ঢাকা,বুধবার,৬ মাঘ ১৪২৮,১৯,জানুয়ারী,২০২২ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাংচুরের মামলার বাদির উপর হামলা   > ‘গানে গানে চলছে প্রার্থীদের প্রচারণা’   > ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ১৫ জানুয়ারী থেকে পরিবহন বন্ধের ঘোষণা   > বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাঙচুরকারী বিআইডব্লিউটিএ’র আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা   > নর্থ সাউথের আরও দুই ট্রাস্টি রেহেনা ও বেনজীরকে দুদকে তলব   > ঢাকায় অবৈধ রিকশার বিরুদ্ধে ডিএসসিসির অভিযান   > পথ যত কণ্টকাকীর্ণ হোক, আমরা থেমে থাকব না : প্রধানমন্ত্রী   > বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর মুক্তিযোদ্ধারা পরিচয় দিতে পারেনি : আবুল হাসেম খান এমপি   > শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই জাতি আজ ঐক্যবদ্ধ: এনামুল হক শামীম   > আগামী দুইদিনে শৈত্যপ্রবাহের মাত্রা বাড়বে  

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
নর্থ সাউথের আরও দুই ট্রাস্টি রেহেনা ও বেনজীরকে দুদকে তলব

স্টাফ রিপোর্টার : অর্থ আত্মসাত, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য রেহেনা রহমান ও বেনজীর আহমেদকে তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ২৯ ডিসেম্বর দুদক উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে তাদের তলব করা হয়। ৪ জানুয়ারি মঙ্গলবার সকাল ১০টায় দুদক প্রধান কার্যালয়ে তাদের হাজির হয়ে বক্তব্য দিতে বলা হয়েছে। নোটিশে উল্লেখ করা হয়, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, এফডিআর করার নামে প্রতিষ্ঠানের অর্থ লোপাট, স্ত্রী, স্বজনদের চাকরি দেয়ার নামে অনৈতিক ভাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া, সরকারি শুল্ক ফাঁকি দিয়ে গাড়ি ক্রয় ও অবৈধভাবে বিলাসবহুল গাড়ির ব্যবহার এবং বিভিন্ন অনৈতিক সুযোগ-সুবিধা গ্রহণের আড়ালে প্রতিষ্ঠানের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, বসুন্ধরা, ঢাকার বোর্ড অব ট্রাস্টিজ-এর সদস্য রেহেনা রহমান ও বেনজীর আহমেদকে তলবের নোটিশ জারি করেছে দুদক। নোটিশে আরও উল্লেখ করা হয়, সুষ্ঠু অনুসন্ধানের স্বার্থে বর্ণিত অভিযোগ বিষয়ে তাদের বক্তব্য শ্রবণ ও গ্রহণ করা একান্ত প্রয়োজন বিধায় উল্লিখিত অভিযোগ বিষয়ে বক্তব্য প্রদানের লক্ষ্যে দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হয়ে অনুসন্ধান টিমের নিকট বক্তব্য প্রদানের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে হাজির হয়ে বক্তব্য প্রদানে ব্যর্থ হলে বর্ণিত অভিযোগ বিষয়ে তাদের কোনো বক্তব্য নেই মর্মে গণ্য করা হবে। অভিযুক্ত এম এ কাসেম ও রেহানা রহমানের বিরুদ্ধে বিএনপি জামায়াত সংশ্লিষ্টতা ও জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগ রয়েছে। মানবতাবিরোধী অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত আসামী সাকা চৌধুরীর আপন খালাতো বোন এই রেহানা রহমান। এর আগে একই অভিযোগে তলব করা হয় আরো দুই ট্রাস্টি এম এ কাসেম ও মোহাম্মদ শাহজাহানকে। তবে ২ জানুয়ারি সকালে তারা হাজির না হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে অসুস্থতার অজুহাত দেখিয়েছেন। মোহাম্মদ শাজাহান অসুস্থতার কারন দর্শান, অন্যদিকে এম এ কাসেম বার্ধক্যজনিত কারণে বিশ্রামে আছেন বলে আইনজীবী মারফত জানিয়েছেন। অথচ গত বুধবার তিনি সাউথ ইস্ট ব্যাংকের বোর্ড মিটিং এ সশরীরে উপস্থিত ছিলেন। অংশ নিয়েছেন নর্থ সাউথের ট্রাস্টি বোর্ডের সভাতেও। ফলে দুদকের ডাকে সাড়া না দেয়াকে ধৃষ্টতা ও আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন দাবি করেছেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে অভিযোগকারী সংগঠন আইন ও মানবাধিকার সুরক্ষা ফাউন্ডেশন এর উপদেষ্টা ড. সুফী সাগর সামস।
তিনি বলেন, ‘এম এ কাসেম ও মোহাম্মদ শাজাহান বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মিটিং, বিশ্ববিদ্যালয় মিটিংসহ সব ধরনের স্বাভাবিক কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছেন। কিন্তু দুদকে উপস্থিতির ক্ষেত্রে অসুস্থতার দোহাই দিলেন। আইনের ফাঁক গলিয়ে তারা আসলে সময় ক্ষেপণ করছেন। আমরা জানতে পেরেছি একই প্রক্রিয়ায় অভিযুক্ত ট্রাস্টিরাও দুদকে উপস্থিত না হওয়ার পরিকল্পনা করছেন। অন্যরা যাতে একই রকম অজুহাতে পার পেয়ে না যায় সে ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি প্রতিষ্ঠানকে বাঁচাতে দোষীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির কোনো বিকল্প নেই।’
জানা গেছে অভিযুক্তরা প্রত্যেকেই দুদককে এড়িয়ে চলার জন্য আইনজীবীদের পরামর্শে বিভিন্ন ফাঁক ফোকড় খুঁজছেন। এদিকে একই অভিযোগে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আরো দুই ট্রাস্টি আজিম উদ্দিন ও আজিজ আল কায়সার টিটোকে আগামী ৯ জানুয়ারি দুদকে তলব করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ট্রাস্টি বিদেশ ভ্রমণের উদ্দেশ্যে বিমান বন্দরে যাওয়ার পর তাকে সেখান থেকে ফেরত পাঠানো হয়।

নর্থ সাউথের আরও দুই ট্রাস্টি রেহেনা ও বেনজীরকে দুদকে তলব
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : অর্থ আত্মসাত, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য রেহেনা রহমান ও বেনজীর আহমেদকে তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ২৯ ডিসেম্বর দুদক উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে তাদের তলব করা হয়। ৪ জানুয়ারি মঙ্গলবার সকাল ১০টায় দুদক প্রধান কার্যালয়ে তাদের হাজির হয়ে বক্তব্য দিতে বলা হয়েছে। নোটিশে উল্লেখ করা হয়, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, এফডিআর করার নামে প্রতিষ্ঠানের অর্থ লোপাট, স্ত্রী, স্বজনদের চাকরি দেয়ার নামে অনৈতিক ভাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া, সরকারি শুল্ক ফাঁকি দিয়ে গাড়ি ক্রয় ও অবৈধভাবে বিলাসবহুল গাড়ির ব্যবহার এবং বিভিন্ন অনৈতিক সুযোগ-সুবিধা গ্রহণের আড়ালে প্রতিষ্ঠানের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, বসুন্ধরা, ঢাকার বোর্ড অব ট্রাস্টিজ-এর সদস্য রেহেনা রহমান ও বেনজীর আহমেদকে তলবের নোটিশ জারি করেছে দুদক। নোটিশে আরও উল্লেখ করা হয়, সুষ্ঠু অনুসন্ধানের স্বার্থে বর্ণিত অভিযোগ বিষয়ে তাদের বক্তব্য শ্রবণ ও গ্রহণ করা একান্ত প্রয়োজন বিধায় উল্লিখিত অভিযোগ বিষয়ে বক্তব্য প্রদানের লক্ষ্যে দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হয়ে অনুসন্ধান টিমের নিকট বক্তব্য প্রদানের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে হাজির হয়ে বক্তব্য প্রদানে ব্যর্থ হলে বর্ণিত অভিযোগ বিষয়ে তাদের কোনো বক্তব্য নেই মর্মে গণ্য করা হবে। অভিযুক্ত এম এ কাসেম ও রেহানা রহমানের বিরুদ্ধে বিএনপি জামায়াত সংশ্লিষ্টতা ও জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগ রয়েছে। মানবতাবিরোধী অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত আসামী সাকা চৌধুরীর আপন খালাতো বোন এই রেহানা রহমান। এর আগে একই অভিযোগে তলব করা হয় আরো দুই ট্রাস্টি এম এ কাসেম ও মোহাম্মদ শাহজাহানকে। তবে ২ জানুয়ারি সকালে তারা হাজির না হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে অসুস্থতার অজুহাত দেখিয়েছেন। মোহাম্মদ শাজাহান অসুস্থতার কারন দর্শান, অন্যদিকে এম এ কাসেম বার্ধক্যজনিত কারণে বিশ্রামে আছেন বলে আইনজীবী মারফত জানিয়েছেন। অথচ গত বুধবার তিনি সাউথ ইস্ট ব্যাংকের বোর্ড মিটিং এ সশরীরে উপস্থিত ছিলেন। অংশ নিয়েছেন নর্থ সাউথের ট্রাস্টি বোর্ডের সভাতেও। ফলে দুদকের ডাকে সাড়া না দেয়াকে ধৃষ্টতা ও আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন দাবি করেছেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়ে অভিযোগকারী সংগঠন আইন ও মানবাধিকার সুরক্ষা ফাউন্ডেশন এর উপদেষ্টা ড. সুফী সাগর সামস।
তিনি বলেন, ‘এম এ কাসেম ও মোহাম্মদ শাজাহান বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মিটিং, বিশ্ববিদ্যালয় মিটিংসহ সব ধরনের স্বাভাবিক কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছেন। কিন্তু দুদকে উপস্থিতির ক্ষেত্রে অসুস্থতার দোহাই দিলেন। আইনের ফাঁক গলিয়ে তারা আসলে সময় ক্ষেপণ করছেন। আমরা জানতে পেরেছি একই প্রক্রিয়ায় অভিযুক্ত ট্রাস্টিরাও দুদকে উপস্থিত না হওয়ার পরিকল্পনা করছেন। অন্যরা যাতে একই রকম অজুহাতে পার পেয়ে না যায় সে ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা। নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি প্রতিষ্ঠানকে বাঁচাতে দোষীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির কোনো বিকল্প নেই।’
জানা গেছে অভিযুক্তরা প্রত্যেকেই দুদককে এড়িয়ে চলার জন্য আইনজীবীদের পরামর্শে বিভিন্ন ফাঁক ফোকড় খুঁজছেন। এদিকে একই অভিযোগে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আরো দুই ট্রাস্টি আজিম উদ্দিন ও আজিজ আল কায়সার টিটোকে আগামী ৯ জানুয়ারি দুদকে তলব করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ট্রাস্টি বিদেশ ভ্রমণের উদ্দেশ্যে বিমান বন্দরে যাওয়ার পর তাকে সেখান থেকে ফেরত পাঠানো হয়।

প্রধানমন্ত্রীর সব চিন্তার কেন্দ্রবিন্দু দেশের উন্নয়ন: পরিকল্পনামন্ত্রী
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : পরিকল্পনামন্ত্রী এম.এ. মান্নান বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুসারে আমরা পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছি। তার সব চিন্তার কেন্দ্রবিন্দু হচ্ছে বাংলাদেশের সার্বিক ও সব মানুষের উন্নয়ন। শহর, গ্রাম, হাওড়, বিল, খাল, পুকুর ও পাহাড় সব পর্যায়ের, সব এলাকার মানুষ যাতে আমাদের উন্নয়ন ভোগ করতে পারে, সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। গতকাল শুক্রবার দুপুরে চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার মোহনপুর পর্যটন লি. রিসোর্টে ঢাকাস্থ উত্তরা সিলেট সমিতি আয়োজিত রজতজয়ন্তী উৎসব ও প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক সাধারণ সভায় সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন তিনি। মন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পরে আমাদের সংবিধানে ঘোষণা ছিল বাংলাদেশ পরিকল্পনা অনুসারে এগিয়ে যাবে। কিন্তু সামরিক শাসকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে উন্নয়নের পরিকল্পনা থেকে সরে যায়। এরপর ২০০৯ সালে আবার আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে এবং আমরা প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে পরিকল্পনা অনুসারে এগিয়ে যাচ্ছি। ২০৪১ সালে আমরা উন্নত দেশে পরিণত হব। ঢাকাস্থ উত্তরা সিলেট সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ শামস উল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম। তিনি বলেন, পরিকল্পনা অনুযায়ী বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যত্যয় ঘটেছিল। ক্ষমতায় আসার পর প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রথম রূপকল্প দেন ২০১০-২০২১। যে রূপকল্পে বলা হয়েছে, আমরা মধ্যম আয়ের দেশ হব। তাতে বলা হয়েছে আমাদের মাথাপিছু আয় ২ হাজার ডলার হবে। সে অনুসারে আমাদের মাথা পিছু আয় ২০৫৪ ডলারে দাাঁড়িয়েছে। এত দ্রুত আমাদের অগ্রগিতর কারণ হচ্ছে বাংলাদেশ পরিকল্পনা অনুসারে এগিয়ে যাচ্ছে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হব, সেই পরিকল্পনাও করা আছে। সে অনুসারে ২০৩১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হত দারিদ্রমুক্ত দেশ হবে। একই সময়ের মধ্যে আমরা উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ হব। দেশ শেখ হাসিনার হাতে থাকলে দ্রুত এগিয়ে যাবে এবং আমাদের লক্ষ্য অর্জিত হবে। ২০৪১ সালে আমাদের মাথাপিছু আয় হবে সাড়ে ১৬হাজার মার্কিন ডলার। এ সময় চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) অঞ্জনা খান মজলিশ, পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মিলন মাহমুদসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আমাদের কৃষির উন্নয়ন অব্যাহত থাকলে সারা বিশ্বে প্রতিযোগীতায় যেতে পারবো : কৃষিমন্ত্রী
                                  

মোক্তার হোসেন, গাজীপুর : আমাদের কৃষির উন্নয়ন যেভাবে এগিয়ে চলেছে, তা অব্যহত থাকলে ইনশায়াল্লাহ আমরা সারা বিশ্বে প্রতিযোগীতায় যেতে পারবো। আমরা মনে করি কৃষিতে উৎপাদন বৃদ্ধি করে শুধু স্বয়ংসম্পন্ন নয়, উদ্বৃত্ত হবো। উদ্বৃত্ত বিভিন্ন ফসল, বিশেষ করে যেগুলোকে হাই ভ্যালূ ক্রপ বা অর্থকরী ফসল বলা হয়, সেইসব বিভিন্ন ফসল, শাকসব্জি, ফলমূল, প্রক্রিয়াজাত করে আমরা বিদেশে রপ্তানী করবো। এ ব্যাপারে কৃষি মন্ত্রণালয় সর্বাত্মক চেষ্টা করছে।
তিনি বলেন, নতুন জাত ও প্রযুক্তি উদ্ভাবনে বিজ্ঞানীদের পাশাপাশি কৃষি শ্রমিকদের গুরুত্বপুর্ণ অবদান রয়েছে। বিজ্ঞানীদের মেধা ও মনন আর কৃষি শ্রমিকদের শ্রম ও ঘামে দেশে শতাধিক উচ্চফলনশীল ধানের জাত উদ্ভাবন করতে সক্ষম হয়েছে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট। যা দেশের খাদ্য নিরপত্তায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। শুক্রবার দুপুরে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) ক্যাম্পাসে আধুনিক শ্রমিক কলোনী বহুতল বিশিষ্ট ভবন উদ্বোধন করতে গিয়ে কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এসব কথা বলেছেন।
মন্ত্রী বলেন, আমাদের লক্ষ্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ক্ষুধামুক্ত ও দারিদ্রমুক্ত একটি সমৃদ্ধশালী উন্নত বাংলাদেশ গড়ার। এটা সম্ভব হলে জাতিকে নিয়ে আমরা পৃথিবীতে গর্ব করে ও অহংকার করে কথা বলতে পারবো। ইনশাল্লাহ এই লক্ষ্য অর্জনে কৃষি সবসময়ই ভূমিকা রেখেছে। আরো অনেক বেশি ভূমিকা রাখবে।
কৃষি মন্ত্রী আরো বলেন, বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইস্তেহারে প্রতিশ্রুতি ছিল কৃষিকে আধুনিকীকরণ, কৃষিকে বাণিজ্যিকীকরণ এবং কৃষি থেকে কৃষকের আয় বৃদ্ধি করে তাদের জীবনযাত্রার মান বৃদ্ধি করা। কৃষকরা যেন তাদের সন্তানদেরকে পুষ্টি সম্মত খাবার দিতে পারে, উন্নত জীবন যাপনের ব্যবস্থা করে দিতে পারে। বাজারে দুধ, মাছ. মাংস পাওয়া গেলেও তারা তা কিনে তা খেতে পারে না। এগুলো যাতে তারা কিনে খেতে পারে এবং তাদের আয় বৃদ্ধি পায়, সেই উদ্যোগ নেওয়া। এ প্রযুক্তির মাধ্যমে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি পেলে আমরা আন্তর্জাতিক বাজারে রপ্তানী করে আরো আয় বৃদ্ধি করবো। এতে কৃষক লাভবান হবে, দেশ ও জাতি লাভবান হবে।
মন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশ ধান গবেষা ইনস্টিটিউট একটি গর্বের প্রতিষ্ঠান। ব্রি’র বিজ্ঞানীরা অনেক গবেষণা করে বাংলাদেশের জন্য উপযোগী একটি কম্বাইন্ড হারভেস্টার অর্থাৎ ধান কাটার মেশিন নিজেরাই উদ্ভাবন করেছে। এ মেশিন দিয়ে স্বল্প জমির ধান অল্প সময়ে কাটা সম্ভব। এটির ইঞ্জিন শুধু দেশের বাহির থেকে আনা হয়েছে। বাকী সকল যন্ত্রাংশ স্থানীয়ভাবে উৎপাদন করা হয়েছে। এটি তৈরিতে ইতোমধ্যে আমাদের দেশের ৭/৮ ম্যানুফেকচারিং কোম্পানীর সহযোগীতা নেয়া হয়েছে। এ মেশিনের মাধ্যমে ৩ থেকে ৪ বিঘা জমির ফসল প্রতি ঘন্টায় কাটা সম্ভব। এর হারভেস্টি লস শতকরা এক ভাগেরও কম। দেশে তৈরী এ মেশিনের দাম পড়বে ১২ থেকে ১৩ লাখ টাকা। অথচ কোরিয়া, চীন ও জাপানসহ অন্য দেশের একই ধরণের মেশিনের মূল্য ২৫ থকে ৩০ লাখ টাকা। আমরা যদি ব্রি’র বিজ্ঞানীদের এ প্রযুক্তি তথা যন্ত্রটি ব্যবহার করতে পারি তবে এটি হবে ব্রি’র বিজ্ঞানীদের জন্য অসাধারণ সাফল্য। বাংলাদেশের যান্ত্রিকীকরণে এটি একটি বিপ্লব ঘটাবে। কৃষির উৎপাদন বৃদ্ধিতে এবং কৃষিকে লাভজনক করার জন্য এটি অনন্য অবদান রাখবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট একশ’রও বেশী ধানের জাত বাংলাদেশকে দিয়েছে। লবণাক্ততা, পানির জলমগ্নতাসহ বিভিন্ন প্রতিকূল পরিবেশে যাতে ধানের ভাল আবাদ করা যায় সেধরনের ধানের জাত আমরা পেয়েছি। আগের যে জাতগুলো বাংলাদেশের ধান উৎপাদন বৃদ্ধিতে বিপ্লব ঘটিয়েছে তার চেয়েও অনেক বেশী উৎপাদনশীল জাত ব্রি’র বিজ্ঞানীরা এখন আবিষ্কার করেছেন। আমাদের বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটও গম, ভুট্টা, শাকসব্জি ফলমূলসহ প্রতিটি ফসলে নতুন নতুন প্রযুক্তি দিচ্ছে। উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য উন্নত জাত এবং কম খরচে কিভাবে বেশী উৎপাদন করা যায় সেগুলো আমরা উদ্ভাবন করেছি।
এর আগে কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক ব্রি ক্যাম্পাসে স্থাপিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যূরালে পুষ্পস্তবক অর্পন করেন। তিনি ব্রি কর্তৃক সম্প্রতি উদ্ভাবিত নতুন (ধান কাটার মেশিন) কম্বাইন্ড হার্ভেস্টার প্রযুক্তি পরিদর্শন করেন। এসময় ব্রি মহাপরিচালক মো. শাহজাহান কবির মন্ত্রীকে ব্রি উদ্ভাবিত ধান কাটা ও মাড়াই যন্ত্র ‘ব্রি হোল ফিড কম্বাইন হারভেস্টার’ সম্বন্ধে বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করেন। পরে মন্ত্রী বেলুন উড়িয়ে এবং ফিতা কেটে শ্রমিক কলোনীর নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন করেন। এরপর কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক ব্রি ক্যাম্পাসে আয়োজিত কৃষি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারী কল্যান সমিতির বার্ষিক পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠানে যোগদান করেন।
এসময় তার সঙ্গে ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব (বিদায়ী) মেজবাহুল ইসলাম, নবনিযুক্ত কৃষি সচিব সাইদুল ইসলাম, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ার, গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলাম, ব্রি’র মহাপরিচালক শাহজাহান কবিরসহ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব, যুগ্মসচিব, উপসচিব এবং ব্রি’র বিজ্ঞানী, কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।

শপথ নিলেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের ২৩তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নিয়েছেন বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। দেশের বিচারাঙ্গনের শীর্ষ এই পদে হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের স্থলাভিষিক্ত হলেন। গতকাল শুক্রবার বিকাল ৪টায় বঙ্গভবনের দরবার হলে নতুন প্রধান বিচারপতিকে শপথ বাক্য পাঠ করান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শপথ শেষে নিয়ম অনুযায়ী শপথনামায় স্বাক্ষর করেন নতুন প্রধান বিচারপতি। এর আগে বৃহস্পতিবার বিকালে আপিল বিভাগের বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীকে নতুন প্রধান বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে আইন মন্ত্রণালয়। করোনার কারণে এবার প্রধান বিচারপতির শপথ অনুষ্ঠান সীমিত পরিসরে আয়োজন করা হয়। বঙ্গভবনের দরবার হলে এবার সর্বোচ্চ ৬০ জনের আসন ব্যবস্থা করা হয়। শপথ অনুষ্ঠান শুরুর কিছুক্ষণ আগে নির্ধারিত পোশাকে বঙ্গভবনের দরবার হলে প্রবেশ করেন নতুন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। তার কিছুক্ষণ পরই একসঙ্গে সেখানে প্রবেশ করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শপথ অনুষ্ঠানের মঞ্চে রাষ্ট্রপতি দাঁড়ালে নিয়ম অনুযায়ী জাতীয় সঙ্গীত বাজানো হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলামের পরিচালনায় শপথ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন, তিন বাহিনী প্রধান, অ্যাটর্নি জেনারেল, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, উচ্চ আদালতের দুই বিভাগের বিচারপতিরা।

মোংলা বন্দরে ১৩৭২ কোটি টাকার ১৫ প্রকল্প বাস্তবায়ন
                                  

মনির হোসেন, মোংলা : দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম আন্তর্জাতিক সমুদ্র বন্দর মোংলার উন্নয়নে বর্তমান সরকাররের অগ্রাধিকার ভিত্তিক ১৫ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। গত ১২ বছরে এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে সরকারের মোট ব্যয় হয়েছে ১৩৭২ কোটি ৬৭ লাখ ৩১ হাজার টাকা। প্রকল্পের সংখ্যা (জিওবি অর্থায়নে) এবং বরাদ্দে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে মোংলা বন্দর। বন্দরের কন্টেইনার ও কার্গো হ্যান্ডলিং এর সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মোংলা বন্দরের জন্য অত্যাবশ্যকীয় “যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামাদি সংগ্রহ” শীর্ষক প্রকল্পের অধীনে মোট ৭৫ টি ইকুইপমেন্ট কেনা হয়েছে যা বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে। বন্দর কর্তৃপক্ষের পরিকল্পনা প্রধান মো. জহিরুল হক জানান, ২০০৯ সালের মে মাস হতে ২০২১ সাল পর্যন্ত সময়ে মোংলা বন্দরের উন্নয়নে ১৩৭২ কোটি ৬৭ লাখ ৩১ হাজার টাকা ব্যয়ে মোট ১৫টি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, বন্দরে ৯ দশমিক ৫ থেকে ১০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ হ্যান্ডলিং এর জন্য আউটার বারে ড্রেজিং কাজ সমাপ্ত হয়েছে এবং ইনার বারে ২৩ কিলোমিটার ড্রেজিং কাজ চলমান।
আউটারবারে ড্রেজিং কাজ সম্পন্ন হওয়ায় মোংলা বন্দরের অ্যাংকোরেজে ইতিমধ্যে ৯ মিটারের অধিক ড্রাফটের জাহাজ হ্যান্ডেল করা হচ্ছে। বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন, কোভিড-১৯ নামক মহামারির মধ্যে সারাদেশে যখন ব্যবসা বাণিজ্য স্থবির হয়ে পড়েছিল তখন মোংলা বন্দর লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম করে ২০২০-২০২১ অর্থবছরে ৯৭০ টি জাহাজ, ১১৯ দশমিক ৪৫ লাখ মেট্রিকটন কার্গো, ৪৩ হাজার ৯৫৯ টিইইউজ কন্টেইনার হ্যান্ডেল এবং ৩৪০ কোটি টাকা রাজস্ব আয় হয়েছে, যা বন্দরের ৭০ বছরের ইতিহাসের সর্বোচ্চ রেকর্ড। তিনি আরো বলেন, বন্দর কেন্দ্রিক অন্যান্য অবকাঠামোসহ পদ্মা সেতু নির্মিত হলে রাজধানী ঢাকার সাথে মোংলা বন্দরের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হবে। ফলে বন্দরের ব্যবহার বহুগুনে বেড়ে যাবে। এ বিবেচনায় ভবিষ্যত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য মোংলা বন্দরকে আরো সক্ষম করে তোলার প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে।

পাটকল কর্মচারী-কর্মকর্তাদের অবসর পরবর্তী পাওনা পরিশোধের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : পাটকল কর্মচারী-কর্মকর্তাদের অবসর পরবর্তী পাওনা পরিশোধের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় মানবিক বিবেচনায় অবসর পরবর্তী বকেয়া পাওনা পরিশোধের দাবি জানান তারা। সংগঠনের আহ্বায়ক ইসরাফীল খান লিখিত বক্তব্যে জানান, ২০১৩ সালের ৩০ জুন থেকে ২০২১ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত চাকরি থেকে বিজিএমসি’র অধীনস্থ বিভিন্ন মিলের প্রায় ২ হাজার ১০০ কর্মচারী-কর্মকর্তা অবসর গ্রহণ করেছেন। অবসর গ্রহণের ৮/৯ বৎসর অতিবাহিত হলেও এই দীর্ঘসময়ের মধ্যে কর্মচারী-কর্মকর্তাদের সার্ভিস বেনিফিট গ্র্যাচুইটি (পিএফ) পরিশোধের কোন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। ফলে বেশিরভাগ কর্মচারী-কর্মকতারা টাকার অভাবে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। তারা সন্তানের লেখাপড়া, বিয়ে দেয়া, অসুস্থ মা-বাবাসহ পরিবার পরিজনের গুরুতর অসুস্থদেরকেও চিকিৎসা করাতে পারছেন না। সংবাদ সম্মেলনে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল কর্পোরেশন অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী-কর্মকর্তারা অবিলম্বে গ্র্যাচুইটিসহ সমুদয় পাওনাদি পরিশোধ, যে সকল অডিট আপত্তিসমূহ অনিষ্পত্তি রয়েছে তা ইতোপূর্বে সংস্থার নিয়ম মোতাবেক নিষ্পত্তি পূর্বক পাওনা পরিশোধের ব্যবস্থা এবং যে সকল মামলা-মোকদ্দমা অনিষ্পত্তি রয়েছে তা নিষ্পত্তি করে পাওনা পরিশোধের ব্যবস্থা করার দাবি জানান। সংগঠনের সদস্য সচিব মো. জাহাঙ্গীর হোসেনসহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

দেশে স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা নিশ্চিত করেছি
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : অন্য সরকারগুলোর মতো আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার বিচার বিভাগে কখনও হস্তক্ষেপ করেনি বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘বিচার বিভাগের অধিকার-উন্নয়নের জন্য বা দেশের মানুষের জন্য কী করেছি সেটা আর আমি এত বেশি বলতে চাই না। তবে আমি এটুকু বলবো, যেহেতু আমার বাবা চাইতেন স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা, আমরা সরকারে এসে সেই স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা নিশ্চিত করেছি।’ মঙ্গলবার বিকালে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট প্রকাশিত ‘বঙ্গবন্ধু ও বিচার বিভাগ’ শীর্ষক স্মারকগ্রন্থ এবং ‘ন্যায় কন্ঠ’ শীর্ষক মুজিববর্ষ স্মরণিকার মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা কখনও বিচার কাজে হস্তক্ষেপ করিনি। এর আগে অনেক ঘটনা আছে, আপনারা জানেন। দেখা গেছে, ফলস সার্টিফিকেটের ব্যবহার বা ছাত্রদলের কাঁধে হাত রেখে কাকে কী রায় দেওয়া হবে সেটা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এ রকম বহু ন্যাক্কারজনক ঘটনাও বাংলাদেশে ঘটেছে।’ ‘অন্তত আমি এটুকু বলতে পারি আমরা সরকারে আসার পর, সেটা করার সুযোগ নিইনি। সব সময় একটা ন্যায়ের পথে যেন সবাই চলতে পারে, আমরা সেই ব্যবস্থা করেছি।’ স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরে টানা তিনবারের সরকারপ্রধান বলেন, ‘প্রতিটি ক্ষেত্রে আপনারা দেখবেন একের পর এক আমরা কাজ করে গেছি। দ্বিতীয়বার যখন এসেছি, তখন আমরা দ্য কোর্ট অব ক্রিমিনাল প্রসিডিউর অ্যামেন্ডমেন্ট অ্যাক্ট–২০০৯ পাস করি এবং বিচার বিভাগ পৃথিকীকরণের স্থায়ী রূপ দিই।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এমনকি অর্থনৈতিকভাবেও যেন বিচার বিভাগ স্বাধীনতা অর্জন করে সেই ব্যবস্থাটাও কিন্তু আমি ‘৯৬ সালে এসে করে দিয়েছিলাম। পরে এসে সব রকম সুযোগ সুবিধা বাড়ানোর উদ্যোগ নিই। এর মাঝে আপনারা জানেন, বিভিন্ন জেলায় বোমা মেরে বিচারকদের হত্যা করা হয়েছে। সেখানে আমরা তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের ব্যবস্থা করে দিয়েছি।’ শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের সব সময় বিশ্বের সঙ্গে তালমিলিয়েই চলতে হবে। আমাদের দেশটাও যেমন বিশ্বে একটা মর্যাদা নিয়ে চলবে, সঙ্গে সঙ্গে একটি দেশের সব অঙ্গগুলোও যেন সেইভাবে মর্যাদা নিয়ে চলতে পারে, আমরা সেটাই করতে চাই। সেভাবেই আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি।’ বিচারকদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিচারকদের থাকার ব্যবস্থা, চলার ব্যবস্থা; সব ধরনের ব্যবস্থা, সুযোগ সুবিধা আমরা সাধ্যমতো করে দিয়েছি।’ বিচারকদের দক্ষতা বাড়াতে দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের সুযোগ সৃষ্টির কথা তুলে ধরে সরকারপ্রধান বলেন, ‘আইন কমিশন আমরা গঠন করি। বিচারকদের দক্ষতা বাড়াতে প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট আমি প্রতিষ্ঠা করে দিই। এখনতো পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ট্রেনিং নেওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছি। অন্য দেশে কীভাবে হয় সেটা আমাদের দেশের মানুষের জানা উচিত, সেই ব্যবস্থাটাও আমরা করে দিয়েছি।’
গ্রামের হতদরিদ্র মানুষের বিচার পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে সরকারের উদ্যোগের কথা তুলে ধরে বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘গ্রামের হতদরিদ্র মানুষ বিচার পায় না। তাদের জন্য লিগাল এইড কমিটি ও আলাদা অর্থ বরাদ্দ করে বিচারের ব্যবস্থাটা আমরা করে দিয়েছি। আইনগত সহায়তা ২০০০ সালে আমরা প্রণয়ন করি।’
অবকাঠামোগত উন্নয়নের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেখানে মাত্র হাতে গোনা ৭ জনের বেশি বিচারক বসতে পারতেন না, এনেক্স ভবন করে দিয়েছি। ৪০টি চেম্বারের ব্যবস্থা করে দিলাম। পাশাপাশি প্রত্যেকটা জেলা কোর্টগুলো নতুনভাবে গড়ে তোলা হলো। এরপর এসে তো আরও কাজ করে দিয়ে গেছি সেটা আপনারা জানেন। অর্থাৎ মানুষ যেন ন্যায় বিচার পায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখা।’
উচ্চ আদালতে নারী বিচারক নিয়োগে নিজের প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পাকিস্তান আমলে যে আইন ছিল সেখানে বিচার প্রক্রিয়ায় নারীরা অংশগ্রহণ করতে পারবে না। জাতির পিতা সেই আইন পরিবর্তন করে সুযোগ দিলেন। কিন্তু আমি এসে দেখলাম আমাদের উচ্চ আদালতে কোনও নারী নেই। আমি প্রধান বিচারপতি ও রাষ্ট্রপতিকে নারীদের সুযোগ দেওয়ার অনুরোধ করলাম।’
অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ছাড়াও অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

সাংবাদিক রিয়াজউদ্দিন আহমেদকে জাতীয় প্রেসক্লাবে শ্রদ্ধা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : একুশে পদকপ্রাপ্ত জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক, দ্য ফিন্যান্সিয়াল হেরাল্ডের সম্পাদক রিয়াজউদ্দিন আহমেদের লাশ জাতীয় প্রেসক্লাবে নেওয়া হয়। রোববার বেলা ১১টার দিকে তার লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স প্রেসক্লাব চত্বরে পৌঁছায়। এর পর সেখানে তার প্রথম জানাজা হয়। জানাজায় অংশ নেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতিসহ বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকরা। জানাজা শেষে জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন ও সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খানের নেতৃত্বে জাতীয় প্রেসক্লাবের নেতারা রিয়াজউদ্দিনের কফিনে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। এ ছাড়া বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে তার কফিনে ফুলেল শ্রদ্ধা জানানো হয়। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে রিয়াজউদ্দিন আহমেদের লাশ নিয়ে যাওয়া হয় তার জন্মস্থান নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলার গ্রামের বাড়িতে। সেখানে জোহর নামাজের পর তার দ্বিতীয় জানাজা হয়। এর পর শেষ জানাজা হয় রাজধানীর বনানীর বাসভবনে। বাদ আসর সেখানে জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। গত শনিবার রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মারা যান একুশে পদকপ্রাপ্ত এ সাংবাদিক। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রিয়াজউদ্দিন আহমেদ ইউনাইটেড হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি ছিলেন। দ্য ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেস এবং দি নিউজ টুডে পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা ও সম্পাদক ছিলেন রিয়াজউদ্দিন আহমেদ। এ ছাড়া তিনি জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি, অবিভক্ত ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এবং বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ছিলেন। সাংবাদিকতায় গৌরবময় অবদানের জন্য ১৯৯৩ সালে রিয়াজউদ্দিন আহমেদ একুশে পদক লাভ করেন।

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত রিপোর্ট ৮৪ বার পেছালো
                                  

কোর্ট রিপোর্টার : সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের সময় ৮৪তম বারের মতো পিছিয়েছে। আগামী ২৪ জানুয়ারি নতুন করে দিন ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল রোববার ঢাকার মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারী এ দিন নির্ধারণ করেন। আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) মোহাম্মদ জালাল বিষয়টি সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন নির্ধারিত ছিল। কিন্তু তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র?্যাব) সহকারী পুলিশ সুপার ওয়ারেছ আলী মিয়া তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল না করায় বিচারক এ আদেশ দেন। মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় নির্মমভাবে খুন হন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি। পরের দিন ভোরে তাঁদের ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় রুনির ভাই বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেন। মামলার পর রুনির কথিত বন্ধু তানভীর রহমানসহ মোট আটজনকে আটক করা হয়। বাকিরা হলেন রফিকুল ইসলাম, বকুল মিয়া, মিন্টু ওরফে বারগিরা মিন্টু ওরফে মাসুম মিন্টু, কামরুল হাসান অরুণ, পলাশ রুদ্র পাল, তানভীর, আবু সাঈদ ও বাড়ির নিরাপত্তারক্ষী এনাম আহমেদ ওরফে হুমায়ুন কবির। এর মধ্যে মধ্যে পলাশ রুদ্র পাল ও তানভীর রহমান জামিনে রয়েছেন।

প্রবীণ সাংবাদিক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ আর নেই
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রবীণ সাংবাদিক, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দ্য ফিনান্সিয়াল হেরাল্ডের সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ আর নেই। গতকাল শনিবার দুপুর দেড়টায় রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন তিনি (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৭ বছর। তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে, ১ মেয়ে, নাতি-নাতনি, আত্মীয়-স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। রিয়াজউদ্দিন আহমেদের পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে, সম্প্রতি তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। প্রাথমিকভাবে তিনি বাসায় চিকিৎসা নেন। পরবর্তীতে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ১৬ই ডিসেম্বর রাতে তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছিল। আজ রোববার বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে মরহুমের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর দুপুরে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে তাঁকে দাফন করা হবে। রিয়াজউদ্দিন আহমেদের জন্ম ১৯৪৫ সালে নরসিংদীর মনোহরদী উপজেলার নারান্দী গ্রামে। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৭ সালে অর্থনীতিতে এমএ ও ১৯৭২ সালে এলএলবি পাস করেন। কিছুদিন অধ্যাপনা শেষে ১৯৬৮ সালে তিনি পাকিস্তান অবজারভার পত্রিকায় যোগ দেন। ১৯৭০ সালে তৎকালীন পূর্ব-পাকিস্তান সাংবাদিক ইউনিয়নের কার্যকরী পরিষদের সদস্য ছিলেন। ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ পাকিস্তান অবজারভারের চাকরি ত্যাগ করে মুক্তিযুদ্ধে সহযোগিতা করেন। স্বাধীনতার পর আবারও অবজারভারে যোগ দেন। সেখানে তিনি ১৯৯০ সালের নভেম্বর পর্যন্ত কাজ করেন। এদিকে রিয়াজ উদ্দিন আহমেদের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠু ও সাধারণ সম্পাদক ডা. নূরুল ইসলাম হাসিব। এক বিবৃতিতে তারা মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।

জ্বালানি তেল নিয়ে জ্বালায় পড়েছে বিশ্ব, বিপাকে বাংলাদেশও
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : বিশ্ববাজারে তেলের দাম বাড়লে বাংলাদেশেও বাড়ানো হয়। কিন্তু কমে গেলে সবসময় কমানো হয় না। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম ৮৫ ডলারেরও বেশি বেড়ে গেলে গত মাসে ডিজেল কেরোসিনের মূল্য লিটারে ১৫ টাকা বাড়িয়ে দেয় সরকার। এই মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয় এবং অতিরিক্ত দাম বৃদ্ধির যৌক্তিকতা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। এ অবস্থায় বাংলাদেশে যে পদ্ধতিতে তেলের মূল্য নির্ধারণ হয় সে ব্যবস্থা সংস্কার করা প্রয়োজন বলে অনেকে মনে করেন। জানা যায়, জ্বালানি তেল আমদানি ও বিপণনের রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন জ্বালানি তেলের দাম আরও বৃদ্ধির চিন্তাভাবনা করছে। সরকার নির্ধারিত আগের দরে ডিজেল বিক্রি করতে গিয়ে এখন তাদের প্রতি লিটারে ১৩ থেকে ১৪ টাকা লোকসান হচ্ছে বলে জানা গেছে। বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের দাম কত টাকা হবে - সেটি একচেটিয়াভাবে নির্ধারণ করে সরকার। জ্বালানি মন্ত্রণালয় সূত্রে গত ২০ বছরে বাংলাদেশে ১৭ বার ডিজেলের দামে সমন্বয় হয়েছে। যার মধ্যে ১৩ বার বেড়েছে আর কমেছে মাত্র ৪ বার। জ্বালানি বিশেষজ্ঞ, ভোক্তা সাধারণ এবং অর্থনীতির গবেষক সবাই সর্বশেষ সরকারের নির্বাহী আদেশে তেলের মূল্য বৃদ্ধির বিরোধিতা করেছে। এই মূল্য বৃদ্ধি অযৌক্তিক বলেও সবাই মতামত দিয়েছে। তেলের মূল্য বৃদ্ধির কারণে ভাড়া বৃদ্ধি আর দ্রবমূল্য বেড়ে যাওয়ায় এ নিয়ে প্রতিবাদও হয়েছে অনেক। অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম আগামী কয়েক বছরে সহনীয় পর্যায়ে আসবে না বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে। পরিস্থিতি বরং উল্টো। আগামী ২০২৩ সালের মধ্যে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ১০০ ডলারের গণ্ডি স্পর্শ করতে পারে। নভেল করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ প্রবাহ সত্ত্বেও পণ্যটির বাজারদরে এমন ঊর্ধ্বগতির কথা জানিয়েছে গোল্ডম্যান স্যাকস। জ্বালানি তেল রফতানিকারক দেশগুলোর জোট ওপেক অবশ্য বলছে ভিন্ন কথা। ওপেকের মতে, করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন জ্বালানি তেলের বাজারে খুব বেশি প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না। তাই আগামী বছর চাহিদা ও ব্যবহার কমার সম্ভাবনা নেই। জোটটি জ্বালানি পণ্যটির ব্যবহার মহামারীপূর্ব ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরে যাওয়ার যে পূর্বাভাস দিয়েছিল, তাতে অটল।
গত মাসে দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম ওমিক্রন শনাক্ত হয়। তখন অপরিশোধিত জ¦ালানি তেলের চাহিদায় ধস নামার আশঙ্কায় দরপতন ঘটে। তবে চলতি মাসে আবারো কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী হয়ে উঠেছে পণ্যটির দাম। ফলে বাজার পরিস্থিতি নিয়ে আশাবাদী হয়ে উঠেছে ওপেক। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, বিশ্বকে উচ্চমাত্রার ঝুঁকির মধ্যে ঠেলে দিয়েছে ওমিক্রন। এটি করোনার অন্য যেকোনো ধরনের চেয়ে ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। সম্প্রতি মাসভিত্তিক প্রতিবেদনে ওপেক জানায়, আগামী বছরের প্রথম প্রান্তিকে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক চাহিদা গড়ে দৈনিক ৯ কোটি ৯১ লাখ ৩০ হাজার ব্যারেলে পৌঁছতে পারে। গত মাসের পূর্বাভাসের তুলনায় চাহিদার পরিমাণ দৈনিক ১১ লাখ ১০ হাজার ব্যারেল করে বাড়ানো হয়েছে।

নিহতদের পরিবারকে দেড় লাখ টাকা সহায়তার ঘোষণা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে দেড় লাখ টাকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। গতকাল শুক্রবার বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দগ্ধ ব্যক্তিদের দেখার পর সাংবাদিকদের এ কথা জানান প্রতিমন্ত্রী। এদিকে বরগুনা জেলা প্রশাসনে পক্ষ থেকে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, নিহতদের মরদেহ দাফনে প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে। জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান শুক্রবার গণমাধ্যমকে বলেন, যেহেতু লঞ্চটি বরগুনায় আসছিল, নিহত ও আহতদের অধিকাংশ এ জেলার বাসিন্দা হবেন। নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে আর আহতদেরকে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত আর্থিক সহায়তা আমরা জেলা প্রশাসন থেকে দেব। প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে প্রায় চারশ যাত্রী নিয়ে বরগুনার উদ্দেশ্যে লঞ্চটি ঢাকা সদরঘাট থেকে ছেড়ে যায়। চাঁদপুর ও বরিশাল টার্মিনাল লঞ্চটি থামে এবং যাত্রী উঠা-নামা করে। ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে পৌঁছলে রাত ৩টার দিকে এতে আগুন ধরে যায়। পরে ঝালকাঠি সদর উপজেলার ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের দিয়াকুল এলাকায় নদীর তীরে লঞ্চটি ভেড়ানো হয়। লঞ্চ থেকে প্রাণ বাঁচাতে নদীতে ঝাঁপিয়ে পড়েন যাত্রীদের অনেকে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা নৌকা নিয়ে লঞ্চের আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন তারা। ঝালকাঠির অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক নাজমুল আলম নবীন জানিয়েছেন, এ দুর্ঘটনায় এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। ৭১ জনকে আহত ও দগ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বিজিবি সদস্যদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী: সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যদের দেশপ্রেম, সততা ও শৃঙ্খলার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আপনাদের কাছে আমার প্রত্যাশা— আপনারা দেশপ্রেম, সততা ও শৃঙ্খলার সঙ্গে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করবেন। রোববার সকালে ‘বিজিবি দিবস-২০২১’ উদযাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। রাজধানীর পিলখানায় বিজিবি সদর দপ্তরে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি যোগ দেন তিনি। প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বিজিবি সদস্যদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মনে রাখবেন, শৃঙ্খলা ও চেইন অব কমান্ড বাহিনীর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চালিকাশক্তি। কখনও শৃঙ্খলার ব্যাঘাত ঘটাবেন না। তাতে নিজেদেরই ক্ষতি। চেইন অব কমান্ড মেনে চলবেন। কর্তৃপক্ষের আদেশ মেনে চলা শৃঙ্খলা বাহিনীর অবশ্য কর্তব্য। তিনি আরও বলেন, আমার বিশ্বাস, জাতির পিতার প্রত্যাশিত আধুনিক সীমান্তরক্ষী বাহিনী হিসেবে বিজিবি এগিয়ে যাবে তার অভীষ্ট লক্ষ্যে ও দেশের মানুষের আস্থার প্রতীক হয়ে সীমান্তের অতন্দ্রপ্রহরী হিসেবে অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখবে। প্রধানমন্ত্রী বিজিবি সদস্যদের কুচকাওয়াজ প্রত্যক্ষ করেন। এ সময় তাকে একটি সুসজ্জিত দল অভিবাদন জানায়। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বিজিবি সদস্যদের বীরত্বপূর্ণ কাজের স্বীকৃতি পদক বিতরণ করেন। অনুষ্ঠানে বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিজিবি সদর দপ্তরে বিজিবি সম্মেলনকেন্দ্রের উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনারা ঐতিহ্যবাহী বিজিবির গর্বিত সদস্য। এ বাহিনীর রয়েছে ২২৬ বছরের গৌরবময় ইতিহাস। ১৭৯৫ সালে রামগড় লোকাল ব্যাটালিয়ন নামে প্রতিষ্ঠার পর থেকে কালের পরিক্রমায় এ বাহিনী আজ একটি সুসংগঠিত সীমান্তরক্ষী বাহিনীতে পরিণত হয়েছে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ শুরুর প্রথম প্রহরেই এ বাহিনীর সদস্যরা পাকসেনাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে পিলখানা থেকে তৎকালীন ইপিআরের বেতারকর্মীরা বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা ওয়্যারলেসের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছে দেন। তৎকালীন ইপিআর প্রচার করায় পাকবাহিনীর হাতে প্রাণ দেন ইপিআরের সুবেদার মেজর শওকত আলী। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইপিআরের প্রায় সাড়ে ১২ হাজার বাঙালি সৈনিক সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন এবং ৮১৭ জন শাহাদত বরণ করেন। ইপিআরের দুজন বীরশ্রেষ্ঠ শহিদ ল্যান্সনায়েক নুর মোহাম্মদ শেখ ও শহিদ ল্যান্সনায়েক মুন্সী আব্দুর রউফ আমাদের গর্বের প্রতীক। ইপিআরের আটজন বীরউত্তম, ৩২ বীরবিক্রম ও ৭৭ বীরপ্রতীক মুক্তিযুদ্ধে বীরত্ব প্রদর্শন করে বিজিবির ইতিহাস সমৃদ্ধ করেছেন উল্লেখ করে তিনি শাহাদাতবরণকারী সদস্যদের অবদান শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন এবং তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন। দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠনের পর পরই বিডিআরে সংঘটিত অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে সরকারপ্রধান বলেন, ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আমরা সরকার গঠন করি। সরকার গঠনের এক মাস ১৯ দিনের মাথায় ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি পিলখানায় অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে, যা দ্রুত সমাধান করি। তৎকালীন বিডিআরের ট্রাজিক ঘটনায় শহিদ ৫৭ চৌকস সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন মৃত্যুবরণ করেন। সকল শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান তিনি।
স্বাধীনতার পর যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তোলার সময় একটি অত্যাধুনিক সীমান্তরক্ষী বাহিনী গড়ে তোলার জন্য জাতির পিতা এ বাহিনী পুনর্গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭২ সালের ৩ মার্চ তৎকালীন ইপিআরের পরিবর্তে বিডিআর (বাংলাদেশ রাইফেলস) নামকরণ করেন। পরে এই আওয়ামী লীগ সরকারই ‘বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ’ আইন-২০১০ পাসের পর এই বাহিনীকে পুনর্গঠন করে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিজিবিকে একটি যুগোপযোগী ও আধুনিক বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করে যাচ্ছি। এই বাহিনীকে আরও গতিশীল করার লক্ষ্যে সমগ্র বাংলাদেশের দায়িত্বপূর্ণ এলাকা পুনর্বিন্যাস করে পাঁচজন অতিরিক্ত মহাপরিচালকের নেতৃত্বে পাঁচটি রিজিয়নে (অঞ্চল) বিভক্ত করা হয়েছে।

খুনিকে আশ্রয় দিয়ে আবার মানবতার কথা বলে তারা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
                                  

কূটনৈতিক রিপোর্টার : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মস্বীকৃত খুনি রাশেদ চৌধুরীরকে আশ্রয় দিয়ে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। তাকে দেশে ফিরিয়ে আনতে চাইলেও যুক্তরাষ্ট্র দিচ্ছে না। একটা খুনিকে তারা (যুক্তরাষ্ট্র) আশ্রয় দিয়েছে, তারাই আবার আইনের কথা বলে, মানবতার কথা বলে। যে ব্যক্তি (রাশেদ চৌধুরী) মানবতা ভঙ্গ করল, এতগুলো মানুষকে মেরে ফেলল, তাকে আশ্রয় দিয়ে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন শনিবার আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবসের অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেছেন। সম্প্রতি মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এলিট ফোর্স রাবের সাবেক ও বর্তমান সাত কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বিষয়টি নিয়ে শুরু থেকেই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে আসছে ঢাকা। এ নিয়ে ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মিলারকে ডেকে নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। পরবর্তী এক সপ্তাহের মধ্যেই মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্লিঙ্কেন ফোন করেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল মোমেনকে।  অভিবাসী দিবসের অনুষ্ঠান শেষে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা ও দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ফোনের প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ড. মোমেন বলেন, আমরা (দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী) নিজেরা আলাপ করছি। সময় এখন একটা সমস্যা, আমরা বসে আলাপ করব। আরেকটা সমস্যা হলো রাশেদ চৌধুরীকে তো আটকে রেখেছে তারা (যুক্তরাষ্ট্র), দেয় না। 

নিষেধাজ্ঞা নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী : আমাদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর
                                  

কূটনৈতিক রিপোর্টার : র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) এবং সংস্থার সাতজন সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, তা পরিবর্তনের জন্য প্রচেষ্টা চালানো হবে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন। গতকাল মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান। ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সফর উপলক্ষ্যে এই ব্রিফিংয়ের আয়োজন করে পররাষ্ট্র মন্ত্র্রণালয়। আবদুল মোমেন বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, সেটি দুঃখজনক। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইনমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আমাকে আলোচনা করে একটি করে উত্তর দেওয়ার জন্য দায়িত্ব দিয়েছেন। একা হুট করে উত্তর দেওয়া ঠিক হবে না। যুক্তরাষ্ট্রে বিচারবহির্ভূত হত্যা ও গুমের প্রসঙ্গ টেনে মার্কিন পদক্ষেপের সমালোচনা করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে যারা এসব করছে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তি নেওয়ার কথা আমি কোনো দিন শুনিনি। কিন্তু বাংলাদেশে হঠাৎ কোনো কোনো লোকের প্ররোচনায়, কোনো কোনো সংস্থা বিশেষ করে, মানবাধিকার ও বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) কারণে এমন বড় একটি সিদ্ধান্ত আলোচনা না করে চাপিয়ে দেওয়া হলো। আবদুল মোমেন বলেন, আমাদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর। প্রতিনিয়ত তাদের সঙ্গে বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা করছি। হঠাৎ না জানিয়ে কেন এটা করা হলো আমরা এটি ওদের সঙ্গে আলোচনা করব। ওদের সব সিদ্ধান্ত সঠিক এমন নয়, এর ভূরি ভূরি নজির আছে। তাদের মধ্যে পরিপক্ব ও জ্ঞানী লোক আছে। তারা যাতে তাদের অবস্থার পরিবর্তন করে সেই প্রচেষ্টাই চালাব। 

গ্রেপ্তার এড়াতে আগাম জামিন নিলেন মিথিলা ও শবনম
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : পুলিশের গ্রেপ্তার এড়াতে হাইকোর্ট থেকে আট সপ্তাহের আগাম জামিন পেলেন অভিনেত্রী রাফিয়াত রশিদ মিথিলা ও শবনম ফারিয়া। বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. আতোয়ার রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে আজ এ জামিন মঞ্জুর করে। শবনম ফারিয়ার পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী জেড আই খান পান্না, জেসমিন সুলতানা। রাফিয়াত রশিদ মিথিলার পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার ইমতিয়াজ ফারুক। গত ৪ঠা ডিসেম্বর ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির হয়ে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে তাহসান খান, রাফিয়াত রশিদ মিথিলা ও শবনম ফারিয়াসহ নয়জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। সাদ স্যাম রহমান নামে ইভ্যালির এক গ্রাহক ধানমণ্ডি থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় বাদী অভিযোগ করেন, আসামিরা তার তিন লাখ ১৮ হাজার টাকা আত্মসাতে সাহায্য করেছে।


   Page 1 of 412
     জাতীয়
নর্থ সাউথের আরও দুই ট্রাস্টি রেহেনা ও বেনজীরকে দুদকে তলব
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর সব চিন্তার কেন্দ্রবিন্দু দেশের উন্নয়ন: পরিকল্পনামন্ত্রী
.............................................................................................
আমাদের কৃষির উন্নয়ন অব্যাহত থাকলে সারা বিশ্বে প্রতিযোগীতায় যেতে পারবো : কৃষিমন্ত্রী
.............................................................................................
শপথ নিলেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী
.............................................................................................
মোংলা বন্দরে ১৩৭২ কোটি টাকার ১৫ প্রকল্প বাস্তবায়ন
.............................................................................................
পাটকল কর্মচারী-কর্মকর্তাদের অবসর পরবর্তী পাওনা পরিশোধের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন
.............................................................................................
দেশে স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা নিশ্চিত করেছি
.............................................................................................
সাংবাদিক রিয়াজউদ্দিন আহমেদকে জাতীয় প্রেসক্লাবে শ্রদ্ধা
.............................................................................................
সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত রিপোর্ট ৮৪ বার পেছালো
.............................................................................................
প্রবীণ সাংবাদিক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ আর নেই
.............................................................................................
জ্বালানি তেল নিয়ে জ্বালায় পড়েছে বিশ্ব, বিপাকে বাংলাদেশও
.............................................................................................
নিহতদের পরিবারকে দেড় লাখ টাকা সহায়তার ঘোষণা
.............................................................................................
বিজিবি সদস্যদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী: সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন
.............................................................................................
খুনিকে আশ্রয় দিয়ে আবার মানবতার কথা বলে তারা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
নিষেধাজ্ঞা নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী : আমাদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর
.............................................................................................
গ্রেপ্তার এড়াতে আগাম জামিন নিলেন মিথিলা ও শবনম
.............................................................................................
আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস: জাতি শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে সূর্য সন্তানদের
.............................................................................................
আশরাফ-মুঈনুদ্দীনকে ফেরাতে আনুষ্ঠানিক দাবি জানাবে বাংলাদেশ
.............................................................................................
বাইরের শত্রু দিয়ে আক্রান্ত হলে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার সক্ষমতা রয়েছে
.............................................................................................
নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ‎র‍্যাবের বক্তব্য: ‘মানবাধিকার লুণ্ঠন নয়, রক্ষা করে চলেছি আমরা’
.............................................................................................
‎র‍্যাব কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা দুঃখজনক : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
দেশে ইলেক্ট্রনিক মোটরযান চালু হচ্ছে
.............................................................................................
‘অমীমাংসিত ইস্যুগুলোতে বড় ধরনের মতানৈক্য নেই’
.............................................................................................
রেমিট্যান্স দেড় বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন
.............................................................................................
ক্রীড়াঙ্গনকে এগিয়ে নিতে সাংবাদিকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে: যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক নীতিমালা শিগগিরই মন্ত্রিপরিষদে উত্থাপন: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী
.............................................................................................
কালো ১১২ কোটি সাদা হলো
.............................................................................................
চাকরির পেছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হোন
.............................................................................................
জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম আর নেই
.............................................................................................
১২৭৫ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে এডিবি
.............................................................................................
বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তোরণে জাতিসংঘে প্রস্তাব গ্রহণ মহান অর্জন
.............................................................................................
অর্থ বরাদ্দ দিলেই উন্নতি হয় না দরকার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা: স্থানীয় সরকার মন্ত্রী
.............................................................................................
ভূমিকম্পে কাঁপলো পুরো দেশ
.............................................................................................
অফিসে ঢুকে কাউন্সিলরসহ ২ জনকে গুলি করে খুন
.............................................................................................
বসুন্ধরার এমডির বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও হত্যা মামলার প্রতিবেদন পেছালো
.............................................................................................
জাতির পিতাকে হত্যার পর বীর মুক্তিযোদ্ধারা পরিচয় দিতে ভয় পেতেন
.............................................................................................
‘জননেত্রি শেখ হাসিনা বললে বিনা কারণে ফাঁসিতে ঝুলবো’
.............................................................................................
আদর্শ বাঙালি নারীদের অনুপ্রেরণার উৎস তিনি : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
আওয়ামী লীগের এমপি একাব্বর হোসেন আর নেই
.............................................................................................
সাইবার সন্ত্রাসে নারীরাই বেশি হয়রানির শিকার : আইজিপি
.............................................................................................
নির্বাচনী সহিংসতা প্রত্যাশিত নয়, কাম্যও নয় : সিইসি
.............................................................................................
চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় প্রস্তুত হওয়ার আহ্বান তথ্যসচিবের
.............................................................................................
সাউথ বাংলা ব্যাংকের চেয়ারম্যান আমজাদ কীভাবে পালালো
.............................................................................................
দুই সপ্তাহের সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
তাড়াশে সাঁতার প্রশিক্ষণের সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ
.............................................................................................
শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অর্থনৈতিক মুক্তির পথে দেশ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
দেশে আধুনিক রেলওয়ে চালু করতে চান প্রধানমন্ত্রী : রেলমন্ত্রী
.............................................................................................
বেশি ভাড়া আদায় বন্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার নির্দেশ
.............................................................................................
চলন্ত বাসে পুড়িয়ে হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেফতার
.............................................................................................
অতিরিক্ত ও সহকারী পুলিশ সুপার পদে ১৭ কর্মকর্তাকে বদলি
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop