ঘটনা ঠেকানো যায়নি। গতকাল বুধবার দুপুরে রাজধানীর কুর্মিটোলা র‍্যাব সদর দফতরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। তিনি বলেন, রোজা শুরুর ৭ দিন আগে ইমাম ও আসমা আক্তার আজহারুলকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী গত ১৯ মে নিজের শয়নকক্ষে আজহারুলকে হত্যা করেন ইমাম আব্দুর রহমান। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। ওই মামলায় এক নম্বর আসামি করা হয়েছে মসজিদের ইমাম মাওলানা আব্দুর রহমানকে (৫৪)।  দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে নিহত আজাহারুলের স্ত্রী আসমা আক্তারকে (২৪)। 

এদিকে এদিন আজহারুল হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আসমা আক্তার ও মসজিদের ইমাম আব্দুর রহমানের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দক্ষিণখান থানার উপপরিদর্শক (এসআই) অনুজ কুমার সরকার। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম নিভানা খায়ের জেসী তাদের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
এর আগে মঙ্গলবার রাজধানীর দক্ষিণখান সরদারবাড়ি জামে মসজিদের সেপটিক ট্যাংক থেকে আজহারুল ইসলাম (৪০) নামে এক গার্মেন্টকর্মীর ৬ টুকরো লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল মোত্তাকীম জানান, সোমবার রাতে র‍্যাবের গোয়েন্দা দল খবর পায় সরদারবাড়ি জামে মসজিদের সিঁড়িতে রক্তের দাগ এবং সেপটিক ট্যাংক থেকে তীব্র গন্ধ ছড়াচ্ছে। এই তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব-১ ছায়া তদন্ত শুরু করে। তখন জানা যায়, আজহারুল নিখোঁজ রয়েছেন। এ ঘটনার তদন্তের একপর্যায়ে দক্ষিণখানের মাদ্রাসাতুর রহমান আল আরাবিয়া থেকে আব্দুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়। তার কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ৩টি চাকু ও একটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সরদারবাড়ি জামে মসজিদের সেপটিক ট্যাংক থেকে আজহারুলের লাশ উদ্ধার করা হয়।

ইউটিউব বক্তা আমির হামজা পাঁচদিনের রিমান্ডে
                                  

কোর্ট রিপোর্টার : শেরেবাংলা নগর থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় ইউটিউবে ইসলামি বক্তা মুফতি আমির হামজাকে পাঁচদিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলাম এই আদেশ দেন। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আজ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মুফতি আমির হামজাকে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক পাঁচদিনের রিমান্ডে নেওয়ার আদেশ দেন। এর আগে গত সোমবার বিকেলে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ী ইউনিয়নের ডাবিরাভিটা গ্রামের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে আমির হামজাকে গ্রেফতার করা হয়। এ বিষয়ে সিটিটিসির প্রধান মো. আসাদুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, আমির হামজাকে ঢাকার শেরেবাংলা নগর থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে করা মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। গত ৫ মে তলোয়ার নিয়ে সংসদ ভবনে হামলা চালানোর চেষ্টারত সাকিব নামের এক যুবককে গ্রেফতার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সাকিবকে আটকের পর শেরেবাংলা নগর থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে একটি মামলা করা হয়। ওই মামলায় সাকিবসহ আলী হাসান উসামা ও মাওলানা মাহমুদুল হাসান গুনবীকে আসামি করা হয়। কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট সূত্রে জানা গেছে, সাকিবের কাছ থেকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, সাকিব মোবাইল ফোনে উগ্রবাদ বার্তা সংবলিত ভিডিও প্রচারকারী আলী হাসান উসামা, মাহমুদুল হাসান গুনবী, আমির হামজা, হারুন ইজহার প্রমুখ ব্যক্তির উগ্রবাদী জিহাদি হামলার বার্তা সংবলিত ভিডিও দেখে উগ্রবাদে আসক্ত হয়। ওই এজাহারে মুফতি আমির হামজার নাম ছিল। তার সূত্রে ধরেই তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মুফতি আমির হামজা কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ী ইউনিয়নের রিয়াজ সর্দারের ছেলে।

মসজিদের ভেতর ইমামের হাতে যুবকের ৬ টুকরো লাশ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকার দক্ষিণখানের সরদারবাড়ী জামে মসজিদে ইমাম মো. আব্দুর রহমান। ৩৩ বছর ধরে তিনি এই পেশায় আছেন। এখানে শিশুদের কোরআন শিক্ষাও দেন তিনি। গত বুধবার রাতে সাবেক ছাত্র আজহারকে (৩০) ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন তিনি। এরপর লাশ গুম করতে ছয় টুকরো করে মসজিদের অজুখানার পাশে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দেন। আজহারকে হত্যা ও লাশ গুমের অভিযোগে মাওলানা মো. আব্দুর রহমানকে গতকাল মঙ্গলবার সকালে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১। সেপটিক ট্যাংক থেকে উদ্ধার করা হয়েছে আজহারের লাশের ছয় খণ্ড গলিত অংশ। মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র?্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র?্যাব-১-এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. আব্দুল মোত্তাকিম এসব তথ্য জানান। আব্দুল মোত্তাকিম বলেন, ‘ গ্রেফতারকৃত আসামিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আমরা জানতে পেরেছি, অভিযুক্তের সঙ্গে ভুক্তভোগীর পারিবারিক সম্পর্ক ছিল। কারণ, ভুক্তভোগীর ছেলে মো. আরিয়ান (৪) ওই মসজিদের মক্তবে পড়ালেখা করত। শুধু তাই নয়, আজহারও ইমাম আব্দুর রহমানের কাছে কোরআন শিক্ষা গ্রহণ করেছেন। ইমাম প্রায়শ আজহারের বাসায় যেতেন।’ র?্যাবের অধিনায়ক আরও বলেন, ‘গত ১৯ মে অর্থাৎ বুধবার রাতে আজহার মসজিদে যান। তারপর ইমামের সঙ্গে তাঁর কথা কাটাকাটি হয়। ইমাম আমাদের বলেছেন, আজহার এসে অভিযোগ করেন, তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে তিনি নাকি পরকীয়া করেন। অথচ এটি মিথ্যা অভিযোগ। এ নিয়ে তাঁদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে ক্ষিপ্ত হয়ে কাছে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে আজহারকে কোপ দেন ইমাম আব্দুর রহমান। এতে আজহার ঘটনাস্থলেই মারা যান। পরে ঘটনা লুকাতে তিনি লাশ টুকরো করেন।’ জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে আব্দুল মোত্তাকিম বলেন, ‘মো. আব্দুর রহমান স্বীকার করেছেন, তিনি এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত এবং তিনি একাই আজহারকে হত্যা করে লাশ ছয় টুকরো করেন। এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে আমরা আজহারের স্ত্রীকে আজ হেফাজতে নিয়েছি। এ হত্যাকাণ্ডের মধ্যে আর কোনো মোটিভ আছে কিনা তা জানার চেষ্টা করছি আমরা। এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

বেদের ছদ্মবেশে ইয়াবা কারবারি চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ভাসমান বেদে দলের ছদ্মবেশ ধারণ করে নদী পথে ঢাকায় এসে ইয়াবা পাচার করত একটি চক্র। চক্রটি কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত আসার ক্ষেত্রে তারা মহাসড়ক ব্যবহার না করে বিকল্প হিসেবে গ্রামের ভেতরের রাস্তা দিয়ে বিভিন্ন ইজিবাইক, সিএনজি ও টেম্পু ব্যবহার করে পথ পাড়ি দিত। দ্বিতীয় ধাপে তারা সেখান থেকে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় চড়ে মুন্সিগঞ্জ হয়ে বুড়িগঙ্গা নদী দিয়ে ঢাকায় প্রবেশ করত। মানুষের সন্দেহ দূর করতে পথের মাঝে বিভিন্ন মনিহারি দ্রব্য যেমন-চুড়ি, কড়ি, চুল বাধার ফিতা, শিশুদের কোমরের ঘণ্টা, চেইন, সেইফটি পিন, বাতের ব্যথার রাবার রিং ইত্যাদি বিক্রি করত। এ সময়ে তাদের সঙ্গে থাকা রান্না করার টিনের চুলার ভেতরে বিশেষ কায়দায় লুকিয়ে আনা ইয়াবার কথা স্বীকার করে এবং রান্না করার চুলার নিচের অংশ কেটে তার ভেতর থেকে মোট ৭৭ হাজার পিস ইয়াবা জব্দ করে। এ চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)। গ্রেপ্তার চক্রের সদস্যরা হলেন- মো. তারিকুল ইসলাম (২৩), মো. সিনবাদ (২৩), মো. মিম মিয়া (২২), মো. ইমন (১৯) ও মো. মনির (২৮)। এ সময় তাদের কাছ থেকে ছদ্মবেশ ধারণের সরঞ্জামাদি, রান্নার হাড়ি-পাতিল, বালতি, বহনযোগ্য ডিসপ্লে র্যাক এবং নানান ধরণের ইমিটেশন অলঙ্কার উদ্ধার করা হয়। গতকাল বুধবার বিকেলে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-২ এর অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল ইমরান উল্লাহ সরকার। তিনি বলেন, গ্রেপ্তারদের পূর্বপুরুষরা বেদে সম্প্রদায়ের লোক ছিল। বর্তমানে বেদে সম্প্রদায়ের আয় রোজগার কমে যাওয়ায় গ্রেপ্তারকৃতরা কক্সবাজার সীমান্ত থেকে ইয়াবা এনে ঢাকায় সরবরাহ করত। লে. কর্নেল ইমরান উল্লাহ সরকার বলেন, র‌্যাব-২ এর একটি দল র‌্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে, একদল মাদক কারবারি মাদকের একটি বড় চালান নিয়ে নদীপথে বুড়িগঙ্গা নদী দিয়ে মোহাম্মদপুরের বসিলা ব্রিজ এলাকায় হস্তান্তরের উদ্দেশ্যে আসছে। এ প্রেক্ষিতে র‌্যাব-২ এর আভিযানিক দল গত মঙ্গলবার রাতে মোহাম্মদপুরের বসিলা মধ্যপাড়া এলাকায় অবস্থান নেয় এবং সেখান থেকে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি আরও বলেন, ভাসমান বেদে দলের ছদ্মবেশ ধারণ করে তারা মাদক পাচার করত। এ সময়ে তারা সঙ্গে থাকা বহনযোগ্য রান্না করার টিনের চুলার ভেতরে বিশেষ কায়দায় লুকিয়ে আনা ইয়াবার কথা স্বীকার করে এবং রান্না করার চুলার নিচের অংশ কেটে তার ভেতর থেকে মোট ৭৭ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। র‌্যাব-২ এর অধিনায়ক (সিও) বলেন, কক্সবাজারের সীমান্ত এলাকা ও সমুদ্র পথে বাংলাদেশে আসা ইয়াবা ট্যাবলেট রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করে আসছিল তারা।

বিট কয়েন ব্যবসায় জড়িতরা র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ইসমাইল হোসেন সুমন ওরফে কয়েন সুমন (৩২)। ছোট্ট একটি দোকানে বাচ্চাদের কাপড় ও খেলনার ব্যবসা দিয়ে শুরু করেন তিনি। সেখান কম্পিউটার বসিয়ে আস্তে আস্তে গড়ে তোলেন বেসিক বিজ মার্কেটিং নামে একটি প্রতিষ্ঠান। আউট সোর্সিং মার্কেটিংয়ের ওই প্রতিষ্ঠানের আড়ালেই চলছিল তার অবৈধ বিট কয়েন ব্যবসা। বাংলাদেশে অবৈধ বিট কয়েন ব্যবসার মূলহোতা ইসমাইল হোসেন সুমন ওরফে কয়েন সুমনের রয়েছে একাধিক ভার্চুয়াল ওয়ালেট। যেখানে মজুদ রয়েছে বিট কয়েনে অর্জিত লক্ষাধিক ডলার। শুধু তাই নয়, বিট কয়েন ব্যবসার মাধ্যমে তিনি গড়েছেন ফ্ল্যাট, প্লট, সুপার শপসহ নানা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। গতকাল সোমবার বিকেল সোয়া পাঁচটায় কারওয়ান বাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‍্যাব সদর দফতরের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। তিনি বলেন, রোববার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে রাজধানীর উত্তর বাড্ডা এলাকার বেসিক বিজ মার্কেটিং নামে একটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনা করে র‍্যাব-১-এর একটি দল। সেখান থেকে বাংলাদেশে অবৈধ বিট কয়েন ব্যবসার মূলহোতা ও অনলাইনে প্রতারণার অভিযোগে ইসমাইল হোসেন সুমন ওরফে কয়েন সুমনসহ ১২ জনকে আটক করে দলটি। আটক অন্যরা হলেন- আবুল বাশার রুবেল (২৮), আরমান পিয়াস (৩১), রায়হান আলম সিদ্দিকি (২৮), মো. জোবায়ের (১৮), মেহেদী হাসান রাহাত (২৪), মেহেদী হাসান (১৯), রাকিবুল হাসান (২৩) রাকিবুল ইসলাম (২২), সোলাইমান ইসলাম (২১), মো. জাকারিয়া (১৮), আরাফাত হোসেন (২২)। অভিযানকালে তাদের কাছ থেকে ২৯টি ডেস্কটপ কম্পিউটার, তিনটি ল্যাপটপ, ১৫টি মোবাইল ফোন, একটি ট্যাবলেট ফোন ও বিবিধ নথিপত্র জব্দ করা হয়। কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, চক্রটির মূল হোতা ইসমাইল হোসেন সুমন ওরফে কয়েন সুমন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে মাস্টার্স পাশ করেন। এরপর ২০১৩ সালে ছোট্ট একটি দোকানে বাচ্চাদের খেলনা ও কাপড়ের ব্যবসা শুরু করেন তিনি।
র‍্যাবের এই কর্মকর্তা জানান, সেখান থেকেই তিনি শুরু করেন বিট কয়েনের ব্যবসা। গড়ে তোলেন বেসিক বিজ মার্কেটিং নামে অনলাইন আউট সোর্সিং প্রতিষ্ঠান। আর এর আড়ালে অবৈধ বিট কয়েন ও অনলাইন বিভিন্ন প্রতারণার ফাঁদ তৈরি করে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছিলেন সুমন।


   Page 1 of 35
     অপরাধ জগত
ব্যাংক ডাকাতির পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের: র‍্যাব
.............................................................................................
করোনা ও ক্যান্সারের নকল ওষুধ সরবরাহ, গ্রেপ্তার ৭
.............................................................................................
ওয়াজ মাহফিলের আড়ালে চলছিল গুনবীর জঙ্গি রিক্রুট
.............................................................................................
রূপগঞ্জ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার গ্রেফতার ১
.............................................................................................
ময়মনসিংহে দস্যুতা ও কিশোর গ্যাং এর চার জনকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১৪
.............................................................................................
বিটকয়েন বেচাকেনার হোতাসহ চারজন গ্রেফতার
.............................................................................................
ময়মনসিংহে র‍্যাব-১৪’র অভিযানে এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার
.............................................................................................
গণপূর্তে আ’লীগের দুই নেতা অস্ত্র নিয়ে মহড়ার পর অস্ত্র জমা
.............................................................................................
কোস্ট গার্ডের অভিযানে ২০ লক্ষ পিস গলদা ও বাগদা রেণু জব্দ
.............................................................................................
স্বামীকে ৬ টুকরো করে হাত-পা মহাখালি মাথা বনানীতে ফেললেন স্ত্রী
.............................................................................................
কিশোরগঞ্জের নিকলীতে পিস্তল-গুলি-রামদাসহ দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী মুরগী সোহেল গ্রেফতার
.............................................................................................
অন্যের নামে সিম কিনে তারা হত্যার পরিকল্পনা করেন
.............................................................................................
ইউটিউব বক্তা আমির হামজা পাঁচদিনের রিমান্ডে
.............................................................................................
মসজিদের ভেতর ইমামের হাতে যুবকের ৬ টুকরো লাশ
.............................................................................................
বেদের ছদ্মবেশে ইয়াবা কারবারি চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার
.............................................................................................
বিট কয়েন ব্যবসায় জড়িতরা র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার
.............................................................................................
ঘরে বসে জাল টাকা বানান দুই পেশাদার ইঞ্জিনিয়ার
.............................................................................................
নকল আখের গুড় তৈরী কারখানায় অভিযান
.............................................................................................
জখম শরীয়তপুরের যুবলীগ নেতার ঢাকায় মৃত্যু
.............................................................................................
র‍্যাবের অভিযানে ৪ ট্রাক মেয়াদ উত্তীর্ণ কিট ও রি এজেন্ট জব্দ
.............................................................................................
বগুড়ায় যমুনা নদীতে বিষ দিয়ে মাছ শিকার
.............................................................................................
৭০ লাখ টাকার স্বর্ণসহ বিমানের কর্মী ঝন্টু বর্মণ গ্রেফতার
.............................................................................................
শরীয়তপুরে স্ত্রীকে নির্যাতনের পর মাথার চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ
.............................................................................................
সরকারি চালের মোড়ক পরিবর্তনের সময় ভাণ্ডারিয়ায় ৫ মেট্রিকটন চাল জব্দ, গ্রেফতার ১
.............................................................................................
আনুশকার শরীরে সেক্স টয় ব্যবহার করা হয়েছিল
.............................................................................................
নিজ ছেলের কুড়ালের কোপে মা নিহত
.............................................................................................
ঠাকুরগাঁওয়ে বিপুল পরিমাণ ফেনসিডিলসহ আটক ১
.............................................................................................
কাগজ নয় কন্টেইনার ভর্তি শুধু সিগারেট
.............................................................................................
ভারত থেকে ঢাকার আন্ডারওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণ করতো মামুন
.............................................................................................
ইউল্যাব শিক্ষার্থী ধর্ষণ-হত্যা প্রধান আসামির দায় স্বীকার
.............................................................................................
ডিবি পরিচয়ে স্বর্ণ লুটের ঘটনায় মাদক নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা কারাগারে
.............................................................................................
উত্তরা থেকে গ্রেফতার ‘হেলিকপ্টার রুবেল’
.............................................................................................
ঢাকায় কাচের জারে ৭৫ কোটি টাকার সাপের বিষ
.............................................................................................
ঝিকরগাছায় এক রাতে ২০ বিঘা জমির গাছ কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা
.............................................................................................
এমসি কলেজে ধর্ষকদের ডিএনএ রিপোর্ট, চার্জশিট প্রস্তুতি চলছে
.............................................................................................
দুই শতাধিক প্লটসহ হাজার কোটি টাকার সম্পদ
.............................................................................................
লক্ষ্মীপুরে পরিবার কল্যাণ সহকারী বিলকিসের বাসায় অবৈধ হাসপাতাল
.............................................................................................
বগুড়ায় গাঁজার চালানসহ তিন জন আটক
.............................................................................................
সুন্দরবনে হরিণের মাংস ও চামড়াসহ দুই পাচারকারী আটক
.............................................................................................
গাংনী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দালালদের তৎপরতা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ
.............................................................................................
বান্দরবানে ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবক গ্রেফতার
.............................................................................................
রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাশে অস্ত্র কারখানার সন্ধান, আটক ২
.............................................................................................
ফেনীতে ৩ প্রতিষ্ঠানকে ৩১ লাখ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
নকল মাস্ক সরবরাহের অভিযোগে জেএমআই চেয়ারম্যান গ্রেফতার
.............................................................................................
সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ শিকারকালে ৩ জেলে আটক
.............................................................................................
পানগাঁও কাষ্টম কর্তৃক ৩২ লক্ষ টাকার শুল্ক ফাঁকি উৎঘাটন
.............................................................................................
টাঙ্গাইলে ট্রান্সফর্মারের ভিতরে ফেন্সিডিল পাঁচার, আটক ২
.............................................................................................
রামগতিতে ৬ জেলে আটক
.............................................................................................
পিবিআই এর অভিযানে অপহৃত আজিজ উদ্ধার, গ্রেফতার ৩
.............................................................................................
লক্ষ্মীপুর মাতৃমঙ্গলে ডেলিভারী চিকিৎসা না দিয়ে স্বজনের সাথে ডাক্তারের দূর্ব্যবহার
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop