২২ জিলহজ ১৪৪১ , ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৩ আগস্ট , ২০২০ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > বরগুনায় অগ্নিঝরা টাউনহল চত্বরে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের মানববন্ধন ও অবস্থান ধর্মঘট   > বন্যায় মৃতের সংখ্যা দুইশ ছাড়াল   > স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক হলেন সেব্রিনা ফ্লোরা   > বরিশাইল্লা ‘দাদো’র চরিত্রে মীর সাব্বির   > ২৪ ঘন্টায় আরো ৪৪ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬১৭   > ট্রেনের টিকিট হাতবদল হলেই সাজা   > মাদারীপুরের ডাসারে র‌্যাব-৮ এর অভিযানে দেশি-বিদেশী মদ উদ্ধার, আটক ১   > সুবিদখালী বাজার সড়কের বেহাল দশা, দুর্ভোগ চরমে !   > এস কে সিনহাসহ ১১ জনের বিচার শুরু   > ভূঞাপুরে ছাত্রলীগ নেতার গলাকাটা লাশ উদ্ধার  

   আন্তর্জাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
হোয়াইট হাউসের বাইরে গুলি, সরিয়ে নেয়া হলো ট্রাম্পকে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সংবাদ সম্মেলন চলাকালীন হোয়াইট হাউসের বাইরে গুলির ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে ট্রাম্পকে সংবাদ সম্মেলেন থেকে সরিয়ে নেয়া হয়। খবর সিএনএনের।

খবরে বলা হয়েছে, হোয়াইট হাউসে প্রতিদিনের মতো করোনা পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করছিলেন ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসের নিরাপত্তাও ঠিক ছিল। এমন সময় হোয়াইট হাউস চত্বরে এক ব্যক্তি এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে শুরু করে।

জানা গেছে, গুলি চালানোর সঙ্গে সঙ্গে নিরাপত্তা কর্মীরা ওই ব্যক্তিকে গুলি করে। নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে আহত বন্দুকধারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনা প্রসঙ্গে টুইট বার্তায় সিক্রেট সার্ভিস জানিয়েছে, ১৭ নম্বর স্ট্রিট ও পেনসিলভানিয়া অ্যাভিনিউতে গুলি চলেছে এটা নিশ্চিত। নিরাপত্তারক্ষীদের গুলিতে একজন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে।

সংবাদ সম্মেলন থেকে হঠাৎ করে চলে যাওয়ার পর ফিরে এসে তিনি নিজেই ঘটনার কথা সামনে আনেন। ট্রাম্প বলেন, `হোয়াইট হাউসে বন্দুক হাতে কেউ একজন ঢুকে পড়েছিল। তাকে ধরে ফেলেছে সিক্রেট সার্ভিস। কী উদ্দেশ্যে সেই ব্যক্তি এসেছিল সেটা নিশ্চিত নয়। পরিচয়ও জানা যায়নি। তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।`

সিক্রেট সার্ভিসের প্রশংসা করে মার্কিন প্রেসিডেন্টে বলেন, `সিক্রেট সার্ভিসকে অসংখ্য ধন্যবাদ। তারা অসাধারণ। তবে কোনো বড় ঘটনা ঘটেনি। নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে তারা শুধু কিছু সময়ের জন্য আমাকে সরিয়ে নিয়ে গিয়েছিল।`

হোয়াইট হাউস চত্বরে বিক্ষোভ, গুলি চালানোর ঘটনা নতুন নয়। জর্জ ফ্লয়েডের খুনের প্রতিবাদে যখন বিক্ষোভ-অশান্তি ছড়িয়ে পড়েছিল গোটা আমেরিকা জুড়ে, তখন বিক্ষোভকারীরা রাতভর হোয়াইট হাউসের সামনে বিক্ষোভ করেছিলেন। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল ট্রাম্পকে আন্ডারগ্রাউন্ড বাঙ্কারে সরিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন গোয়েন্দারা।

হোয়াইট হাউসের বাইরে গুলি, সরিয়ে নেয়া হলো ট্রাম্পকে
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সংবাদ সম্মেলন চলাকালীন হোয়াইট হাউসের বাইরে গুলির ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনার সঙ্গে সঙ্গে ট্রাম্পকে সংবাদ সম্মেলেন থেকে সরিয়ে নেয়া হয়। খবর সিএনএনের।

খবরে বলা হয়েছে, হোয়াইট হাউসে প্রতিদিনের মতো করোনা পরিস্থিতিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করছিলেন ট্রাম্প। হোয়াইট হাউসের নিরাপত্তাও ঠিক ছিল। এমন সময় হোয়াইট হাউস চত্বরে এক ব্যক্তি এলোপাতাড়ি গুলি ছুড়তে শুরু করে।

জানা গেছে, গুলি চালানোর সঙ্গে সঙ্গে নিরাপত্তা কর্মীরা ওই ব্যক্তিকে গুলি করে। নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে আহত বন্দুকধারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনা প্রসঙ্গে টুইট বার্তায় সিক্রেট সার্ভিস জানিয়েছে, ১৭ নম্বর স্ট্রিট ও পেনসিলভানিয়া অ্যাভিনিউতে গুলি চলেছে এটা নিশ্চিত। নিরাপত্তারক্ষীদের গুলিতে একজন আহত হয়েছে। পরিস্থিতি পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে।

সংবাদ সম্মেলন থেকে হঠাৎ করে চলে যাওয়ার পর ফিরে এসে তিনি নিজেই ঘটনার কথা সামনে আনেন। ট্রাম্প বলেন, `হোয়াইট হাউসে বন্দুক হাতে কেউ একজন ঢুকে পড়েছিল। তাকে ধরে ফেলেছে সিক্রেট সার্ভিস। কী উদ্দেশ্যে সেই ব্যক্তি এসেছিল সেটা নিশ্চিত নয়। পরিচয়ও জানা যায়নি। তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।`

সিক্রেট সার্ভিসের প্রশংসা করে মার্কিন প্রেসিডেন্টে বলেন, `সিক্রেট সার্ভিসকে অসংখ্য ধন্যবাদ। তারা অসাধারণ। তবে কোনো বড় ঘটনা ঘটেনি। নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে তারা শুধু কিছু সময়ের জন্য আমাকে সরিয়ে নিয়ে গিয়েছিল।`

হোয়াইট হাউস চত্বরে বিক্ষোভ, গুলি চালানোর ঘটনা নতুন নয়। জর্জ ফ্লয়েডের খুনের প্রতিবাদে যখন বিক্ষোভ-অশান্তি ছড়িয়ে পড়েছিল গোটা আমেরিকা জুড়ে, তখন বিক্ষোভকারীরা রাতভর হোয়াইট হাউসের সামনে বিক্ষোভ করেছিলেন। পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছিল ট্রাম্পকে আন্ডারগ্রাউন্ড বাঙ্কারে সরিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন গোয়েন্দারা।

কেরালায় ভূমিধসে নিহত বেড়ে ৪৩
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের কেরালা রাজ্যের একটি চা বাগানে ভূমিধসে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৩ জনে দাঁড়িয়েছে। এ পর্যন্ত ১২ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। রাজ্যটির ইদ্দুকি জেলায় ভূমিধসের ঘটনা ঘটে।

রোববার জেলাটির তথ্যকেন্দ্র থেকে জানানো হয়, এদিন এক শিশুসহ আরও ১৭ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার চা বাগানের শ্রমিকরা যখন ঘুমাচ্ছিলেন তখন ভারি বৃষ্টির কারণে ভূমিধস হয়।

ইদ্দুকি জেলার কর্মকর্তা এইচ. দিনেশান জানান, প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে উদ্ধার অভিযান স্থগিত রাখতে হয়। শেষ মরদেহ উদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত উদ্ধার তৎপরতা অব্যাহত থাকবে।

ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর বেশ কয়েকটি জেলায় ভারি বৃষ্টির পূর্বাভাসের কথা জানিয়েছে। ছয়টি জেলায় রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে।

কেরালার মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন ক্ষতিগ্রস্তদের ৫ লাখ টাকা করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি শোক জানিয়েছেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবারকে ২ লাখ টাকা করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দুই কোটি ছাড়ালো
                                  

গণমুক্তি ডেস্ক : বিশ্বজুড়ে ক্রমশ খারাপ হচ্ছে করোনা পরিস্থিতি। আজ সোমবার বিশ্বজুড়ে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২ কোটি ছাড়িয়েছে। এর মধ্য দিয়ে আরেকটি দুঃখজনক মাইলফলক পার করলো পৃথিবী।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত কোভিড-১৯ এ মোট আক্রান্ত হয়েছেন ২ কোটি ২২ হাজার ২৬৫ জন। আর ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৭ লাখ ৩৩ হাজার ৯৭১ জন।

প্রাণঘাতী ভাইরাসটিতে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে সুস্থ হওয়ার সংখ্যাও বেড়েছে। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ২৮ লাখ ৯৭ হাজার ৭৯৯ জন। সুস্থতার হার ৯৫ শতাংশ।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ভাইরাসটিতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে। প্রায় ৫২ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন দেশটিতে। এরপরেই বেশি আক্রান্ত হয়েছেন ব্রাজিলে, ৩০ লাখ ৩৫ হাজার ৫৮২ মানুষ। তারপরে ভারতের মানুষ বেশি আক্রান্ত হয়েছেন, ২২ লাখ ১৪ হাজার ১৩৭ মানুষ।

ভারতে আবারো করোনা হাসপাতালে আগুন, নিহত ৭
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেয়া আরও একটি হাসপাতালে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত সাতজন পুড়ে নিহত হয়েছেন। ভেতরে অনেকেই আটকে রয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

রবিবার সকালে অন্ধ্রপ্রদেশের বিজয়ওয়াড়া শহরের হোটেল স্বর্ণা প্যালেসে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

সংবাদসংস্থা এএনআই জানিয়েছে, হোটেল স্বর্ণা প্যালেসে অস্থায়ীভাবে কোভিড রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে আসছিল রমেশ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সকালে সেখানে আগুন লাগে। হোটেল থেকে এখন পর্যন্ত ৩০ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ভেতরে অনেকেই আটকে রয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাদেরকে উদ্ধারে কাজ করছে দমকল বাহিনী। উদ্ধার করা রোগীদের অন্য হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। দমকল বাহিনীর প্রাথমিক অনুমান শর্ট সার্কিট থেকেই এই আগুন লেগেছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার ভোররাতে আগুন লাগে গুজরাটের আহমেদাবাদের নভরঙ্গপুরার শ্রে হাসপাতালে। বেসরকারি এই হাসপাতালকে করোনা হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। ওই ঘটনায় হাসপাতালে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে থাকা আট করোনা রোগীর মৃত্যু হয়।

রাশিয়া ও চীন আমার পুনর্নির্বাচনের বিরুদ্ধে : ট্রাম্প
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মনে করেন, আমার পুনরায় নির্বাচিত হওয়ার বিষয়টির বিরুদ্ধে রাশিয়া ও চীন। দেশ দু’টি চায়, প্রসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের মেয়াদ শেষ হয়ে যাক।

ট্রাম্প এ ব্যাপারে বলেছেন, রাশিয়া চায়- ডোনাল্ড ট্রাম্প মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন শেষ করুক। কারণ, রাশিয়ার ব্যাপারে কড়া অবস্থান আমার চেয়ে আর কেউ নেয়নি। তিনি মনে করেন, চীন ও ইরান তার ব্যাপারে একই মনোভাব পোষণ করে।

যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দারা মনে করছে, প্রতিদ্বন্দ্বীর সঙ্গে নির্বাচনে নামার ব্যাপারে ট্রাম্পকে অবজ্ঞা করছে রাশিয়া। চীন ও ইরান একই অবস্থানে রয়েছে। তিন দেশের কেউই চায় না যে, ট্রাম্প আবারো নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করুক।

এদিকে ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পকে জিতিয়ে দিতে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের অভিযোগ রয়েছে। তবে কয়েক বছরেও সে ব্যাপারে সঠিক কোনো সিদ্ধান্ত পাওয়া যায়নি।

যদিও ট্রাম্প বারবার নিজেকে নির্দোষ দাবি করে নির্বাচনে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপের বিষয়টি নাকচ করে দিয়েছেন। অভিযোগের বিষয় রাশিয়ার পক্ষ থেকেও নাকচ করা হয়েছে।

ভারতে বিমান দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের কেরালায় অবতরণের সময় এয়ার ইন্ডিয়ার একটি বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার ঘটনায় আরও তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দুই টুকরো হয়ে যাওয়া বিমানটির পাইলটসহ মোট ২০ জনের মৃত্যু হলো। মৃতদের মধ্যে আছে চার শিশুও রয়েছে। আহত হয়েছেন বিমানটির আরও শতাধিক যাত্রী। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা শঙ্কাজনক।

শুক্রবার রাত পৌনে ৮টা নাগাদ কেরালার কোঝিকোড়ের কারুপুর বিমানবন্দরে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে বিমানটি। এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানটি দুবাই থেকে বিদেশে আটকে পড়া ভারতীয় নাগরিকদের ফিরিয়ে নিয়ে আসছিল।

বিমানটিতে মোট ১৭৪ জন প্রাপ্তবয়স্ক যাত্রী, ১০টি শিশু এবং চারজন কেবিন ক্রু ছিলেন। করোনাভাইরাস মহামারির সময়ে বিভিন্ন দেশ থেকে ভারতীয় নাগরিকদের ফিরিয়ে আনার অংশ হিসেবেই এটি কালিকট বিমানবন্দরে পৌঁছায়।

ভারতীয় বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের মহাপরিচালক বার্তা সংস্থা এএনআইকে জানিয়েছেন, ভারী বৃষ্টিপাতের মধ্যে অবতরণের সময় বিমানটি পূর্ণ গতিতে ছিল। সেটি রানওয়ে থেকে পিছলে বেরিয়ে যায়।

টুইটারে দেওয়া পোস্টে ভারতের বেসামরিক বিমান পরিবহনমন্ত্রী হরদীপ সিং পুরি জানিয়েছেন, এ ঘটনা তদন্তে ইতোমধ্যে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

ভারতের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ ডিজিসিএ জানিয়েছে, প্রবল বৃষ্টির মধ্যেই বিমানটি অবতরণ করছিল। দৃশ্যমানতা ছিল ২০০০ মিটার। বিমানটি রানওয়ে ওয়ান জিরো ছোঁয়ার পরে না থেমেই রানওয়ের শেষ মাথায় চলে যায় আর তারপরে সেটি ছাড়িয়ে সামনের উপত্যকায় গিয়ে পড়ে। তখনই বিমানটি দুটো টুকরো হয়ে যায়।

বেসামরিক বিমান পরিবহনমন্ত্রী হরদীপ সিং পুরি জানান, বৃষ্টির মধ্যে পিছলে যায় বিমানটি। বিমানবন্দরের দেয়াল ভেঙে সেটি ৩৫ ফুট এগিয়ে যায়। বিমানটি দুই টুকরো হয়ে গেছে।

দুর্ঘটনার পর ঘটনাস্থলে ২৪টি অ্যাম্বুল্যান্স এবং দমকলবাহিনী-সহ জাতীয় বিপর্যয় মোকাবেলা বাহিনী গিয়ে উদ্ধারকাজ চালায়। আহতদের মধ্যে আরও কয়েকজনের অবস্থা গুরুতর। ফলে নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

রুশ ব্যবসায়ীর ফেলে যাওয়া রাসায়নিক থেকে বৈরুত বিস্ফোরণ!
                                  

গণমুক্তি ডেস্ক : বৈরুত বন্দরে বিস্ফোরণের ঘটনার পর রাজনৈতিক নেতারা দোষীদের কড়া শাস্তির দাবি করেছেন। একই সঙ্গে তারা এর জন্য বন্দরের কর্মকর্তাদের দিকে অভিযোগের তীর নিক্ষেপ করেছেন। তবে কাস্টমস কর্মকর্তারা আঙ্গুল তুলেছেন রাজনৈতিক নেতাদের দিকে। তাদের দাবি, বন্দর থেকে বিপজ্জনক অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট সরিয়ে নিতে তারা বারবার সতর্ক করেছিলেন। কিন্তু সরকারের কানে সেই সতর্কবার্তা যায়নি।

বন্দরের ১২ নম্বর গুদামে অরক্ষিতভাবে ফেলে রাখা হয়েছিল এই রাসায়নিক, যার পরিণতিতে ধ্বংসপ্রায় রাজধানী। প্রাণ গেছে শতাধিক মানুষের।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্ট তাদের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে বাতুমি থেকে রাসায়নিকবাহী একটি জাহাজ আটক করে লেবানন কর্তৃপক্ষ। রাশিয়ার ব্যবসায়ী ইগর গ্রেচুশকিন ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট জর্জিয়া থেকে মোজাম্বিকে পাঠাচ্ছিলেন জাহাজটিতে করে ।
মস্কোর রেন টিভি জানিয়েছে, গ্রেচুশকিনের জাহাজটি আটক করা হয়েছিল এবং রফতানি সংক্রান্ত কাগজপত্র যথাযথ পাওয়া যায়নি।

লেবানন কর্তৃপক্ষ রাসায়নিকের নিরাপত্তার জন্য নাবিকদের জাহাজে থাকতে বাধ্য করে। পরে অনশন ধর্মঘট শুরু করলে তাদেরকে জাহাজ ছেড়ে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়।

নাবিকরা ওই সময় জানায়, মোটরবাইক ভক্ত গ্রেচুশকিন দেউলিয়া হয়ে গেছেন এবং তিনি জাহাজটি পরিত্যক্ত অবস্থায় ফেলে গেছেন। এরপর জাহাজের অধিকাংশ কনটেইনার বন্দরের ১২ নম্বর গুদামে রাখা হয়।

বৈরুতের এই বিস্ফোরণের ঘটনায় কর্মকর্তাদের পাশাপাশি গ্রেচুশকিনকে বিচারের কাঠগড়ায় লেবানন কর্তৃপক্ষ দাঁড় করাতে পারে কি না সেটাই এখন দেখার বিষয়।

শোকে কাঁদছে লেবানন, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০০
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চারদিকে সারি সারি মরদেহ। দিশেহারা রক্তাক্ত মানুষ। হাসপাতালে জায়গা হচ্ছে না আহতদের। বিলাসবহুল হোটেল, আবাসিক ভবন সবকিছু পরিণত হয়েছে অচেনা ধ্বংসস্তূপে। আহতদের চিৎকার আর নিখোঁজের স্বজনদের দীর্ঘশ্বাসে ভারি হয়ে উঠছে আকাশ। লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১০০ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে, আহত হয়েছে আরও চার হাজারের বেশি মানুষ।

লেবাননের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বিষয়ক প্রধান বলেছেন অত্যন্ত বিস্ফোরক রাসয়নিক পদার্থের গুদামে এই বিস্ফোরণ ঘটেছে। কর্মকর্তারা বলছেন, এই বিস্ফোরণ দুর্ঘটনা। পরিকল্পিতভাবে এই বিস্ফোরণ ঘটানো হয়নি। তারা বলছেন, গুদামে ছয় বছর ধরে মজুদ রাখা অত্যন্ত বিপদজনক বিস্ফোরক থেকে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে।

প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব এই ঘটনাকে বিপর্যয় বলে বর্ণনা করেছেন এবং দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলেছেন।

প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন এক টু্‌ইট বার্তায় বলেছেন, কোনো গুদামে ২৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের মতো বিস্ফোরক অনিরাপদভাবে মজুদ রাখার বিষয়টি অগ্রহণযোগ্য। বুধবার মন্ত্রিসভার বিশেষ একটি বৈঠক ডেকেছেন প্রেসিডেন্ট আউন।

বুধবার থেকে তিন দিনের জন্য লেবাননে আনুষ্ঠানিকভাবে শোক পালন করা হবে।

উদ্ধারকর্মীরা এখনো ধ্বংসস্তূপের মধ্যে থেকে ভুক্তভোগীদের উদ্ধারের চেষ্টা করছেন। নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। মঙ্গলবার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল যে ঘটনাটি কীভাবে ঘটেছে, তা নিশ্চিতভাবে জানার উদ্দেশ্যে তদন্ত চলছে।

আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পথে জম্মু ও কাশ্মীর
                                  

গণমুক্তি ডেস্ক : জম্মু ও কাশ্মীরের সঙ্গে পুরো দেশের সম্পূর্ণ সংহতি নিশ্চিত করতে, ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করার এক বছর হয়ে গেছে। সেই থেকে জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণ অন্য যে কোনও ভারতীয় নাগরিকের মতো সমান অধিকার ভোগ করতে শুরু করেছেন। একক নাগরিকত্ব, শিশুদের জন্য শিক্ষার অধিকার, জম্মু ও কাশ্মীর তথ্য অধিকারের সম্প্রসারণ ইত্যাদি হলো এই যুগান্তকারী সিদ্ধান্তের কয়েকটি মূল বিষয়। লক্ষ্যণীয় যে, জম্মু ও কাশ্মীর নির্মাণের ক্ষেত্রে এটি একটি নতুন বাস্তবতা, যা অর্থনৈতিক উন্নয়ন, সামাজিক অগ্রগতি এবং লিঙ্গভিত্তিক ন্যায়বিচার দ্বারা পরিচালিত। সন্ত্রাসীদের ভয় ও আতঙ্ক থেকে মুক্তির উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে এর ভবিষ্যত । সুতরাং, এটি বলা ঠিক যে ৫ আগস্ট, একটি ঐতিহাসিক দিন, যেদিন আমরা জম্মু ও কাশ্মীরের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বাধা দূর হতে দেখেছি।
গত এক বছরে, জম্মু ও কাশ্মীরে একটি ব্যাপক বিস্তৃত উন্নয়ন কর্মসূচি গৃহীত হয়েছে এবং তা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। জ্বালানি থেকে শিক্ষা, স্বাস্থ্য থেকে উদ্যানতত্ত্ব, তথ্যপ্রযুক্তি অবকাঠামো, খেলাধুলা থেকে পর্যটন – জম্মু ও কাশ্মীর সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের সাক্ষী হয়েছে। রাজধানীর সাথে দ্রুতগামী রেল যোগাযোগসহ বিশাল অবকাঠামোগত প্রকল্প জম্মু ও কাশ্মীরে বাস্তবায়িত হয়েছে। ভারতীয় রেলওয়ে প্রত্যাশিত উধমপুর-শ্রীনগর-বারমুল্লা রেল লিঙ্ক (ইউএসবিআরএল) প্রকল্পটি সফলভাবে বাস্তবায়ন করছে এবং এই প্রকল্পটি সমাপ্ত হলে তা জম্মু ও কাশ্মীরের জন্য একটি বিরাট পরিবর্তন আনতে পারে। জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাণবন্ত ফুলের চাষের সম্ভাবনা কাজে লাগাতে বিশেষ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে; এবং এই সময়ে দেশের তিন চতুর্থাংশ আপেলের উৎপাদন জম্মু ও কাশ্মীরে হয়েছে। তাঁত এবং হস্তশিল্প শিল্পের গুরুত্ব বিবেচনা করে, রাজ্যের প্রাচীনতম ঐতিহ্যবাহী কুটির শিল্প, হস্তশিল্পের প্রচারের উপর দৃষ্টি দেয়া হয়, জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৮ জন শীর্ষস্থানীয় কারুশিল্প রফতানিকারী ৪৯তম ভারতীয় হস্তশিল্প ও উপহার মেলার ভার্চুয়াল সংস্করণে অংশ নেন।
২০২০ সালের ১৪ জুলাই থেকে, জম্মু ও কাশ্মীর সরকার পর্যায়ক্রমে পর্যটন চালু করেছে। জম্মু ও কাশ্মীর ব্যাংক ডিজিটাল পেমেন্ট লেনদেনে লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ভারতের সমস্ত ব্যাংকের মধ্যে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে। ১৩,৬০০ কোটি রুপি (১৮০০ মিলিয়ন ডলার) মূল্যের ১৬৮টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। গত এক বছরে জামু ও কাশ্মীর প্রশাসন যুবকদের শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও চাকরির সুযোগ দেওয়ার ক্ষেত্রে বিশেষ মনোযোগ দিয়ে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিদ্যুৎ ও ভূমি সংস্কারের ক্ষেত্রে প্রশংসনীয় অগ্রগতি করেছে। বিভিন্ন স্তরে তরুণদের জন্য ১০,০০০টি নতুন কাজের সুযোগ; ৫০টি নতুন ডিগ্রি কলেজে মোট ২৫,০০০ আসন; ১,৪০০ অতিরিক্ত মেডিকেল / প্যারামেডিকাল আসনসহ সাতটি নতুন মেডিকেল কলেজ পরিচালনা, পাঁচটি নতুন নার্সিং কলেজ এবং একটি রাষ্ট্রীয় ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের কথা উল্লেখ করা যেতে পারে। এছাড়াও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল লাদাখকে ভারতের একটি বড় পর্যটনে এলাকা হিসেবে প্রদর্শনের পরিকল্পনা নিয়ে রাস্তাঘাট ও সেতু সংস্কারসহ সামগ্রিক উন্নয়ন কার্যক্রম চলছে। লাদাখের লেহ বিমানবন্দরের সম্প্রসারণও কর্মসূচিতে রয়েছে এবং লাদাখকে কার্বন নিরপেক্ষ ইউনিয়ন অঞ্চল হিসাবে গড়ে তোলা হচ্ছে।
জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণে ভারত সরকার এই উপত্যকার উন্নয়নমূলক প্রক্রিয়া বেগবান করার দিকে মনোনিবেশ করার পরেও ভারতের বিরুদ্ধে সীমান্ত সন্ত্রাস উপত্যকার উন্নয়নকে প্রভাবিত করে চলেছে। জম্মু ও কাশ্মীরে জঙ্গিবাদ বিরোধী অভিযান আরও তীব্র করা হয়েছে এবং কেবল এ বছরই উপত্যকা জুড়ে আমাদের সশস্ত্র বাহিনী সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের শীর্ষ কমান্ডারসহ ১৩০ জনেরও বেশি সন্ত্রাসীকে নিষ্ক্রিয় করতে সক্ষম হয়েছে। জঙ্গিবাদ এখন পিছু হটেছে। বাহিনীগুলির সুচারু ও সহজ চলাফেরার লক্ষ্যে সীমান্ত অঞ্চলের অবকাঠামোগত উন্নতির দিকে দ্রুত নজর দেওয়ার জন্যও উৎসাহ দেয়া হয়।
উপসংহারে বলা যায়, ৩৭০ ধারাটি বাতিল করার ফলে জম্মু ও কাশ্মীর শান্তি ও সমৃদ্ধির পথে চলমান রয়েছে। এ কথা বললে পুনরাবৃত্তি করা হয় যে, জম্মু ও কাশ্মীর ভারতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ ছিল এবং তা অব্যাহত থাকবে। জাম্মু এবং কাশ্মীর সম্পর্কিত ইস্যুগুলি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় এবং এই ক্ষেত্রে ভারতের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতার প্রতি সম্মান দেখাতে হবে।

বৈরুতে দুই বাংলাদেশি নিহত, নৌবাহিনীর ১৯ সদস্য আহত
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে দুই বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হয়েছেন। এছাড়া এ ঘটনায় বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১৯ সদস্য আহত হয়েছেন। বুধবার (৫ আগস্ট) লেবাননের বাংলাদেশ দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা এ তথ্য নিশ্চিত করেন। নিহতরা হলেন- মেহেদী হাসান ও মিজানুর রহমান।

ওই কর্মকর্তা জানান, লেবাননের ভয়াবহ বিস্ফোরণে দুই বাংলাদেশি নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একটি জাহাজের ১৯ সদস্য আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে পাঁচজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিস্ফোরণে আরও বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি নাগরিক আহত হয়েছেন। তাদের বিষয়ে খোঁজ-খবর নিচ্ছে বাংলাদেশ দূতাবাস।

মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় মারাত্মক বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে গোটা বৈরুত। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এ ঘটনায় ১০০ জনের বেশি নিহত এবং ৪ হাজার জন আহত হয়েছেন। আহতদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ফলে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে কর্তৃপক্ষ।

বৈরুতে বিস্ফোরণে নিহত ৭৮, আহত চার হাজার
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : লেবাননের রাজধানী বৈরুতে মঙ্গলবার (স্থানীয় সময়) সন্ধ্যায় জোড়া বিস্ফোরণের ঘটনায় কমপক্ষে ৭৮ জন নিহত এবং প্রায় চার হাজার মানুষ আহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী হামাদ হাসান। আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

একসঙ্গে এত আহত মানুষের সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছে বৈরুতের হাসপাতালগুলো। লেবাননের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদেরকে তার পার্শ্ববর্তী এলাকায় স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে এসব আহত মানুষকে সেবা করার জন্য আহ্বান জানিয়েছে। অনেক হাসপাতাল স্থানের সংকুলান না হওয়ায় আর কোনো রোগী নিতে পারছে না।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা রেডক্রসের লেবানিজ শাখার প্রধান জর্জ স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা ভয়াবহ এই বিপর্যয় প্রত্যক্ষ করছি। বিস্ফোরণস্থলের পাশে কিংবা সেখান থেকে অনেক দূরের রাস্তাগুলোতে যত্রতত্র আহত ও নিহত মানুষ পড়ে আছে।’

দাতব্য সংস্থা রেডক্রসের লেবানিজ শাখা, স্বাস্থকর্মী ও দেশটির রাজনীতিবিদেরা হাসপাতালের আহতদের মানুষকে রক্তদান করার আহ্বান জানিয়েছে। ভয়াবহ এই পরিস্থিতি সামাল দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাহায্য চেয়েছেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ও ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জোড়া বিস্ফোরণে কেঁপে ওঠে গোটা বৈরুত শহর। বিস্ফোরণ অনুভূত হয়েছে দেড়শো কিলোমিটার দূর পর্যন্ত। বহু প্রাণহানির শঙ্কা করা হচ্ছে। শহরজুড়ে ভবনগুলোর জানালা ও বাড়ির ছাউনি ভেঙে পড়ে। বিস্ফোরণটি এত শক্তিশালী ছিল যে মানুষ ভূমিকম্প ভেবে চিৎকার ও ছুটোছুটি শুরু করে।

ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির দৃশ্য দেখা গেছে গণমাধ্যমে প্রকাশিত ভিডিওচিত্রে। সেন্ট্রাল বৈরুতের বাসিন্দারা আকাশে ধোঁয়ার লাল কুণ্ডুলী দেখতে পান। বিস্ফোরণের বিকট শব্দে স্থানীয় ও প্রবাসীসহ সেন্ট্রাল বৈরুতের বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। দুর্ঘটনাবশত বিস্ফোরণটি ঘটে থাকতে পারে বলে জানাচ্ছে সংবাদমাধ্যমগুলো।

লেবাননের প্রেসিডেন্ট মিচেল ওন দেশের সুপ্রিম ডিফেন্স কাউন্সিলের জরুরি বৈঠক ডেকেছেন। প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব বলেছেন, বিস্ফোরণের জন্য যারাই দায়ী হোক, তাদের চরম মাশুল দিতে হবে। রাসায়নির গুদাম থেকে এই বিস্ফোরণের ধারণা করলেও তদন্ত শেষ হওয়ার আগে এই বিষয়ে স্পষ্ট কিছু বলতে চাননি প্রধানমন্ত্রী।

বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৭ লাখ ছুঁই ছুঁই
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : প্রাণঘাতী করোনায় নাকাল গোটা বিশ্বে এখনও পর্যন্ত সফল ও কার্যকরী কোনও প্রতিষেধক আবিষ্কার না হওয়ায় বিশ্বব্যাপী প্রতি মুহূর্তে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা।
ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, আজ মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) সকাল ১০টা পর্যন্ত বৈশ্বিক এই মহামারীতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ছয় লাখ ৯৭ হাজার ১৪৯ জনে। আর বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন এক কোটি ৮৪ লাখ ৩৪ হাজার ৬৪২ জন। তাদের মধ্যে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ কোটি ১৬ লাখ ৭৫ হাজার ৫৩৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে ভারতে, ৮১০ জন। তার পরেই ব্রাজিল, ৫৭২ জন ও যুক্তরাষ্ট্রে, ৫৪৩ জন। আর নতুন আক্রান্তের তালিকাতেও ভারত সবার ওপরে। দেশটিতে একদিনে আক্রান্ত হয়েছেন ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ। ভারতের চেয়ে মাত্র দেড় হাজার কম আক্রান্ত নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

সীমিত পরিসরে শুরু হলো এবারের হজ
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনাভাইরাসের কারণে এবার হজ হচ্ছে সীমিত পরিসরে। হজের মূল কার্যক্রম শুরু হয় গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত থেকে। এবার হজ পালনের সুযোগ পাওয়া ভাগ্যবান এক হাজার হজযাত্রী এরই মধ্যে মক্কা থেকে ইহরাম বেঁধে মিনায় অবস্থান করছেন।

নিয়ম অনুযায়ী, পবিত্র নগরী মক্কা থেকে সাত কিলোমিটার দূরে মিনায় এদিন জোহরের আগেই হজে অংশগ্রহণকারীদের পৌঁছানোর কথা। সেখানে তাঁরা পাঁচ ওয়াক্ত (জোহর, আসর, মাগরিব, এশা এবং হজের দিন ফজর) নামাজ আদায় করবেন।

মহামারি করোনার মধ্য দিয়ে ব্যাপক স্বাস্থ্য সতর্কতা ও নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ১৪৪১ হিজরির পবিত্র হজ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে এক হাজার হজযাত্রী মিনায় পৌঁছেছেন। সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় যথাযথ নিরাপত্তার মাধ্যমে হজে অংশগ্রহণকারীদের পবিত্র নগরী মক্কা থেকে ইতোমধ্যে মিনায় নেওয়া হয়েছে।

মিনায় অবস্থানকারী হজ পালনকারীরা আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকালে আরাফাতের ময়দানে গিয়ে অবস্থান নেবেন। সেখানে তাঁরা সকাল থেকে দিনভর ইবাদত-বন্দেগিতে সময় অতিবাহিত করবেন। সূর্যাস্ত পর্যন্ত আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করবেন তাঁরা।

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে এবার সীমিত পরিসরে অল্পসংখ্যক মুসল্লি হজে অংশগ্রহণ করেছেন। এ বছর হজের জন্য নির্বাচিত হজ পালনকারীদের আগে থেকেই শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করে আলাদা স্থানে রাখা হয়েছে। স্বাস্থ্যকর্মীরা তাঁদের ব্যাগপত্র জীবাণুমুক্ত করার কাজ সম্পন্ন করেছেন।

এর আগে স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তাকর্মীরা পবিত্র নগরী কাবা শরিফের চারদিকে জীবাণুমুক্তকরণ করতে বিশেষভাবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করেছেন।

এবারের হজে অংশগ্রহণকারীদের নিরাপত্তায় এবং কাবা শরিফের পরিচ্ছন্নতায় কোনো হজ পালনকারীকেই কাবা শরিফ স্পর্শ করতে দেওয়া হবে না। যথাযথ দূরত্ব বজায় রেখে তাওয়াফ ও নামাজে অংশগ্রহণ এবং হজের সব কার্যক্রম পালন করতে হবে।

মিনায় পাথর নিক্ষেপসহ সব কাজের সময় মাস্ক ব্যবহার ও দূরত্ব বজায় রাখা বাধ্যতামূলক। মিনায় পাথর নিক্ষেপের নুড়ি হজ কর্তৃপক্ষ বিশেষ ব্যাগের মাধ্যমে সরবরাহ করবে। আগামীকাল ৩০ জুলাই (৯ জিলহজ) বৃহস্পতিবার সকালে সব হজ পালনকারী আরাফাতের ময়দানে উপস্থিত হবেন।

সৌদি সরকারের এমন কঠোর স্বাস্থ্যবিধি ও নিরাপত্তা মেনে হজ ব্যবস্থাপনার জন্য হজে অংশগ্রহণকারীরা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

এবার অনলাইন আবেদনের মাধ্যমে হজে অংশগ্রহণের বিষয়টি বাছাই করা হয়। এ প্রক্রিয়ায় সৌদিতে বসবাসকারী ১৬০ দেশের লোকজন হজ পালনের সুযোগ পেলেন।

সাত মামলায় দোষী সাব্যস্ত নাজিব রাজাক
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে আনা দুর্নীতির সব কয়টি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সাতটি ‘মিলিয়ন ডলার’ দুর্নীতির মামলা রয়েছে। এর আগে তিনি বিশ্বাস ভঙ্গ, মানি লন্ডারিং এবং ক্ষমতার অপব্যবহার সংক্রান্ত ফৌজদারি মামলায় নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছিলেন।

এ মামলাটিকে আইনের শাসন এবং দুর্নীতি-বিরোধী প্রতিশ্রুতি বিষয়ে মালয়েশিয়ার অবস্থানের এক ধরণের পরীক্ষা মনে করা হয়।

ওয়ান মালয়েশিয়ান ডেভেলপমেন্ট বেরহাদ ওয়ান এমডিবি কেলেঙ্কারির মাধ্যমে মূলত বৈশ্বিক জালিয়াতি এবং দুর্নীতিতে দেশটির সম্পৃক্ততার বিষয়টি বেরিয়ে এসেছে। ওয়ানএমডিবি প্রকল্পের ৪২ মিলিয়ন রিঙ্গিত অর্থাৎ ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সমপরিমাণ অর্থ তৎকালীন মালয়েশিয়ান প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়েছিল।

নাজিব রাজাক ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিলেন। বিচারক মোহামেদ নাজলান মোহামেদ ঘাজালি কুয়ালালামপুর হাইকোর্টকে বলেছেন, ‘সব সাক্ষ্যপ্রমাণ বিবেচনা করে দেখা যাচ্ছে প্রসিকিউশন সন্দেহাতীতভাবে তার বিরুদ্ধে সব অভিযোগ প্রমাণ করতে সমর্থ হয়েছে।’

২০১৮ সালে নির্বাচনে নাজিব রাজাকের পরাজয়ের পেছনে দুর্নীতির অভিযোগ একটি বড় কারণ। তবে, তার বিরুদ্ধে আনা দুর্নীতির সব অভিযোগ অস্বীকার করে নাজিব রাজাক দাবি করেছেন, তার তৎকালীন অর্থনৈতিক উপদেষ্টাদের বিশেষ করে পলাতক ধনকুবের ঝো লো`র মাধ্যমে তিনি `মিসলেড` মানে ভুল পথে পরিচালিত হয়েছিলেন।

ঝো লোর বিরুদ্ধে মালয়েশিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্র দুই দেশেই আদালতে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে তার একেকটির জন্য ১৫ থেকে ২০ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে। রায়ের আগে তিনি বলেছিলেন, দোষী প্রমাণিত হলে তিনি রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

মালয়েশিয়ার অর্থনৈতিক উন্নতির জন্য তহবিল সংগ্রহের জন্য ২০০৯ সালে ওয়ানএমডিবি প্রকল্প নেয়া হয়। কিন্তু ২০১৫ সালে প্রথম ব্যাংক এবং বন্ড-মালিকদের মাসিক কিস্তি প্রদানে ব্যর্থ হবার পর এর কর্মকাণ্ড নিয়ে প্রথম প্রশ্ন ওঠে।

পরে এ প্রকল্প নিয়ে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। যে তহবিল তসরুপ হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে তা দিয়ে বিলাসবহুল বাড়ি, প্রাইভেট জেট, ভ্যান গগ ও মনেটের চিত্রকর্ম, এমনকি হলিউডে ব্লকবাস্টার চলচ্চিত্র নির্মাণেও ব্যয় করা হয়েছে।

টেকনাফে দুই গ্রুপের ‘গোলাগুলিতে’ নিহত ৪
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : কক্সবাজারের টেকনাফে মাদক কারবারি দুই গ্রুপের ‘গোলাগুলিতে’ চার যুবক নিহত হয়েছে। নিহতরা হলেন- মো. ইসমাইল, আনোয়ার হোসেন, মো. নাছির ও আনোয়ার। আজ মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) ভোরে টেকনাফের খারাংখালী সাতঘরিয়া পাড়া এলাকায় এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

নিহত মো. ইসমাইল হোয়াইক্যং ইউনিয়নের সাতঘরিয়া এলাকার মৃত নুর মোহাম্মদের ছেলে, আনোয়ার হোসেন হোয়াইক্যং আমতলী এলাকার আব্দুল মালেক ছেলে, মো. নাছির খারাংখালী এলাকার আব্দু সালামের ছেলে ও আনোয়ার পূর্ব মহেশখালীয়া পাড়া এলাকার মৃত হাকিম মিয়ার ছেলে।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, টেকনাফের হোয়াইক্যং খারাংখালীর সাতঘরিয়া পাড়া এলাকায় ইয়াবার লেনদেন নিয়ে দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। সেখানে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে মাদক কারবারিরা। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলিবর্ষণ করে। এক পর্যায়ে মাদক কারবারিরা পিছু হটলে ঘটনাস্থলে চারজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে মৃত ঘোষণা করে।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৫০ হাজার পিস ইয়াবা, দুইটি দেশীয় তৈরি অস্ত্র ও আট রাউন্ড গুলি জব্দ করে। নিহতদের মধ্যে বাংলাদেশি ও রোহিঙ্গা রয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহগুলো কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি।

এদিকে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, পুলিশ গুলিবিদ্ধ চারজনকে হাসপাতালে নিয়ে এলে তাদের মৃত ঘোষণা করা হয়।

`ভ্রমণে সীমাবদ্ধতা দীর্ঘস্থায়ী সমাধান নয়`
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনার বিস্তার ঠেকাতে বিশ্বজুড়ে জারি ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা অনির্দিষ্টকালের জন্য চলতে পারে না। দীর্ঘস্থায়ী কৌশল হিসেবে এটি উপযুক্তও নয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে হলে নিজ সীমান্তের মধ্যেই ভাইরাসটির বিস্তারের লাগাম টানতে হবে দেশগুলোকে। এসব কথাই বলেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণের গতি বাড়তে থাকায় আরও অনেক দেশ ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে সাম্প্রতিক দিনগুলোতে। তবে অনির্দিষ্টকাল ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি না করে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে দেশগুলোকে ভাইরাসটির বিস্তার ঠেকানোর কৌশল গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছে জাতিসংঘের এই অঙ্গ সংস্থাটি।

জেনেভায় এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান টেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস বলেছেন, মাস্ক পরা, জনসমাগম এড়িয়ে চলা থেকে শুরু করে কঠোর স্বাস্থ্যবিধিগুলো মানার মাধ্যমেই কোভিড-১৯ মহামারিকে হারানোর পথ পেতে পারে বিশ্ব। কিন্তু অনির্দিষ্টকাল ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করা কোনো সমাধান নয়।

ডব্লিউএইচও মহাপরিচালক বলেন, ‘যেখানে এসব স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে সেখানে সংক্রমণ নিম্নমুখী, যেখানে মানা হচ্ছে না সেখানে ঊর্ধ্বমূখী। এটিকে (করোনা) নিয়ে সামনে এখনও দীর্ঘ কঠিন পথ পাড়ি দিতে হবে।’ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলায় কানাডা, চীন, জার্মানি এবং দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দেশগুলোর প্রশংসা করেন তিনি।

সংস্থাটির জরুরি কর্মসূচির প্রধান মাইক রায়ান বলেছেন, ‘ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাগুলো টেকসই ছিল না। অজানা এক সময় পর্যন্ত যে কোনো দেশের পক্ষে নিজের সীমান্ত বন্ধ করে রাখা সম্ভব নয়। অর্থনীতি পুনরায় সচল করতে হবে। কাজে ফিরতে হবে মানুষকে। আর আন্তর্জাতিক বাণিজ্যকেও আবার সচল করতে হবে।’

তবে শঙ্কার কথাও জানিয়েছে সংস্থাটি। মহাপরিচালক টেদ্রোস বলেন, ‘পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপ হচ্ছে। গত ছয় সপ্তাহে বিশ্বব্যাপী মোট আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এ পর্যন্ত জনস্বাস্থ্যে যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে তার মধ্যে কোভিড-১৯ ‘সবচেয়ে গুরুতর’ উল্লেখ করেছেন তিনি।

বিশ্বের বেশির ভাগ স্থানেই করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে নেই এবং পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি জানান, বিশ্বে অনেক স্থানেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার নজির আছে, এমনকি করোনার প্রকোপ বেশি থাকা অনেক জায়গাতেও এখনও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব।


   Page 1 of 342
     আন্তর্জাতিক
হোয়াইট হাউসের বাইরে গুলি, সরিয়ে নেয়া হলো ট্রাম্পকে
.............................................................................................
কেরালায় ভূমিধসে নিহত বেড়ে ৪৩
.............................................................................................
বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দুই কোটি ছাড়ালো
.............................................................................................
ভারতে আবারো করোনা হাসপাতালে আগুন, নিহত ৭
.............................................................................................
রাশিয়া ও চীন আমার পুনর্নির্বাচনের বিরুদ্ধে : ট্রাম্প
.............................................................................................
ভারতে বিমান দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০
.............................................................................................
রুশ ব্যবসায়ীর ফেলে যাওয়া রাসায়নিক থেকে বৈরুত বিস্ফোরণ!
.............................................................................................
শোকে কাঁদছে লেবানন, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০০
.............................................................................................
আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পথে জম্মু ও কাশ্মীর
.............................................................................................
বৈরুতে দুই বাংলাদেশি নিহত, নৌবাহিনীর ১৯ সদস্য আহত
.............................................................................................
বৈরুতে বিস্ফোরণে নিহত ৭৮, আহত চার হাজার
.............................................................................................
বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ৭ লাখ ছুঁই ছুঁই
.............................................................................................
সীমিত পরিসরে শুরু হলো এবারের হজ
.............................................................................................
সাত মামলায় দোষী সাব্যস্ত নাজিব রাজাক
.............................................................................................
টেকনাফে দুই গ্রুপের ‘গোলাগুলিতে’ নিহত ৪
.............................................................................................
`ভ্রমণে সীমাবদ্ধতা দীর্ঘস্থায়ী সমাধান নয়`
.............................................................................................
ভারতে একদিনে রেকর্ড ৫০ হাজার মানুষের করোনা শনাক্ত
.............................................................................................
শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘হানা’ আঘাত হেনেছে আমেরিকায়
.............................................................................................
মালয়েশিয়ায় গ্রেফতার রায়হান কবির ১৪ দিনের রিমান্ডে
.............................................................................................
হায়া সোফিয়ায় ৮৬ বছর পর প্রথম জুমা, মুসল্লির ঢল
.............................................................................................
করোনাভাইরাস: মৃত্যু ৬ লাখ, আক্রান্ত ১ কোটি ৫৪ লাখের বেশি
.............................................................................................
বিশ্বে দেড় কোটি ছাড়াল করোনায় আক্রান্ত
.............................................................................................
একাই তালেবান জঙ্গিদের রুখে দিলো আফগান কিশোরী
.............................................................................................
সৌদিতে ৩১ জুলাই ঈদুল আজহা
.............................................................................................
সালেহকে খুন করে পার্টির প্রস্তুতি নিচ্ছিল টাইরিস
.............................................................................................
ছয় লাখ প্রাণ কেড়েও থামছে না করোনা
.............................................................................................
টাকার জন্য খুন সালেহ, ব্যক্তিগত সহকারী গ্রেফতার
.............................................................................................
বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৬ লাখ ছাড়িয়েছে
.............................................................................................
বাংলাদেশে করোনার জাল সনদের রমরমা ব্যবসা: নিউ ইয়র্ক টাইমস
.............................................................................................
পাঠাও-এর সহপ্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহ খুন
.............................................................................................
আয়া সোফিয়া মসজিদকে রাশিয়ার সমর্থন
.............................................................................................
করোনা ভ্যাকসিনের হিউম্যান ট্রায়ালে সাফল্য ঘোষণা রাশিয়ার
.............................................................................................
অবশেষে মাস্ক পরলেন ট্রাম্প
.............................................................................................
সাগরপথে ৩৬২ বাংলাদেশি
.............................................................................................
করোনা: বিশ্বে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড
.............................................................................................
ইতালিতে-বাংলাদেশের ফ্লাইট ৫ অক্টোবর পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা
.............................................................................................
৯ বছরে সর্বোচ্চ সোনার দাম!
.............................................................................................
বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ১ কোটি ২০ লাখ
.............................................................................................
১২৫ বাংলাদেশিকে বিমান থেকে নামতে দিয়নি ইতালি
.............................................................................................
ডব্লিউএইচওতে থাকছে না যুক্তরাষ্ট্র
.............................................................................................
উত্তর মেসিডোনিয়ায় ট্রাক থেকে ১৪৪ বাংলাদেশি উদ্ধার
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্র ছাড়তে হবে বিদেশি শিক্ষার্থীদের !
.............................................................................................
জাতিসংঘের ঘোষণা লঙ্ঘন করেছে আমেরিকা: জাতিসংঘ
.............................................................................................
রাশিয়াকে টপকে তৃতীয় অবস্থানে ভারত
.............................................................................................
যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত ভারত
.............................................................................................
‘দীর্ঘমেয়াদী প্রতিরোধ গড়তে সক্ষম হবে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন’
.............................................................................................
বিশ্বে করোনা শনাক্ত ১ কোটি ১০ লাখ ছাড়ালো
.............................................................................................
পাকিস্তানে ট্রেন-বাস সংঘর্ষে নিহত ১৯
.............................................................................................
মিয়ানমারে খনি ধসে ৫০ জন নিহত
.............................................................................................
উত্তেজনায় ভারত-চীন সীমান্তে অচলাবস্থা
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD