ঢাকা ০১:৩২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪

চতুর্থ স্বামী ওবায়দুল্লাহ, অথচ যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিম পরিচয় দিতেন দুলাভাই

গণমুক্তি ডিজিটাল ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৭:৩৪:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ২২৭ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

চতুর্থ স্বামী ওবায়দুল্লাহ, অথচ যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিম তাকে পরিচয় দিতেন দুলাভাই হিসাবে। দু’জন মিলে করতেন প্রতারণা! অবশেষে প্রতারণার করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গ্রেফতার হন পাবনা জেলা যুব মহিলা লীগের নেত্রী মিম খাতুন ওরফে আফসানা মিম (২৬) তার স্বামী ওবায়দুল্লাহকে (৩৬)।

এ বিষয়ে মনিরুজ্জামান বাবু নামে এক ব্যক্তি এসব তথ্য দায়ের করা মামলায় উল্লেখ করেছেন। বিভিন্ন মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে তিনি জানতে পেরেছেন, দুলাভাই হিসাবে পরিচয় দিলেও মূলত মিমের চতুর্থ স্বামী ওবায়দুল্লাহ। তারা দুজন মিলে পরিকল্পিতভাবে আমাকে প্রতারণার জালে ফেলে।

মনিরুজ্জামান বাবু জানান, পাওনা টাকা উদ্ধারে পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলা করলে বুধবার পাবনা শহরের মাসুম বাজার এলাকার বাসা থেকে মিম ও ওবায়দুল্লাহকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হওয়া মিম খাতুন পাবনা পৌর সদরের পুরোনো মাসুম বাজার এলাকার মিন্টু মোল্লার মেয়ে এবং পাবনা পৌর যুব মহিলা লীগের সহসভাপতি। তার স্বামী ওবায়দুল্লাহ একই এলাকার বাসিন্দা।

মামলার বাদী মনিরুজ্জামান বাবু (৩২) পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার চাঁদভা হাটপাড়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে। পেশায় তিনি ঠিকাদার ও ব্যবসায়ী। গুলশান-২ এ তার এবিএস নামের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

মামলার অভিযোগে বাবু বলেন, ফেসবুকের মাধ্যমে মিমের সঙ্গে আমার পরিচয়। কিছুদিন পর ওবায়দুল্লাহ নামে এক ব্যক্তিকে দুলাভাই হিসেবে আমার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন মিম এবং বিভিন্ন সময়ে ব্যবসার কথা বলে ১৩ লাখ ১৭ হাজার টাকা নেন মিম ও ওবায়দুল্লাহ। বিশ্বাস করে দলিল ছাড়া লেনদেন হলেও, পরে দলিল করতে চাইলে তারা টালবাহানা শুরু করেন। পাওনা টাকা ফেরত দেবেন না বলে হুঁশিয়ারি দেন। এরপর আমাকে বিভিন্ন রকমের ভয়ভীতি ও হুমকি দেখান তারা।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

চতুর্থ স্বামী ওবায়দুল্লাহ, অথচ যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিম পরিচয় দিতেন দুলাভাই

আপডেট সময় : ০৭:৩৪:৩০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 

চতুর্থ স্বামী ওবায়দুল্লাহ, অথচ যুব মহিলা লীগ নেত্রী মিম তাকে পরিচয় দিতেন দুলাভাই হিসাবে। দু’জন মিলে করতেন প্রতারণা! অবশেষে প্রতারণার করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে গ্রেফতার হন পাবনা জেলা যুব মহিলা লীগের নেত্রী মিম খাতুন ওরফে আফসানা মিম (২৬) তার স্বামী ওবায়দুল্লাহকে (৩৬)।

এ বিষয়ে মনিরুজ্জামান বাবু নামে এক ব্যক্তি এসব তথ্য দায়ের করা মামলায় উল্লেখ করেছেন। বিভিন্ন মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে তিনি জানতে পেরেছেন, দুলাভাই হিসাবে পরিচয় দিলেও মূলত মিমের চতুর্থ স্বামী ওবায়দুল্লাহ। তারা দুজন মিলে পরিকল্পিতভাবে আমাকে প্রতারণার জালে ফেলে।

মনিরুজ্জামান বাবু জানান, পাওনা টাকা উদ্ধারে পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলা করলে বুধবার পাবনা শহরের মাসুম বাজার এলাকার বাসা থেকে মিম ও ওবায়দুল্লাহকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার হওয়া মিম খাতুন পাবনা পৌর সদরের পুরোনো মাসুম বাজার এলাকার মিন্টু মোল্লার মেয়ে এবং পাবনা পৌর যুব মহিলা লীগের সহসভাপতি। তার স্বামী ওবায়দুল্লাহ একই এলাকার বাসিন্দা।

মামলার বাদী মনিরুজ্জামান বাবু (৩২) পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার চাঁদভা হাটপাড়া গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে। পেশায় তিনি ঠিকাদার ও ব্যবসায়ী। গুলশান-২ এ তার এবিএস নামের একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

মামলার অভিযোগে বাবু বলেন, ফেসবুকের মাধ্যমে মিমের সঙ্গে আমার পরিচয়। কিছুদিন পর ওবায়দুল্লাহ নামে এক ব্যক্তিকে দুলাভাই হিসেবে আমার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন মিম এবং বিভিন্ন সময়ে ব্যবসার কথা বলে ১৩ লাখ ১৭ হাজার টাকা নেন মিম ও ওবায়দুল্লাহ। বিশ্বাস করে দলিল ছাড়া লেনদেন হলেও, পরে দলিল করতে চাইলে তারা টালবাহানা শুরু করেন। পাওনা টাকা ফেরত দেবেন না বলে হুঁশিয়ারি দেন। এরপর আমাকে বিভিন্ন রকমের ভয়ভীতি ও হুমকি দেখান তারা।