ঢাকা,মঙ্গলবার,৬ ভাদ্র ১৪২৮,২০,এপ্রিল,২০২১ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > অসহায় ও ছিন্নমূলদের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ   > মেহেরপুরে লকডাউন মানছে না কেউ   > দাগনভূঞায় আয়েশা ডেইরি ফার্মের সফল উদ্যোক্তা তুহিন   > তীব্র তাপদাহে পুুড়ছে বাগাতিপাড়া   > সখীপুরে অবাধে কাটা হচ্ছে টিলা   > ‘লকডাউনের আগে থেকেই শুটিং করছি না’   > ফুটবলার পগবাকে নিয়ে চলচ্চিত্র   > কুড়িগ্রামে বাজারে অগ্নিকান্ড প্রায় ৩০ লাখ টাকার ক্ষতি   > কুমারখালীতে বাজার মনিটরিং কমিটির অভিযান   > ভারতে করোনায় একদিনে আক্রান্ত আড়াই লাখ, মৃত্যু দেড় হাজার  

   অপরাধ জগত -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
জখম শরীয়তপুরের যুবলীগ নেতার ঢাকায় মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার : শরীয়তপুর সদর উপজেলায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মো. দাদন খলিফা (৩০) নামের এক যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম করার পর তাকে ঢাকায় আনলে মারা যান। উপজেলার গয়ঘর এলাকায় বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাঁকে কুপিয়ে আহত করা হয়। পরে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পথে পোস্তগোলা এলাকায় গতকাল শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে মৃত্যু হয় তাঁর। নিহত মো. দাদন খলিফা উপজেলার শৌলপাড়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের গয়ঘর গ্রামের সেকেন্দার খলিফার ছেলে। তিনি শৌলপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক এবং মালয়েশিয়া প্রবাসী ছিলেন। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গয়ঘর গ্রামের ইদ্রিস খার সঙ্গে দাদন খলিফার বাবা সেকেন্দার খলিফার দ্বন্দ্ব চলছিল। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে গয়ঘর এলাকায় মসজিদে নামাজ পড়ে বের হলে আগে থেকে ওত পেতে থাকা ইদ্রিস খা, এসকান্দার সরদারসহ ১০ থেকে ১৫ জন দেশীয় অস্ত্র দিয়ে দাদনকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা দাদনকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর ১০০ শয্যাবিশিষ্ট সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠাতে বলেন।
পরে ঢাকায় নেওয়ার পথে পোস্তগোলা এলাকায় দাদনের মৃত্যু হয়। দাদন খলিফার বাবা সেকেন্দার খলিফা বলেন, ‘ইদ্রিস খার নেতৃত্বে আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। আমি হত্যাকারীদের বিচার চাই।’ শরীয়তপুর সদরের পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আক্তার হোসেন জানান, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। হত্যার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।

জখম শরীয়তপুরের যুবলীগ নেতার ঢাকায় মৃত্যু
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : শরীয়তপুর সদর উপজেলায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মো. দাদন খলিফা (৩০) নামের এক যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম করার পর তাকে ঢাকায় আনলে মারা যান। উপজেলার গয়ঘর এলাকায় বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাঁকে কুপিয়ে আহত করা হয়। পরে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়ার পথে পোস্তগোলা এলাকায় গতকাল শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে মৃত্যু হয় তাঁর। নিহত মো. দাদন খলিফা উপজেলার শৌলপাড়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের গয়ঘর গ্রামের সেকেন্দার খলিফার ছেলে। তিনি শৌলপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের শ্রমবিষয়ক সম্পাদক এবং মালয়েশিয়া প্রবাসী ছিলেন। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গয়ঘর গ্রামের ইদ্রিস খার সঙ্গে দাদন খলিফার বাবা সেকেন্দার খলিফার দ্বন্দ্ব চলছিল। এর জের ধরে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে গয়ঘর এলাকায় মসজিদে নামাজ পড়ে বের হলে আগে থেকে ওত পেতে থাকা ইদ্রিস খা, এসকান্দার সরদারসহ ১০ থেকে ১৫ জন দেশীয় অস্ত্র দিয়ে দাদনকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে গেলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা দাদনকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর ১০০ শয্যাবিশিষ্ট সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে পাঠাতে বলেন।
পরে ঢাকায় নেওয়ার পথে পোস্তগোলা এলাকায় দাদনের মৃত্যু হয়। দাদন খলিফার বাবা সেকেন্দার খলিফা বলেন, ‘ইদ্রিস খার নেতৃত্বে আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। আমি হত্যাকারীদের বিচার চাই।’ শরীয়তপুর সদরের পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আক্তার হোসেন জানান, এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। হত্যার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।

র‍্যাবের অভিযানে ৪ ট্রাক মেয়াদ উত্তীর্ণ কিট ও রি এজেন্ট জব্দ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা শনাক্তের কিট, রি-এজেন্ট জালিয়াতির মাধ্যমে নতুন করে মেয়াদ বাড়িয়ে ও নকল কিট বিক্রির অভিযোগে তিন প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে মূলহোতাসহ ৯ জনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। এ সময় তাদের কাছ থেকে প্রায় চার ট্রাক অনুমোদনহীন, মেয়াদোত্তীর্ণ ও নকল টেস্ট কিট, রি-এজেন্ট জব্দ করা হয়। জালিয়াতির এসব কিটের মধ্যে করোনা, ক্যানসার, এইডস, জন্ডিস, ডায়াবেটিস ও নিউমোনিয়া রোগের টেস্ট কিট ছিল। তারা মেয়াদ বাড়িয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সরবরাহ করত বলে অভিযানে জানতে পারে র‍্যাব। গতকাল শুক্রবার বেলা সাড়ে ৩টায় র‍্যাব-২ এর কার্যালয় বছিলায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান র‍্যাব-২ এর অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল ইমরান উল্লাহ সরকার। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- বায়োল্যাব ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের স্বত্ত্বাধিকারী মো. শামীম মোল্লা (৪০), ব্যবস্থাপক মো. শহীদুল আলম (৪২), প্রধান প্রকৌশলী আবদুল্লাহ আল বাকী ছাব্বির (২৪), অফিস সহকারী মো. জিয়াউর রহমান (৩৫), হিসাবরক্ষক মো. সুমন (৩৫), অফিস ক্লার্ক ও মার্কেটিং অফিসার জাহিদুল আমিন পুলক (২৭), সার্ভিস ইঞ্জিনিয়ার মো. সোহেল রানা (২৮), এক্সন টেকনোলজিস্ট অ্যান্ড সার্ভিসেস লিমিটেডের এমডি মো. মাহমুদুল হাসান (৪০), হাইটেক হেলথ কেয়ার লিমিটেডের এমডি এস এম মোজফা কামাল (৪৮)।
লে. কর্নেল ইমরান উল্লাহ সরকার বলেন, ‘চক্রটি ২০১০ সাল থেকে একাধিক প্রতিষ্ঠানের নামে বিদেশ থেকে বিভিন্ন রোগের কিট এনে তা টেম্পারিং করে মেয়াদ বাড়াতো। এই তিন প্রতিষ্ঠান করোনা, ক্যানসার, এইডস, জন্ডিস, ডায়াবেটিস ও নিউমোনিয়া রোগের টেস্ট কিটের মেয়াদ বাড়িয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সরবরাহ করত।’
র‌্যাব গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে, কিছু অসাধু প্রতিষ্ঠান অননুমোদিত মেডিকেল ডিভাইস আমদানিকরণ, নকল ও মেয়াদোত্তীর্ণ করোনার টেস্টিং কিট ও রি-এজেন্টসহ অন্যান্য রোগ নির্ণয়ে ব্যবহৃত বিভিন্ন রোগের টেস্টিং কিট ও রি-এজেন্ট মজুত ও বাজারজাত করে আসছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের প্রতিনিধিদের সহযোগিতায় রাজধানীর মোহাম্মদপুরের লালমাটিয়া এলাকায় অবস্থিত বায়োল্যাব ইন্টারন্যাশনাল ও তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান বনানী এলাকায় অবস্থিত এক্সন টেকনোলজি এন্ড সার্ভিস লি. এবং হাইটেক হেলথকেয়ার লি. নামের তিনটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে দেখা যায়, ওই তিন প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিদের উপস্থিতিতে বিশেষ ধরনের প্রিন্টিং মেশিনের সাহায্যে মেয়াদোত্তীর্ণ ও মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার খুব অল্প সময় রয়েছে, এমন বিভিন্ন টেস্ট কিট ও রি-এজেন্টের মেয়াদ বাড়ানোর কাজ চলছে। পরবর্তীতে তাদের ওয়্যারহাউজগুলোতে তল্লাশীর সময় বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। সেখানে মজুদকৃত বেশির ভাগ মেডিকেল ডিভাইস অননুমোদিত, প্রায় সকল প্রকার টেস্ট কিট এবং রি-এজেন্টের ব্যবহারের মেয়াদোত্তীর্ণ অথবা দ্রুতই মেয়াদোত্তীর্ণ হবে।
তিনি বলেন, ‘এমনকি এইডস নির্ণয়ের জন্য নির্ধারিত প্যাথলজিক্যাল টেস্ট কিট ও রি-এজেন্টও রয়েছে এই তালিকায়, যা তাদের সংরক্ষণে মেয়াদোত্তীর্ণ অবস্থায় পাওয়া যায়।’
জিজ্ঞাসাবাদে এই তিন প্রতিষ্ঠানের গ্রেফতারকৃতরা জানায়, ‘২০১০ সাল থেকে প্রতিষ্ঠানগুলো একাধিক নামে পারস্পরিক যোগসাজশে, অবৈধভাবে ও অসৎ পন্থায় আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার উদ্দেশ্যে কোনও অনুমোদন ছাড়াই মানহীন ও স্বল্প মেয়াদী টেস্ট কিট ও রি-এজেন্ট বিদেশ থেকে আমদানি, সংরক্ষণ ও দেশব্যাপী বাজারজাতকরণ করত। যা সরবরাহ করার পর্যায়েই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে যেত।’
সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে লে. কর্নেল ইমরান উল্লাহ সরকার বলেন, ‘তারা বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে এই কিটগুলো সরবরাহ করত। তদন্তে প্রতিষ্ঠানগুলোর নাম বের হয়ে আসবে। বিদেশ থেকে আমদানি-রফতানি চ্যানেলের মাধ্যমে তারা এসব সামগ্রী আনত। এছাড়া জার্মানি ও ইউরোপের কয়েকটি প্রতিষ্ঠান থেকেও এসব সামগ্রী আনত। প্রতিষ্ঠানগুলো একটিও স্বনামধন্য নয়। তাদের এই কিট ও মেডিকেল সরঞ্জাম আমদানির কোনো অনুমোদন ছিল না।’

বগুড়ায় যমুনা নদীতে বিষ দিয়ে মাছ শিকার
                                  

বগুড়া ব্যুরো : বগুড়ার ধুনট উপজেলায় যমুনা নদীতে বিষ দিয়ে অবাধে চিংড়ি মাছ শিকার করায় প্রাকৃতিক ভাবে মাছের বংশ বিস্তার বাঁধাগ্রস্থ হচ্ছে। এতে শুধু মাছ নয়, পানি বিষাক্ত হয়ে অন্যান্য জলজ প্রাণীও মারা যাচ্ছে। ফলে হুমকির মুখে পড়েছে জীববৈচিত্র। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আইনের প্রয়োগ না থাকায় যমুনা নদীতে বিষ দিয়ে চিংড়ি মাছ শিকার বন্ধ হচ্ছে না। সাম্প্রতিক সময়ে বিষ দিয়ে মাছ শিকার বেড়েছে। প্রতি বছর শুস্ক মৌসুমে অসাধূ চক্র এভাবে মাছ শিকার করে। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। এসব কীটনাশক যেখানে প্রয়োগ করা হয়, সেখানে ছোট-বড় সব মাছ মারা যায়। সেখান থেকে শুধু বড় মাছগুলো সংগ্রহ করে। ছোট মাছগুলো তারা নেয় না। কিন্তু এই ছোট মাছগুলো ছিল বড় মাছের খাবার। ফলে ওই এলাকার খাদ্যচক্রেও ব্যাপক প্রভাব পড়ে। এছাড়া প্রাকৃতিক ভাবে তৈরী মাছের খাবার নষ্ট এবং মাছের বংশ বিস্তার বাঁধাগস্ত হচ্ছে। দীর্ঘদিন ধরে তারা বিষ দিয়ে চিংড়িসহ অন্যান্য মাছ আহরণ করছে। যমুনা পাড়ের ভান্ডারবাড়ি গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এক ধরনের বিষাক্ত পদার্থ (বিষ) যা পানিতে প্রয়োগ করলে মাছ গভীর পানি থেকে ওপরে উঠে আসে। এ সব মাছের বেশির ভাগই চিংড়ি মাছ। বিষয়ক্রীয়ায় অসংখ্য চিংড়ি ভাসতে থাকে। তখন যে কেউ সহজে মাছ ধরতে পারেন। এসব মাছ হাতজাল, ঠেলাজাল, চালুনি কিংবা মশারি দিয়ে ধরা হয়। জালে বড় মাছগুলো আটকা পড়লেও ছোট মাছগুলো মরে নদীতে ভেসে ওঠে। ওরা সমাজের প্রভাবশালী শৈখিন মাছ শিকারি। এ কারনে স্থানীয়রা তাদের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস পাচ্ছে না। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মাসুদ রানা সরকার বলেন, যমুনা নদীতে বিষ প্রয়োগের কারণে মাছ মারা যায়। এছাড়া প্রাকৃতিক ভাবে তৈরী মাছের খাদ্য ও প্রজনন নষ্ট হয়। কিন্তু অপ্রতুল লোকবল দিয়ে যমুনায় পাহারা দেওয়া সম্ভব নয়। তার পরও যতটুকু সম্ভব আইন প্রয়োগ করার চেষ্টা করছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সঞ্জয় কুমার মহন্ত বলেন, যমুনায় বিষ দিয়ে মাছ শিকার জীববৈচিত্রের জন্য দারুন হুমকি স্বরুপ। উন্মুক্ত জলাশয়ে বিষ ঢেলে মাছ শিকার করা দন্ডনীয় অপরাধ। এসব মাছ শিকারিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

৭০ লাখ টাকার স্বর্ণসহ বিমানের কর্মী ঝন্টু বর্মণ গ্রেফতার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ১.১৬০ কেজি স্বর্ণসহ ‘বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স’-এর একজন কর্মচারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ওই কর্র্মীর নাম ঝন্টু চন্দ্র বর্মণ, যিনি বাংলাদেশ বিমানে এয়ারক্রাফ্ট টেকনিশিয়ান হেলপার হিসেবে কর্মরত। কাস্টমস প্রিভেনটিভের তল্লাশীতেই ধরা পড়ে সে। শুক্রবার সকালে এই ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কাস্টম হাউস, ঢাকার কর্মকর্তাগণ জানতে পারেন যে, দুবাই হতে ঢাকাগামী বিমান বাংলাদেশের ফ্লাইট নং- বিজি ৫০৪৬ এর মাধ্যমে স্বর্ণ চোরাচালান সংঘটিত হবে।
এমন তথ্যের ভিত্তিতে কাস্টম হাউস ঢাকার প্রিভেন্টিভ টিমে কর্তব্যরত মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা বিমান বন্দরের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান করে নজরদারী করতে থাকে। পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে দুবাই থেকে আগত ফ্লাইট নং-বি জি ৫০৪৬ এ তল্লাশি করার সময়ে বিমানের অভ্যন্তরে থাকা এয়ারক্রাফ্ট টেকনিশিয়ান হেলপার ঝন্টু চন্দ্র বর্মণ এর আচরণ সন্দেহজনক হওয়ায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি স্বর্ণ থাকার বিষয় অস্বীকার করেন। পরবর্তীতে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদে তিনি সিটের হাতলে স্বর্ণ থাকার বিষয়ে স্বীকার করেন। ঝন্টু বর্মণ এর দেয়া তথ্য মোতাবেক সিট নং ২১ সি এর হাতল ভেতর থেকে বিশেষ কায়দায় লুকায়িত অবস্থায় ১.১৬০ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়। জব্দকৃত স্বর্ণের আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৭০ লাখ টাকা। এ বিষয়ে কাস্টমস আইনে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানা গেছে। জব্দকৃত স্বর্ণবার রাষ্ট্রীয় গুদামে জমা দেওয়ার কথা জানিয়েছে কাস্টমস। অন্যদিকে, চোরাচালানের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত বিমানকর্মীকে রাজধানীর বিমানবন্দর থানায় সোপর্দ করার পাশাপাশি ফৌজদারী মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শরীয়তপুরে স্ত্রীকে নির্যাতনের পর মাথার চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : শরীয়তপুর সদর পৌরসভায় যৌতুক ও ঠুনকো অভিযোগে এক গৃহবধূকে নির্যাতনের পর মাথার চুল কেটে দিয়েছেন তাঁর স্বামী। নির্যাতনের কারণে ওই গৃহবধূ দুচোখে দেখতে পারছেন না। এ ঘটনায় গত শুক্রবার রাতে ওই গৃহবধূর বাবা তিনজনকে আসামী করে সদরের পালং মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। আনিকা আক্তার (১৯) নামে নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূকে তার বাবার বাড়ি থেকে ঢাকা শেরেবাংলা নগর জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। সদর পৌরসভার ৮নম্বর ওয়ার্ডের স্বর্ণঘোষ গ্রামের আবু তালেব খান ও ফাহিমা বেগম দম্পতির বড় মেয়ে তিনি। তারা এক ভাই এক বোন। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি পৌরসভার ৬নম্বর ওয়ার্ডের হুগলি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। থানায় অভিযোগ ও আনিকার পরিবার সূত্র জানায়, পৌরসভার ৬নম্বর ওয়ার্ডের হুগলি গ্রামের আলী আহাম্মদ মোল্লার ছেলে সাদ্দাম হোসেন মোল্লার (৩০) সঙ্গে অনিকা আক্তারের পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় ২০১৯ সালের ১৩ ডিসেম্বর। সাদ্দাম ঢাকা ভিকারুননিসা নূন স্কুল এন্ড কলেজে অফিস সহায়ক হিসেবে মাষ্টার রুলে চাকরি করছেন। বিয়ের পর থেকে যৌতুকসহ বিভিন্ন অজুহাতে আনিকাকে মারধর করে আসছেন তাঁর স্বামী সাদ্দাম হোসেন, শশুর আলী আহম্মদ (৬০) ও শাশুড়ি রোকেয়া বেগম (৫০)। শেষ গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সাদ্দামের ওই চাকরি নিয়মিত ও বাড়ি করবেন বলে আনিকাকে বাবার বাড়ি থেকে তিন লাখ টাকা আনতে বলেন তাঁর স্বামী, শশুর ও শাশুড়ি । আনিকা টাকা আনতে অস্বীকার করলে তাকে লাঠি দিয়ে বেদম পেটান তাঁরা। একপর্যায়ে সাদ্দাম আনিকার চুলের মুঠি ধরে ওয়ালের সঙ্গে মাথা টাকাতে থাকেন। আনিকা অজ্ঞান হয়ে পরেন। জ্ঞান ফিরলে মাথার যন্ত্রণায় কাতরাতে থাকেন তিনি। এরপর কাঁচি দিয়ে আনিকার মাথার চুল কেটে দেন সাদ্দাম। তাৎক্ষণিক প্রাথমিক চিকিৎসা করানো হয়। আনিকা ভয়ে এ বিষয়ে বাব-মাকে কিছু বলেননি। যতদিন যাচ্ছিল আনিকা চোখে ঝাপসা দেখছিলেন ও মাথায় যন্ত্রনা শুরু হয়। জানতে পেরে আনিকাকে তাঁর বাবা আবু তালেব খান উদ্ধার করেন। পরে আনিকাকে গত ৩ মার্চ গোপালগঞ্জ শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব আই হসপিটাল এন্ড ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে নিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা শেরেবাংলা নগর জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে পরীক্ষা-নিরিক্ষা করাতে বলেন। পরীক্ষা করে পরেরদিন আনিকাকে পরিবার শরীয়তপুরের বাড়িতে নিয়ে আসে। শুক্রবার (৫ মার্চ) রাত সাড়ে ১০টার দিকে আনিকার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রাতে তাকে এম্বুলেন্সে করে আবার জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে নিয়ে যান। এখন দুচোখে দেখতে পারছেন না আনিকা। তিনি ব্যথায় কাতরাচ্ছেন। আনিকার মা ফাহিমা বেগম বলেন, সাদ্দাম ও তাঁর মা-বাবা মিলে আমার মেয়েকে নির্যাতন করেছে । মেয়ের মাথা ওয়ালের সঙ্গে টাক দিছে। আমার মেয়ে এখন চোখে দেখেনা। মেয়ের মাথার চুল কেটে দিছে। শরীর ও মাথার যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে মেয়েটি। মেয়ের অবস্থা খুবই খারাপ। ওরা আমার মেয়ের অবস্থা এরকম করেছে। মেয়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। আমি এর বিচার চাই। আনিকার বাবা আবু তালেব খান বলেন, চাকরি ও বাড়ি করবেন বলে সাদ্দামও তাঁর পরিবার আমার মেয়ের কাছ থেকে তিন লাখ টাকা চায়। মেয়ে বলছে, বাবা গরিব সামান্য ছোট একটি দোকান করে। এতো টাকা পাবে কোথায়? বলার সঙ্গে সঙ্গে মেয়ের স্বামী সাদ্দাম, শশুর আলী আহম্মদ ও শাশুড়ি রোকেয়া আনিকাকে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে সাদ্দাম আনিকার চুলের মুঠি ধরে ওয়ালের সঙ্গে মাথা টাকাতে থাকেন। মেয়ে ভয়ে আমাদের কিছু বলেনি। মেয়ের মাথার সুন্দর চুলগুলোও কেটে ফেলেছে। জানতে পেরে উদ্ধার করে চিকিৎসা করাচ্ছি। ওরা দীর্ঘদিন ধরে আমার মেয়েকে নির্যাতন করে আসছে। এদিকে, নির্যাতনের বিষয়ে অস্বীকার করে অভিযুক্ত সাদ্দাম হোসেন মোল্লা মুঠোফোনে বলেন, আমি কেন আমার স্ত্রীকে মারধর করবো? কেনইবা চুল কাটবো! আমি শুনেছি আমার স্ত্রী অসুস্থ। তাই শশুরের মোবাইলে বার বার ফোন দিচ্ছি, তিনি ধরছেন না। শরীয়তপুর সদরের পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসলাম উদ্দিন বলেন, গৃহবধূর নির্যাতনের ঘটনায় শুক্রবার রাতে একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনার বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।

সরকারি চালের মোড়ক পরিবর্তনের সময় ভাণ্ডারিয়ায় ৫ মেট্রিকটন চাল জব্দ, গ্রেফতার ১
                                  

ভাণ্ডারিয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি : পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় বৃহস্পতিবার রাতে শহরের মায়ের দোয়া ভাণ্ডার নামের একটি চালের আরতে সরকারি চালের মোড়ক পরিবর্তনের সময় ৫মেট্রিক টন চাল জব্দ করে এবং আঃ রহমান সরদার (৪৫) নামের এক শ্রমিককে গ্রেফতার করে থানা পুলিশ। ব্যবসায়ী মো. আলমগীর কবিরাজ ওই চালের আরতের মালিক। থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে শহরের মায়ের দোয়া ভাণ্ডার নামের একটি চালের আরতে ‘শেখ হাসিনার বাংলাদেশ/ ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ’ স্লোগান সম্বলিত ৩০ কেজি ওজনের সরকারি চালের বস্তা পরিবর্তন করে বিক্রির উদ্দেশে নুরজাহান ব্র্যান্ড নামের মোড়কে এক নম্বর মিনিকেট চালের লেবেলে ৫০ কেজির বস্তায় প্যাকেট জাত করার সময় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তৌহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ৩০ কেজি ওজনের সরকারি ৩৩ বস্তাসহ মোট ৫মেট্রিক টন চাল জব্দ করেন। মায়ের দোয়া ভান্ডারের মালিক মো. আলমগীর কবিরাজ দীর্ঘদিন ধরে পিরোজপুর জেলা ছাড়াও বিভিন্ন জেলা ও উপজেলার টিআর, কাবিখা ছাড়াও সরকারি সুবিধাভোগী বিভিন্ন মানুষের চাল কম মূল্যে ক্রয় করে সেগুলোর সঙ্গে কিছু মিনিকেট চাল মিশিয়ে নুরজাহান ব্রান্ড নামের বস্তা প্রিন্ট করে এক নম্বর মিনিকেট চাল দাবী করে বেশি দামে বিক্রি করে আসছে বলে অভিযোগ রয়েছে। ভাণ্ডারিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মেহেদী হাসান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন জানান, উদ্ধারকৃত সরকারি চাল জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ভাণ্ডারিয়া থানা পুলিশের উপপরিদর্শক মো. ইদ্রিস বাদী হয়ে ২ জনকে চিহ্নিতসহ অজ্ঞাত নামা ৮/৯ জনকে আসামী করে বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার সকালে ধৃত আঃ রহমানকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

আনুশকার শরীরে সেক্স টয় ব্যবহার করা হয়েছিল
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর কলাবাগানে কথিত বয়ফ্রেন্ড তানভীর ইফতেখার দিহানের বাসায় ধর্ষণের শিকার হওয়া মাস্টারমাইন্ডের শিক্ষার্থী আনুশকার শরীরে ‘সেক্স টয়’ ব্যবহার করায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি। গতকাল রোববার দুপুরে রাজধানীর মালিবাগে সিআইডি’র সদরদপ্তরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানায় সিআইডি। বিশেষজ্ঞদের বরাত দিয়ে সিআইডি’র সাইবার ক্রাইম কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টারের অতিরিক্ত ডিআইজি মো.কামরুল আহসান বলেন, নির্যাতনের সময় ওই শিক্ষার্থীর শরীরে এক ধরনের ফরেন বডি ব্যবহার করা হয়েছিল। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দিহানের ব্যবহৃত ফরেন বডির উৎস খুঁজতে গিয়ে ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে মিরপুরের পল্লবী এলাকা থেকে চক্রের মূলহোতা মো. মেহেদী হাসান ভূইয়া ওরফে সানি (২৮), রেজাউল আমিন হৃদয় (২৭), মীর হিসামউদ্দিন বায়েজিদ (৩৮), মো. সিয়াম আহমেদ ওরফে রবিন (২১), মো. ইউনুস আলী (৩০), আরজু ইসলাম জিমকে (২২) গ্রেপ্তার করা হয়। সংঘবদ্ধ এই চক্রটির মূল টর্গেট কিশোর এবং ত্রিশোর্ধ্ব বয়সী ব্যক্তিরা। তাদেরকে টার্গেট করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে সেক্স টয় বিক্রি করতো চক্রটি। তাদের স্থায়ী কোনো দোকান নেই। অনলাইনে দেয়া মুঠোফোন নাম্বারের মাধ্যমে যোগাযোগ করে তাদের কাছ থেকে এই সেক্স টয় ক্রয় করে থাকেন টার্গেটকৃত ক্রেতারা।
সিআইডির এই অতিরিক্ত ডিআইজি বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইটে সেক্স টয়ের বিজ্ঞাপন দিত এই চক্রটি। বিশেষ করে যারা নি:স্বঙ্গ জীবনযাপন করছেন তাদেরকে টার্গেট করে এসব নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রি করত চক্রটি। শিক্ষার্থীর মৃত্যুর বিষয়টি তদন্ত করতে গিয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে রাজধানীর মিরপুরের পল্লবী থেকে ইতোমধ্যে এই চক্রের মূলহোতাসহ মোট ৬ জনকে গ্রেফতার করে সিআইডির সাইবার ইনভেস্টিগেশন টিম। মো.কামরুল বলেন, মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেলের শিক্ষার্থীর ধর্ষণের ফলে মৃত্যুর ঘটনায় ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী জানা যায়, বিকৃত যৌনাচারের কারণে তার অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়। আর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মারা যায় ওই শিক্ষার্থী।

নিজ ছেলের কুড়ালের কোপে মা নিহত
                                  

মো. নান্নু মৃধা, (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি : শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাটে জমি লিখে না দেওয়ায় ছেলে মালেক খান (৪২) এর বিরুদ্ধে মা আনোয়ারা বেগম (৬০) কে হত্যার অভিযোগ ওঠেছে। মালেক খান কে গ্রেফতার করেছেন গোসাইরহাট থানা পুলিশ। আনোয়ারা বেগম (৬০) উপজেলার নাগেরপাড়া ইউনিয়নের লক্ষিপুর ঢালীপাড়ার আব্দুল মতিন খার স্ত্রী। তার এক মেয়ে তিন ছেলে। মালেক খান আনোয়ারা বেগমের মেঝ ছেলে। স্থানীয়, প্রতক্ষদর্শী ও থানা সূত্রে জানা যায়, আনোয়ারা বেগম নিজের জমি তার মেয়ে লুৎফা বেগম কে লিখে দিয়েছে এমন সন্দেহ করে মালেক খা। মালেক তার মাকে নিজের ভাগ বুজিয়ে দেওয়ার জন্য চাপ দিয়ে আসছিল। গত কাল রবিবার বিকেলে মালেক কাজ থেকে বাসায় আসে। তখন থেকে ই মালেক তার মা কে বারবার জমি চাই জমি চাই একই কথা বলে জমি বুজিয়ে দেওয়ার জন্য। সন্ধ্যার কিছু পর মালেক তার মা কে কথা আছে বলে বাহিরে আসার জন্য বলে। আনোয়ারা বেগম বাহিরে গেলে তাকে অতর্কিত ভাবে হামলা করে মালেক ও তার স্ত্রী আয়েশা। মালেক তার মায়ের মাথার ওপর ঘরে থাকা কুঠার দিয়ে কোপ দেয়। এতে সে মাটিতে পড়ে যায়। আনয়ারার মেয়ে লুৎফা বেগম বাচানোর জন্য আসলে তাকেও কোপ দেয়। সেটা লাগে নি তার গায়ে। স্থানীয়রা আনোয়ারা বেগম কে উদ্ধার করে গোসাইরহাট হাসপাতালে নেন। চিকিৎসক মৃত ঘোষনার পর পুলিশ লাশ মর্গে পাঠান। প্রত্যক্ষদর্শী আনোয়ারার নাতী ইমাম হাসান (১৩) বলেন, সন্ধ্যা মাগরিবের আজানের পর মামা নানীকে ডাকে। পরে নানী ঘর থেকে বের হয়। মামা নানীর পিছন থেকে কুড়াল দিয়ে জোরে একটা কোপ দেয়। নানী আল্লাহ গো বলে পড়ে যায়। নানী কে ধরা জন্য যাই। এর মধ্যে মা ঘর থেকে বের হলে মাকেও কোপ দিতে যাওয়ার সময় আমি কুড়াল টা ধরে রাখি। তাই মায় বেচে যায়। কি জন্য করল তা আমি জানি না। আনোয়ারা বেগমের মেয়ে লুৎফা বেগম বলেন, আমি ৪ মাস আগে দুবাই থেকে এসেছি। তখন আমার মা আমাকে কিছু জমি দিবে বলে। আমি নিতে চাই নি। কিন্তু আমার মেঝ ভাই কোথা থেকে জানি শুনে এসেছে যে আমাকে মায় জমি দিয়ে দিছে। মাঝে মধ্যে মায়ের সাথে ব্যপার টা নিয়ে ঝগড়া করত। আমি কিছু বলতাম না। কাল সন্ধ্যার দিকে মা আর আমি বসে চা খাচ্ছি। মেঝ ভাই মালেক ডাক দেয় মা কে। হঠাৎ মায়ে আল্লাহ গো বলে চিৎকার দেয় আমি ছুটে যাই দেখি মায় মাটিতে পড়ে আছে। আমি ধরতে গেলে আমাকেও তেরে আসে মারার জন্য। কিন্তু আমার ছেলে ইমাম কুড়াল টা ধরাতে কোপ দিতে পারে নি। পরে মালেক আর আয়েশা পালিয়ে যায়। যাওয়ার সময় মালেককে স্থানীয়রা ধরে পুলিশের কাছে দেয়। গোসাইরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা সোহেব আলী জানান, নাগেরপাড়ার ঢালী পাড়া এলাকায় জমি লিখে না দেওয়ার কারণে ছেলের কুঠারের আঘাতে মায়ের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মালেক কে আটক করা হয়েছে। আমরা লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে পাঠায়েছি।

ঠাকুরগাঁওয়ে বিপুল পরিমাণ ফেনসিডিলসহ আটক ১
                                  

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁওয়ে ২৪৮ বোতল ফেনসিডিলসহ মামুন (৩০) নামে এক ব্যবসায়িকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত বুধবার রাতে শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় একটি যাত্রিবাহী কোচ থেকে আলুর বস্তার ভেতর থেকে ফেনসিডিলসহ তাকে আটক করা হয়। মামুন বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার উত্তর বালিয়াডাঙ্গী গ্রামের খশিরুল আলমের ছেলে। পুলিশ জানায়, রাতে পঞ্চগড় থেকে ঢাকাগামী হানিফ এন্টারপ্রাইজ নামে একটি কোচে আলুর বস্তায় বিপুল পরিমান ফেনসিডিল বহন করা হচ্ছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়। পরে সদর থানা পুলিশের একটি টিম পৌর শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গাড়িটিকে থামিয়ে আলুর বস্তার ভেতর থেকে ২৪৮ পিস ফেনসিডিলসহ মামুনকে গ্রেফতার করে। সদর থানার অফিসার ইনচার্জ তানভীরুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিক্তিতে অভিযান চালালে কোচের পিছনে থাকা লকারে তল্লাশি করলে আলুর বস্তার ভিতরে বিশেষভাবে রাখা ২৪৮ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। মামুনের সাথে অন্য কেউ জড়িত আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ব্যাপারে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা করা হয়।

কাগজ নয় কন্টেইনার ভর্তি শুধু সিগারেট
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : কাগজ আমদানি করার ঘোষণা দিয়েছিলো প্রতিষ্ঠানটি। এবার তারা অবৈধভাবে আমদানি করেছে ৪৬ লাখ শলাকা সিগারেট। গতকাল সোমবার চালানটি আটক করা হয়েছে চট্টগ্রাম বন্দরে। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের সহকারী কমিশনার রেজাউল করিম বলেন, ‘সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে আসা কাগজের একটি চালান থেকে এসব সিগারেট পাওয়া যায়। চালানটিতে মন্ড ও এজি ব্র্যান্ডের ৪৬ লাখ শলাকা সিগারেট অভিনব কায়দায় লুকানো ছিলো।’ জানা যায়, চট্টগ্রামের রিয়াজ উদ্দিন বাজারের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান করিম ট্রেডিং সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে এ-ফোর সাইজের কাগজ ঘোষণায় এক কন্টেইনার পণ্য আমদানি করে। পণ্য চালানটি খালাসের জন্য সিএন্ডএফ এজেন্ট সুরমা এন্টারপ্রাইজকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এ ঘটনায় কাস্টমস আইন অনুযায়ী মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে এবং মিথ্যে ঘোষণায় আমদানির সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

ভারত থেকে ঢাকার আন্ডারওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণ করতো মামুন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর পল্লবী থানা এলাকা থেকে শীর্ষ সন্ত্রাসী ও যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক একজন আসামীকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেষ্টিগেশন বিভাগ। গ্রেফতারকৃতের নাম-মোঃ মফিজুর রহমান মামুন। গতকাল সোমবার ভোর ৬.৪০ টায় রাজধানীর পল্লবীর বাইতুন নুর জামে মসজিদ এলাকা হতে তাকে গ্রেফতার করে কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেষ্টিগেশন বিভাগের একটি টিম। তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, রাষ্ট্রবিরোধী একটি সন্ত্রাসী চক্র টার্গেট কিলিং ও ব্যাপক সহিংসতা সৃষ্টির মাধ্যমে দেশকে অস্থিতিশীল করার উদ্দেশ্যে চোরাবাজার থেকে অবৈধভাবে আগ্নেয়াস্থ সংগ্রহের চেষ্টা করছে মর্মে তথ্য পায় ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেষ্টিগেশন বিভাগ। বিষয়টিতে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার সম্ভবনা বিবেচনা করে ছায়া তদন্ত শুরু করে কাউন্টার টেরোরিজম ইনভেসিটগেশন বিভাগ। উক্ত সন্ত্রাসী চক্রের সদস্যদের গ্রেফতারের জন্য অভিযান শুরু করে পুলিশ। সোমবার ভোর ৬.৪০ টায় পল্লবীর বাইতুন নুর জামে মসজিদের পাশে রাস্তা হতে এ সন্ত্রাসী চক্রের সদস্য সন্দেহে এক ব্যাক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়।
প্রাথমিক তদন্ত ও জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃত ব্যক্তি, শীর্ষ সন্ত্রাসী ও যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ফেরারী আসামী মোঃ মফিজুর রহমান মামুন মর্মে জানা যায়। তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, খুন, মাদক, অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যাবহার ও ডাকাতির অভিযোগে পল্লবী থানায় ২৭ টি মামলা, ১৫ টি গ্রেফতারী পরোয়ানা ও ২ টি সাজা পরোয়ানার তথ্য পাওয়া যায়। গ্রেফতারকৃত মামুন এক সময়ে মিরপুরের আন্ডারওয়ার্ল্ডের নিয়ন্ত্রণ করতেন। সে ২০০১ সালে কিছুদিন কারাভোগের পর ২০০৪ সালে বাংলাদেশ থেকে পালিয়ে ভারত গমন করে। পাসপোর্ট জালিয়াতি ও অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ২০০৮ সালে ভারতে গ্রেফতার হয় এবং ১০ বছর সাজা ভোগ করে। কারাভোগ শেষে ভারতে বসেই মামুন বিদেশে অবস্থানরত মিরপুরের অপর শীর্ষ সন্ত্রাসী ইব্রাহিম ও সাহাদাত বাহিনীর প্রধান সাহাদাতের সাথে ঘনিষ্ট যোগাযোগ ও সমম্বয়ের মাধ্যমে ঢাকার মিরপুর এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করার জন্য তৎপর হয়। গ্রেফতারকৃত মামুন বিভিন্ন সময়ে প্রতিষ্ঠিত ব্যাবসায়ীদের ফোন করে প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করে চাঁদা দাবি করতো। অপরাধজগতে তার অবস্থানকে সুসংহত করতে সম্প্রতি সে ভারত থেকে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে। গ্রেফতারকৃতকে গতকাল আদালত কারাগারে পাঠান।

ইউল্যাব শিক্ষার্থী ধর্ষণ-হত্যা প্রধান আসামির দায় স্বীকার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় করা মামলায় প্রধান আসামি মুর্তজা রায়হান চৌধুরী দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন। অপরদিকে আসামি নুহাত আলম তাফসীরকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল শনিবার মোহাম্মদপুরে থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন শাখার সহকারী কর্মকর্তা পুলিশের এএসআই ফারুক হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গত শুক্রবার রিমান্ড চলাকালে আসামি মুর্তজা রায়হান চৌধুরীকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় তিনি স্বেচ্ছায় দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিতে সম্মত হওয়ায় তা রেকর্ড করার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। তিনি আরো বলেন, গতকাল শনিবার নুহাত আলম তাফসীরকে রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করেন। মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর হাকিম আতিকুল ইসলাম তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর আগে গত শুক্রবার নেহাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। এ সময় মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে সাত দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর আজিমপুর এলাকার একটি বাসা থেকে নেহাকে গ্রেপ্তার করা হয়। নিহত শিক্ষার্থীর বাবার করা মামলায় তিনি এজাহারভুক্ত আসামি। এ নিয়ে এ মামলায় মোট তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর হাকিম নিভানা খায়ের জেসির আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন শাফায়াত জামিল (২২)। সেদিন আদালতে হলফনামা দিয়ে মামলায় সম্পৃক্ততার ইচ্ছে প্রকাশ করেন শাফায়াত। এরপর বিচারক ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। এর আগে ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় করা মামলায় গত ৩১ জানুয়ারি তার দুই বন্ধু মুর্তজা রায়হান চৌধুরী ও নুহাত আলম তাফসীরের পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ওইদিনই চারজনকে আসামি করে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় মামলা করেছিলেন নিহত তরুণীর বাবা। মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও একজনকে আসামি করা হয়। মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, গত ২৮ জানুয়ারি বিকেল চারটায় মর্তুজা রায়হান ওই তরুণীকে নিয়ে মিরপুর থেকে আরাফাতের বাসায় যান। সেখানে স্কুটার রেখে আরাফাত, ওই তরুণী এবং রায়হান একসঙ্গে উত্তরা ৩ নম্বর সেক্টরের ব্যাম্বুসুট রেস্টুরেন্টে যান। সেখানে আগে থেকেই আরেক আসামি নেহা এবং একজন সহপাঠী উপস্থিত ছিলেন। সেখানে আসামিরা ওই তরুণীকে জোর করে অধিক মাত্রায় মদপান করান।মামলার এজাহারে আরও বলা হয় মদপানের একপর্যায়ে ভুক্তভোগী তরুণী অসুস্থ বোধ করলে রায়হান তাকে মোহাম্মদপুরে তার এক বান্ধবীর বাসায় পৌঁছে দেয়ার কথা বলে নুহাতের বাসায় নিয়ে যান। সেখানে তরুণীকে ধর্ষণ করেন রায়হান। এ সময় রায়হানের বন্ধুরাও কক্ষে ছিলেন। ধর্ষণের পর রাতে ওই তরুণী অসুস্থ হয়ে বমি করলে রায়হান তার আরেক বন্ধু অসিম খানকে ফোন দেন। সেই বন্ধু পরদিন এসে তরুণীকে প্রথমে ইবনে সিনা ও পরে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।দুই দিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর তার মৃত্যু হয়।

ডিবি পরিচয়ে স্বর্ণ লুটের ঘটনায় মাদক নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা কারাগারে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : নিজেকে গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ পরিচয় দিয়ে ৯০ ভরি স্বর্ণ লুটের অভিযোগে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক এস এম সাকিব হোসেনসহ পাঁচজনকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল শনিবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাস এই আদেশ দেন। আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আসামি পাঁচজনকে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড শেষে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক আসামিদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। গত ৭ জানুয়ারি পুরান ঢাকা তাঁতীবাজার থেকে স্বর্ণ কিনে ফিরছিলেন মুন্সীগঞ্জের লাকী জুয়েলার্সের কর্ণধার ব্যবসায়ী সিদ্দিকুর রহমান। তারপর কয়েক ব্যক্তি রাস্তা থেকে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে ৯০ ভরি স্বর্ণ লুট করে। অজ্ঞাত ব্যক্তিরা নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয় দেয় বলে মামলার নথি থেকে জানা গেছে। এ ঘটনায় রাজধানীর কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করা হয়। পুলিশ প্রথমে স্বর্ণের দোকানের দুই কর্মচারীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। তারা জিজ্ঞাসাবাদে এ ঘটনায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক সাকিব হোসেনের নাম বলে।
এরপর সিপাহি আমিনুল, সোর্স হারুনসহ সাকিব হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। ১৯ জানুয়ারি সাকিব হোসেন, সোর্স হারুন ও সিপাহি আমিনুলের তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। ২০ জানুয়ারি এই মামলায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের গাড়িচালক ইব্রাহিম শিকদার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এরপরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। এ ছাড়া আসামি পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) এমদাদুল ও সিপাহি আলমগীরকে দুদিন করে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়। আসামি সাকিব হোসেন মুন্সীগঞ্জ জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তবে মাসখানেক ধরে তিনি পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের একটি প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করার জন্য রাজধানী ঢাকায় অবস্থান করছেন।

উত্তরা থেকে গ্রেফতার ‘হেলিকপ্টার রুবেল’
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : কানাডিয়ান কাউন্সিল ফর ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন (সিসিআইসি) নামক একটি বিদেশি এনজিও সংস্থার কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার অভিযোগে মো. রুবেল আহম্মেদ ওরফে হেলিকপ্টার রুবেল-কে (৩৬) গ্রেফতার করেছে রাজধানীর কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের ইকোনমিক ক্রাইম অ্যান্ড হিউম্যান ট্রাফিকিং ডিভিশন। নিজেকে প্রমাণ ও মানুষের মনে বিশ্বাস স্থাপন করতে তিনি ঢাকা থেকে যাতায়াতে সব সময় হেলিকপ্টার ব্যবহার করতেন বলে তার নাম হয়ে যায় হেলিকপ্টার রুবেল। হেলিকপ্টার  দেখিয়ে তিনি লাখ লাখ টাকা প্রতারণা করতেন। গতকাল সোমবার সিটিটিসি থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। কর্মকর্তারা জানান, রাজধানীর উত্তরার ১৮ নম্বর সেক্টরের একটি বাসা থেকে রুবেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সেখানেই তিনি আত্মগোপনে ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুরে। বিমানবন্দর থানায় হওয়া একটি মামলার সূত্র ধরে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।  মামলার বিবরণী থেকে জানা গেছে, রুবেল আহম্মেদ নিজেকে সিসিআইসি নামক একটি বিদেশি এনজিও সংস্থার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে পরিচয় দিতেন। তিনি সাত থেকে আট জন সহযোগী নিয়ে কুষ্টিয়া জেলার খোকসা থানাধীন তিন নম্বর বেতবাড়ীয়া ইউপি এলাকা পরিদর্শন করে জলবায়ুজনিত কারণে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার, দরিদ্র মানুষের তালিকা প্রস্তুত ও তাদের আবাসন প্রদান, স্কুল নির্মাণ, নদীভাঙন রক্ষায় বাঁধ নির্মাণ, কৃষকদের মাঝে ডিপ টিউবওয়েল প্রদান এবং দুস্থদের চিকিৎসা সাহায্যসহ বিভিন্ন সেবামূলক আর্থিক অনুদানের ব্যবস্থাপূর্বক ১৭ কোটি ৩৩ লাখ টাকার প্রজেক্ট প্রস্তুত এবং এ সংক্রান্ত প্রজেক্ট পার্টনার, প্রজেক্ট ও স্কুলে শিক্ষক নিয়োগসহ নানা রকম প্রলোভনের ফাঁদে এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের ভুয়া ফান্ডের টাকা ছাড়ের জন্য আড়াই শতাংশ হিসেবে ট্যাক্স ও বিভিন্ন খরচ বাবদ ৪৩ লাখ টাকাসহ কোটি টাকার বেশি পরিমাণ অর্থের প্রতারণা করে নিজেকে আত্মগোন করেন। প্রাথমিক তদন্তে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করাই তার পেশা বলে জানা গেছে। নিজেকে প্রমাণ ও মানুষের মনে বিশ্বাস স্থাপন করতে তিনি ঢাকা থেকে যাতায়াতে হেলিকপ্টার ব্যবহার করতেন। কুষ্টিয়া, মাগুরা, খাগড়াছড়িসহ কয়েক জেলা থেকে তিনি কয়েক কোটি টাকা প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছেন বলে প্রাথমিক তথ্য পাওয়া গেছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা আরও হয়েছে, অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের সময় প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ল্যাপটপ, একাধিক মোবাইল সিমকার্ড, ভ্যাট প্রদানের নির্দেশপত্র, কোটেশন গ্রহণপূর্বক কাজের অনুমোদন প্রদানের কপি, অনলাইনে কর পরিশোধ পদ্ধতি সংক্রান্ত ভুয়া কাগজপত্র, বিভিন্ন মানুষের ছবি ও এনআইডির ফটোকপি সংযুক্ত করা অনুদানপ্রাপ্তির ফাঁকা আবেদন ফরম ও চিকিৎসার জন্য সাহায্যের আবেদন, দুস্থদের ঘর প্রদানের নামের তালিকা, সিসিআইসি প্রজেক্ট বাস্তবায়ন কমিটির তালিকা, ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য ক্রয়ের অনুমোদনপত্র ও বিল ভাউচার, সিসিআইসির ফাইন্যান্সিয়াল স্টেটমেন্টসহ বিভিন্ন কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

ঢাকায় কাচের জারে ৭৫ কোটি টাকার সাপের বিষ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীর দক্ষিণখান থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৭৫ কোটি টাকা মূল্যের সাপের বিষসহ আন্তর্জাতিক চোরাচালান চক্রের ৬ সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব। গ্রেফতার ব্যক্তিদের কাছে কাচের জারে ৮ কেজি ৯৬ গ্রাম (জারসহ) সাপের বিষ পাওয়া যায় বলে জানায় র‌্যাব। যার আনুমানিক মূল্য ৭৫ কোটি টাকা। ইউএনবি জানায়, শুক্রবার র‌্যাব-২ এর সিনিয়র এএসপি আবদুল্লাহ আল মামুন স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। র‌্যাব জানিয়েছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার র‌্যাব-২ এর একটি দল জানতে পারে রাজধানীর দক্ষিণখান থানাধীন ৫০ নম্বর ওয়ার্ড গুলবার মুন্সি সরণিতে আন্তর্জাতিক চোরাচালান চক্রের কয়েকজন সদস্য বিপুল পরিমাণ সাপের বিষ নিয়ে অবস্থান করছে। এই সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাবের দল বৃহস্পতিবার বিকালে সেখানে অভিযান চালায়। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এ সময় র‌্যাব তাদের আটক করে। এ সময় আটক ব্যক্তিদের সঙ্গে থাকা ব্যাগ তল্লাশি করে সাপের বিষসংক্রান্ত সিডি এবং সাপের বিষের ম্যানুয়াল বই উদ্ধার করা হয়। র‌্যাব জানতে পারে, নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর কাছে সাপের বিষের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। বেশি মুনাফার লোভে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সাপের বিষ সংগ্রহ করে চোরাচালান করা হয়। গ্রেফতার আসামিরা আন্তর্জাতিক সাপের বিষ চোরাচালান চক্রের সক্রিয় সদস্য বলে জানায় র‌্যাব। আটকদের জিজ্ঞাসাবাদে আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে এবং এগুলো যাচাই-বাছাই করে ভবিষ্যতে র‌্যাবের এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয় সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।  আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

ঝিকরগাছায় এক রাতে ২০ বিঘা জমির গাছ কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা
                                  

বেনাপোল প্রতিনিধি : যশোরের ঝিকরগাছায় এক রাতে ২০ বিঘা জমির ৮শ’ আম গাছ কেটে সাবাড় করে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার খরুষা গ্রামে। এ ব্যাপারে কৃষক মওদুদ আহম্মেদ দিপু বাদি হয়ে ঝিকরগাছা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ পেয়ে থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তবে এ ঘটনার সাথে জড়িত অভিযোগে কাউকে আটক করতে পারেনি। সূত্রে জানা গেছে, দুর্বৃত্তরা গত বৃহস্পতিবার রাতে খরুষা মাঠে পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে ১৬জন কৃষকের ২০ বিঘা জমির প্রায় ৮শ’ আম গাছ কেটে দিয়েছে। যার ক্ষতির পরিমান প্রায় ১ কোটি টাকা। এ ঘটনায় খরুষা গ্রামের সাধারণ কৃষকদের মাঝে চরম আতংক বিরাজ ক্রছে। অন্য আতঙ্কিত কৃষকদের ভাবনা, যে কোন রাতে তাদেরও আম, পেয়ারা, কুল বাগানের গাছ কেটে দিতে পারে হয়তো দুর্বৃত্তরা। রাতের আঁধারে ফলের গাছ কাটায় কৃষকেরা ভেঙ্গে পড়েছেন। তারা জানান, গত ৩ বছর ধরে আম বাগান পরিচর্যা করছেন। অনেক টাকা বাগানে খরচ করেছেন। এ বছর আম ধরবে তাদের বাগানে। অনেক গাছে মুকুল আসতে শুরু করেছে। এমন সময় দুর্বৃত্তরা ক্ষতি করলো। এ ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার কোনো মতা তাদের নেই বলে জানান কৃষকেরা। খরুষা গ্রামের কৃষক মওদুদ আহম্মেদ দিপু জানান, সকালে মাঠে গিয়ে দেখেন তার তিন বিঘা জমির ১২০টি আম গাছ ধারালো অস্ত্র দিয়ে গোড়া থেকে কেটে দিয়েছে। সে সময় তিনি মাঠে থেকে আরও জানতে পারেন তার মতো কৃষক আব্দুল খালেক, আব্দুল মালেক, মুনছুর ধাবক, মুহদুল ইসলাম,আব্দুল মান্নান, ফজলুর রহমান, মনিরুল ইসলাম, মিজাক আলী, আতাউর রহমান, তাহাজ্জত আলী, তোফাজ্জেল হোসেন, আলতাফ হোসেন, আতিয়ার রহমান, আব্দুল করিম, মশিয়ার রহমান ও শাহাজান আলীর জমির আমগাছ একই ভাবে কেটে দিয়েছে।
কৃষকদের ধারণা ২০/২৫জন দুর্বৃত্ত গভীর রাতে অনেক সময় ধরে এ গাছ কাটার কাজ করেছে। এ ঘটনায় এলাকায় সাধারণ চাষিদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। অনেকের ধারণা একটি কুচক্রি মহল এলাকায় অশান্তি সৃষ্টি করতে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে।


   Page 1 of 34
     অপরাধ জগত
জখম শরীয়তপুরের যুবলীগ নেতার ঢাকায় মৃত্যু
.............................................................................................
র‍্যাবের অভিযানে ৪ ট্রাক মেয়াদ উত্তীর্ণ কিট ও রি এজেন্ট জব্দ
.............................................................................................
বগুড়ায় যমুনা নদীতে বিষ দিয়ে মাছ শিকার
.............................................................................................
৭০ লাখ টাকার স্বর্ণসহ বিমানের কর্মী ঝন্টু বর্মণ গ্রেফতার
.............................................................................................
শরীয়তপুরে স্ত্রীকে নির্যাতনের পর মাথার চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ
.............................................................................................
সরকারি চালের মোড়ক পরিবর্তনের সময় ভাণ্ডারিয়ায় ৫ মেট্রিকটন চাল জব্দ, গ্রেফতার ১
.............................................................................................
আনুশকার শরীরে সেক্স টয় ব্যবহার করা হয়েছিল
.............................................................................................
নিজ ছেলের কুড়ালের কোপে মা নিহত
.............................................................................................
ঠাকুরগাঁওয়ে বিপুল পরিমাণ ফেনসিডিলসহ আটক ১
.............................................................................................
কাগজ নয় কন্টেইনার ভর্তি শুধু সিগারেট
.............................................................................................
ভারত থেকে ঢাকার আন্ডারওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণ করতো মামুন
.............................................................................................
ইউল্যাব শিক্ষার্থী ধর্ষণ-হত্যা প্রধান আসামির দায় স্বীকার
.............................................................................................
ডিবি পরিচয়ে স্বর্ণ লুটের ঘটনায় মাদক নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা কারাগারে
.............................................................................................
উত্তরা থেকে গ্রেফতার ‘হেলিকপ্টার রুবেল’
.............................................................................................
ঢাকায় কাচের জারে ৭৫ কোটি টাকার সাপের বিষ
.............................................................................................
ঝিকরগাছায় এক রাতে ২০ বিঘা জমির গাছ কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা
.............................................................................................
এমসি কলেজে ধর্ষকদের ডিএনএ রিপোর্ট, চার্জশিট প্রস্তুতি চলছে
.............................................................................................
দুই শতাধিক প্লটসহ হাজার কোটি টাকার সম্পদ
.............................................................................................
লক্ষ্মীপুরে পরিবার কল্যাণ সহকারী বিলকিসের বাসায় অবৈধ হাসপাতাল
.............................................................................................
বগুড়ায় গাঁজার চালানসহ তিন জন আটক
.............................................................................................
সুন্দরবনে হরিণের মাংস ও চামড়াসহ দুই পাচারকারী আটক
.............................................................................................
গাংনী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দালালদের তৎপরতা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ
.............................................................................................
বান্দরবানে ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবক গ্রেফতার
.............................................................................................
রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পাশে অস্ত্র কারখানার সন্ধান, আটক ২
.............................................................................................
ফেনীতে ৩ প্রতিষ্ঠানকে ৩১ লাখ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
নকল মাস্ক সরবরাহের অভিযোগে জেএমআই চেয়ারম্যান গ্রেফতার
.............................................................................................
সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ শিকারকালে ৩ জেলে আটক
.............................................................................................
পানগাঁও কাষ্টম কর্তৃক ৩২ লক্ষ টাকার শুল্ক ফাঁকি উৎঘাটন
.............................................................................................
টাঙ্গাইলে ট্রান্সফর্মারের ভিতরে ফেন্সিডিল পাঁচার, আটক ২
.............................................................................................
রামগতিতে ৬ জেলে আটক
.............................................................................................
পিবিআই এর অভিযানে অপহৃত আজিজ উদ্ধার, গ্রেফতার ৩
.............................................................................................
লক্ষ্মীপুর মাতৃমঙ্গলে ডেলিভারী চিকিৎসা না দিয়ে স্বজনের সাথে ডাক্তারের দূর্ব্যবহার
.............................................................................................
ডা. সাবরিনার বিরুদ্ধে ইসির মামলা
.............................................................................................
কয়েদি পালিয়ে যাওয়ায় তিন কারারক্ষী বরখাস্ত
.............................................................................................
নারায়ণগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে অভিযান, ৭ দালাল গ্রেফতার
.............................................................................................
১৯ মাস পর শাকিল হত্যার রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ৩
.............................................................................................
সন্ধান মেলেনি কারাগার থেকে পালানো কয়েদির
.............................................................................................
জঙ্গিদের হামলার টার্গেট ছিল হজরত শাহজালাল মাজার : সিটিটিসি প্রধান
.............................................................................................
চাঞ্চল্যকর নুর বানু হত্যাকান্ডের রহস্য উদ্ঘাটন করল পিবিআই নারায়ণগঞ্জ
.............................................................................................
কমলগঞ্জে চা বাগান থেকে ৭৪ লিটার চোলাই মদসহ ৫ জন আটক
.............................................................................................
হাসপাতাল প্রতারণা : প্যাথলজি রিপোর্টে মৃত চিকিৎসকের স্বাক্ষর!
.............................................................................................
নরসিংদীর শীর্ষ সন্ত্রাসী বিল্লাল অস্ত্রসহ গ্রেফতার
.............................................................................................
নন্দীগ্রামের বিভিন্ন হাট বাজারে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল
.............................................................................................
নরসিংদী জেলা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ
.............................................................................................
৬০ বোতল ফেন্সিডিলসহ ২ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার
.............................................................................................
গাজীপুরে দুইবস্তা জাল টাকা ও ৭শ’ পিস ইয়াবা উদ্ধার
.............................................................................................
সেনবাগে প্রতিবন্ধী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি বন্দুক যুদ্ধে নিহত
.............................................................................................
কুষ্টিয়ায় র‌্যাবের অভিযানে ইয়াবা ট্যাবলেট সহ ০১ জন গ্রেফতার
.............................................................................................
ফটিকছড়িতে বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্রসহ যুবক আটক
.............................................................................................
বাড়ি নির্মাণের টাকা না দেওয়ায় শাশুড়িকে গুলি, জামাতা আটক, পিস্তল ও গুলি জব্দ
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop