ঢাকা ১২:৫২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪

চালের বস্তায় যা থাকা বাধ্যতামূলক

গণমুক্তি রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ১১:৫২:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ২১৯ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

১৪ এপ্রিল বা পহেলা বৈশাখ থেকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে হবে। আর এর ব্যত্যয় ঘটলে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী দণ্ডমূলক ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে

চালের বস্তায় দাম, উৎপাদনের তারিখ ও চাল ধরণ, চাল কল এবং করপোরেট কোম্পানিগুলো থেকে বাজারজাত ও সরবরাহ করাসহ সকল বিষয় স্পষ্ট করে উল্লেখ থাকতে হবে। সরকারের এসব নির্দেশনা বাধ্যতামূলক।

১৪ এপ্রিল বা পহেলা বৈশাখ থেকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে হবে। অমান্য কারীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী দণ্ডমূলক ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বুধবার খাদ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে পরিপত্র জারি করেছে।

চাল কল (অটোমেটিক ও হাস্কিং) থেকে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে সরবরাহ করা চালের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা এবং উৎপাদন ও সরবরাহ মূল্য সম্পর্কে ভোক্তাদের অবহিত করতেই এমন সরকারের তরফে এই ব্যবস্থা বাধ্যবাধকতা করা হয়েছে।

সম্প্রতি দেশের চাল উৎপাদনকারী কয়েকটি জেলায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা পরিদর্শন করে নিশ্চিত হওয়া হয়েছেন বাজারে একই জাতের ধান থেকে উৎপাদিত চাল ভিন্ন ভিন্ন নামে ও দামে বিক্রি হচ্ছে।

চালের দাম অযৌক্তিক পর্যায়ে চলে গেলে বা আকস্মিক বেড়ে পেলে মিলার, পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা পরস্পরকে দোষারোপ করে থাকেন। এতে ভোক্তারা ন্যায্যমূল্যে পছন্দমতো জাতের ধান, চাল কিনতে অসুবিধায় পড়ছেন এবং অনেক ক্ষেত্রে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

চালের বস্তায় যা থাকা বাধ্যতামূলক

আপডেট সময় : ১১:৫২:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

 

১৪ এপ্রিল বা পহেলা বৈশাখ থেকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে হবে। আর এর ব্যত্যয় ঘটলে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী দণ্ডমূলক ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে

চালের বস্তায় দাম, উৎপাদনের তারিখ ও চাল ধরণ, চাল কল এবং করপোরেট কোম্পানিগুলো থেকে বাজারজাত ও সরবরাহ করাসহ সকল বিষয় স্পষ্ট করে উল্লেখ থাকতে হবে। সরকারের এসব নির্দেশনা বাধ্যতামূলক।

১৪ এপ্রিল বা পহেলা বৈশাখ থেকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে হবে। অমান্য কারীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী দণ্ডমূলক ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বুধবার খাদ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে পরিপত্র জারি করেছে।

চাল কল (অটোমেটিক ও হাস্কিং) থেকে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে সরবরাহ করা চালের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা এবং উৎপাদন ও সরবরাহ মূল্য সম্পর্কে ভোক্তাদের অবহিত করতেই এমন সরকারের তরফে এই ব্যবস্থা বাধ্যবাধকতা করা হয়েছে।

সম্প্রতি দেশের চাল উৎপাদনকারী কয়েকটি জেলায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা পরিদর্শন করে নিশ্চিত হওয়া হয়েছেন বাজারে একই জাতের ধান থেকে উৎপাদিত চাল ভিন্ন ভিন্ন নামে ও দামে বিক্রি হচ্ছে।

চালের দাম অযৌক্তিক পর্যায়ে চলে গেলে বা আকস্মিক বেড়ে পেলে মিলার, পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা পরস্পরকে দোষারোপ করে থাকেন। এতে ভোক্তারা ন্যায্যমূল্যে পছন্দমতো জাতের ধান, চাল কিনতে অসুবিধায় পড়ছেন এবং অনেক ক্ষেত্রে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।