ঢাকা,শনিবার,৯ মাঘ ১৪২৭,২৩,জানুয়ারী,২০২১ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > ১১ হাজার মেট্রিক টন খাদ্রশস্য মজুদ রয়েছে সংসদে জানালেন খাদ্যমন্ত্রী   > কুড়িগ্রামে কম্বল বিতরণ   > থামছেই না টাঙ্গুয়ায় পাখি শিকার   > মুজিববর্ষে ঘর পাচ্ছে নওগাঁর ১১০ পরিবার   > লক্ষ্মীপুরে উৎপাদিত ৬০ পণ্য বিশ্ববাজারে   > ‘নির্ধারিত সময়েই হবে অলিম্পিক’   > অপেক্ষায় ঐশী   > জাতীয় সংসদে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবি   > ৪২ হাজার রোহিঙ্গা শনাক্ত মিয়ানমারের এপ্রিলে প্রত্যাবাসনের আশা   > রাজউকে প্রভাবশালি শফিউল্লাহ বাবু নকল, জাল-জালিয়াতির প্রধান কারিগর  

   আন্তর্জাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ভারতে টিকা নেয়ার পর সাড়ে চার’শ মানুষের শরীরে বিরূপ প্রতিক্রিয়া, একজনের মৃত্যু

এনডিটিভি/আল জাজিরা : ভারতে করোনাভাইরাসের টিকা নেয়ার পর ৪৪৭ জনের নানা ধরণের বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে বলে প্রাথমিক তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। সব প্রতিক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে জ্বর, মাথাব্যথা, এবং বমিভাব। এসব উপসর্গকে টিকাদানের বিরূপ প্রতিক্রিয়া যেটাকে অ্যাডভার্স ইভেন্ট ফলোইং ইমিউনাজেশন (এইএফআই) বলে বর্ণনা করা হচ্ছে। যার সাথে সরাসরি টিকা বা টিকাদান প্রক্রিয়ার সরাসরি সম্পর্ক নাও থাকতে পারে। দেশটিতে শনিবার করোনার টিকাদান কর্মসূচী শুরু হয়। সারা দেশের তিন হাজার ছয়টি কেন্দ্রে একই সঙ্গে টিকাদান কর্মসূচীর সূচনা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উত্তরপ্রদেশের একটি সরকারি হাসপাতালের একজন কর্মী টিকা নেয়ার ২৪ ঘণ্টা পর মারা গেছেন। তার বয়স ৪৬ বছর। জেলার প্রধান মেডিকেল অফিসার বলেছেন টিকা নেয়ার সাথে এই মৃত্যুর কোন সম্পর্ক নেই। উত্তর প্রদেশের সরকার বলছে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে মৃত্যুর কারণ হার্ট এবং ফুসফুসের রোগজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে বলা হচ্ছে। এদিকে কোলকাতায় ৩৫ বছর বয়সী একজন নার্স কোভিড ১৯ এর টিকা নেয়ার পর অসুস্থ হয়ে পড়েন। তবে তার শারীরিক অবস্থা এখন স্থিতিশীল আছে। তিনি টিকা নেয়ার পর অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিলেন। স্বাস্থ্য-মন্ত্রণালয়ের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেছেন ঐ নার্স কেন অজ্ঞান হয়ে পড়েছিলেন সেটা খতিয়ে দেখতে একটা মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। দেশটিতে প্রথম দফায় চিকিৎসক, নার্স, অ্যাম্বুলেন্স চালক, স্বাস্থ্য কর্মী, সাফাই-কর্মীরা টিকা পাবেন। এর পরে পুলিশ, সামরিক বাহিনীর সদস্যরা এবং অন্যান্য করোনা যোদ্ধাদের টিকা দেওয়া হবে। প্রথম দফায় টিকা পাবেন প্রায় তিন কোটি মানুষ। দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস এর একজন নিরাপত্তা কর্মী টিকা নেয়ার পর তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে ( আইসিইউ) ভর্তি করা হয়েছে। টিকা নেয়ার পর এই ব্যক্তির অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া হয়। ২২ বছর বয়সী এই নিরাপত্তা কর্মী টিকাদানের প্রথম দিনে টিকা নেন। যে সাড়ে চারশো লোকের মধ্যে টিকা নেওয়ার পর নানা ধরনের অসুস্থতার উপসর্গ দেখা গেছে, তাদের মধ্যে কারা কারা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকার উদ্ভাবিত `কোভিশিল্ড` আর কারা ভারত বায়োটেকের তৈরি `কোভ্যাক্সিন` নিয়েছেন, সেই পরিসংখ্যান অবশ্য সরকার প্রকাশ করেনি।

ভারতে টিকা নেয়ার পর সাড়ে চার’শ মানুষের শরীরে বিরূপ প্রতিক্রিয়া, একজনের মৃত্যু
                                  

এনডিটিভি/আল জাজিরা : ভারতে করোনাভাইরাসের টিকা নেয়ার পর ৪৪৭ জনের নানা ধরণের বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে বলে প্রাথমিক তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। সব প্রতিক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে জ্বর, মাথাব্যথা, এবং বমিভাব। এসব উপসর্গকে টিকাদানের বিরূপ প্রতিক্রিয়া যেটাকে অ্যাডভার্স ইভেন্ট ফলোইং ইমিউনাজেশন (এইএফআই) বলে বর্ণনা করা হচ্ছে। যার সাথে সরাসরি টিকা বা টিকাদান প্রক্রিয়ার সরাসরি সম্পর্ক নাও থাকতে পারে। দেশটিতে শনিবার করোনার টিকাদান কর্মসূচী শুরু হয়। সারা দেশের তিন হাজার ছয়টি কেন্দ্রে একই সঙ্গে টিকাদান কর্মসূচীর সূচনা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উত্তরপ্রদেশের একটি সরকারি হাসপাতালের একজন কর্মী টিকা নেয়ার ২৪ ঘণ্টা পর মারা গেছেন। তার বয়স ৪৬ বছর। জেলার প্রধান মেডিকেল অফিসার বলেছেন টিকা নেয়ার সাথে এই মৃত্যুর কোন সম্পর্ক নেই। উত্তর প্রদেশের সরকার বলছে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে মৃত্যুর কারণ হার্ট এবং ফুসফুসের রোগজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে বলা হচ্ছে। এদিকে কোলকাতায় ৩৫ বছর বয়সী একজন নার্স কোভিড ১৯ এর টিকা নেয়ার পর অসুস্থ হয়ে পড়েন। তবে তার শারীরিক অবস্থা এখন স্থিতিশীল আছে। তিনি টিকা নেয়ার পর অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিলেন। স্বাস্থ্য-মন্ত্রণালয়ের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেছেন ঐ নার্স কেন অজ্ঞান হয়ে পড়েছিলেন সেটা খতিয়ে দেখতে একটা মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে। দেশটিতে প্রথম দফায় চিকিৎসক, নার্স, অ্যাম্বুলেন্স চালক, স্বাস্থ্য কর্মী, সাফাই-কর্মীরা টিকা পাবেন। এর পরে পুলিশ, সামরিক বাহিনীর সদস্যরা এবং অন্যান্য করোনা যোদ্ধাদের টিকা দেওয়া হবে। প্রথম দফায় টিকা পাবেন প্রায় তিন কোটি মানুষ। দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস এর একজন নিরাপত্তা কর্মী টিকা নেয়ার পর তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে ( আইসিইউ) ভর্তি করা হয়েছে। টিকা নেয়ার পর এই ব্যক্তির অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া হয়। ২২ বছর বয়সী এই নিরাপত্তা কর্মী টিকাদানের প্রথম দিনে টিকা নেন। যে সাড়ে চারশো লোকের মধ্যে টিকা নেওয়ার পর নানা ধরনের অসুস্থতার উপসর্গ দেখা গেছে, তাদের মধ্যে কারা কারা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রোজেনেকার উদ্ভাবিত `কোভিশিল্ড` আর কারা ভারত বায়োটেকের তৈরি `কোভ্যাক্সিন` নিয়েছেন, সেই পরিসংখ্যান অবশ্য সরকার প্রকাশ করেনি।

সাগরে বিধ্বস্ত ইন্দোনেশিয়ান উড়োজাহাজের কেউ বেঁচে নেই
                                  

আল জাজিরা/বিবিসি : ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তা থেকে শনিবার যাত্রা শুরু করার কিছুক্ষণ পরেই বোয়িং ৭৩৭ যাত্রীবাহী বিমানটি সমুদ্রে বিধ্বস্ত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ বলছে এরই মধ্যে তারা ঘটনাস্থলের সন্ধান পেয়েছে। তবে ফ্লাইটের কেউ বেঁচে নেই। পশ্চিম কালিমান্তান প্রদেশের পন্টিয়ানাকের উদ্দেশে যাত্রা শুরুর চার মিনিটের মাথায় রেডার থেকে অদৃশ্য হয়ে যায় বিমানটি। এ সময় শ্রিভিজায়া এয়ারের ওই বিমানটিতে ৬২ জন আরোহী ছিল। গতকাল রোববার কিছু সংকেত পাওয়া যায়। এসব সংকেত বিমানটির ফ্লাইট রেকর্ডার থেকে আসছে মনে করা হচ্ছে। নৌবাহিনীর ডুবুরি সমেত দশটির মতো জাহাজ এখন দুর্ঘটনাস্থলে মোতায়েন করা হয়েছে। ‘আমরা দুটি পয়েন্ট থেকে সংকেত পেয়েছি। সেটা ব্ল্যাক বক্সের হতে পারে।’ দেশটির জাতীয় অনুসন্ধান ও উদ্ধারকারী সংস্থার প্রধান এয়ার মার্শাল বাগুস পুরুহিতো এ কথা বলেন। এরইমধ্যে কিছু সম্ভাব্য ধ্বংসাবশেষ উদ্ধার করা হয়েছে, যেগুলো বিশ্লেষণ করে দেখা হচ্ছে। ধ্বংসাবশেষগুলো বিমানের অংশবিশেষ বলে ধারণা করা হচ্ছে। এরমধ্যে একটি চাকা আছে, যেটা বিমানের ফিউসিলেজ অংশের হতে পারে। জাকার্তা পুলিশের মুখপাত্র ইউস্রি ইউনুস জানিয়েছেন, অনুসন্ধান ও উদ্ধারকারী সংস্থার কাছ থেকে দুটি ব্যাগ পাওয়া গেছে। প্রথম ব্যাগে যাত্রীদের জিনিসপত্র ছিল, অন্য একটি ব্যাগে দেহাবশেষ ছিল, তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, আমরা এসব থেকে কিছু সনাক্ত করার চেষ্টা করছি। রাতের বেলায় অনুসন্ধান এবং উদ্ধার প্রচেষ্টা স্থগিত করা হলেও রোববার খুব সকাল সকালে আবার উদ্ধার তৎপরতা শুরু হয়। বিমানটি ৭৩৭ ম্যাক্স মডেলের ছিল না। বোয়িংয়ের ওই মডেলের দুটি বিমান পরপর বিধ্বস্তের ঘটনায় ২০১৯ সালের মার্চ থেকে গত ডিসেম্বর পর্যন্ত বিমানগুলোর উড্ডয়ন বন্ধ রাখা হয়। শ্রিভিজায়া এয়ার-এর যাত্রীবাহী বিমানটি শনিবার স্থানীয় সময় ২টা ৩৬ মিনিটে জাকার্তা বিমানবন্দর থেকে ছেড়ে যায়। কয়েক মিনিট পরে, ২টা ৪০ মিনিটে বিমানটির সাথে শেষ যোগাযোগের বার্তা রেকর্ড করা হয়েছিল। দেশটির পরিবহন মন্ত্রণালয় বলছে, সবশেষ বার্তা অনুযায়ী বিমানটির কল সাইন ছিল এসজেওয়াই ১৮২। জাকার্তা থেকে বোর্নিও দ্বীপের পশ্চিমে পন্টিয়ানায় যেতে স্বাভাবিক ফ্লাইটের সময় লাগে ৯০ মিনিটের মতো। ফ্লাইট ট্র্যাকিং ওয়েবসাইট ফ্লাইটরেডার টোয়েন্টিফোর ডটকমের তথ্য অনুসারে, বিমানটি এক মিনিটেরও কম সময়ে ১০ হাজার ফুট উচ্চতা থেকে নেমে এসেছিলো বলে মনে করা হচ্ছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন যে, অন্তত একটি বিষ্ফোরণ হয়েছে।
সোলিহিন নামে একজন মৎস্যজীবী বিবিসি ইন্দোনেশিয়াকে জানিয়েছেন যে, তিনি বিমান দুর্ঘটনাটি খুব কাছ থেকে দেখেছেন এবং তার নৌকার ক্যাপ্টেন উপকূলে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। বিমানটি বজ্রপাতের মতো সমুদ্রে পড়ে এবং পানিতে বিস্ফোরিত হয়, তিনি বলেন। বিমানটি আমাদের খুব কাছাকাছি বিধ্বস্ত হয়েছিল। সে সময় এক টুকরো পাতলা কাঠের টুকরো আমাদের নৌকাটিকে প্রায় আঘাত করতে বসেছিল। বিমানটি যেখানে নিখোঁজ হয়েছে তার কাছাকাছি অবস্থিত একটি দ্বীপের বেশিরভাগ বাসিন্দা বিবিসিকে জানিয়েছে যে, তারা এমন কিছু জিনিসপত্র পেয়েছে, যেটি ওই বিমানের হতে পারে বলে তাদের ধারণা। ইন্দোনেশিয়ার পন্টিয়ানাক বিমানবন্দরে শ্রিভিজায়া বিমানের আরোহীদের স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। ইন্দোনেশিয়ার পন্টিয়ানাক বিমানবন্দরে শ্রিভিজায়া বিমানের আরোহীদের স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। বিমানটির ধারণ ক্ষমতা ১৩০ আরোহীর হলেও যাত্রীবাহী বিমানটিতে ১২ জন ক্রু এবং ৫০ জন যাত্রী ছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। যাত্রীদের মধ্যে সাতটি শিশু ও তিনটি নবজাতকও ছিল। বিমানে থাকা প্রত্যেকেই ছিলেন ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক। দেশটির কর্তৃপক্ষ এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে। ফ্লাইটটিতে থাকা আরোহীদের আত্মীয়-স্বজনরা পন্টিয়ানাক বিমানবন্দর, সেইসঙ্গে জাকার্তার সোয়েকার্নো-হাট্টা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উদগ্রীব হয়ে অপেক্ষা করছেন। ইয়ামান জাই কান্নার স্বরে সাংবাদিকদের বলেন,‘ফ্লাইটে আমার পরিবারের চার সদস্য ছিলেন - আমার স্ত্রী এবং আমার তিন সন্তান। আমার স্ত্রী আজ বাচ্চার একটি ছবি আমাকে পাঠিয়েছে। ... আমার বুকটা ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে যাচ্ছে।’

যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার হুমকিতে ভারত
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : রাশিয়ার কাছ থেকে অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র এস-৪০০ কেনার প্রক্রিয়ায় আছে ভারত। এনিয়ে ভারত রাশিয়ার সঙ্গে কয়েক বিলিয়ন ডলারের চুক্তি করেছে। তবে সম্প্রতি এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, রাশিয়ার কাছে এই ক্ষেপণাস্ত্র কেনার জন্য মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় পড়তে পারে ভারত। মার্কিন কংগ্রেসের গবেষণা মূলক শাখা কংগ্রেসনাল রিসার্চ সার্ভিস (সিআরএস) এর সর্বশেষ রিপোর্টে জানিয়েছে, ভারত আরো প্রযুক্তি শেয়ার এবং সহ-উৎপাদন উদ্যোগের ব্যাপারে আগ্রহী। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্র ভারতকে তার প্রতিরক্ষা নীতিতে সংস্কারের আহ্বান জানিয়েছে। তাই ভারতের এই ক্ষেপণাস্ত্র এস-৪০০কেনা মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আইনের আওতায় দেশটি যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞায় পড়তে পারে। তবে সিআরএস`র প্রতিবেদন মার্কিন সরকারি কোন প্রতিবেদন নয়। এই প্রতিবেদনগুলোর নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞদের দ্বারা তৈরি হয়। মার্কিন নিষেধাজ্ঞা আসতে পারে এমন সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও ২০১৮ সালের অক্টোবরে ক্ষেপণাস্ত্র এস-৪০০ কেনার জন্য রাশিয়ার সঙ্গে পাঁচ বিলিয়ন ডলারের চুক্তি করে ভারত। এরমধ্যে ২০১৯ সালে চুক্তির জন্য প্রথম ধাপে ভারত প্রায় ৮০০ মিলিয়ন ডলার পরিশোধ করে। গত মাসে রাশিয়া জানায়, ভারতের সঙ্গে তাদের প্রতিরক্ষা চুক্তি চলমান। যার মধ্যে ক্ষেপণাস্ত্র এস-৪০০ ও আছে।

করোনা পরীক্ষার লাইনে দাঁড়িয়ে জিম্বাবুয়েতে ১৫ জনের মৃত্যু
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে কিনা পরীক্ষা করাতে আসছেন বহু মানুষ। এর মধ্যে পরীক্ষা নিয়ে কড়াকড়ির কারণে অপেক্ষমানদের দীর্ঘ লাইন ছিল। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকা-জিম্বাবুয়ে সীমান্তে মানুষের ভোগান্তি মাত্রাহীন। আর এ পরীক্ষা করাতে এসেই গত সপ্তাহে মৃত্যু হয়েছে ১৫ জনের। জানা গেছে, ক্রিসমাসের ছুটিতে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবেশে ইচ্ছুকদের করোনা পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল। তবে বিপুল সংখ্যক মানুষের নমুনা পরীক্ষায় লেগে যাচ্ছে ব্যাপক সময়। এ কারণে সীমান্ত এলাকায় মানুষের ভিড়। গাড়ি ও ট্রাকের সারি দেখা গেছে কয়েক কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত। এ পরিস্থিতিতে সীমান্ত এলাকায় অসুস্থ হয়ে পড়ছেন অনেকেই। তবে পর্যাপ্ত চিকিৎসা ব্যবস্থা নেই সীমান্তে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সীমান্ত পার হওয়ার অপেক্ষায় থাকায় মানুষ ও যানজটের দীর্ঘলাইন তুলনামূলক খাবার, পানি ও চিকিৎসার অভাবেই অসুস্থ হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। দক্ষিণ আফ্রিকার স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক স্যান্ডিল বুথেলিজি স্থানীয় গণমাধ্যমে জানিয়েছেন, সিমান্তে জট কমিয়ে আনতে করোনাভাইরাস পরীক্ষা শিথিল করা হবে। ৩০ দিনের মধ্যে যাদের নেগেটিভ রিপোর্ট আছে তারা কোভিড-১৯ পরীক্ষা ছাড়া দেশ থেকে বেরিয়ে যেতে পারবে কিন্তু পরীক্ষা করা হবে না।

মিথ্যা বলে গ্যাঁড়াকলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী আবে
                                  

আন্তর্জতিক ডেস্ক : গত বছরের নভেম্বর থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে সংসদে ১১৮ বার মিথ্যা বক্তব্য দিয়েছেন। সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এই মিথ্যা বক্তব্য দেন। এতে গ্যাঁড়াকলে পড়েছেন তিনি। দ্বিকক্ষবিশিষ্ট জাপানি সংসদের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের গবেষণা ব্যুরো জানিয়েছে, সংসদের উভয় কক্ষের পূর্ণাঙ্গ অধিবেশন ও বাজেট প্যানেলের বৈঠকে রাখা প্রশ্নের যেসব উত্তর আবে দিয়েছেন, তা গুরুত্বসহকারে পরীক্ষা করে এই তথ্য পাওয়া গেছে। জাপানের সবচেয়ে বড় বিরোধী দল সাংবিধানিক গণতান্ত্রিক পার্টির আবেদনের ভিত্তিতে আবের বক্তব্য পরীক্ষা করে দেখা হয়। গত বসন্তে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে টোকিওর একটি পার্কে আয়োজিত সমাবেশ অনুষ্ঠানে বিশিষ্টজনদের পাশাপাশি তারকা ও রাজনীতি জগতের প্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। দায়িত্ব পালনের শেষের কয়েক বছর আবে এ রকম সমাবেশ আয়োজন করেন। অনুষ্ঠানে আসা নিজের নির্বাচনী এলাকা পশ্চিম জাপানের ইয়ামাগুচি জেলার ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের টোকিওতে অবস্থানকালীন থাকা, খাওয়া ও পানাহারের ব্যবস্থা করতে খরচ হওয়া অর্থের সঠিক হিসাব আবে দেননি বলে প্রশ্ন ওঠে। এই বিষয়ে সংসদে সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য আবেকে আমন্ত্রণ জানানোর প্রস্তাব বিরোধীরা রাখলেও তা কণ্ঠভোটে বারবার নাকচ হয়ে যায়। তবে মিথ্যা বলার নতুন অভিযোগের বিষয়ে টোকিওর কৌঁসুলিরা গত সোমবার আবের বক্তব্য শুনেছেন। আবে অবশ্য নিজে কোনো রকম দায় নিতে রাজি হননি, বরং নিজের কার্যালয়ের দাখিল করা ভুল প্রতিবেদনকে এ জন্য দায়ী করেছেন।চার বছরের কিছু বেশি সময় ধরে ওই রকম সমাবেশ অনুষ্ঠানে মোট খরচ হয়েছিল ২ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলারের মতো। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে, রাজনৈতিক তহবিল–সংক্রান্ত প্রতিবেদনে এই খরচের কথা উল্লেখ না করা। এটাকে অবৈধ পথে খরচ হওয়া অর্থ হিসেবে দেখা হচ্ছে এখন। জাপানে এ–সংক্রান্ত নিয়মকানুন বেশ কঠোর এবং এর লঙ্ঘন রাজনীতিবিদদের ভবিষ্যৎ অন্ধকারাচ্ছন্ন করে দিতে পারে। এ কারণেই আবেকে এখন যথেষ্ট বিড়ম্বনার মধ্যে পড়তে হচ্ছে। সাবেক প্রধানমন্ত্রী আবে হয়তো দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় ভেবেছেন, অর্থের পরিমাণ সামান্য, তাই তিনি সহজেই বিষয়টি এড়িয়ে যেতে পারবেন। আর সে কারণেই সম্ভবত সংসদীয় প্রশ্নোত্তর পর্বে তাঁর মিথ্যার আশ্রয় নেওয়া। তবে দেরিতে হলেও নিজের সেই ভ্রান্ত ধারণার ফাঁদে তিনি কিছুটা হলেও আটকা পড়ে গেছেন। তাঁর জন্য সবচেয়ে বড় ক্ষতিটা হলো মিথ্যা বক্তব্য দেওয়ার মধ্য দিয়ে নিজের রাজনৈতিক জীবনের ভবিষ্যতকে তিনি এখন প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছেন। জাপানের সংবাদমাধ্যমে আবের এই মিথ্যা বক্তব্যের খবর ব্যাপকভাবে প্রচারিত হওয়ায় কিছুটা হলেও নড়বড়ে অবস্থায় তাঁর রাজনৈতিক অবস্থান।

বিশ্বে এক বছরে ১৭ লাখ মানুষের প্রাণ নিল করোনা
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিশ্বে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৭ কোটি ৮৩ লাখ ছাড়িয়েছে। মৃত মানুষের সংখ্যা ১৭ লাখের বেশি। মহামারির শুরু থেকে বিশ্বের সব দেশ ও অঞ্চলের করোনা সংক্রমণের হালনাগাদ তথ্য সংরক্ষণ করছে ওয়ার্ল্ডোমিটারস নামের একটি ওয়েবসাইট। তাদের সর্বশেষ তথ্য বলছে, আজ বুধবার বাংলাদেশ সময় সকাল নয়টা নাগাদ বিশ্বে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৭ কোটি ৮৩ লাখ ৬০ হাজার ৭৬৮। একই সময় নাগাদ বিশ্বে করোনায় মোট মারা গেছেন ১৭ লাখ ২৩ হাজার ৭৭১ জন। ওয়ার্ল্ডোমিটারসের সর্বশেষ তথ্য বলছে, এখন পর্যন্ত বিশ্বে করোনা থেকে সেরে ওঠা মানুষের সংখ্যা ৫ কোটি ৫১ লাখ ২১ হাজার ৯৮২। বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৮৬ লাখ ৮৪ হাজার ৬২৮। দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ৩ লাখ ৩০ হাজার ৮২৪ জন। ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় ভারতের অবস্থান দ্বিতীয়। ভারতে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৯৯ হাজার ৩০৮। দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ১ লাখ ৪৬ হাজার ৪৭৬ জন।
ব্রাজিল আছে তৃতীয় অবস্থানে। ব্রাজিলে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৭৩ লাখ ২০ হাজার ২০। দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ১ লাখ ৮৮ হাজার ২৮৫ জন। তালিকায় রাশিয়ার অবস্থান চতুর্থ। ফ্রান্স পঞ্চম। যুক্তরাজ্য ষষ্ঠ। তুরস্ক সপ্তম। ইতালি অষ্টম। স্পেন নবম। জার্মানি দশম। তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ২৭তম। চীনে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যু হয় চলতি বছরের ৯ জানুয়ারি। তবে তার ঘোষণা আসে ১১ জানুয়ারি। চীনে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যু হয় চলতি বছরের ৯ জানুয়ারি। তবে তার ঘোষণা আসে ১১ জানুয়ারি। চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি চীনের বাইরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় থাইল্যান্ডে। পরে বিভিন্ন দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়ে। করোনার প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে ৩০ জানুয়ারি বৈশ্বিক স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। গত ২ ফেব্রুয়ারি চীনের বাইরে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটে ফিলিপাইনে। ১১ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনাভাইরাস থেকে সৃষ্ট রোগের নামকরণ করে ‘কোভিড-১৯’। গত ১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গতকাল মঙ্গলবারের তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন পর্যন্ত মোট ৫ লাখ ৩ হাজার ৫০১ জনের দেহে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। মোট ৭ হাজার ৩২৯ জনের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আর সুস্থ হয়েছেন ৪ লাখ ৪১ হাজার ৯২৯ জন। বাংলাদেশে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্তের ঘোষণা দেওয়া হয় গত ৮ মার্চ। প্রথম মৃত্যুর তথ্য জানানো হয় ১৮ মার্চ। মে মাসের শেষ দিক থেকে দেশে করোনার সংক্রমণ তীব্র আকার ধারণ করে।

বিশ্বের শীর্ষ ক্ষমতাধর নারীর তালিকায় মেরকেল, শেখ হাসিনা, কমলা হ্যারিস
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : ফোর্বস ম্যাগাজিনে বিশ্বের ক্ষমতাধর নারীদের যে তালিকা করা হয়েছে তাকে শীর্ষে রয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন। আর যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিস, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ-বাণিজ্যবিষয়ক এই সাময়িকী ২০২০ সালের ক্ষমতাধর নারীদের যে তালিকা প্রকাশ করেছে। প্রতি বছরই এ ধরনের তালিকা প্রকাশ করে ফোর্বস। মঙ্গলবার প্রকাশিত এ তালিকায় এবার ৩০ দেশের বিভিন্ন বয়সী নারীর নাম এসেছে। তাদের মধ্যে রাষ্ট্র বা সরকারপ্রধান আছেন ১০ জন। ৩৮ জন বিভিন্ন কোম্পানির সিইও। বিনোদন জগতের পাঁচজনও এসেছেন ক্ষমতাধর নারীদের এ তালিকায়। টানা দশমবারের মতো এ তালিকার শীর্ষস্থানে আছেন জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল। আর টানা দ্বিতীয়বারের মতো দ্বিতীয় স্থানে আছেন ইউরোপীয় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান ক্রিস্টিন লগার্ড। যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান কমলা হ্যারিসও এ তালিকায় স্থান পেয়েছেন। তিনি শীর্ষ ক্ষমতাধর নারীদের তালিকায় আছেন তৃতীয় স্থানে। গতবারের মতোই এবারের তালিকায় চতুর্থ স্থানে আছেন ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ফন ডেয়ার লাইয়েন। মাইক্রোসফট প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসপত্নী মেলিন্ডা গেটস আছেন পঞ্চম স্থানে। নিউজিল্যান্ডের তরুণ প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন আছেন এবারের তালিকার ৩২তম স্থানে। এ বছর টানা দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। ক্ষমতাধর নারীদের এ তালিকায় এই উপমহাদেশের রাজনীতিবিদদের মধ্যে আরও আছেন ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন, তিনি আছেন ৪১তম স্থানে।

যুক্তরাষ্ট্রে করোনার ভয়াবহ চিত্র
                                  

নিউইয়র্ক পোস্ট : করোনার ভয়াবহ থাবা যুক্তরাষ্ট্র জোড়ে। ডনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন এ নিয়ে কোন কথা বলছে না। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এখনো বিভিন্ন রাজনৈতিক সভায় ব্যস্ত। গতকাল রোববার তিনি জার্জিয়ায় এক জনসভায় বক্তব্য রাখেন। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ করোনায় মারা যাচ্ছে। গত ৫ দিনে ১০ লক্ষ মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। বিশ্বে করোনায় সবচেয়ে বেশী সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে দেশটিতে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ঘরে থাকার জন্য কর্তপক্ষের নির্দেশ সত্ত্বেও গত সপ্তাহগুলোতে থ্যাঙ্কসগিভিং হলিডে উদযাপন উপলক্ষে লাখ লাখ আমেরিকানের ভ্রমণের পরে যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক করেছিলেন। গত দুই সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিদিন করোনায় মৃত্যু দুই হাজারের অধিক হচ্ছে। প্রথম পর্যায়ে দেশটিতে করোনা ছড়িয়ে পড়ার পরে এবারের সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা বেশি। হাসপাতালে কোভিড ১৯ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে, বিশেষ করে জনবহুল অঙ্গরাজ্য ক্যালিফোর্নিয়া, ফ্লোরিডা, নিউইয়র্ক এবং টেক্সাসে সংক্রমণ বাড়ছে। যুক্তরাষ্ট্রে মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত এক কোটি ৪৬ লাখ লোক আক্রান্ত এবং দুই লাখ ৮১ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

ভারত জুড়ে কৃষকদের ধর্মঘটের ডাক
                                  

এনডিটিভি/দ্য হিন্দু : ভারতে বিতর্কিত কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে আগামী ৮ ডিসেম্বর ভারত জুড়ে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন দিল্লিতে আন্দোলনরত কৃষকরা। টানা নবম দিনের মতো দিল্লির সঙ্গে হরিয়ানা, পাঞ্জাবসহ অন্য রাজ্যগুলোর সংযোগপথ অবরুদ্ধ করে রেখেছেন তারা। প্রবল আন্দোলনের মুখে নরেন্দ্র মোদির সরকার। এনডিটিভি জানায়, গতকাল শনিবার বিকেলে পঞ্চমবারের মতো কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন আন্দোলনকারীরা। বৈঠকে সরকার কিছুটা নমনীয় হওয়ারও ইঙ্গিত দিয়েছে। এদিকে, বৈঠক শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাসায় গিয়েছেন বলে জানা গেছে। সূত্রের বরাতে প্রবাবশালি দ্য হিন্দু পত্রিকা জানায়, কৃষকদের দাবি মেনে আইনে সংশোধন আনা যায় কিনা এ নিয়ে মোদির বাড়িতে আলোচনা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। গত বৃহস্পতিবার টানা সাত ঘণ্টার ওই বৈঠকে কৃষকরা সরকারের কাছে বেশ কিছু দাবি-দাওয়া তুলে ধরেন। সেগুলোর মধ্যে ছিল- এপিএমসি ব্যবস্থার বাইরে শস্য বিক্রির অনুমতি, চুক্তিভিত্তিক কাজ, মজুত সীমা বাতিল প্রভৃতি। আন্দোলনকারীদের আশঙ্কা নতুন আইন বাস্তবায়ন হলে বড় কোম্পানিগুলোর কাছে তারা জিম্মি হয়ে পড়বে। সরকারের সঙ্গে কৃষকদের বিরোধের অন্যতম ইস্যুগুলোর মধ্যে রয়েছে, নতুন আইনে কৃষি সংক্রান্ত মামলাগুলোতে সাব-ডিভিশনাল ম্যাজিস্ট্রেট (এসডিএম) কোর্টকে সর্বোচ্চ বিচারালয় হিসেবে উল্লেখ করা। কৃষকদের দাবি, তারা যেন অভিযোগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত যেতে পারেন। বৈঠকের পর ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার এপিএমসি ও বেসরকারি বাজারগুলোতে সমান কর, বেসরকারি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন, কৃষকদের সর্বোচ্চ আদালত পর্যন্ত যাওয়াসহ বেশি কিছু বিষয় পুনর্বিবেচনা করা হতে পারে বলে ইঙ্গিত দেয়। শনিবারের আন্দোলনকারীদের সঙ্গে বৈঠকে কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র তোমার ও বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়ালসহ কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, পঞ্চম দফায়ও বৈঠক সফল না হলে মোদি সরকারের সামনে আরও বড় সংকট তৈরির আশঙ্কা আছে।

বিশ্বের বিপন্ন পাখি শিকারের অনুমোদন পেলেন যুবরাজ
                                  

আলজাজিরা অন লাইন/ দ্য ডন : পৃথিবীর বিপন্ন পাখিদের মধ্যে একটি হচ্ছে ‘হাউবার বুস্টার্ড’। এটি পাকিস্তানের বেলুচ এলাকায় শীতের সময় আশ্রয় নিয়ে থাকে। এই পাখির গোশত অত্যন্ত সুস্বাদু এবং স্বাস্থসম্মত। সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান (এমবিএস) সহ সৌদি রাজ পরিবারের দুই সদস্যকে বিরল ও বিপন্ন পাখি শিকারের বিশেষ অনুমোদন দিয়েছে পাকিস্তান সরকার। খবরে বলা হয়, ২০২০-২১ শিকার মৌসুমে পাকিস্তানের বেলুচিস্তান ও পাঞ্জাব প্রদেশে ‘হাউবার বুস্টার্ড’ নামের পাখি শিকার করতে পারবেন সৌদি রাজ পরিবারের সদস্যরা। শিকারিরা বন্দুক ও ঈগল পাখি দিয়ে এই পাখি শিকার করবেন। ক্রাউন প্রিন্সকে পাঞ্জাবের লায়াহ ও ভাক্কার জেলায় হাউবার বুস্টার্ড শিকারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া, তাবুক শহরের গভর্নর এইচআরএইচ প্রিন্স ফাহাদ বিন সুলতান বিন আব্দুলআজিজ বিন-সওদকে বেলুচিস্তানের নশিকি জেলা ও ছাগাই জেলায় (নক কুন্দি বাদে) শিকারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আর হাফর আল-বাতিন শহরের গভর্নর এইচএইচ প্রিন্স মানসুর বিন মোহাম্মদ এস আব্দুল রেহমান আল-সওদকে পাঞ্জাবের দেরা ঘাজি খান জেলায় শিকারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রতি বছর শীতে পাকিস্তানে আশ্রয় নেয় বিরল ও বিপন্নপ্রায় প্রজাতির বিভিন্ন পাখি। এরকম এক প্রজাতির পাখি হচ্ছে হাউবার বুস্টার্ড। সাধারণত মধ্য এশীয় অঞ্চলের শীতল অঞ্চলে বাস করে তারা। তবে শীতে কঠিন আবহাওয়া এড়াতে প্রতি বছর অপেক্ষাকৃত উষ্ণ আবহাওয়ার খোঁজে দক্ষিণদিকে যাত্রা করে তারা। এই মৌসুমে পাখিগুলো শিকার করতে আরব শিকারিদের নিমন্ত্রণ জানিয়ে থাকে পাকিস্তান সরকার। দিন দিন সংখ্যায় কমে আসছে হাউবার বুস্টার্ড। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সুরক্ষা চুক্তির পাশাপাশি স্থানীয় বন্যপ্রাণী সুরক্ষা আইনেও পাখিটি শিকারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সূত্রগুলো জানায়, গত বছর ২ হাজারেরও বেশি হাউবার বুস্টার্ড শিকার করে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে সমালোচিত হয়েছিলেন তাবুকের গভর্নর প্রিন্দ ফাহাদ বিন সুলতান। তবে ওই শিকারের জন্য নির্ধারিত ১ লাখ ডলার অর্থ পরিশোধ করেননি তিনি। এছাড়া, ৬০টি ফ্যালকনও শিকার করেছিলেন তিনি। সেগুলোর জন্যও অর্থ পরিশোধ করেননি তিনি।

দিল্লী অভিমুখে হাজার হাজার কৃষক : বৈঠকের আশ্বাস
                                  

এনডিটিভি : ভারতে নতুন কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত কৃষকদের আলোচনায় বসার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছে নরেন্দ্র মোদির সরকার। বার্তা সংস্থা জানায়, ভারতের কৃষি মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সঞ্জয় আগারওয়াল ৩২টি কৃষক সংগঠনের কাছে পাঠানো চিঠিতে গতকাল মঙ্গলবার সরকারের মন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে যোগ দেওয়ার জন্য কৃষকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। বিরোধী দলের চরম আপত্তির পরও কৃষি সংস্কার নিয়ে তিনটি বিল ভারতের পার্লামেন্টে পাস হওয়ার পর গত সেপ্টেম্বরে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ বিল তিনটি সই করলে সেগুলো আইনে পরিণত হয়। ওই তিনটি আইনের একটির অধীনে সরকার ন্যায্যমূল্যে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ফসল কেনা বন্ধ করে দিতে পারবে। যার ফলে পাইকারি বাজারে চরম বিশৃঙ্খলা দেখা দেবে বলে আশঙ্কা কৃষকদের।
তাদের ভয়, ওই আইনের ফলে ফসলের দাম নির্ধারণের ক্ষমতা বড় বড় ব্যবসায়ী ও কোম্পানির হাতে চলে যাবে, কৃষকদের হাতে কোনো ক্ষমতাই থাকবে না। তাই তারা ওই আইনগুলো বাতিলের দাবিতে রাজধানী দিল্লির উপকণ্ঠে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করছে। নগরীর প্রবেশ পথগুলো অবরোধ করে রেখেছে তারা।
এর আগে আন্দোলনরত কৃষকদের ৩ ডিসেম্বর আলোচনায় বসার আমন্ত্রণ জানিয়েছিল সরকার। কিন্তু প্রবল ঠাণ্ডা ও করোনাভাইরাস মহামারি পরিস্থিতি বিবেচনায় আলোচনার দিন এগিয়ে আনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভারতের কৃষি ও খামার উন্নয়ন মন্ত্রী নরেন্দ্র সিংহ।

ব্রহ্মপুত্রে বাঁধ দিচ্ছে চীন, ভারতে পানি সংকটের আশঙ্কা
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট : স্থানীয়ভাবে ইয়ারলাং জ্যাংবো নামে পরিচিত এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ নদ ব্রহ্মপুত্রে বাঁধ নির্মাণ করে বিশাল জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের উদ্যোগ নিয়েছে চীন। এতে পানি সংকটের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে উত্তর-পূর্ব ভারতে। দেশটির রাষ্ট্রীয় দৈনিক গ্লোবাল টাইমস এ খবর জানিয়ে বলছে, চীনের ১৪তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় আগামী বছর থেকে তিব্বতে ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর বাঁধ নির্মাণের মাধ্যমে এ জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ শুরু হতে পারে। স্বাভাবিকভাবে এতে উদ্বিগ্ন ভারত। কেননা ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকার বেশিরভাগ ভারতের মধ্যে দিয়ে বয়ে চলেছে। ফলে বাঁধ দেয়া হলে ব্রহ্মপুত্রনির্ভর মানুষজন নানা সমস্যায় পড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। তিব্বতের পশ্চিমাঞ্চলে হিমালয় পর্বতমালার কৈলাস শৃঙ্গের কাছে জিমা ইয়ংজং হিমবাহে ব্রহ্মপুত্রের উৎপত্তি। এর পর ভারতের অরুণাচল ও আসাম হয়ে ব্রহ্মপুত্র সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। ভারতে প্রবেশের মুখে অরুণাচল সীমান্তের কাছে তিব্বতের মেডগ কাউন্টিতে ব্রহ্মপুত্র নদের ওপর এই বাঁধ নির্মাণ করা হবে বলে চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত দৈনিক গ্লোবাল টাইমসের অনলাইন প্রতিবেদনে জানানো হয়। গতকাল রোববার চীনের পাওয়ার কনস্ট্রাকশন করপোরেশনের চেয়ারম্যান ইয়ান ঝিইয়ং জানান, ইতিহাসে এর সমকক্ষ কোনো প্রকল্প নেই, এটি চীনের জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের ইতিহাসে একটি মাইলফলক হয়ে থাকবে। তিনি আরও বলেন, ‘দেশের একাধিক অংশের পানি সরবাহের উৎস ছাড়াও এ বাঁধ বিদ্যুৎ সরবরাহে ব্যাপক সাহায্য করবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে পানিবণ্টন ব্যবস্থা ও জাতীয় সুরক্ষা বজায় রাখা যাবে। তিনি জানান, বাঁধটি থেকে বছরে ৬ কোটি কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে, যা বার্ষিক ৩০০ বিলিয়ন কিলোওয়াট কার্বনমুক্ত ও পুনর্ব্যবহারযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে এবং বছরে ৩০০ কোটি ডলার আয় হবে।

গুপ্তঘাতকরা ছিলো সক্রিয়
                                  

মীর শওকত, ওয়াশিংটন থেকে : ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানি মোহসেন ফখরিজাদাহকে একদল গুপ্ত ঘাতক তেহরানের বাইরে নিজের গাড়ীতে গুলি করে হত্যা করেছে। এর আগে অন্তত ১০ জন ইরানের পরমাণু বিজ্ঞানিকে গুপ্তঘাতকেরা হামলা করে হত্যা করেছে বা হামলায় আহত হয়েছেন। মোহসেনকে হত্যার আগে গত ২ বছর যাবত গুপ্তঘাতকরা অনুসরণ করে আসছিলেন বলে এক টুইট বার্তায় গতকাল জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। মোহসেনকে ইরানের পরমাণু বোমার জনক বলা হয়। ইসরাইলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের গুপ্ত ঘাতকরা তাকে হত্যা করে থাকতে পারে বলে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে তা প্রকাশিত হয়েছে। ঘটনার পরই আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় ‘ব্রেকিং নিউজ’ হিসেবে এই সংবাদটি সম্প্রচার করা হয়। বিশেষ করে আমেরিকা মূলধারার সংবাদ মাধ্যম সিএনএন, এনবিসি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে ইরানি বিজ্ঞানিকে হত্যার খবরটি সম্প্রচার করছে। স্থানীয় প্রভাবশালী পত্রিকা ওয়াশিংটন পোস্ট এবং নিউইয়র্ক টাইমস সচিত্র ছবিসহ সংবাদটি প্রকাশ করেছে। মিডিয়ার মূল আশঙ্কা হচ্ছে, আমেরিকার সরকার পরিবর্তনের ঠিক আগে ইরানে হামলার বিষয়টি মধ্যপ্রাচ্যে নতুন করে সঙ্কট সৃষ্টি করতে পারে। যার মূল্য দিতে হতে পারে জো বাইডেনের নতুন সরকারকে। মিডিয়ায় এমনভাবেই বিষয়টি এসেছে, ট্রাম্পের মদদেই ইসরাইলি সরকারের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের গুপ্ত ঘাতকরা মোহসেনকে হত্যা করেছে। তাতে আগামীতে ইরানের সঙ্গে পারমাণবিক চুক্তির বিষয়গুলো নিয়ে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বেন বাইডেন। রাজধানী তেহরানের দামাবন্দ এলাকায় আততায়ী হামলায় নিহত হন মোহসেন ফখরিজাদাহ। বিদায়ের আগে ট্রাম্পের মদদেই ইসরায়েল এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছে তেহরান। ফখরিজাদাহ হত্যার ঘটনায় ক্ষোভ জানিয়ে কঠিন প্রতিশোধ নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনির সামরিক উপদেষ্টা হোসেইন দেহগান। গতকাল শনিবার এক টুইটে তিনি বলেন, ‘তাদের মিত্রের (ট্রাম্প) রাজনৈতিক জীবনের শেষ দিনগুলোতে জায়নিস্টরা ইরানের উপর আরও চাপ বাড়াতে চায় ও একটি পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের চেষ্টা চালাতে চায়।’ গত চার বছরে ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় ইরানের বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক নীতিতে জড়িয়ে পড়েন ট্রাম্প। ২০১৮ সালে তিনি ইরান পারমাণবিক চুক্তি থেকে সরে আসেন। পাশাপাশি, ইরানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাও আরোপ করেন। গত ৩ জানুয়ারি মার্কিন সেনারা ইরাকের রাজধানী বাগদাদের বিমানবন্দরে বিমান হামলা চালিয়ে ইরানের জেনারেল কাশেম সোলাইমানিকে হত্যা করে। তিনি ইরানের এলিট ফোর্স হিসেবে পরিচিত বিপ্লবী গার্ড করপোরেশনের (আইআরজিসি) ‘কুদস বাহিনী’র প্রধান ছিলেন। দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির পর তিনিই ছিলেন সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি। রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও পর্যবেক্ষকদের আশঙ্কা বাইডেন প্রশাসনকে কঠিন চাপে ফেলতে শেষ সময়ে ইরানের পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করার চেষ্টা করতে পারেন ট্রাম্প। মার্কিন সংবাদমাধ্যম জানায়, ক্ষমতা হস্তান্তরের দুই মাস আগে ইরানের মূল পারমাণবিক সাইটে হামলা চালানোর ইচ্ছার কথাও জানিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। ওভাল অফিসের এক বৈঠকে ইরানে আক্রমণ চালানোর সুযোগ আছে কিনা এ নিয়ে ঊধ্বর্তন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করেন তিনি। বৈঠকে ট্রাম্পের সহযোগীরা তাকে ব্যাপক সংঘর্ষের ঝুঁকির কথা বিবেচনা করে ইরান আক্রমণের পরিকল্পনায় অগ্রসর না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। পশ্চিমাদের চোখে ইরানে ‘গোপনে পারমাণবিক বোমা কর্মসূচির’ মূল কারিগর ফাখরিজাদেহকে দীর্ঘদিন ধরে অনুসরণ করে আসছে মোসাদ। এ কারণে নতুন করে উত্তেজনার পারদ উপরে উঠছে। ইরানের শীর্ষস্থানীয় পদার্থবিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদেহকে হত্যায় ইসরাইলি গোয়েন্দা সংস্থা- মোসাদের হাত থাকার বিষয়টি ইঙ্গিত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ট্রাম্প তার অফিসিয়াল টুইটার পেজে একজন ইসরাইলি সাংবাদিকের একটি পোস্ট রিটুইট করে ইরানি বিজ্ঞানী হত্যায় মোসাদের জড়িত থাকার বিষয়টি ইঙ্গিত করেন। ট্রাম্প নিজে এক টুইট বার্তায় মোহসেন ফাখরিজাদেহকে তার ভাষায় ইরানের ‘পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচি’র কারিগর বলেও দাবি করেন।

‘দিল্লি চলো’ কর্মসূচিতে হাজার হাজার কৃষক
                                  

এনডিটিভি/দ্য হিন্দু : পুলিশের সঙ্গে কয়েক দফা সংঘর্ষের পরেও বিতর্কিত কৃষি সংস্কার বিল বাতিলের দাবিতে দিল্লি অভিমুখে যাত্রা অব্যাহত রেখেছে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের থেকে আসা হাজার হাজার কৃষক। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য হিন্দু জানায়, ‘দিল্লি চলো’ কর্মসূচিতে অংশ দিতে হরিয়ানায় পুলিশি বাধা ভেঙ্গে গতকাল শুক্রবার সকালে পাঞ্জাবের কয়েকটি দল দিল্লির দুটি সীমান্তের কাছাকাছি পৌঁছে যায়। গত বৃহস্পতিবার নতুন কৃষিসংস্কার বিল বাতিলের দাবিতে উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা, রাজস্থান, উত্তরাখণ্ড, কেরালা ও পাঞ্জাব- এই ছয় রাজ্য থেকে কৃষকরা দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দেন। আন্দোলনকারী কৃষকদের বাঁধা দিতে হরিয়ানায় পুলিশি ব্যারিকেড এবং দিল্লি-হরিয়ানা সীমান্ত সিল করে দেওয়া হয়। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, আন্দোলনকারীরা দিল্লির দিকে এগোতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ লাঠিচার্জ ও টিয়ারশেল ছোড়ে। শুক্রবার দুটি কৃষক সংগঠন জানিয়েছে, পুলিশি বাধা সত্ত্বেও শুক্রবার দিল্লি অভিমুখে কৃষকদের যাত্রা অব্যাহত রয়েছে। হরিয়ানা থেকে ৫০ হাজার কৃষক দিল্লি সীমান্তে পৌঁছাবে বলে আশা করা হচ্ছে। এদিকে, বিক্ষোভকারীদের ঠেকাতে দিল্লিতে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা মোতায়েন করা হয়েছে।
করোনা পরিস্থিতিতে কয়েক হাজার কৃষকের এই আন্দোলনের মুখে দিল্লির নয়টি স্টেডিয়ামকে অস্থায়ী কারাগার হিসেবে ব্যবহারের জন্য দিল্লি সরকারের অনুমতি চেয়েছে পুলিশ। তবে, পুলিশের ওই আবেদন নাকচ করে দিয়েছে দিল্লি সরকার।
দিল্লির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন এক বিবৃতিতে জানান, শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ করা প্রতিটি নাগরিকের ‘সাংবিধানিক অধিকার’ এবং ‘কেন্দ্রীয় সরকারের উচিত কৃষকদের দাবি অবিলম্বে মেনে নেওয়া’। গতকাল হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টর আন্দোলনরত কৃষকদের আশ্বাস দিয়ে জানান, কেন্দ্রীয় সরকার তাদের সঙ্গে আলোচনার জন্য প্রস্তুত এবং সংলাপের মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হতে পারে।
গত সেপ্টেম্বরে ভারতের পার্লামেন্টে তিনটি কৃষিসংস্কার বিল পাশ হয়। এর প্রথমটিতে সরকার নিয়ন্ত্রিত পাইকারি কৃষিবাজারগুলো বাতিল করার কথা বলা হয়েছে। দ্বিতীয় বিলে ফসলের আগে থেকে ঠিক করে রাখা দামে চুক্তিভিত্তিক চাষ বা কন্ট্রাক্ট ফার্মিংয়ের পথ প্রশস্ত করার কথা বলা হয়েছে এবং ব্যবসায়ী বা উৎপাদকদের ফসল মজুদ করার উপর সরকারি যে নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা বর্তমান আছে তৃতীয় বিলে সেটা বিলোপের কথা বলা হয়েছে।
কৃষকদের দাবি, নতুন এই বিলগুলো তাদের স্বার্থ বিরোধী। কারণ, এর ফলে প্রাইভেট ফার্মগুলো কৃষিখাতে চালকের ভূমিকায় চলে যাবে। কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। ভারতে বেশিরভাগ কৃষক তাদের ফসলের একটি বড় অংশ সরকার নির্ধারিত ন্যূনতম দামে (মিনিমাম সাপোর্ট প্রাইজ-এমএসপি) সরকার নিয়ন্ত্রিত পাইকারি বাজারে বিক্রি করেন।
কৃষকদের আশঙ্কা, নতুন বিলের ফলে এমএসপি-র অস্তিত্ব থাকবে না এবং ব্যবসায়ীদের হাতে ফসলের দাম নির্ধারণ করার ক্ষমতা চলে যাবে। ফলে তারা ফসলের ন্যায্যদাম থেকে বঞ্চিত হবেন।

ইথিওপিয়ায় চরম মানবিক সংকট সৃষ্টি হচ্ছে : ইউএনএইচসিআর
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আফ্রিকার দেশ ইথিওপিয়ার উত্তরাঞ্চলের তাইগ্রেতে আঞ্চলিক সরকারের বাহিনীর সঙ্গে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারের বাহিনীর সংঘর্ষ চলছে। এতে এলাকা ছেড়ে পালাচ্ছেন হাজারো মানুষ। জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) গতকাল মঙ্গলবার বলেছে, ‘হর্ন অব আফ্রিকা’ খ্যাত ইথিওপিয়ার পরিস্থিতি একটি পূর্ণ মাত্রায় মানবিক সংকটে রূপ নিচ্ছে। সিএনএনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। ইউএনএইচসিআরের তথ্য অনুযায়ী, ১০ নভেম্বর থেকে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৪ হাজার নারী, পুরুষ ও শিশু তাইগ্রে থেকে সীমান্ত অতিক্রম করে সুদানে আশ্রয় নিচ্ছে। জেনেভায় এক সংবাদ সম্মেলনে ইউএনএইচসিআরের মুখপাত্র বাবর বেলুচ বলেন, ইথিওপিয়ার তিন সীমান্ত অঞ্চল দিয়ে ইতিমধ্যে ২৭ হাজারের বেশি মানুষ সুদানে এসেছে। লড়াই থেকে পালিয়ে আসা শরণার্থীরা দীর্ঘ যাত্রায় ক্লান্ত হয়ে অল্প কিছু জিনিসপত্র নিয়ে আসতে পেরেছে। ইউএনএইচসিআর অংশীদারদের সঙ্গে সুদানের সরকারকে সাহায্য করছে। প্রয়োজনীয়তা অব্যাহত থাকায় সীমান্তে মানবিক সহায়তা বাড়ানো হয়েছে। ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ ৪ নভেম্বর তাইগ্রে অঞ্চলে সামরিক ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেন। তাইগ্রে অঞ্চলে সরকারি বাহিনীর ওপর স্থানীয় বাহিনীগুলোর হামলার অভিযোগ উঠলে আবি আহমেদ সেখানে জাতীয় প্রতিরক্ষা বাহিনী পাঠান। প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, সরকারি যুদ্ধবিমান থেকে তাইগ্রেতে সামরিক আস্তানায় বিশেষ করে অস্ত্রের ভান্ডার লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালানো হয়েছে। সরকারের উদ্দেশ্য হলো ৫০ লাখ মানুষের পার্বত্য এই রাজ্যটিতে আইনশৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা। দেশটির তাইগ্রে অঞ্চলের প্রধান রাজনৈতিক দল তাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় সরকার অভিযোগ করে আসছে, টিপিএলএফ দেশকে অস্থিতিশীল করতে কাজ করছে। রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আবি আহমেদ ক্ষমতায় আসার পর আফ্রিকার এই দেশে রাজনৈতিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন শুরু করেন। প্রতিবেশী ইরিত্রিয়ার সঙ্গে দুই দশক ধরে চলা রক্তক্ষয়ী সংঘাতের অবসান ঘটে তাঁরই হাত ধরে। ফলে ক্ষমতায় আসার মাত্র এক বছরের মাথায় নোবেল শান্তি পুরস্কার পান আবি। প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক প্রতিষ্ঠায় আবি আহমেদ প্রশংসিত হলেও নিজ দেশের স্বাধীনতাকামী অঞ্চল তাইগ্রেতে শান্তি ফেরাতে তেমন পদক্ষেপ নেননি বলে অভিযোগ।

মার্কিন শীর্ষ কর্মকর্তার ভোট জালিয়াতির কথা অস্বীকার
                                  

শেখ গালিব রহমান, নিউইয়র্ক থেকে : আমেরিকার নির্বাচন শেষে এখন মূলত যুদ্ধটা চলছে মিডিয়ায়। প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়া জুড়ে বাইডেন এবং ট্রাম্পের পক্ষ বিপক্ষ সংবাদ প্রকাশ করা হচ্ছে। বিশ্ব নেতারা বাইডেনকে সমর্থন দিয়ে অভিনন্দন জানাচ্ছেন। সেই সকল বার্তা পররাষ্ট্র দপ্তর থেকে বাইডেনের কাছে দেয়া হচ্ছে না। যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় নির্বাচনি কর্মকর্তারা প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের আনা জালিয়াতির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তারা বলেছেন ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি সুরক্ষিত নির্বাচন। নির্বাচনি কমিটির এক ঘোষণায় বলা হয়েছে, কোনও ভোট মুছে ফেলা, হারিয়ে ফেলা, পরিবর্তন করা কিংবা অন্য কোনও উপায়ে সমঝোতা করার কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। সদ্য সমাপ্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল এখনও মেনে নেননি দেশটির বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগে ইতোমধ্যে বেশ কিছু মামলা শুরু করেছেন তিনি। যদিও তার টিম এখনও কোনও প্রমাণ হাজির করতে পারেনি। ভিত্তিহীনভাবে ট্রাম্প দাবি করেছেন এই নির্বাচনে তার সমর্থনে পড়া ২৭ লাখ ভোট মুছে ফেলা হয়েছে। ট্রাম্পের এই দাবির পর মুখ খুলেছে নির্বাচনের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি ইউনিট। বৃহস্পতিবার কমিটি অব দ্য সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ইনফ্রাস্টাকচার সিকিউরিটি এজেন্সি (সিসা) বলেছে, ‘নির্বাচনি প্রক্রিয়া নিয়ে আমরা বেশ কিছু অমূলক দাবি এবং ভুল তথ্যের সুযোগের কথা জানতে পারলেও আমরা আমাদের নির্বাচনের নিরাপত্তা এবং মর্যাদা নিয়ে চূড়ান্ত আত্মবিশ্বাসী আপনাদেরও তা থাকা উচিত।’ ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ‘প্রশ্ন থাকলে বিশ্বস্ত কণ্ঠ নিয়ে নির্বাচনি কর্মকর্তাদের কাছে যান, তারাই নির্বাচনি প্রশাসক।’ সিসা’র প্রধান ক্রিস্টোফার ক্রেবস জানিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাকে বরখাস্ত করতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন তিনি। এর আগে বৃহস্পতিবার সিসা’র সহযোগী পরিচালক ব্রায়ান ওয়ার পদত্যাগ করেন। গত সপ্তাহে তাকে পদত্যাগ করতে বলে দেয় হোয়াইট হাউজ।


   Page 1 of 347
     আন্তর্জাতিক
ভারতে টিকা নেয়ার পর সাড়ে চার’শ মানুষের শরীরে বিরূপ প্রতিক্রিয়া, একজনের মৃত্যু
.............................................................................................
সাগরে বিধ্বস্ত ইন্দোনেশিয়ান উড়োজাহাজের কেউ বেঁচে নেই
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার হুমকিতে ভারত
.............................................................................................
করোনা পরীক্ষার লাইনে দাঁড়িয়ে জিম্বাবুয়েতে ১৫ জনের মৃত্যু
.............................................................................................
মিথ্যা বলে গ্যাঁড়াকলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী আবে
.............................................................................................
বিশ্বে এক বছরে ১৭ লাখ মানুষের প্রাণ নিল করোনা
.............................................................................................
বিশ্বের শীর্ষ ক্ষমতাধর নারীর তালিকায় মেরকেল, শেখ হাসিনা, কমলা হ্যারিস
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রে করোনার ভয়াবহ চিত্র
.............................................................................................
ভারত জুড়ে কৃষকদের ধর্মঘটের ডাক
.............................................................................................
বিশ্বের বিপন্ন পাখি শিকারের অনুমোদন পেলেন যুবরাজ
.............................................................................................
দিল্লী অভিমুখে হাজার হাজার কৃষক : বৈঠকের আশ্বাস
.............................................................................................
ব্রহ্মপুত্রে বাঁধ দিচ্ছে চীন, ভারতে পানি সংকটের আশঙ্কা
.............................................................................................
গুপ্তঘাতকরা ছিলো সক্রিয়
.............................................................................................
‘দিল্লি চলো’ কর্মসূচিতে হাজার হাজার কৃষক
.............................................................................................
ইথিওপিয়ায় চরম মানবিক সংকট সৃষ্টি হচ্ছে : ইউএনএইচসিআর
.............................................................................................
মার্কিন শীর্ষ কর্মকর্তার ভোট জালিয়াতির কথা অস্বীকার
.............................................................................................
মারা গেছেন বাহরাইনের প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
ট্রাম্পের পরাজয় স্বীকার না করা বিব্রতকর: বাইডেন
.............................................................................................
আবারও করোনায় টালমাটাল গোটা বিশ্ব
.............................................................................................
মিয়ানমারের নির্বাচন: এগিয়ে সু চির দল এনএলডি
.............................................................................................
বিজয় ভাষণে ‘ঐক্যের’ ডাক বাইডেনের
.............................................................................................
আমরাই নেতৃত্বে যাচ্ছি: বাইডেন
.............................................................................................
মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন: জয়ের দ্বারপ্রান্তে বাইডেন
.............................................................................................
নিজেকে জয়ী দাবি করলেন ট্রাম্প
.............................................................................................
ভিয়েনায় সন্ত্রাসী হামলার দায় স্বীকার করল আইএস
.............................................................................................
সারা বিশ্বের নজর যুক্তরাষ্ট্র প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে
.............................................................................................
কোয়ারেন্টাইনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান
.............................................................................................
মুসলিমরা মর্মাহত বুঝতে পেরেছি: ম্যাকরোঁ
.............................................................................................
মক্কায় মসজিদুল হারামের গেটে গাড়ির ধাক্কা
.............................................................................................
দোদুল্যমান রাজ্যগুলো দখলে নেয়ার কঠিন লড়াইয়ে ট্রাম্প ও বাইডেন
.............................................................................................
বিশ্বে একদিনে রেকর্ড ৫ লক্ষাধিক রোগী শনাক্ত
.............................................................................................
ইউরোপে আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে করোনা
.............................................................................................
পাকিস্তানের মাদ্রাসায় শক্তিশালী বিস্ফোরণ, বহু হতাহতের শঙ্কা
.............................................................................................
কোভিড-১৯: স্পেনে কারফিউ ও জরুরি অবস্থা
.............................................................................................
ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক চায় আরও ৫ আরব দেশ: ট্রাম্প
.............................................................................................
বিশ্বে করোনা আক্রান্ত ৪ কোটি ৫ লাখ, মৃত্যু ১১ লাখ ২৩ হাজার
.............................................................................................
বিশ্বব্যাপী করোনায় মৃতের সংখ্যা ১১ লাখ ছাড়ালো
.............................................................................................
বিশ্বে করোনায় মৃত বেড়ে পৌনে ১১ লাখ
.............................................................................................
অবশেষে আজারবাইজান-আর্মেনিয়া ‘যুদ্ধবিরতি’
.............................................................................................
করোনায় মৃত্যু সাড়ে দশ লাখ ছাড়াল
.............................................................................................
ঘরে ফিরেই মাস্ক খুলে ফেললেন ট্রাম্প, দিলেন অভয়
.............................................................................................
করোনায় বিশ্বে মৃত্যু ছাড়াল ১০ লাখ ৩৭ হাজার
.............................................................................................
জ্বর নিয়ে হাসপাতালে ট্রাম্প
.............................................................................................
বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলার সব আসামি খালাস
.............................................................................................
আর্মেনিয়া-আজারবাইজান ভয়াবহ যুদ্ধে মৃত্যু বেড়ে ৯৫
.............................................................................................
বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত তিন কোটি ৩৫ লাখ মানুষ
.............................................................................................
করোনাভাইরাস নিয়ে জাতিসংঘে চীন-যুক্তরাষ্ট্র উত্তেজনা
.............................................................................................
মুম্বাইয়ে ভবন ধসে নিহত অন্তত ১০
.............................................................................................
একদিনে করোনায় আক্রান্ত প্রায় আড়াই লাখ, মৃত ৩৮৯১
.............................................................................................
করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ছাড়িয়েছে
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop