ঢাকা,শুক্রবার,১১০ ভাদ্র ১৪২৮,২৩,এপ্রিল,২০২১ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > নিয়ম বহির্ভূতভাবে চলছে পশ্চিমাঞ্চল রেলের জিএম দপ্তর   > কাউয়াদিঘি হাওরে ধান কাটা উৎসব   > পঞ্চগড়ের এক মৌসুমে তিন ফসল   > অস্তিত্ব সংকটে রামগঞ্জে বীরেন্দ্র খাল   > করোনা থেকে সুস্থ হতে ঘরেই যা করবেন   > নোয়াখালীতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ইফতার সামগ্রী বিতরণ   > পিএসজি-বায়ার্নকে নিয়ে পেরেজের মিথ্যাচার   > জিৎ করোনায় আক্রান্ত   > টিকার বিকল্প দেশের সন্ধান চলছে, সেরাম দিচ্ছে না   > বিচারকাজে গতি আনতে হাইকোর্টে আরও দুই বেঞ্চ  

   শিক্ষা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
খুলনার সিনিয়র শিক্ষক মওলানা আব্দুস সাত্তার আর নাই

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনা সেন্ট যোসেফ্স স্কুলের সকলের শ্রদ্ধাভাজন এবং প্রানপ্রিয় শিক্ষক আলহাজ¦ আব্দুস সাত্তার (৮৫) সোমবার বেলা ১২টায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে............রাজিউন)। মৃত্যুকালে মরহুম শিক্ষক আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার স্ত্রী, ১ ছেলে, ২ মেয়েসহ অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী ও আত্মীয়-স্বজন রেখেগেছেন। সোমবার বাদ এশা বটিয়াঘাটার ঝাল বাড়ি ঈদগাহ মাঠে নামাজে জানাজা শেষে মরহুম শিক্ষককে ঝাল বাড়ি সরকারি কবরস্থানে দাফন করা হয়। শিক্ষকের মৃত্যুতে জাতীয় ‘দৈনিক গণমুক্তি’ পত্রিকার সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি ও সাপ্তাহিক ‘রহস্য জগৎ’-এর প্রধান সম্পাদক মোঃ রিপন তরফদার নিয়াম গভীর শোক প্রকাশ করেছেন এবং নিউজ সারাবাংলা টোয়েন্টি ফোরের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন। এছাড়াও খুলনার বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সমাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে মরহুম শিক্ষক আলহাজ¦ মওলানা আব্দুস সাত্তারের পরিবারের সদস্যদের কাছে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

খুলনার সিনিয়র শিক্ষক মওলানা আব্দুস সাত্তার আর নাই
                                  

খুলনা প্রতিনিধি : খুলনা সেন্ট যোসেফ্স স্কুলের সকলের শ্রদ্ধাভাজন এবং প্রানপ্রিয় শিক্ষক আলহাজ¦ আব্দুস সাত্তার (৮৫) সোমবার বেলা ১২টায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহে............রাজিউন)। মৃত্যুকালে মরহুম শিক্ষক আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার স্ত্রী, ১ ছেলে, ২ মেয়েসহ অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী ও আত্মীয়-স্বজন রেখেগেছেন। সোমবার বাদ এশা বটিয়াঘাটার ঝাল বাড়ি ঈদগাহ মাঠে নামাজে জানাজা শেষে মরহুম শিক্ষককে ঝাল বাড়ি সরকারি কবরস্থানে দাফন করা হয়। শিক্ষকের মৃত্যুতে জাতীয় ‘দৈনিক গণমুক্তি’ পত্রিকার সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি ও সাপ্তাহিক ‘রহস্য জগৎ’-এর প্রধান সম্পাদক মোঃ রিপন তরফদার নিয়াম গভীর শোক প্রকাশ করেছেন এবং নিউজ সারাবাংলা টোয়েন্টি ফোরের সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন। এছাড়াও খুলনার বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সমাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে মরহুম শিক্ষক আলহাজ¦ মওলানা আব্দুস সাত্তারের পরিবারের সদস্যদের কাছে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

মারাত্মক স্বাস্ব্যঝুঁকির মধ্যে হয়ে গেলো এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনার ভয়াবহতার মধ্যে এমন দৃশ্য আগে আর দেখা যায়নি। গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে রাজধানীর পথে পথে ছিলো এমবিবিএস-এ ভর্তি পরীক্ষার্থী এবং তাদের উদ্বিগ্ন অভিভাবকদের ভিড়। পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর সামনে ছিলো স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে মারাত্মক ভিড়। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নেওয়া হলেও কেন্দ্রে প্রবেশ ও পরীক্ষা শেষে বের হওয়ার সময় প্রচণ্ড ভিড় সৃষ্টি হয়। তাতে কোন স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ম কেউ আর মানতে চাননি। কার আগে কে যাবেন এই প্রতিযোগিতা ছিলো সর্বত্র। যা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে। গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত সারা দেশে একযোগে পরীক্ষা নেওয়া হয়। এদিকে, পরীক্ষার প্রস্তুতি ছাড়াও গণপরিবহণ সীমিত থাকায় আগেভাগে কেন্দ্রে আসার চিন্তা ও করোনা পরিস্থিতি নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ছিল বাড়তি চাপ। কর্তৃপক্ষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা দিলেও শিক্ষার্থী আর অভিভাবকদের ভিড়ে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা ছিল অসম্ভব ব্যাপার। হাত স্যানিটাইজ ও তাপমাত্রা পরীক্ষা করে কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হয়েছে পরীক্ষার্থীদের। তবে করোনা পরিস্থিতিতে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে অভিভাবকদের মধ্যে। এ বছর ৩৭টি সরকারি মেডিকেল কলেজে চার হাজার ৩৫০টি আসনের জন্য নিবন্ধন করেছেন প্রায় সোয়া লাখ পরীক্ষার্থী। আর ঢাকা মহানগরের ১৫টি কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন ৪৭ হাজার পরীক্ষার্থী। দেশের ৩৭টি সরকারি মেডিকেল কলেজে আসন সংখ্যা চার হাজার ৩৫০টি। আর ৭০টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজে আরও ছয় হাজার ৩৪০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবেন। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের পরীক্ষা গত বছর নেওয়া যায়নি। এ অবস্থায় সংক্রমণ কিছুটা কমলে গত ৮ ফেব্রুয়ারি সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি কার্যক্রমের সময়সূচি জানিয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। মহামারির মধ্যে এ পরীক্ষা নেওয়ার আগে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য কড়াকড়ি আরোপ করা হয়। পরীক্ষার্থীদের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করার পাশাপাশি কেন্দ্রে ঢোকার সময় সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার অথবা স্যানিটাইজ করার ব্যবস্থা রাখা হয়। এদিকে, মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা নকলমুক্ত রাখতে পরীক্ষাকেন্দ্রে সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস আনা নিষিদ্ধ করা হয়। এ ছাড়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে পানির বোতল নিয়ে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, পরীক্ষা বন্ধ রাখার সুপারিশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে বিরাজমান করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সব ধরনের পাবলিক পরীক্ষা বন্ধ রাখার সুপারিশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সেই সঙ্গে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে ১২ দফা সুপারিশ পেশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ ও করণীয় নিয়ে অনুষ্ঠিত সভায় ১২ দফা সুপারিশ প্রণয়ন করা হয়। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। প্রস্তাবগুলোর মধ্যে রয়েছে- সম্ভব হলে কমপ্লিট লকডাউনে যেতে হবে। সম্ভব না হলে ইকোনমিক ব্যালান্স রেখে যেকোনো জনসমাগম বন্ধ করতে হবে। কাঁচা বাজার, পাবলিক ট্রান্সপোর্ট, শপিংমল, উপাসনালয়ে সমাগম, রাজনৈতিক সমাগম, ভোট অনুষ্ঠান, ওয়াজ মাহফিল, পবিত্র রমজান মাসের ইফতার মাহফিল সীমিত করতে হবে।
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যেগুলো বন্ধ আছে সেগুলো বন্ধ রাখতে হবে। অন্যান্য কার্যক্রম সীমিত রাখতে হবে। যে কোনো পাবলিক পরীক্ষা বন্ধ রাখতে হবে। কোভিড পজিটিভ রোগীদের আইসোলেশন জোরদার করা। রোগীদের কন্ট্রাকে আসা ব্যক্তিদের কঠোর কোয়ারেন্টিনে রাখতে হবে। বিদেশ থেকে আসা ব্যক্তিদের ১৪ দিনের কঠোর কেয়ারেন্টিনে রাখতে হবে। আগামী ঈদের ছুটি কমিয়ে আনা। স্বাস্থ্যবিধি মানার বিষয়ে আইন প্রয়োজনে জোরদার করা। পোর্ট অব এন্ট্রিতে জনবল বাড়ানো ও মনিটরিং জোরদার করা। পর্যটন এলাকায় চলাচল সীমিত করা।

গুচ্ছভুক্ত ২০ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি আবেদন ১লা এপ্রিল থেকে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : গুচ্ছভুক্ত ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষার আবেদন আগামী ১লা এপ্রিল থেকে শুরু হবে। ১৫ই এপ্রিল পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা প্রাথমিক আবেদন করতে পারবে। পরীক্ষা শুরু হবে ১৯শে জুন থেকে। গতকাল সোমবার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ভাইস চ্যান্সেলরের (ভিসি) সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত ভিসিদের সমন্বয়ের গঠিত কোর কমিটির বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভা সূত্রে জানা যায়, গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে প্রাথমিক আবেদনে শিক্ষার্থীদের কোন ফি প্রদান করতে হবে না। যে সকল শিক্ষার্থী ২০১৯ বা ২০২০ সালে এইচএসসি/আলিম ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ তারাই আবেদন করতে পারবে। ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর বিজ্ঞান শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৮.০, বাণিজ্য শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৭.৫ এবং মানবিক শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৭.০ থাকতে হবে। তবে প্রত্যেক শাখাতে বিভাগে এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ৩.৫ থাকতে হবে। শুধুমাত্র এবছরের জন্যই গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯ ও ২০২০ সালে এইচএসসি পাসকৃত শিক্ষার্থীরা ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। আগামী বছর হতে পূর্ববর্তী বছরের পাসকৃত অর্থাৎ সেকেন্ড টাইমার শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন না। আরো জানা যায়, প্রাথমিক আবেদনকারীদের মধ্য হতে মেধার ভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য যোগ্য শিক্ষার্থীদের ফলাফল ২৩শে এপ্রিল স্বয়ক্রিয়ভাবে মেসেজের মাধ্যমে জানানো হবে। গুচ্ছভুক্ত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একযোগে যতজন শিক্ষার্থীর পরীক্ষা নেয়ার সুযোগ রয়েছে মেধার ভিত্তিতে ততজন শিক্ষার্থীকে চূড়ান্ত আবেদন করার সুযোগ দেয়া হবে। প্রাথমিকভাবে বাছাইকৃত শিক্ষার্থীরা মোবাইল ব্যাংকিং সেবার মাধ্যমে ৫০০ টাকা জমা দিয়ে ২৪শে এপ্রিল হতে ২০শে মে তারিখের মধ্যে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য চূড়ান্ত আবেদন করতে হবে। ভর্তি পরীক্ষার বিস্তারিত তথ্যাদি ভর্তি সংশ্লিষ্ট ওয়েবসাইট (www.gstadmission.org এবং www.gstadmission.ac.bd) ও জাতীয় দৈনিকে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হবে।

শিক্ষামন্ত্রী ও তদন্ত কমিটির বিষয়ে কলিমউল্লাহর বক্তব্য মিথ্যা: ইউজিসি
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) নিয়ে রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ গণমাধ্যমে যেসব বক্তব্য দিয়েছেন তার সবই মিথ্যা বলে দাবি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। গতকাল শনিবার গণমাধ্যমে এই বিবৃতি পাঠিয়েছে ইউজিসি। এর আগে গত বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করে বেরোবি উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির আশ্রয়-প্রশ্রয় ও আশকারায় ইউজিসি এমন তদন্ত করেছে। শিক্ষামন্ত্রীর আশকারায় পরিস্থিতি এ অবস্থায় এসেছে বলে অভিযোগ তোলেন তিনি।
এ বিষয়ে ইউজিসি বলছে, ‘শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) নিয়ে কলিমউল্লাহ যেসব মন্তব্য করেছেন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের মাধ্যমে তা কমিশনের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। তার বক্তব্য পুরোপুরিভাবে মিথ্যা।
কমিশন বলছে, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন দেশের উচ্চশিক্ষার বিস্তার, গুণগত ও মানসম্পন্ন শিক্ষা ও গবেষণা নিশ্চিত করতে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে কাজ করে যাচ্ছে। দেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের দেখভাল, আর্থিক মঞ্জুরি ও গবেষণা সহায়তা দিয়ে আসছে। ইউজিসি সব সময় নিজস্ব স্বকীয়তা বজায় রেখে কাজ করছে এবং কখনই এর ব্যতয় ঘটেনি।
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা অনুবিভাগে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে বড় ধরণের অনিয়মের অভিযোগ উত্থাপিত হলে তা তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ইউজিসিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। অনিয়মের অভিযোগটি পরিকল্পনা সংক্রান্ত হওয়ায় ইউজিসি’র পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সদস্য, পরিচালক ও অতিরিক্ত পরিচালকের সমন্বয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। পদমর্যাদা অনুসারে তারা কমিটির আহবায়ক, সদস্য ও সদস্য সচিব হয়েছেন। তদন্ত কমিটি পেশাদার মনোভাব নিয়ে প্রাপ্ত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ, সরেজমিনে পরিদর্শন ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে সম্পূর্ণ প্রভাবমুক্ত হয়ে একটি বস্তুনিষ্ঠ ও নিরপেক্ষ তদন্ত প্রতিবেদন তৈরি করে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি তদন্ত প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। তদন্তটি দীর্ঘ সময় ধরে অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোনো পর্যায়ে শিক্ষমন্ত্রী বা অন্য কেউ প্রভাব বিস্তার করার সুযোগ নেই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নোংরা শিক্ষক রাজনীতির শিকার আমি
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক রাজনীতির চূড়ান্ত নোংরামি-র শিকার হয়েছেন বলে দাবি করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক সামিয়া রহমান। এছাড়া তার বিরুদ্ধে লেখায় চৌর্যবৃত্তির যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা পুরোটাই মিথ্যা বলে দাবি করেন তিনি। গতকাল সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি ডিআরইউ-র সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন। সামিয়া রহমান বলেন, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। যে লেখা আমার না, আমি শুধু আইডিয়া দিয়েছি। আমাকে না জানিয়ে ছাপা হলো। আমি নিজেই তদন্তকাজ দ্রুত শেষ করার জন্য আবেদন করলাম, সেখানে আমাকে দোষী সাব্যস্ত করা হলো। আমি রাজনীতির শিকার। তিনি বলেন, এতদিন তদন্ত চলায় আমি চুপ ছিলাম। এখন আমি আদালতে যাব। আমি নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে যা যা করা প্রয়োজন করব। পরবর্তী পদক্ষেপের বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ শিক্ষক আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের চূড়ান্ত অভিভাবক চ্যান্সেলর ও রাষ্ট্রপতির কাছে আমাদের আবেদন, তিনি যেন প্রকৃত সত্য উদঘাটনে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন। আমার বিশ্বাস তিনি নির্দেশ দিলে সত্য ঘটনা, ষড়যন্ত্র সব প্রকাশিত হবে। একই সঙ্গে আমি একটি আইনি পদক্ষেপের মধ্যেও রয়েছি। তদন্ত কমিটি শুরু থেকে প্রতিহিংসাপরায়ণ ছিল উল্লেখ করে সামিয়া রহমান বলেন, দীর্ঘ চার বছর তারা তদন্ত ঝুলিয়ে রেখেছিলেন। প্রতিটি মিটিংয়ের পর যেচে পড়ে তদন্ত কমিটির দু-তিনজন সদস্য সাংবাদিকদের ডেকে আমার বিরুদ্ধে বিষোদগার করেছেন তদন্ত শেষ হওয়ার আগেই। তদন্ত শেষ হওয়ার আগেই আমার বিরুদ্ধে রায় তারা তৈরি করে রাখেন। তিনি বলেন, ঘটনাটি প্রথম জানতে পারি ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি। সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. ফরিদউদ্দীনের ফোনের মাধ্যমে। এই বিতর্কিত নিবন্ধটি আমার লেখা নয়। নিবন্ধটি প্রকাশনার জন্য আমি জমা দেইনি। রিভিউয়ারের রিপোর্টে সম্পাদনা পরিষদ থেকে আমার কাছে কখনই পাঠানো হয়নি এবং কোনো অ্যাকসেপ্টেন্স লেটারও আমার বরাবর প্রেরণ করা হয়নি।
বিতর্কিত নিবন্ধটি যেহেতু আমি জমা দেইনি, সেহেতু জমা দেয়া থেকে ছাপানো পর্যন্ত আমার কোনো দালিলিক সম্পৃক্ততা তদন্ত কমিটি এবং ট্রাইব্যুনালও খুঁজে পায়নি। আমি মারজানকে একটি আইডিয়া পাঠিয়েছিলাম মাত্র।
সামিয়া রহমান বলেন, আমি জার্নাল থেকে লেখাটি সরিয়ে ফেলার জন্য ডিন অফিসকে লিখিত অনুরোধ করি। তৎকালীন উপাচার্য আরেফিন সিদ্দিক স্যারকে লেখাটি দেখানো হলে তিনি এটা প্লেজারিজম না, সাইটেশন (উদ্ধৃতি হিসেবে ব্যবহার) হয়েছে বলে জানান। এটার দেখার দায়িত্ব রিভিউয়ারের। আমি ডিনকে বিষয়টি সিন্ডিকেটে ওঠানোর জন্য বলি। যখন উপাচার্য পরিবর্তন হলো তখন সেটি নিয়ে নাড়াচাড়া শুরু হলো। আমি বহুবার বলার পরও সেটি সিন্ডিকেটে ওঠেনি। ছয় মাস পর কেন তোলা হলো? শিকাগো বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাটি যাওয়ার কথা নয়, ঈর্ষান্বিত হয়ে বা প্রতিহিংসাবশত কেউ সেটি পাঠিয়েছে। আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করার প্রেক্ষিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট ২০১৭ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। শিকাগো জার্নালের যে চিঠির ভিত্তিতে আমার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করে, চার বছর ধরে মিডিয়া ট্রায়াল করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আমাকে শাস্তির সুপারিশ করেছে, ডিমোশন দিয়েছে।
চিঠিটি ভুয়া দাবি করে সামিয়া রহমান বলেন, চিঠিটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। শিকাগো জার্নাল থেকে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করে এ ধরনের কোনো চিঠি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে আজ পর্যন্ত পাঠানো হয়নি। অ্যালেক্স মার্টিন বলেও শিকাগো জার্নালে কেউ কখনো কাজ করেনি। এমনকি শিকাগো ইউনিভার্সিটি এবং শিকাগো প্রেসেও অ্যালেক্স মার্টিন বলে কেউ নেই। শিকাগো জার্নালের এডিটর ক্রেইগ ওয়াকার নিজে জানিয়েছেন, অ্যালেক্স মার্টিন বলে কেউ কখনো শিকাগো জার্নালে ছিল না, কেউ নেই। সংবাদ সম্মেলনে সামিয়া রহমানের সঙ্গে উপস্থিতি ছিলেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর (ভিসি) অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ, ব্যারিস্টার ড. তুরিন আফরোজসহ তার পরিবারের সদস্যরা।

ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত রাজধানীর সাতটি সরকারি কলেজের চলমান ও ঘোষিত পরীক্ষা শর্তসাপেক্ষে অনুষ্ঠিত হবে। গতকাল বুধবার বিকালে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও সাত কলেজের অধ্যক্ষবৃন্দের এক ভার্চুয়াল সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। গত সোমবার শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানান, ২৪ মে থেকে দেশের সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু হবে। আর ১৭ মে আবাসিক হলগুলো খুলবে। শিক্ষামন্ত্রীর এমন ঘোষণার পরদিন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাত সরকারি কলেজের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। সঙ্গে সঙ্গে সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার দাবিতে আন্দোলনে নামেন। এরপরই আজ শর্তসাপেক্ষে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার সিদ্ধান্ত এলো। সাত সরকারি কলেজের প্রধান সমন্বয়ক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, সাত কলেজের চলমান পরীক্ষাগুলো অব্যাহত থাকবে। মঙ্গলবার এবং গতকালের পরীক্ষাগুলোর তারিখ পরবর্তীতে জানিয়ে দেওয়া হবে।

ঢাবির হলের তালা ভেঙে প্রবেশ করে শিক্ষার্থীরা
                                  

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার : করোনা কারণে বন্ধ থাকার পরও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ হলের তালা ভেঙে প্রবেশ করেছে শিক্ষার্থীরা। গতকাল সোমবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ হলের শিক্ষার্থীরা তালা ভেঙে হলে প্রবেশ করেন। এর কিছুক্ষণ পর শিক্ষার্থীরা অমর একুশে হলে প্রবেশ করে। ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ হলের শিক্ষার্থীরা জানান, হল খুলে দেওয়ার দাবিতে গতকাল বিকালে তাদের বিক্ষোভ কর্মসূচি ছিলো। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে এ বিক্ষোভ করা হবে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সকালে তারা হলে প্রবেশ করেছে। এ বিষয়ে ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক সৈয়দ হুমায়ুন আখতার সাংবাদিকদের কাছে বলেন, ‘আমরা সপ্তাহে দুদিন শিক্ষার্থীদের হলে প্রবেশের সুযোগ দিই। সেজন্য সোমবার তারা বইপত্র ও কাপড়চোপড় নিতে হলে এসেছেন। শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণভাবে হলে প্রবেশ করেছেন এবং শান্তিপূর্ণভাবে হল ত্যাগ করেছেন। বর্তমানে হলের ভেতর কোনো শিক্ষার্থী অবস্থান করছেন না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু ২৪ মে থেকে
                                  

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার : ঈদুল ফিতরের পর আগামী ২৪ মে থেকে দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। আবাসিক হলগুলো খুলবে ১৭ মে থেকে। করোনাকালীন উচ্চ শিক্ষার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে গতকাল সোমবার দুপুর সোয়া ২টায় অনলাইনে জরুরি সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী একথা জানান। দীপু মনি বলেন, ‘হল ও বিশ্ববিদ্যালয় খোলার আগে সব শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীর করোনার টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয় চালু হওয়া পর্যন্ত সব ধরনের ক্লাস হবে অনলাইনে। আর শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরুর পর পরীক্ষা শুরু হবে।’ স্কুল-কলেজ চালুর বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘জাতীয় পরামর্শক কমিটির মতামত নিয়ে কবে থেকে স্কুল-কলেজে পাঠদান শুরু করা যায় তা জানিয়ে দেওয়া হবে।’

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আরেক দফা ছুটি ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা মহামারির কারণে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের (কওমি ছাড়া) চলমান ছুটি আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। কয়েক ধাপে বাড়ানোর পর আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ছুটি ছিল, সেই ছুটি এবার ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাড়ল। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের গতকাল রোববার সকালে এ তথ্য জানিয়েছেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা নিয়ে ৩০ জানুয়ারি উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা আশা করছি হয়তো আগামী মার্চ-এপ্রিল মাসটা আমরা দেখবো, কারণ আমাদের দেশে মার্চ মাসেই ব্যাপকহারে করোনাভাইরাস শুরু হয়েছিল। এই ফেব্রুয়ারি মাস নজরে রাখব। যদি ফেব্রুয়ারিতে ভালো থাকে পরবর্তীতে সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার চিন্তা ভাবনা আছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এজন্য দরকার সবাইকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলা ও করোনাভাইরাস মোকাবেলায় যা যা ব্যবস্থা আছে তা গ্রহণ করা। আর ভ্যাকসিন তো সবাই পেয়ে যাবেন।’ গত ২২ জানুয়ারি করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে গাইডলাইন প্রকাশ করে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর। এ গাইডলাইন অনুসরণ করে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রস্তুতি নিতে বলা হয়। স্কুল-কলেজগুলোতে ৩৯ পাতার গাইডলাইন পাঠিয়ে বলা হয়, ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে স্কুলগুলো প্রস্তুত করে রাখতে, যাতে যে কোনো মুহূর্তে সেগুলো খুলে দেয়া যেতে পারে।

অটোপাসেও সন্তষ্ট নন প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষার্থী
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে ২০২০ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা বাতিল করে অটোপাসের ঘোষণা দেয়া হয়। জেএসসি এবং এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার গড় ফলাফলের ভিত্তিতে বিশেষ মূল্যায়ন করে ফল দেওয়া হয়েছে। এতে শতভাগ পাস করেছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ লাখ ৬১ হাজারের বেশি। তারপরও ফলে সন্তষ্ট নন প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষার্থী। তারা ফল পরিবর্তনের জন্য শিক্ষা বোর্ডে ‘রিভিউ’ আবেদন করেছেন। গত ৩০ জানুয়ারি এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ করা হয়। পরের দিন ৩১ জানুয়ারি থেকে ফল রিভিউ করার সুযোগ দেয় বোর্ডগুলো। গত শনিবার রাত ১২টা পর্যন্ত ছিল আবেদন করার সুযোগ। গত শনিবার রাত দশটা পর্যন্ত পাওয়া তথ্যমতে, ফল রিভিউ করেছেন মোট ১৪ হাজার ৬৯২জন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী সবচেয়ে বেশি। বোর্ডওয়ারী হিসেবে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডে রিভিউ আবেদন সবচেয়ে বেশি। তবে রিভিউ করা শিক্ষার্থীদের ফল কবে প্রকাশ করা হবে তা এখনো জানানো হয়নি। এদিকে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) এবং মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েও এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পাননি ৩৯৬ জন শিক্ষার্থী। এ শিক্ষার্থীরা কেন জিপিএ পাননি তার ব্যাখ্যা লিখিতভাবে দেবে শিক্ষা বোর্ডগুলো। যারা বোর্ডে আবেদন করেছে তাদের লিখিতভাবে জানানো হচ্ছে। ৩০ জানুয়ারি প্রকাশিত এইচএসসির ফলে জেএসসি এবং এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পাননি এমন ১৭ হাজার ৪৩ জন শিক্ষার্থী এবার এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পেয়েছেন। অন্যদিকে জেএসসি এবং এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ ছিল কিন্তু এইচএসসিতে জিপিএ-৫ পাননি ৩৯৬জন। এইচএসসি পরীক্ষা ২০২০ ফলাফল প্রণয়নে জেএসসি বা জেডিসি এবং এসএসসি বা সমমান পরীক্ষার বিষয় ম্যাপিং পদ্ধতি সম্পর্কে ফলাফলের পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে- সাধারণভাবে জেএসসি বা সমমান পরীক্ষার ২৫ শতাংশ এবং এসএসসি বা সমমান পরীক্ষার ৭৫ শতাংশ বিষয়ভিত্তিক নম্বর বিবেচনায় নিয়ে এইচএসসির ফল নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বছরের ১ এপ্রিল শুরু হওয়ার কথা ছিল এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। ১১টি শিক্ষা বোর্ডে ১৩ লাখ ৬৭ হাজার ৩৭৭ জন শিক্ষার্থীর অংশ নেওয়ার কথা ছিল এই পরীক্ষায়। তবে, করোনা মহামারির কারণে এই পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এমপিওভুক্ত ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রস্তুতি চলছে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পেলে চলতি মাসেই গণবিজ্ঞপ্তি জারি করতে পারে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এনটিআরসিএ সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশের এমপিওভুক্ত স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫৭ হাজার ৩৬০টি শূন্য পদের তালিকা সংগ্রহ করা হয়েছে। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শূন্য পদের তালিকা সংগ্রহ করে তা মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মাধ্যমে যাচাই-বাছাই শেষ করা হলেও নিয়োগপ্রত্যাশীদের দায়ের করা একাধিক মামলার কারণে তা স্থবির হয়ে পড়ে। অনুমোদিত বিভিন্ন বিষয়ে প্রথম ধাপে ৫৭ হাজার ৩৬০টি পদ শূন্য পাওয়া গেলেও বর্তমানে এই সংখ্যা আরও বেড়েছে। ২০১৭ সালে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী একটি মেধাতালিকা তৈরি করা হয়। নিবন্ধিত প্রার্থীদের ওই তালিকা অনুযায়ী নিয়োগ দেওয়ার নির্দেশনা দিয়ে এমপিও নীতিমালা-২০১৮ প্রণয়ন করা হয়। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের আপিল ডিভিশন ১৩তম নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের সরাসরি নিয়োগ দেওয়ার নির্দেশনা দেয়।
দুটি সিদ্ধান্ত ভিন্ন হওয়ায় সারা দেশের এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শূন্য পদের তালিকা চূড়ান্ত হলেও নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করা সম্ভব হচ্ছে না। বিজ্ঞপ্তিপ্রত্যাশী ফোরামের ১৫তম ব্যাচের সমন্বয়ক শান্ত আলী বলেন, ‘বর্তমান নিয়োগ জটিলতার জন্য নিবন্ধিতদের বড় অংশই কিন্তু দায়ী নয়। ১৫তম ব্যাচকে সবচেয়ে কঠিনভাবে প্রিলি, রিটেন, ভাইভা পাস করিয়ে এক বছর ধরে অপেক্ষা করানো একেবারেই অযৌক্তিক ও নিষ্ঠুর আচরণ। নিবন্ধিত প্রার্থীদের এভাবে বঞ্চিত করা কোনোভাবেই কাম্য নয়।’ এদিকে, এনটিআরসিএ’র তালিকাভুক্ত বিভিন্ন স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৭ হাজার শূন্য পদের মধ্যে ৫৫ হাজার পদে নিয়োগের পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন।
কর্মকর্তারা জানান, ‘সারা দেশে ৫৭ হাজারের বেশি পদ শূন্য হলেও আইনি জটিলতায় আমরা নিয়োগ দিতে পারছি না। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবের পরামর্শে ২ হাজার পদ বাদ দিয়ে বাকি ৫৫ হাজার শূন্য পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। গত মাসের মাঝামাঝি আইন মন্ত্রণালয়ের মতামত চেয়ে এনটিআরসিএর পক্ষ থেকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। নিয়োগের পক্ষে মত ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পেলে চলতি মাসে নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করা হবে।’

একযোগে ৪৬ সরকারি কলেজে নতুন অধ্যক্ষ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : শিক্ষা মন্ত্রণালয় ৪৬ সরকারি কলেজে নতুন অধ্যক্ষ পদায়ন করেছে। অধ্যক্ষ শূন্য বাকি কলেজগুলোয় শিগগিরই পদায়ন করা হবে। রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ড. শ্রীকান্ত কুমার চন্দ স্বাক্ষরিত মঙ্গলবার আদেশে বলা হয়েছে, বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা) ক্যাডারের এসব কর্মকর্তাদের পুনরাদেশ না দেয়া পর্যন্ত তারা এ পদে দায়িত্ব পালন করবেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে পৃথক আদেশে যারা অধ্যক্ষ হলেন ঢাকা কলেজের নতুন অধ্যক্ষ হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে কবি নজরুল সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আইকে সেলিম উল্লাহ খোন্দকারকে। আর তিতুমীর সরকারি কলেজের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক আমেনা বেগমকে কবি নজরুল সরকারি কলেজের নতুন অধ্যক্ষ হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে। নোয়াখালীর চাটখিল পাঁচগাঁও মাহবুব সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ করা হয়েছে মাহবুবুর রহমান, রাঙ্গামাটি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ তুষার কান্তি বড়ুয়া, চৌদ্দগ্রাম সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ শিব প্রসাদ দাস গুপ্ত, সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ অধ্যক্ষ মো. আরিফ হাসান চৌধুরী, ঢাকার সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ অধ্যক্ষ মো. গোলাম ফারুক, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ অধ্যক্ষ সাবিকুন নাহার। বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব সরকারি মহাবিদ্যালয়ে অধ্যক্ষ ড. অর্চ্চনা দত্ত, দুয়ারিপাড়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ সুফিউন নাহার, ধামরাই সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ ড. মো. সেলিম মিয়া, ফরিদপুর সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজের অধ্যক্ষ খুরশীদ সোলায়মান, সারদা সুন্দরী মহিলা কলেজ, ফরিদপুরের অধ্যক্ষ কাজী গোলাম মোস্তফা, নগরকান্দা মহাবিদ্যালয়, ফরিদপুরের অধ্যক্ষ হিসেবে মো. আসাদুল আলম খানকে পদায়ন করা হয়েছে। মাদারীপুরের শিবচরের বরহামগঞ্জ সরকারি কলেজে অধ্যক্ষ শামীমা আক্তার, সরকারি সফল আলী কলেজ, আড়াইহাজরের অধ্যক্ষ মো. গিয়াস উদ্দীন, শহীদ আসাদ সরকারি কলেজ, শিবপুর, নরসিংদীর অধ্যক্ষ ড. মো. শফিউল কাফী, ব্রজমোহন (বিএম) কলেজ অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ

বশেমুরবিপ্রবি প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি; সভাপতি লিটু, সাধারণ সম্পাদক আলিফ
                                  

বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাবের ২০২১ সালের কার্যনির্বাহী কমিটি আগামী এক বছরের জন্য ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়। করোনার কারনে অনলাইনে ভোটগ্রহণের মাধ্যে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। নতুন এ কমিটিতে দৈনিক সমকালের বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা তারিক লিটু কে সভাপতি ও দৈনিক ভোরের ডাকের প্রতিনিধি কে.এম. ইয়ামিনুল হাসান আলিফ কে সাধারণ সম্পাদক করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যনির্বাহী কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটির অন্যান্য সদস্য হলেন, সহ-সভাপতি তানবির আলম খান (দৈনিক আজকালের খবর), যুগ্ম সম্পাদক মাহমুদ হাসান (দৈনিক বাংলাদেশের খবর), সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান সাকিব (দৈনিক আমাদের সময়), প্রচার সম্পাদক সিনথিয়া সুমি (দৈনিক বাংলাদেশের আলো), কোষাধ্যক্ষ সিফাত রাকা (দৈনিক মানবজমিন), দপ্তর সম্পাদক রাজু আহমেদ (দৈনিক জবাবদিহি), অনুষ্ঠান বিষয়ক সম্পাদক সজিবুর রহমান সজিব (দৈনিক নয়া দিগন্ত)। এছাড়া কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে আছেন জুবায়ের আহামেদ (দৈনিক আলোকিত সকাল) ও অশিত মন্ডল (দৈনিক যায়যায়দিন)। উল্লেখ্য,সত্যের পথে আমরা নির্ভীক স্লোগান নিয়ে ২০১৬ সালে ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী তারিক লিটুর হাতধরে আত্মপ্রকাশ করে বশেমুরবিপ্রবি প্রেস ক্লাব।প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আন্তরিকতা, সততা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাচ্ছে বশেমুরবিপ্রবি প্রেসক্লাবের প্রত্যেক সদস্য।

উচ্চশিক্ষায় আসনের কোনো সঙ্কট নেই : ইউজিসি
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশের উচ্চশিক্ষা পর্যায়ে আসনের ক্ষেত্রে কোনো সঙ্কট হবে না বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। ইউজিসির তথ্য অনুযায়ী, উচ্চশিক্ষায় নিয়োজিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে স্নাতক সম্মান, স্নাতক পাস ও সমমান কোর্সে ১৩ লাখ ২০ হাজারের মতো আসন রয়েছে। এর মধ্যে ৩৯টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬০ হাজার ৯৫, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২ লাখ ৩ হাজার ৬৭৫, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮ লাখ ৭২ হাজার ৮১৫, ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬০ হাজার, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ৭৭ হাজার ৭৫৬, দুটি আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪৪০, মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে ১০ হাজার ৫০০, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত সাত কলেজে ২৩ হাজার ৩৩০, চারটি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ৭২০, ছয়টি টেক্সটাইল কলেজে ৭২০, সরকারি ও বেসরকারি নার্সিং ও মিডওয়াইফরি প্রতিষ্ঠানে ৫ হাজার ৬০০, ১৪টি মেরিন অ্যান্ড অ্যারোনটিকাল কলেজে ৬৫৪, ঢাকা ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ৩ হাজার ৫০০ এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠানে ২৯০টি আসন রয়েছে। এ প্রসঙ্গে ইউজিসি সদস্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর বলেন, চলতি বছর উচ্চশিক্ষায় ভর্তিতে আসনের ক্ষেত্রে কোনো সঙ্কট হবে না। প্রায় সব শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষার সুযোগ পাবে। তবে পছন্দের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও বিষয়ে ভর্তিতে তীব্র প্রতিযোগিতা হবে বলে তিনি জানান। তিনি আরও বলেন, ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষে দেশের ২০টি সাধারণ ও বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ছয়টি কৃষি প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।
এই সপ্তাহে প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছে ভর্তি পরীক্ষা বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানা যাবে। ২০২০ সালের এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষায় ১৩ লাখ ৬৭ হাজার ৩৭৭ জন শিক্ষার্থী পাস করেছে। মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে জেএসসি ও এসএসসির ফলাফল মূল্যায়ন করে এইচএসসির ফলাফল দেয়া হয়েছে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কিত ১৩৪ মামলা আদালতে বিচারাধীন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কিত ১৩৪টি মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। এর মধ্যে উচ্চ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে ৮৫টি মামলা আর নিম্ন আদালতে আছে বাকি ৪৯টি। যার মধ্যে রাজশাহীর আদালতেই রয়েছে ৪৭টি। বিশ্ববিদ্যালয় লিগ্যাল সেল সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। সূত্রে আরও জানা যায়, ২০১৮ সালের ১ জুলাই থেকে ২০১৯ এর ৩০ জুন পর্যন্ত রাবির ১৩২টি মামলা বিচারাধীন ছিল। এরপর ২০২০ সালে আরও দুটি মামলা দায়ের হয়। সর্বশেষ গত বছরের ৭ ডিসেম্বর রাজশাহী জেলা সদর সিনিয়র জজ আদালতে বাদী হয়ে মামলা করেন দুই নিয়োগ প্রার্থী মতিউর রহমান ও মোছা. শারনী আখতার। বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব বায়োলজিক্যাল সায়েন্সের সহকারী ও সহযোগী অধ্যাপক পদে নিয়োগে অনিয়ম সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে এ মামলাটি দায়ের করা হয়। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবহান, সাবেক ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এম এ বারী, কোষাধ্যক্ষ এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান, আইবিএসসির পরিচালক মো. ফিরোজ আলমসহ ১২ জনকে বিবাদী করা হয়েছে। তাদেরকে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি আদালতে হাজির হয়ে জবাব দিতে বলা হয়েছে। এর আগে ২০২০ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর অবসর গ্রহণের পর নিয়ম বহির্ভূতভাবে পেনশনের ৪৫ লাখ ৬১ হাজার ৯৪৫ টাকা আটকে রাখার অভিযোগ তুলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের শীর্ষ পাঁচ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় অধীনস্থ শেখ রাসেল মডেল স্কুলের সাবেক অধ্যক্ষ ও সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মিজানউদ্দীন পত্নী মোমেনা জীনাত। উপাচার্য ছাড়া মামলার অন্য অভিযুক্তরা হলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এম.এ বারী, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমান আল আরিফ, শেখ রাসেল মডেল স্কুলের সভাপতি অধ্যাপক গোলাম কবীর এবং স্কুলের বর্তমান অধ্যক্ষ। লিগ্যাল সেল সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ এর জুলাই থেকে ২০১৯ এর জুন পর্যন্ত আট মামলা নিষ্পত্তি হয়। এর মধ্যে রাবি প্রশাসনের পক্ষে রায় হয়েছে ছয়টি মামলার। রাবির বিপক্ষে রায় হয় দুটির। তবে ওই সময়ের মধ্যে নতুন আটটি মামলা দায়ের করা হয়। যার মধ্যে ছিল আদালতের অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা অমান্য করার অভিযোগে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবহানসহ তিন জনের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলাটি। ২০১৯ সালের ২ মে রাজশাহী সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে অবমাননার মামলাটি দায়ের করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও ভূমি প্রশাসন বিভাগের শিক্ষক শাহরিয়ার পারভেজ। এছাড়া বিচারাধীন অন্য মামলাগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের লিগ্যাল সেলের প্রশাসক ড. শাহীন জোহরা বলেন, বিচারাধীন মামলার মধ্যে অনেক পুরাতন মামলাও আছে। ১০-১২ বছর আগের মামলা এখনও চলমান। ২০০৩-০৪ সালের মামলাও আছে কয়েকটি। যে মামলাগুলো চলমান তার সবগুলোই আমাদের কাছে সমান গুরুত্বপূর্ণ। আলাদা করে বলার কিছু নেই। আমরা প্রত্যেকটি মামলাকে সমান গুরুত্ব দিয়ে আইনি লড়াই করছি।


   Page 1 of 70
     শিক্ষা
খুলনার সিনিয়র শিক্ষক মওলানা আব্দুস সাত্তার আর নাই
.............................................................................................
মারাত্মক স্বাস্ব্যঝুঁকির মধ্যে হয়ে গেলো এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, পরীক্ষা বন্ধ রাখার সুপারিশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
.............................................................................................
গুচ্ছভুক্ত ২০ বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি আবেদন ১লা এপ্রিল থেকে
.............................................................................................
শিক্ষামন্ত্রী ও তদন্ত কমিটির বিষয়ে কলিমউল্লাহর বক্তব্য মিথ্যা: ইউজিসি
.............................................................................................
বিশ্ববিদ্যালয়ের নোংরা শিক্ষক রাজনীতির শিকার আমি
.............................................................................................
ঢাবি অধিভুক্ত ৭ কলেজের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে
.............................................................................................
ঢাবির হলের তালা ভেঙে প্রবেশ করে শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস শুরু ২৪ মে থেকে
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আরেক দফা ছুটি ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত
.............................................................................................
অটোপাসেও সন্তষ্ট নন প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষার্থী
.............................................................................................
এমপিওভুক্ত ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রস্তুতি চলছে
.............................................................................................
একযোগে ৪৬ সরকারি কলেজে নতুন অধ্যক্ষ
.............................................................................................
বশেমুরবিপ্রবি প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি; সভাপতি লিটু, সাধারণ সম্পাদক আলিফ
.............................................................................................
উচ্চশিক্ষায় আসনের কোনো সঙ্কট নেই : ইউজিসি
.............................................................................................
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কিত ১৩৪ মামলা আদালতে বিচারাধীন
.............................................................................................
ঢাবির বিরুদ্ধে মামলার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সামিয়া রহমান
.............................................................................................
এইচএসসির ফল প্রকাশে সংশোধিত আইনের গেজেট জারি
.............................................................................................
এসএসসির পাঠ্যসূচি কমিয়ে সিলেবাস প্রকাশ
.............................................................................................
মাধ্যমিকে পদোন্নতি পাচ্ছেন ৬ হাজার শিক্ষক
.............................................................................................
ভর্তি ফি ছাড়া অন্য কোনো ফি নেয়া যাবে না: শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
সমালোচনার মুখে ঢাবির সান্ধ্য এমবিএ কোর্সের ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত
.............................................................................................
টিউশন ফি ছাড়া অন্য খাতে টাকা নিতে পারবে না বেসরকারি মাধ্যমিক স্কুল
.............................................................................................
শিক্ষা ব্যবস্থায় আনন্দ নিয়ে আসতে চাই : ডা. দীপু মনি
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত বাড়ল
.............................................................................................
পরীক্ষা নেয়ার অনুমতি পাচ্ছে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়
.............................................................................................
মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা বাতিল
.............................................................................................
মাধ্যমিকের বার্ষিক পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত বুধবার
.............................................................................................
এইচএসসি পরীক্ষা বাতিল
.............................................................................................
আবারো বাড়লো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি
.............................................................................................
বৌদ্ধবিহারে বিশ্ববিদ্যালয় পুন:প্রতিষ্ঠার দাবি
.............................................................................................
একাদশে ভর্তি শুরু, ক্লাস হবে অনলাইনে
.............................................................................................
প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলতে প্রস্তুতি শুরুর নির্দেশ
.............................................................................................
বিদ্যালয় খোলা না গেলে অটােপাশের ইঙ্গিত
.............................................................................................
একাদশে ভর্তির দ্বিতীয় ধাপের আবেদন শুরু
.............................................................................................
জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষাও হচ্ছে না
.............................................................................................
সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়লো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি
.............................................................................................
সততা ও কর্মনিষ্ঠার সাথে কাজ করে জীবনকে সমৃদ্ধ করতে হবে : দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান
.............................................................................................
হচ্ছে না প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা
.............................................................................................
বিভাগীয় প্রার্থীতা পুর্নবহাল চায় সাড়ে তিন লাখ সহকারী শিক্ষক
.............................................................................................
২০১৯ খসড়ায় সহকারী শিক্ষকদের বিভাগীয় প্রার্থিতা প্রত্যাহার, তীব্র অসন্তোষ
.............................................................................................
ফেসবুকে ‘আল বিদা’ লিখে শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা
.............................................................................................
২৫ আগস্টের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত
.............................................................................................
বাতিল হচ্ছে পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা
.............................................................................................
`অটো পাসেই` চলতি শিক্ষাবর্ষ শেষ!
.............................................................................................
অবশেষে একাদশ শ্রেণির ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু
.............................................................................................
শ্রুতিমধুর নয় এমন বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন করবে সরকার
.............................................................................................
প্রাথমিকের শিক্ষকেরা বেতন কমার শঙ্কায়!
.............................................................................................
ঈদের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সংবাদ `গুজব`
.............................................................................................
একাদশে ভর্তি শুরু ৯ আগস্ট
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop