| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > ইবি ছাত্রলীগের দুগ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত কমিটি   > ‘ভোটে বিচ্যুতি হলে সরকার হটানোর আন্দোলন’   > পর্দা নয় এবার বাস্তবে বাংলাদেশি ‘ভাইজান’কে দেখল ভারতবাসী!   > সরকারের ধারাবাহিকতা দেশের অগ্রগতি দৃশ্যমান করেছে : প্রধানমন্ত্রী   > মেডিকেল শিক্ষার্থীর দায়বদ্ধতা রয়েছে জনগণের কাছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী   > হেলিকপ্টার থেকে প্রধানমন্ত্রীর মোবাইলে পদ্মা সেতুর ছবি   > পাকিস্তানের জয়ের পর শোয়েব মালিকের টুইটবার্তা   > সীমান্ত হত্যা: বিএসএফের `গরু পাচার` যুক্তি মানছে না বিজিবি   > ১৩ অভিজাত ক্লাবে জুয়ার বিষয়ে রায় আগামী ২৮ জানুয়ারি   > মুজিববর্ষে বিএসএমএমইউতে বিনামূল্যে চিকিৎসা  

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
‘ভোটে বিচ্যুতি হলে সরকার হটানোর আন্দোলন’

ডেস্ক রিপোর্ট : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি ফয়জুল করিম,

শায়েখে চরমোনাই বলেন, ডিজিটাল কারচুপি করার জন্যই ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে।

ব্যালটে কারচুপি হলে তার নিদর্শন থাকে। কিন্তু ইভিএমে কারচুপি হলেও কোনো নিদর্শন থাকবে না।

এ জন্যই সবার মতামত উপেক্ষা করে নির্বাচন কমিশন ইভিএম ব্যবহার করছে।

 তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, দেশের মানুষ আর কোনো প্রহসনের নির্বাচন সহ্য করবে না।

সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হলে নির্বাচন কমিশন ইতিহাসের আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে।

সিটি নির্বাচনে কোনো বিচ্যুতি হলে সরকার ও সিইসি হটানোর একদফা আন্দোলন শুরু করা হবে।

দেশবাসীর সঙ্গে কোনো তামাশা ও প্রতারণা মেনে নেয়া হবে না।

আজ শুক্রবার বিকাল ৩টায় রাজধানীর মধ্য বাড্ডায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে হাতপাখা

প্রতীকের মেয়র প্রার্থী অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদের সমর্থনে নির্বাচনী পথসভায় মুফতি ফয়জুল করিম এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, মাওলানা মাসউদ একজন হাফেজে কোরআন। তিনি হাদিস পড়ান।

বর্তমানে পিএইচডি করছেন এবং নগর উন্নয়ন নিয়েই তিনি গবেষণা করছেন।

এমন একজন উচ্চ শিক্ষিত ও যোগ্য ব্যক্তিকে ভোট দেয়ার জন্য মুফতি ফয়জুল করিম নগরবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

মেয়রপ্রার্থী মাওলানা মাসউদ বলেন, সিটি কর্পোরেশনে প্রতি বছর একদিকে বাজেটের আকার বৃদ্ধি পাচ্ছে অন্যদিকে মশার কামড়ও বাড়ছে। দূষণের মাত্রাও বাড়ছে।

তিনি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেন, আমরা দায়িত্ব পেলে ১০০ দিনের মধ্যে দৃশ্যমান নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করবো ইনশাল্লাহ।

নির্বাচনী পথসভায় আরও বক্তব্য রাখেন দলের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান,

 সহকারী মহাসচিব আমিনুল ইসলাম, ইশা ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মুহাম্মাদ আবদুল জলিল,

সাবেক ছাত্রনেতা শেখ ফজলুল করীম মারুফ, শ্রমিক নেতা খলিলুর রহমান, শেখ মুহাম্মাদ সাইফুল ইসলাম, মুফতি শরিফুল ইসলাম প্রমুখ।

‘ভোটে বিচ্যুতি হলে সরকার হটানোর আন্দোলন’
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি ফয়জুল করিম,

শায়েখে চরমোনাই বলেন, ডিজিটাল কারচুপি করার জন্যই ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে।

ব্যালটে কারচুপি হলে তার নিদর্শন থাকে। কিন্তু ইভিএমে কারচুপি হলেও কোনো নিদর্শন থাকবে না।

এ জন্যই সবার মতামত উপেক্ষা করে নির্বাচন কমিশন ইভিএম ব্যবহার করছে।

 তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, দেশের মানুষ আর কোনো প্রহসনের নির্বাচন সহ্য করবে না।

সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হলে নির্বাচন কমিশন ইতিহাসের আস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হবে।

সিটি নির্বাচনে কোনো বিচ্যুতি হলে সরকার ও সিইসি হটানোর একদফা আন্দোলন শুরু করা হবে।

দেশবাসীর সঙ্গে কোনো তামাশা ও প্রতারণা মেনে নেয়া হবে না।

আজ শুক্রবার বিকাল ৩টায় রাজধানীর মধ্য বাড্ডায় ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে হাতপাখা

প্রতীকের মেয়র প্রার্থী অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদের সমর্থনে নির্বাচনী পথসভায় মুফতি ফয়জুল করিম এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, মাওলানা মাসউদ একজন হাফেজে কোরআন। তিনি হাদিস পড়ান।

বর্তমানে পিএইচডি করছেন এবং নগর উন্নয়ন নিয়েই তিনি গবেষণা করছেন।

এমন একজন উচ্চ শিক্ষিত ও যোগ্য ব্যক্তিকে ভোট দেয়ার জন্য মুফতি ফয়জুল করিম নগরবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

মেয়রপ্রার্থী মাওলানা মাসউদ বলেন, সিটি কর্পোরেশনে প্রতি বছর একদিকে বাজেটের আকার বৃদ্ধি পাচ্ছে অন্যদিকে মশার কামড়ও বাড়ছে। দূষণের মাত্রাও বাড়ছে।

তিনি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলেন, আমরা দায়িত্ব পেলে ১০০ দিনের মধ্যে দৃশ্যমান নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করবো ইনশাল্লাহ।

নির্বাচনী পথসভায় আরও বক্তব্য রাখেন দলের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান,

 সহকারী মহাসচিব আমিনুল ইসলাম, ইশা ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মুহাম্মাদ আবদুল জলিল,

সাবেক ছাত্রনেতা শেখ ফজলুল করীম মারুফ, শ্রমিক নেতা খলিলুর রহমান, শেখ মুহাম্মাদ সাইফুল ইসলাম, মুফতি শরিফুল ইসলাম প্রমুখ।

আগামীকাল টুঙ্গিপাড়ায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : আওয়ামী লীগের ২১ তম কাউন্সিলে দলটির সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আগামীকাল শুক্রবার সেখানে আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাবেন তিনি।

রীতি অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল অফিসার-১ এস এম খুরশিদ-উল-আলম

গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে এ নিয়ে ফ্যাক্স বার্তা পাঠিয়েছেন।

এদিন টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে দোয়া এবং মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী সেখানে নতুন কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকও হবে।

এসব কর্মসূচিতে অংশ নিতে কেন্দ্রীয় নেতারা ঢাকা থেকে সকাল ৭টায় সড়ক পথে রওনা হবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে হেলিকপ্টারযোগে টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছবেন

এবং বেলা ১১টায় কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে জাতির পিতার সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন।

পরে সেখানে ফাতেহা পাঠ, মোনাজাত ও মিলাদ মাহফিলে অংশ নেবেন শেখ হাসিনা।

দুপুর ২টা ২০ মিনিটে সেখান থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবেন তিনি।

 

সরকারি দলকে সাহায্য করতে ইভিএম : ফখরুল
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : সরকারি দলকে সাহায্য করার জন্যই নির্বাচন কমিশন ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন ইভিএম নিয়ে এসেছে বলে

দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ বৃহস্পতিবার হাইকোর্ট মাজার এলাকায় ঢাকা দক্ষিণে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেনের প্রচারণায়

অংশ নিয়ে এক পথসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এই অভিযোগ করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ইভিএমের বিষয়টা পুরোপুরি নির্বাচন কমিশনের। এতে অন্য কারো কোনো এখতিয়ার নাই।

নির্বাচন কমিশন তাদের অযোগ্যতা ঢাকার জন্য ইভিএম নিয়ে আসছে।

সরকারি দলকে সাহায্য করার জন্যই কমিশন ইভিএম নিয়ে আসছে।

আমরা বলছি, প্রয়োজনে নির্বাচন পিছিয়ে দিয়ে ব্যালটের মাধ্যমে নির্বাচন পরিচালনা করা হোক।’

দিনের বেলা উৎসবমুখর পরিবেশ থাকে, কিন্তু রাতের বেলা কি উৎসবমুখর ছাপিয়ে

নেতাকর্মীদের মধ্যে কোনো আতঙ্ক সৃষ্টি হয় কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে ফখরুল বলেন,

‘অবশ্যই আতঙ্কের সৃষ্টি হয়। গত পরশু দিন উত্তরের মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের প্রচারণায় হামলা চালানো হয়েছে।

ধানের শীষের কর্মীদের আহত করা হয়েছে, নির্যাতন করা হয়েছে, বাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে।

কাউন্সিলরদের মারধর করা হচ্ছে। দক্ষিণের একজন কাউন্সিলরকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, তিন দিন পর তাকে পাওয়া গেছে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এই সরকার একটা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য কোনো পরিবেশ তৈরি করতে পারেনি।

এছাড়া নির্বাচন কমিশনও নির্বাচনের জন্য সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরি করতে পারেনি।’

ইশরাক হোসেনকে ধানের শীষে ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন,

‘আজকে ঢাকাবাসীর প্রতি আমার একটা আকুল আবেদন থাকবে তরুণ নেতা

ইশরাক হোসেনকে ধানের শীষে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ত্বরান্বিত করুন।

আজকে ঢাকাবাসী তাদেরই ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচন করবেন যারা ঢাকার উন্নয়নে, ঢাকাকে পরিবর্তনের জন্য কাজ করবেন।

তাই আমরা মনে করি ইতিমধ্যেই ইশরাক হোসেন ঢাকাসহ সারাদেশে তার বক্তব্য, তার মেধা, সাহসী বক্তব্য

এবং সাহসী পদক্ষেপে প্রমাণ করেছেন তিনিই একমাত্র নেতা যিনি আগামীতে ঢাকাকে নেতৃত্ব দিতে পারেন মেয়র হিসেবে।’

 

ছাত্র ইশরাকে দোয়া করলেন অধ্যাপক এমাজউদ্দীন
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা দক্ষিণ সিটি (ডিএসসিসি) নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী

প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনের মাথায় হাত রেখে দোয়া করেছেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ।

আজ বুধবার দুপুরে পশ্চিম হাজারীবাগের ঝাউচর বাজার থেকে

নির্বাচনী প্রচার শুরুর আগে ইশরাক হোসেনের মাথায় হাত বুলিয়ে দোয়া করেন প্রবীণ এই রাষ্ট্রবিজ্ঞানী।

এমাজউদ্দিন আহমেদ বলেন, ইশরাক হোসেন এবং তার বাবা সাদেক হোসেন খোকা দুজনেই আমার ছাত্র।

সাদেক হোসেন খোকার অনুপস্থিতিতে তার যোগ্য সন্তান ইশরাক হোসেন মেয়র প্রার্থী হয়েছেন। আমরা তার বিজয় দেখতে চাই।

এসময় তিনি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ারও মুক্তি চান।

বলেন, খালেদা জিয়া শুধু দেশের নেত্রী নয়। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের প্রতীক।

তাকে অন্যায়ভাবে কারাগারে বন্দী করে রাখা হয়েছে। আমরা তাকে মুক্ত করতে চাই।

ইশরাক হোসেনের মতো তরুণদের মাধ্যমে আমাদের ইচ্ছেগুলো পূর্ণ হোক।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবীবউন নবী খান সোহেল,

বিএনপির স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু, মহানগর বিএনপি নেতা কাজী আবুল বাশার প্রমুখ।

 

তাবিথের ওপর হামলার ঘটনা তদন্তের নির্দেশ ইসি’র
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট :নির্বাচনী প্রচারণায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের বিএনপি প্রার্থী

তাবিথ আউয়ালের উপর হামলার ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন নির্বাচন কমিশন।

গতকাল মঙ্গলবার (২১ জানুয়ারি) বিকেলে আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে এ কথা বলেন ইসির সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। 

তিনি বলেন, ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনে কারিগরি সহায়তা ছাড়া সেনাবাহিনী অন্য কোনো দায়িত্ব পালন করবে না।

ইসি সচিব বলেন, বিএনপি তাৎক্ষণিকভাবে অভিযোগ করেছেন কমিশনের কাছে।

কমিশন শুনেছে এবং সাথে সাথে রিটার্নিং অফিসারকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে তদন্ত করে রিপোর্ট দেওয়ার জন্য।

ইসি সচিব আরো বলেন, জাতীয় নির্বাচন যখন হয় তখন সেনাবাহিনী দায়িত্বে থাকে।

এটা জাতীয় নির্বাচন নয় এটি স্থানীয় সরকার নির্বাচন। তো এখানে সেনাবাহিনীর কোন দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।

ওখানে খালি যারা ইভিএমের এক্সপার্ট তাদেরকে শুধু রাখা হবে। 

ইসমাত আরা সাদেকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : সাবেক জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ও যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনের সংসদ সদস্য

ইসমাত আরা সাদেকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আলাদা শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেকের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন

এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

ইসমাত আরার মৃত্যুতে তার নির্বাচনী এলাকা কেশবপুরে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন ইসমাত আরা সাদেক।

সাবেক শিক্ষামন্ত্রী প্রয়াত এএসএইচকে সাদেকের সহধর্মিনী ইসমাত আরা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি

দশম সংসদ নির্বাচনে যশোর-৬ (কেশবপুর) আসন থেকে আওয়ামী লীগের টিকিটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

তিনিই প্রথম যশোর থেকে সরাসরি জনগণের ভোটে নির্বাচিত নারী সংসদ সদস্য হন।

বিপুল ভোটে জয়ী হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী তাকে প্রথমে গণশিক্ষা ও পরে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করেন।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচনে পুনরায় যশোর-৬ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

ইসমাত আরা সাদেক ১৯৪২ সালের ১২ ডিসেম্বর বগুড়ায় জন্মগ্রহণ করেন।

তিনি ১৯৫৬ সালে বগুড়া ভিএম গার্লস স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন ও

১৯৫৮ সালে ঢাকার হলিক্রস কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন।

১৯৬০ সালে তিনি ঢাকার ইডেন কলেজ থেকে স্নাতক করেন।

১৯৯২ সালে তিনি ও তার স্বামী এএসএইচকে সাদেক আওয়ামী লীগে যোগ দেন।

১৯৯৬ সালে তিনি কেশবপুর মহিলা আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন।

তখন থেকে তিনি যশোর জেলার আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির ১ নম্বর সদস্য হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত তিনি বাংলাদেশ মহিলা কল্যাণ পরিষদের সদস্য ছিলেন।

২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি তারিখে নতুন সরকার গঠিত হলে তাকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করা হয়।

২০১৪ সালের ১৫ জানুয়ারি তারিখে তাকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেও মন্ত্রিসভায় স্থান পাননি।

ইসমাত আরা সাদেকের স্বামী এএইচকে সাদেক সাবেক শিক্ষামন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য ছিলেন।

সাবেক এই সচিব আওয়ামী লীগ থেকে দুবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

ব্যক্তিগত জীবনে ইসমাত আরা এক ছেলে এবং এক মেয়ের জননী।

তার ছেলে তানভীর সাদেক কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার এবং মেয়ে নওরীন সাদেক একজন স্থপতি প্রকৌশলী।

তার মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে যশোরে নিজ নির্বাচনী এলাকায়। মৃত্যুর খবর হাসপাতালে ছুটে আসেন রাজনৈতিক সহকর্মীরা।

 

সিটি নির্বাচন নিয়ে বিএনপি চালাকি খেলায় মেতেছে : মেনন
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন বিষয়ে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন,

`নির্বাচন নিয়ে বিএনপি আরেকবার চালাকি খেলায় মেতে উঠেছেন।

যদি তারা হেরে যায় তাহলে বলবে, ইভিএমের দোষ, সেখানে কারচুপি হয়েছে।

আর জিতলে বলবে ইভিএম দিয়েও আমাদেরকে ঠেকিয়ে রাখতে পারেনি।

সুতরাং এ নির্বাচন নিয়ে তাদের চালাকি খেলা বন্ধ করতে হবে।`

আজ সোমবার (২০ জানুয়ারি) মতিঝিল এজিবি কলোনি কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সংসদীয় ঢাকা-৮ আসনের কাউন্সিলর প্রার্থী এবং ওয়ার্ডের সভাপতি,

সাধারণ সম্পাদকদের এক সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, `সংসদ সদস্যরা নির্বাচনী প্রচারণায় যেতে পারছে না বলেই কেবলমাত্র নির্দেশ দিয়েই আমাদের ক্ষান্ত হতে হচ্ছে।

অথচ বিএনপির সবাই মাঠে নেমে কাজ করছে। তারপরেও বলব, আমাদের যে প্রার্থী রয়েছে তারা তাদের যোগ্যতা বলেই জনগণের ভোটে জিততে পারবেন।`

মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মশিউর হক খান বাবুলের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন

আওয়ামী লীগের ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাচন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু।

‘ভোট চুরির নীরব অস্ত্র’ ইভিএমকে বঙ্গোপসাগরে ফেলে দিতে হবে : আমীর খসরু
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : ‘ভোট চুরির নীরব অস্ত্র’ ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনকে (ইভিএম) বঙ্গোপসাগরে ফেলে দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন ,

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ইভিএমের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। তা না হলে দেশে আর কখনও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না।

আজ সোমবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির মিলনায়তনে

‘চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপনির্বাচনে ভোটাধিকার বঞ্চিতদের মতবিনিময় সভায়’ এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আমীর খসরু বলেন, ইভিএম হচ্ছে ভোট চুরির উৎকৃষ্ট নীরব অস্ত্র।

ক্ষমতাসীনরা নির্বাচনী কোনো নীতিমালা মানছে না।

ইভিএমের গ্রহণযোগ্যতা কোথায়? চট্টগ্রামে ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে যেতে দেয়া হয়নি।

কোনো কোনো ভোটার কেন্দ্রে গিয়ে ফিঙ্গার প্রিন্ট দিলেও ভোট দিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামে নির্বাচনের কার্যক্রম ভোটের আগপর্যন্ত সুন্দর ছিল।

কিন্তু ভোটের দিন তাদের কেন্দ্র দখল, বুথ ও ইভিএম দখলের চরিত্র ফুটে উঠেছে।

‘ইভিএমের মাধ্যমে মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগের ক্ষমতা পাচ্ছেন না।

ইভিএমের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। সেটাকে বঙ্গোপসাগরে ফেলে দিতে হবে।’

চট্টগ্রাম-৮ আসনে বিএনপির প্রার্থী আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা কাদের গণি চৌধুরী,

চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির নেতা এমএ আজিজ, ইয়াসিন চৌধুরী লিটন, সাইফুল ইসলামসহ অনেকে।

 

ইসিকে আক্রমণ ইশরাকের
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : নির্বাচন কমিশনের অদূরদর্শিতা ও খামখেয়ালীর কারণেই আজ নির্বাচন ও

পূজা মুখোমুখি অবস্থানে চলে এসেছে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনের দিন যদি কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে তার দায় নির্বাচন কমিশনকে নিতে হবে।

আজ শনিবার (১৮ জানুয়ারি) পুরান ঢাকার সদরঘাট এলাকায় এক পথসভায় এসব কথা বলেন তিনি।

আবারো নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তের দাবি জানিয়ে ইশরাক বলেন, পূজার তারিখ আগেই ঠিক করা থাকে।

কেন নির্বাচন কমিশন তা বিবেচনা করলো না। এর দ্বারাই প্রমাণ হয় ইসি সাধারণ জনগণের কোনো ইচ্ছাকে গুরুত্ব দেয় না।

এদিকে ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে আগামী ২৫ জানুয়ারি

দেশব্যাপী অবরোধের ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ।

আজ শনিবার (১৮ জানুয়ারি) রাজু ভাস্কর্যের সামনে অনশনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করতে এসে এ ঘোষণা দেন

বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত।

এছাড়া ২২ জানুয়ারি মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ এবং ২৭ জানুয়ারি গণঅনশন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

এদিকে সরস্বতী পূজার দিনে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের

দাবিতে রাজু ভাস্কর্যের সামনে তৃতীয় দিনের মতো আমরণ অনশন করছেন শিক্ষার্থীরা।

এখন পর্যন্ত প্রায় ২০ শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

চিকিৎসক জানান, খাবার গ্রহণ না করায় এ অসুস্থতা।

দীর্ঘক্ষণ এ অবস্থা চলতে থাকলে শিক্ষার্থীদের শারীরিক অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাবে।

 

প্রধানমন্ত্রীর শোক এমপি আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ শনিবার সকালে এক বার্তায় এই শোক জানানো হয়। আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার সই করা এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে।

শোক বার্তায় আব্দুল মান্নানের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে তার শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে সকাল সোয়া আটটার দিকে ঢাকার ল্যাড এইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আব্দুল মান্নান। তার বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে, এক মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, সহকর্মী, গুণগ্রাহী ও শুভানুধ্যায়ী রেখে গেছেন।

 

প্রচারে জমজমাট হয়ে উঠেছে দুই সিটির প্রতিদ্বন্দ্বী
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত

মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেছেন, ‘আমি নির্বাচিত হলে ঢাকাবাসীর জন্য হেল্পলাইন চালু করব।

হেল্পলাইনে ঢাকাবাসী যে কোনো অভিযোগ দিতে পারবেন।

এতে সমস্যার সমাধান না হলে ঢাকাবাসী সরাসরি মেয়রকে অভিযোগ জানানোর সুযোগ পাবেন।

মেয়র সঙ্গে সঙ্গেই সেই সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে সপ্তম দিনের মতো নির্বাচনী প্রচারণায় রাজধানীর আজিমপুর-নিউমার্কেট এলাকার

বিজিবি ৩ নম্বর গেটের সামনে সাংবাদিকদের তিনি এমন প্রতিশ্রুতির কথা জানান।

শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, আমি নির্বাচিত হলে মেয়র হিসেবে নয়, একজন সেবক হিসেবে ঢাকাবাসীর জন্য কাজ করে যাব।

সেখানে একজন সেবক হিসেবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ২৪ ঘণ্টা ঢাকাবাসীর সেবা করব।

ঢাকাবাসী আমাকে তাদের কাছে ২৪ ঘণ্টাই পাবেন। আমরা আমাদের সেবা সার্বক্ষণিক ঢাকাবাসীর দোরগোড়ায় পৌঁছাব।

তিনি বলেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন একটি সেবা প্রদানকারী সংস্থা।

সুতরাং সেই সেবা প্রদানকারী সংস্থাকে ঢাকাবাসীর জন্য ২৪ ঘণ্টাই সেবা প্রদান করার জন্য আমরা নিয়োজিত রাখব।

এ সময় ঐতিহ্যের ঢাকা, সুন্দর ঢাকা, সচল ঢাকা, সুশাসিত ঢাকা এবং উন্নত ঢাকা-

এই পাঁচ লক্ষ্যের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন নৌকার প্রার্থী তাপস।

তিনি বলেন, ঢাকা নগরীকে আমরা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থেকে শুরু করে বাসযোগ্য সুন্দর নগরী হিসেবে গড়ে তুলব।

রাস্তায় আবর্জনা থাকবে না। মশক নিধন, সবুজায়ন এসব আমরা দৈনন্দিন ভিত্তিতে করব।

২৪ ঘণ্টা সিটি কর্পোরেশন এই কাজে নিয়োজিত থাকবে। আমাদের প্রাণের ঐতিহ্যের ঢাকা থাকবে একটি গর্বের জায়গায়।

পুরান ঢাকার সমস্যা নিয়ে আগে কেউ কোনো পরিকল্পনা নেয়নি উল্লেখ করে এই বিষয়ে বিস্তর পরিকল্পনা আছে বলে জানান শেখ ফজলে নূর তাপস।

তিনি বলেন, আমাদের প্রথম পরিকল্পনাই হয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে নিয়ে

এখানে জলাবদ্ধতা নিরসন থেকে শুরু করে আমাদের ব্যাপক কার্যক্রম আমরা হাতে নেব।

আমাদের যে মহাপরিকল্পনা সেই পরিকল্পনার আওতায় ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে সচল করে তুলব। নগরবাসী বাসযোগ্য সুন্দর নগরী পাবে।

তাপস বলেন, দায়িত্ব পেলে প্রথম ৯০ দিনে অগ্রাধিকার দিয়ে সমন্বিত কার্যক্রমের মাধ্যমে

ক্রাশ প্রোগ্রামের আওতায় ব্যাপকভাবে কাজ শুরু করে মৌলিক নাগরিক সুবিধাগুলো নগরবাসীর দোরগোড়ায় পৌঁছে দেব।

তিনি বলেন, নৌকা মার্কার উন্নয়নের রূপরেখা ঢাকাবাসী সাদরে গ্রহণ করেছে।

এর আগে কখনও ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে নিয়ে কোনো পরিকল্পনা করা হয়নি। আমরাই প্রথম এটা করেছি।

 আমাদের পরিকল্পনার প্রথমেই রয়েছে ঐতিহ্যকে সংরক্ষণ করা এবং ঐতিহ্যের যে স্বকীয়তা অপরূপ রয়েছে, সেটাকে প্রস্ফুটিত করা।

আমরা যে মহাপরিকল্পনা নেব সেখানে ঐতিহ্যবাহী ঢাকাকে নিয়ে অনেক পরিকল্পনা রয়েছে।

আমরা সেভাবে কাজ করতে চাই। যে ঐতিহ্য হারিয়ে গেছে তা কীভাবে পুনরুদ্ধার,

পুনরুজ্জীবিত করতে পারি এবং বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে পারি সেটাই মূল লক্ষ্য থাকবে।

এ সময় আচরণবিধি মেনে সুশৃঙ্খলভাবে প্রচারণা চালাতে উপস্থিত নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান

জানান ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে আওয়ামী লীগ মনোনীত এই মেয়র প্রার্থী।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনিবাহী সংসদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আফম বাহাউদ্দিন নাছিম,

সদস্য মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আনোয়ার হোসেন, সাহাবুদ্দিন ফরাজি, উপদেষ্টা মুকুস বোস,

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবীরসহ দল ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

এরপর বিকালে ঐতিহ্যবাহী লালবাগ এলাকায় গণসংযোগ করেন তাপস।

এর আগে ইরাকি মাঠ ও ললিতমোহন দাস লেনে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে নৌকার প্রচারণা করেন তিনি।

এদিকে দিনব্যাপী প্রচার-প্রচারণায় হাজার হাজার দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকরা অংশ নেন।

ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট চান। মিছিলরত নেতাকর্মীরা ‘নৌকা, নৌকা ও তাপস ভাই,

তাপস ভাই’ স্লোগানে গণসংযোগ এলাকা মুখরিত করে রাখেন।

বেশ কয়েক স্থানে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা ভোট চাওয়ার পাশাপাশি বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন।

তাপস মেয়র নির্বাচিত হলে আধুনিক ঢাকা গড়ার কথাও বলেন অনেকে।

প্রচারণার অংশ হিসেবে ফজলে নূর তাপস আজ চকবাজার থানার ৩১নং ওয়ার্ডের তারা মসজিদে পবিত্র জুমার নামাজ আদায় করবেন।

নামাজ শেষে মুসল্লিদের সঙ্গে নাগরিক সমস্যা নিয়ে মতবিনিময় করবেন।

পরে তিনি তারা মসজিদের সামনে হতে নির্বাচনী গণসংযোগ শুরু করবেন।

এলাকাবাসীসহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা প্রচারণায় অংশগ্রহণ করবেন।

জনস্রোতে ষড়যন্ত্র ভেসে যাবে, জয় হবেই

ইশরাক

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন বলেছেন,

আমার বিরুদ্ধে কোনো দুর্নীতির মামলা হয়নি।

দুদক ২০০৮ সালে সম্পদের বিবরণী চেয়ে যে নোটিশ দিয়েছে তার জবাব না দেয়ায় মামলা হয়েছে।

ধানের শীষের পক্ষে গণজোয়ার দেখে সরকার নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে।

জনস্রোতে সব ষড়যন্ত্র ভেসে যাবে। কোনো কিছু আমাদের আটকাতে পারবে না। জনগণ পাশে আছে। জয় আমাদের হবেই।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর দয়াগঞ্জ ব্রিজ থেকে সপ্তম দিনের

নির্বাচনী প্রচার শুরুর সময় সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

পরে যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা, উত্তর যাত্রাবাড়ী, ৪৮ নং ওয়ার্ড শহীদ জিয়া স্কুল, ধলপুর রোড, সুতি খালপাড়,

কাজলা মেইন রোড, ডেমরা রোড, ভাঙ্গা প্রেস, বাঁশপট্টি, শেখদি চৌরাস্তা, শনির আখড়া,

মৃধাবাড়ী ক্যানেল রোড হয়ে কোনাবাড়ী পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন।

এ সময় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে ভোট চেয়ে লিফলেট বিতরণ করেন তিনি।

গণসংযোগকালে ইশরাকের সঙ্গে ছিলেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল্লাহ আল নোমান, খায়রুল কবির খোকন,

হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, ফজলুল হক মিলন, ঢাকা মহানগরের নেতা নবীউল্লাহ নবী, এসএম জিলানী, তানভির আহমেদ রবিন প্রমুখ।

এছাড়াও স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী গণসংযোগে অংশ নেন।

গণসংযোগে ‘ঢাকার ছেলে ইশরাক ভাই ধানের শীষে ভোট চাই; মাগো তোমার একটি ভোটে খালেদা জিয়া মুক্তি পাবে;

আসছে দেশে শুভ দিন ধানের শীষে ভোট দিন’ ইত্যাদি স্লোগানে সব এলাকা মুখরিত হয়ে ওঠে।

এ সময় রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে নারী-পুরুষসহ নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ হাত তুলে,

 অনেককে উঁচু দালানের ছাদে, বারান্দায় দাঁড়িয়ে করতালি দিয়ে ধানের শীষের পক্ষে সমর্থন দিতে দেখা যায়।

এ সময় বিভিন্ন এলাকায় নারী ভোটাররা দলবেঁধে ধানের শীষের প্রার্থী ইশরাক হোসেনকে ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে স্বাগত জানান।

তিনিও হাত নেড়ে তাদের শুভেচ্ছার জবাব দেন।

ইশরাক হোসেন বলেন, আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে ঢাকা মহানগরীতে ধানের শীষের পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

মানুষ মুখিয়ে আছে ধানের শীষে ভোট দেয়ার জন্য।

আমরা যে এলাকায় গিয়েছি সেখানেই নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকল শ্রেণির মানুষের উচ্ছ্বাস দেখেছি।

এ অবস্থা দেখে ক্ষমতাসীনরা বেহাল হয়ে উঠছে। তারা নতুন নতুন ষড়যন্ত্রের ফাঁদ আঁটছে।

মামলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমার কাছে নতুন করে সম্পদ বিবরণী চাওয়া হয়নি।

আমার কাছে সম্পদ বিবরণী চাওয়া হয়েছিল ২০০৮ সালে। তখন আমার বয়স মাত্র ১৮ বছর।

তখন আমি একজন ছাত্র। থাকতাম দেশের বাইরে। ওই সময়কার সেনা সমর্থিত সরকার বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতা এবং

তাদের পরিবারের সঙ্গে প্রতিহিংসামূলক আচরণ করার উদ্দেশ্যে এই সম্পদ বিবরণীর নোটিশ দিয়েছিল।

ইশরাক বলেন, পরে ২০১০ সালে যখন সরকারবিরোধী আন্দোলনে আমার বাবা যুক্ত হন।

তখন আমার বাবার ওপর চাপ সৃষ্টির জন্য আমার বিরুদ্ধে বর্তমান সরকার এ মামলাটি করে।

তারপর এই মামলার কোনো গতিবিধি ছিল না।

২০১৮ সালে যখন আমি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিল করি,

 তখন তড়িঘড়ি করে এই মামলার চার্জশিট অনুমোদন করা হয়।

এই মামলাকে ষড়যন্ত্রমূলক উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটি নতুন কোনো ঘটনা নয়।

তবে অবশ্যই এটি নতুন করে নাড়াচাড়া করছে সরকার রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করার জন্য। তবে আমি এতে ভিত নই।

ইশরাক হোসেন বলেন, নির্বাচন কমিশনে এসব বিষয়ে প্রায় প্রতিদিনই অভিযোগ দিয়ে যাচ্ছি।

কিন্তু কমিশন থেকে এখনও কার্যকর কোনো উদ্যোগ দেখছি না।

আমরা আশা করি, নির্বাচন কমিশন লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরিতে ভূমিকা রাখবে।

রাত পর্যন্ত ইশরাক ৪৯, ৫০, ৬২, ৬৩, ৬৪ ও ৬৫ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় গণসংযোগ করেন।

আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টায় কদমতলী থানাধীন ৬১ নং ওয়ার্ডের দনিয়া বর্ণমালা স্কুল থেকে প্রচার শুরু করবেন তিনি।

কদমতলী লাল মসজিদে জুমার নামাজ শেষে ৫২, ৫৩, ৫৮, ৫৯, ৬০ ও ৬১নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন জায়গায় গণসংযোগ করবেন ইশরাক হোসেন।

সম্ভব হলে নির্বাচনের তারিখ পিছিয়ে দিন

আতিক

সরস্বতী পূজার জন্য সম্ভব হলে ভোটের তারিখ পেছানোর অনুরোধ জানিয়েছেন

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে সব ধর্মের লোক বাস করে, সবারই উৎসব পালনের অধিকার রয়েছে।

আমি অবশ্যই মনে করি, সরস্বতী পূজার কারণে যদি নির্বাচন পেছানোর দরকার হয় সেটা করতে হবে।

আমি নির্বাচন কমিশনের প্রতি আমার পক্ষ থেকে, দলের পক্ষ থেকে দাবি জানাচ্ছি, যদি সম্ভব হয় তাহলে নির্বাচনের তারিখ পিছিয়ে দিন।

কারও ধর্ম পালনে যেন কোনো বিঘ্ন না ঘটে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মিরপুর ১২ নম্বরে

আলুব্দি ঈদগাহ ময়দানে গণসংযোগে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

ঢাকা উত্তরে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের নির্বাচনী পোস্টার ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগের বিষয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন,

আমাদের কোনো নেতাকর্মী, সমর্থক আপনাদের পোস্টার ছিঁড়েনি, ছিঁড়বে না। মিথ্যা অভিযোগ করবেন না।

প্রয়োজন হলে আপনার পোস্টার দেন, আমি লাগিয়ে দেব।

তিনি আরও বলেন, আপনারাই দেখুন, তাবিথ আউয়ালের পোস্টারে ছেঁয়ে গেছে সব জায়গা।

আমরা যদি বলতাম, আমাদের নেতারা যদি বলতেন পোস্টার ছিঁড়তে, তাহলে তাবিথ আউয়ালের একটি পোস্টারও থাকত না।

আমাদের ছিঁড়া লাগবে না। এসব অভিযোগ না করে শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকেন।

৩০ জানুয়ারি দেখা যাবে, নৌকা বিজয়ী হবেই ইনশাআল্লাহ।

আতিকুল বলেন, গত ৯ মাসে আমরা সমস্যা চিহ্নিত করেছি।

আপনারা যদি নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেন, তাহলে আগামী ৫ বছরে সমস্যার সমাধান করব, ইনশাআল্লাহ।

স্তব্ধ ঢাকাকে সচল ঢাকা দেখতে হলে নৌকার বিজয়ের বিকল্প নেই।

আমি গত ৯ মাসে যে কাজ করেছি তার চেয়ে বেশি কাজ করে আপনাদের সচল, সবুজায়ন, মাদকমুক্ত, সন্ত্রাসমুক্ত ঢাকা উপহার দেব।

এদিকে সপ্তম দিনের প্রচার ৩, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের আলুব্দি ঈদগাহ মাঠ থেকে শুরু করেন আতিকুল।

এদিনে মিরপুর ১২, সেকশন ১১, পলাশ নগর, সেকশন ১০, পল্লবী, মিল্কভিটা, রূপনগর এলাকায় গণসংযোগ-প্রচার চালিয়েছেন তিনি।

সমাবেশ, প্রচার ও গণসংযোগে এলাকার সংসদ সদস্য ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাহর ভাই এখলাস উদ্দিন মোল্লা ও তার সন্তানদের গাড়িবহর অংশ নিতে দেখা যায়।

এ সময় তার সঙ্গে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন,

ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি বজলুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচিসহ নগর আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রচার-গণসংযোগে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের দল সমর্থিত কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের পরিচয় করিয়ে দেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী।

এসব এলাকায় নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিয়ে আতিকুল আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,

বস্তিবাসীও আমাদের অবিচ্ছেদ্য অংশ। তাদের জন্য বিভিন্ন ধরনের ফ্ল্যাট তৈরি করে দেয়া হবে।

আমরা কাজগুলো হাতে নিয়েছি। আমরা মনে করি, পুনর্বাসন ছাড়া কোনো উচ্ছেদ করা যাবে না।

এটার আইনি দিক আমরা দেখব। বস্তিতে যে ক’দিন থাকুক না কেন, তাকে ওই ক’দিনের ভাড়া দেয়ার ব্যবস্থা আমরা করব।

এরকম একটা ডিজাইন তৈরি করেছি আমরা। কিন্তু ৯ মাসে সবকিছু বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। অনেক কিছু আমরা প্ল্যান করে ফেলেছি।

এসময় নেতাকর্মীদের ঘরে ঘরে গিয়ে নৌকার জন্য ভোট চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, প্রত্যেককে ভোট দিতে হবে।

প্রত্যেককে ভোটের মাঠে আনতে হবে।

এদিকে নির্বাচনী প্রচারের অষ্টম দিনে আজ কালীবাড়ি বাউনিয়া মোড় থেকে গণসংযোগ শুরু করবেন।

পরে মাটিকাটা, লালসরাই এলাকায় নৌকায় ভোট চাইবেন তিনি।

বেলা আড়াইটা থেকে ভাষানটেক, বাইগারটেক, আলব্দিটেক, দামালকোট ও বিআরবি এলাকায় গণসংযোগ ও পথসভায় অংশ নেবেন আতিকুল ইসলাম।

ধানের শীষে ভোট দিয়ে পূজার ক্ষোভ প্রশমিত করুন

তাবিথ

সরস্বতী পূজার দিনে ভোটের তারিখ দিয়ে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়েছে বলে

মন্তব্য করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল।

হিন্দু সম্প্রদায়কে ওইদিন ধানের শীষে ভোট দিয়ে ক্ষোভ প্রশমিত করার আহ্বানও জানান তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর পশ্চিম তেজতুরি বাজার এলাকায় গণসংযোগকালে এসব কথা বলেন তাবিথ আউয়াল।

এর আগে বেলা ১১টায় বসুন্ধরা সিটি মার্কেটের সামনে থেকে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সপ্তম দিনের প্রচার শুরু করেন তিনি।

আসন্ন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)

ব্যবহারের সিদ্ধান্ত থেকে নির্বাচন কমিশনকে সরে আসার আহ্বান জানিয়ে তাবিথ বলেন,

আমরা প্রযুক্তিবিরোধী নই, কিন্তু ভোট দেয়ার ক্ষেত্রে এ প্রযুক্তি ব্যবহার নিয়ে আমাদের আশঙ্কা ও আপত্তি রয়েছে।

তাছাড়া ইভিএম ব্যবহারে ভোটাররা এখনও প্রস্তুত নয়।

ইভিএমের সফটওয়্যার ও এর ব্যবহারের নানা বিষয় নিয়ে আমরা ইসির কাছে

কিছু প্রশ্নের উত্তর জানতে চেয়েছি কিন্তু এখনও তারা এ বিষয়ে কিছুই জানাননি।

নির্বাচন কমিশনকে বলব, দেশের বেশিরভাগ রাজনৈতিক দল ও ভোটারদের ইচ্ছার কথা বিবেচনায় এনে ইভিএম ব্যবহারের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসুন।

তাবিথ বলেন, বিএনপির গণজোয়ার দেখে সরকারি দলের প্রার্থীরা ভয় পেয়ে উল্টো বিএনপির প্রার্থীদের ভয় দেখানোর চেষ্টা করছেন।

আমাদের ভয় দেখানোর চেষ্টা না করে ভোটারদের কাছে যান, ভোট চান।

তিনি বলেন, নির্বাচনী পরিবেশ সকালে এক রকম আর বিকালে আরেক রূপ ধারণ করে।

ভয়ভীতি উপেক্ষা করে সবাইকে ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

প্রচার শুরু আগে বসুন্ধরা সিটির সামনে এক ব্যতিক্রমী প্রতিবাদের আয়োজন করা হয়।

চারুকলার শিক্ষার্থীরা সেখানে বর্তমান সরকারের নানা কর্মকাণ্ডের বিরোধিতার চিত্র প্রতীকীভাবে তুলে ধরেন।

এরপর সেখান থেকে পুরাতন আহসানউল্লাহ ইউনিভার্সিটি, আবদুল আলিম কমিউনিটি সেন্টারের গলিতে প্রচার চালান তাবিথ।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাবিথ ফার্মগেটের গ্রিন সুপার মার্কেটের সামনে আসেন।

এখানে বিভিন্ন ব্যবসায়ী ও পথচারীদের সঙ্গে কুশল বিনিময় ও ধানের শীষে ভোট চান তিনি।

পশ্চিম তেজতুরি বাজার, আনন্দ সিনেমা হল, তেজগাঁ কলেজ, ইন্ধিরা রোড, পূর্ব রাজাবাজার, পান্থপথ,

স্কয়ার হাসপাতাল, খামারবাড়ি, খেজুর বাগান, আগারগাঁও পাকা মার্কেট, শেরেবাংলা নগর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়,

বাংলাদেশে বেতারের সামনে, দক্ষিণ পীরের বাগ, ৬০ ফিটের আমতলা, বিএনপি বাজার এলাকায় গণসংযোগ করেন তিনি।

এ সময় বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে ভোট চান। বেলা ৩টায় রোকেয়া সরণি থেকে ফের প্রচার শুরু করেন তাবিথ।

এরপর তালতলা স্টাফ কোয়ার্টার, পানির ট্যাংকির মোড়, শ্যামলীর ১ ও ২নং রোডে প্রচার চালিয়ে গণসংযোগ শেষ করেন তিনি।

এসময় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তাবিথ বলেন, গণসংযোগে জনগণের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি।

ভোটাররাও ধানের শীষে ভোট দিয়ে তাদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে চান।

আমিও প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, যেসব পার্ক, খেলার মাঠ দখল হয়ে গেছে সেগুলো উদ্ধার করব।

মশার কারণে ডেঙ্গু হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গণসংযোগকালে তাবিথের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী,

বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম,

নিপুণ রায় চৌধুরী, ঢাকা মহানগর নেতা বজলুল বাসিদ আঞ্জু, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব,

মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা সুলতানা আহমেদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু,

সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, মোস্তাফিজুর রহমান, গোলাম সরোয়ার,

কমিশনার প্রার্থী আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার, যুবদল নেতা এসএম জাহাঙ্গীর হোসেনসহ বিএনপি ও তার অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

আজ সকাল ১০টায় মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে গণসংযোগ শুরু করবেন তাবিথ।

২৯ থেকে ৩৩নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় দিনব্যাপী প্রচার চালাবেন তিনি।

বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান আইসিইউতে
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : জাতীয় সংসদের বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান গুরুতর অসুস্থ হয়ে ঢাকা ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

 আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল মান্নান এমপি

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকায় তার ধানমণ্ডির বাসভবনে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন।

এরপর পরিবারের লোকজন তাকে পপুলার হাসপাতালে নিয়ে যান।

সেখানে তার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হলে বেলা আড়াইটায় তাকে ল্যাবএইড হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

বর্তমানে তিনি ল্যাবএইড হাসপাতালের আইসিইউতে রয়েছেন।

তার শ্যালক সোনাতলা উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মিনহাদুজ্জামান লীটন জানান,

দুপুরের পর তার (মান্নান) উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আসছিল না। এছাড়া সুগার নিল হয়ে যায়।

তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে। তার অবস্থার উন্নতি হচ্ছে।

সংসদ সদস্য আবদুল মান্নানের সুস্থতা কামানায় আজ শুক্রবার

বাদ জুমা সোনাতলার সব মসজিদে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

এছাড়াও সোনাতলা উপজেলা শিক্ষক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আগামী শনিবার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

তৃতীয়বারের মত সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান ১৯৫৩ সালের ১৯ ডিসেম্বর

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার হিন্দুকান্দি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম মৃত জালাল উদ্দিন সরদার।

তার স্ত্রী শাহাদারা মান্নান সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বগুড়া জেলা পরিষদের সদস্য।

তার ছেলে সাখাওয়াত হোসেন সজল আমেরিকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির শিক্ষক এবং মেয়ে মালিহা মান্নান পরিবার নিয়ে আমেরিকা প্রবাসী।

আগামী ৩০ জানুয়ারিই ভোট হবে : কাদের
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : আদালত ভেবেচিন্তেই দুই সিটি নির্বাচনের তারিখ নিয়ে রায় দিয়েছেন মন্তব্য করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী

এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচন ৩০ জানুয়ারিতেই হবে।

আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক নির্ধারিত দিনেই ভোটগ্রহণ করতে তিনি নির্বাচন কমিশনকে আহ্বান জানান।

আজ বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আলাপকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ঢাকা সিটি নির্বাচন বিষয়ে আদালতের রায় নিয়ে আমি প্রশ্ন নিতে চাই না বা আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না।

তবে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে পুনর্বিবেচনার বিষয়ে আমরা হয়তো কথা বলতে পারতাম।

বিষয়টি যেহেতু আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে, আর আদালত একটি নির্দেশনা দিয়েছেন; ফলে তা নির্বাচন কমিশনকে মেনে চলতে হবে।

সিটি নির্বাচন পেছানো দাবিতে শাহবাগে ছাত্রদের বিক্ষোভ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন,

হাইকোর্ট তো নিশ্চয়ই বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থের বাইরে কিছু ভাববেন না।

নির্বাচন পেছানোর আবেদন হাইকোর্টে খারিজ করে দেয়ার বিষয়টি তারা অবশ্যই ভেবেচিন্তেই করেছেন।

যেহেতু বিষয়টি কোর্ট পর্যন্ত গড়িয়েছে, তাই কোর্টের আদেশ মেনে চলা উচিত।

ছাত্রদলের আন্দোলন থেকে সরে আসার আহ্বান জানিয়ে কাদের বলেন,

আমি আন্দোলনকারীদের বলব হাইকোর্টের আদেশ মেনে নিয়ে আন্দোলন করা থেকে বিরত থাকবেন।

এ আন্দোলনের সঙ্গে ছাত্রলীগ সম্পৃক্ত এমন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন,

তারা জড়িত রয়েছেন দলগতভাবে নয় বরং ধর্মীয় দৃষ্টিভঙ্গির দিক থেকে।

ছাত্রলীগের মধ্যে অনেকেই হিন্দু সম্প্রদায়ের রয়েছে, তারা হয়তো বিষয়টি ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনায় নিয়ে আন্দোলনে অংশ নিয়েছে।

উল্লেখ্য, ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোটের দিন পরিবর্তনের নির্দেশনা চেয়ে করা রিট খারিজের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করা হয়েছে।

আবেদনে ৩০ জানুয়ারি নির্বাচন স্থগিত চাওয়ার পাশাপাশি ভোটগ্রহণের জন্য নতুন তারিখ নির্ধারণ করার জন্য আর্জি জানানো হয়েছে।

                                                                                                       

আ.লীগের বিচার হবে জনগণের আদালতে : ফখরুল
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগের বিচার হবে জনগণের আদালতে।

কারণ তারা বাংলাদেশকে একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। তারা আজ সমাজটাকে ধ্বংস করে দিয়েছে।

আজ বুধবার (১৫ জানুয়ারি) বিকেলে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার ভুল্লি কুমারপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে

৫ নং বালিয়া ইউনিয়ন বিএনপির দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, বর্তমানে খবরের কাগজ খুললেই খুন-ধর্ষণ ছাড়া কোনো কিছুই চোখে পড়ে না।

এরূপ সমাজ আমরা চাইনি। আজ স্বাধীনতার ৫০ বছর হতে যাচ্ছে, তারা (আ.লীগ) শুধু উৎসব করছে।

কত ধরনের উৎসব তার কোনো হিসাব নেই। কিন্তু সাধারণ মানুষ কষ্টে-যন্ত্রণায় দিনাতিপাত করছে।

যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, রাজনীতি করতে চায়, সুস্থ দেশ গড়তে চায়, তাদের মিথ্য মামলা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, এই এক বছরে গণতন্ত্রের ন্যূনতম যেটুকু বাকি ছিল সেটিও তারা ধ্বংস করে দিয়েছে।

এমন একটি নির্বাচন নেই যে নির্বাচনে শুধু তারাই ভোট দেয়, অন্য কেউ ভোট দেয় না।

এককথায় এই দেশটি সম্পূর্ণভাবে দুর্বৃত্তদের হাতে চলে গেছে। একটি দল যারা সন্ত্রাস করছে তাদের হাতে চলে গেছে।

ওরা (আ.লীগ) গণতন্ত্রের চর্চা করে না। ওরা বন্দুক-পিস্তল নিয়ে রাষ্ট্রীয় যন্ত্র (পুলিশ-র‌্যাব) ব্যবহার করে পুরো ক্ষমতাটাকে দখল করে নিয়েছে।

বালিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন

জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমীন,

সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আনোয়ার হোসেন লাল, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদসহ জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন বিএনপির নেতারা।

সম্মেলনের প্রথম অধিবেশন শেষে ২য় অধিবেশনে আনোয়ার হোসেনকে পুনরায় সভাপতি ও ইদ্রিস আলীকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়।

সিটি নির্বাচনে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে আ’লীগ সমর্থিত কর্মকর্তাদের : ফখরুল
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সমর্থিত কর্মকর্তাদের সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে

দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 তিনি বলেছেন, সিটি নির্বাচনে যাদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তাদের ব্যাকগ্রাউন্ড আমরা জানি।

কে গাড়ির অনুমোদন নেয়ার জন্য ফাইল বদল নিয়ে মন্ত্রীর কাছে গেছেন,

কারা নিজের স্কুল পারমিশন নেয়ার জন্য সরকারি জমি নিয়েছেন- এ সব খবর আমাদের কাছে আছে।

এ মানুষগুলো যাদের কোনো মোরালিটি নেই তাদের নির্বাচনে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

তাদের দিয়েই আবার ইভিএম মেশিন ম্যানুপুলেটেড করার ষড়যন্ত্র করছে ক্ষমতাসীন দল।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে

‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী হেল্প সেল’ এর উদ্যোগে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ সব কথা বলেন।

বিগত আন্দোলনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের হাতে গুম, হত্যা,

পঙ্গু হওয়া নেতাকর্মীর পরিবারের সদস্যদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদানে এই অনুষ্ঠান হয়।

এতে গুম হওয়া ১০ পরিবারের সদস্যদের হাতে শিক্ষাবৃত্তি হিসেবে আর্থিক অনুদান দেয়া হয়।

ইভিএমের বিরোধিতা করে মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা এর বিরেধিতা করেছি।

আমরা বলেছি, ইভিএম দিয়ে কখনোই মানুষের যে রায় তা প্রতিফলন হবে না। আমরা এখনও সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে এর বিরোধিতা করছি।

তিনি বলেন, সোমবার চট্টগ্রামে উপ-নির্বাচন হয়েছে। সেখানে ভোটারদের ক্ষমতাসীনরা যেতেই দেয়নি ভোটকেন্দ্রে।

তার আগে বোমা মেরে লাঠিসোটা দিয়ে ভোটারদের তাড়িয়ে দিয়েছে। তারপর জিজ্ঞাসা করে বলবে যে, আপনারা পারেননি।

পারব কোত্থেকে? যে লাঠি মারে সন্ত্রাসী করে তার সঙ্গে ভদ্র লোকেরা, সাধারণ মানুষ পারবে কোত্থেকে।

এটাই বাস্তবতা। যারা ভোটার তারা তো মারামারি করে না। তারা তাদের অধিকারটা প্রয়োগ করতে যায়। কিন্তু সেটা প্রয়োগ করতে দেয়া হয় না।

সরকারের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকার আজকে জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নিয়েছে।

এমন একটা সমাজ তৈরি করছে, এমন একটা রাষ্ট্র তৈরি করছে যে, সমাজ এবং রাষ্ট্র এ দেশের মানুষের ভবিষ্যৎকে তৈরি করতে ব্যর্থ হয়েছে।

বাংলাদেশ একটা ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হতে চলেছে। তারপরও বলি, হতাশ হবেন না, ছেড়ে দেবেন না।

যত কষ্ট আসুক, যত যন্ত্রণা আসুক, যত অত্যাচার লাঞ্ছনা আসুক এ দেশের মানুষ বারবার উঠে দাঁড়িয়েছে। তরুণরা উঠে দাঁড়িয়েছে, দাঁড়াবে, দাঁড়াচ্ছে।

সব জায়গায় প্রতিরোধ হচ্ছে, প্রতিরোধ হবে।

সরকারের নিপীড়ন-নির্যাতনে চিত্র তুলে ধরে মির্জা ফখরুল বলেন, ২০১০ সাল থেকে আমরা এই আক্রমণের স্বীকার হচ্ছি।

আওয়ামী লীগ যারা স্বাধীনতা যুদ্ধের পূর্বে সংগ্রাম করেছিল, গণতান্ত্রিক লড়াই করেছিল তারাই স্বাধীনতা যুদ্ধের পরে দানবে পরিণত হয়েছে।

একবার তারা ১৯৭৫ সালে একদলীয় শাসনব্যবস্থা প্রবর্তন করেছিল।

সেটা করতে যাওয়ার আগে তারা একইভাবে এ দেশের দেশপ্রেমিক হাজার হাজার তরুণ-যুবককে হত্যা করেছে।

তিনি বলেন, ২০০৮ সালের পরে তারা একইভাবে শুধু খোলসটা পাল্টিয়ে দিয়ে ভিন্ন আঙ্গিকে একদলীয় শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে সংবিধান সংশোধন করেছে।

এই বাংলাদেশ সৃষ্টির যে চেতনা ছিল, মুক্তিযুদ্ধের যে মূল চেতনা ছিল তাকে ধ্বংস করে দিয়েছে গণতন্ত্রকে কবর দিয়ে দিয়েছে।

তারা তাদের শাসনব্যবস্থাকে পাকাপোক্ত করার জন্য রাষ্ট্রের সমস্ত যন্ত্রগুলোকে ব্যবহার করছে।

এর মধ্যে যারা প্রতিবাদ করতে চেয়েছিলেন, রাজপথে নেমে এসেছিলেন তারা আজকে অনেকে আমাদের মাঝে নেই।

তাদের অনেককে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তুলে নিয়ে গেছেন। আর খোঁজ নেই, গুম হয়ে গেছে।

অনেককে হত্যা করা হয়েছে অথবা কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

গোটা দেশকে, গোটা জাতিকে একটা নির্যাতনের কারখানা তৈরি করে ফেলেছে।

গুম হওয়া পরিবারের সদস্যদের ছোট ছোট সন্তানদের দিকে তাকিয়ে তিনি আবেগ প্রবণ কণ্ঠে বলেন, আজকে শিশুরা এখানে আছে।

ওরা প্রতিমুহূর্তে ভাবে, তার বাবা ফিরে আসবে, আসে না। মা আছেন ভাবেন যে, এই বোধহয় ছেলে দরজা নক করল, আসে না।

স্ত্রী অপেক্ষা করে থাকেন কখন তার প্রিয় মানুষটা পাশে আসবে।

হত্যার মহাউৎসব চলছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, সরকারে যারা আছেন তারা জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছেন।

তারা বক্তৃতা যখন করেন মনে হয় যেন কিছুই হয়নি দেশে, চমৎকার পরিবেশ আছে।

দেশের মানুষ খুব ভালো আছে। প্রতিদিন পত্রিকায় দেখবেন একটা হত্যার মহাউৎসব চলছে।

আজকে একটা মারাত্মক খবর দেখলাম মহাসড়কে মানুষের শরীরের অংশ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। ৩-৪ বছরের শিশুকে পর্যন্ত হত্যা করা হচ্ছে।

হত্যা, শ্লীলতাহানি, ধর্ষণ যেন একটা সাধারণ ব্যাপার হয়ে গেছে।

আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এনামুল হক চৌধুরী,

সাবেক ছাত্রনেতা নাজিম উদ্দিন আলম, কামরুজ্জামান রতন, হাবিব উন নবী খান সোহেল, শফিউল বারী বাবু, মামুন হাসান,

ছাত্রদলের ফজলুর রহমান খোকন, হেল্প সেলের নাসির উদ্দিন শাওন প্রমুখ।

 

 

সংসদ থেকে ওয়াকআউট করল বিএনপি
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : একাদশ জাতীয় সংসদ থেকে ওয়াকআউট করেছে বিএনপি।

আজ মঙ্গলবার মাগরিবের নামাজের বিরতির পর সংসদের বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনা চলাকালে

হারুনুর রশীদের নেতৃত্বে বিএনপির সংসদ সদস্যরা ওয়াকআউট করেন।

 সরকারি দলের সংসদ সদস্যদের বিরুদ্ধে ‘অপ্রাসঙ্গিক’ কথা বলার অভিযোগ তুলে এই ওয়াকআউট করেন তারা।

বর্তমান সরকারের সময়ের বিভিন্ন নির্বাচনের সমালোচনা করে

‘গণতন্ত্রের’ স্বার্থে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ করার দাবি তোলেন বিএনপির এমপি হারুন।

আর যদি ওই নির্বাচন অবাধ করার উদ্যোগ না নেয়া হয়, তাহলে সংসদ থেকে ওয়াকআউট করার হুমকি দেন তিনি।

এ সময় এমপিদের সিটি নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নেয়া নিয়েও প্রশ্ন তোলেন এমপি হারুন।

বিএনপির এমপি হারুনের বক্তব্যের পর আওয়ামী লীগের দুই প্রবীণ নেতা আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ ফ্লোর নিয়ে পাল্টা জবাব দেন।

তারা বিএনপি সরকারের আমলে অনুষ্ঠিত নানা নির্বাচনের অনিয়মের কথা তুলে ধরেন।

তাদের বক্তব্যের পর বিএনপির এমপি হারুন আবারও ফ্লোর চাইলে স্পিকার- তা নাকচ করে দেন।

এ সময় হারুন মাইক ছাড়াই কথা বলতে থাকেন। সরকারি দলের সদস্যরা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে পাল্টা বক্তব্যে প্রসঙ্গের

বাইরে গিয়ে কথা বলেছেন দাবি করে অধিবেশন কক্ষ থেকে বেরিয়ে যান হারুনসহ বিএনপির অন্য সদস্যরা।

পরে সাংবাদিকদের এমপি হারুন বলেন, ঢাকা সিটি নির্বাচন সুষ্ঠু হবে কিনা সেই প্রশ্ন তুলেছিলাম।

কিন্তু সরকারি দল সেগুলোর জবাব না দিয়ে অপ্রাসঙ্গিক কথা তুলেছেন।

 


   Page 1 of 130
     রাজনীতি
‘ভোটে বিচ্যুতি হলে সরকার হটানোর আন্দোলন’
.............................................................................................
আগামীকাল টুঙ্গিপাড়ায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক
.............................................................................................
সরকারি দলকে সাহায্য করতে ইভিএম : ফখরুল
.............................................................................................
ছাত্র ইশরাকে দোয়া করলেন অধ্যাপক এমাজউদ্দীন
.............................................................................................
তাবিথের ওপর হামলার ঘটনা তদন্তের নির্দেশ ইসি’র
.............................................................................................
ইসমাত আরা সাদেকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক
.............................................................................................
সিটি নির্বাচন নিয়ে বিএনপি চালাকি খেলায় মেতেছে : মেনন
.............................................................................................
‘ভোট চুরির নীরব অস্ত্র’ ইভিএমকে বঙ্গোপসাগরে ফেলে দিতে হবে : আমীর খসরু
.............................................................................................
ইসিকে আক্রমণ ইশরাকের
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর শোক এমপি আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে
.............................................................................................
প্রচারে জমজমাট হয়ে উঠেছে দুই সিটির প্রতিদ্বন্দ্বী
.............................................................................................
বগুড়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান আইসিইউতে
.............................................................................................
আগামী ৩০ জানুয়ারিই ভোট হবে : কাদের
.............................................................................................
আ.লীগের বিচার হবে জনগণের আদালতে : ফখরুল
.............................................................................................
সিটি নির্বাচনে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে আ’লীগ সমর্থিত কর্মকর্তাদের : ফখরুল
.............................................................................................
সংসদ থেকে ওয়াকআউট করল বিএনপি
.............................................................................................
সরকার বিবেচনা করবে খালেদার দণ্ড স্থগিতের বিষয়ে- অ্যাটর্নি জেনারেল
.............................................................................................
জনস্বার্থে ২৪ ঘণ্টা নগর ভবন খোলা রাখব : তাপস
.............................................................................................
তাবিথের গাড়িতে হামলার অভিযোগ, আহত ১০ হাসপাতালে
.............................................................................................
আজ ফলো আপ চিকিৎসায় সিঙ্গাপুর গেছেন সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
চট্টগ্রামে উপনির্বাচনে আ.লীগ প্রার্থী জয়ী
.............................................................................................
নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হোক, চাই না : কাদের
.............................................................................................
চট্টগ্রাম-৮ : কেন্দ্রের ভেতরে ও বাইরে ককটেল বিস্ফোরণ
.............................................................................................
তাবিথের নির্বাচনী প্রচারণায় যুবদল-ছাত্রদলের হাতাহাতি
.............................................................................................
বিএনপি প্রার্থী মোকাবেলায় ২ মেয়র প্রার্থীই যথেষ্ট : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
সিটি নির্বাচন : আগামী ২৭ জানুয়ারি রাতে বন্ধ মোটরসাইকেল
.............................................................................................
প্রচারে এমপিদের নিষেধাজ্ঞার বিধান পরিবর্তন চায় ১৪ দল
.............................................................................................
ওবায়দুল কাদেরের ঘড়ি বিতর্ক : সরকারি দায়িত্বে থাকা অবস্থায় উপহার গ্রহণের নিয়ম কী
.............................................................................................
ভোট চাওয়া ছাড়া সব করতে পারবো : তোফায়েল
.............................................................................................
সংবিধান লঙ্ঘন করা মানে বঙ্গবন্ধুকে অসম্মান করা : ড. কামাল
.............................................................................................
‘সিটি নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে’
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রত্যাবর্তনে বিজয় পূর্ণতা পেয়েছে : কাদের
.............................................................................................
আজ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ছাত্রলীগের শ্রদ্ধা
.............................................................................................
‘বেগম জিয়াকে হত্যার উদ্দেশেই বিনা চিকিৎসায় আটকে রেখেছে সরকার’-রিজভী
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর সত্য ভাষণে গাত্রদাহ হয়েছে বিএনপির : কাদের
.............................................................................................
তাবিথ ও ইশরাক খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে চান
.............................................................................................
এটা কোন দেশের লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড : তোফায়েল
.............................................................................................
আজ বিকালে স্বজনদের সাক্ষাৎ খালেদা জিয়ার সঙ্গে
.............................................................................................
ছাত্রলীগের পূর্ণ দায়িত্ব পেলেন জয়-লেখক
.............................................................................................
ছাত্রলীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর পুনর্মিলনী
.............................................................................................
সিটি নির্বাচনে টিম লিডার আমু(দক্ষিনে), তোফায়েল(উত্তরে)
.............................................................................................
সৈয়দ আশরাফ রাজনীতির জন্য এক অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত : কাদের
.............................................................................................
১৮ জনের মনোনয়ন বাতিল
.............................................................................................
মেয়র পদে আওয়ামী ও বিএনপির প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা
.............................................................................................
আন্দোলন ধারাবাহিকভাবে শুরু করতে হবে- মান্না
.............................................................................................
মেট্রোরেলের কাজ ২০২১ সালের ডিসেম্বরে শেষ : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
২০৩০ সালে সড়কের দৃশ্যপট পাল্টে যাবে-সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
বাম গণতান্ত্রিক জোটের মিছিলে সংঘর্ষ ও পুলিশের লাঠিপেটা,
.............................................................................................
বিএনপিকে সমাবেশ করতে দেবেনা ডিএমপি
.............................................................................................
সাঈদ খোকন আসছেন আ.লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম ।
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন ।
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন ।

সম্পাদক কর্তৃক শরীয়তপুর প্রিন্টিং প্রেস, ২৩৪ ফকিরাপুল, ঢাকা থেকে মুদ্রিত ও প্রকাশিত । সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্ল্যাক্স (৬ষ্ঠ তলা) । ২৮/১ সি টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল, বা/এ ঢাকা-১০০০ । জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা ।
ফোন নাম্বার : ০২-৯৫৮৭৮৫০, ০২-৫৭১৬০৪০৪
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, ০১৯১৬৮২২৫৬৬ ।

E-mail: dailyganomukti@gmail.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি