ঢাকা ১২:৫৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ বড় চ্যালেঞ্জ, মাঠপর্যায়ে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৪৪:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ মার্চ ২০২৪ ১৫৩ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে মাঠপর্যায়ে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ আমাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে গেছে। এ অবস্থায় নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রয়োজন হলে প্রতি সপ্তাহে জেলা প্রশাসকদের বাজার মনিটরিংয়ের নির্দেশ দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

মঙ্গলবার (৫ মার্চ) ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলনের তৃতীয় দিনের চতুর্থ অধিবেশনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কার্য অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

আইনশৃঙ্খলা নিয়ে ডিসিরা জেলখানায় কয়েদিদের ভালো খাবার সরবাহের কথা বলেছেন। শারীরিকভাবে অক্ষম বন্দিদের কীভাবে আরও একটু ছাড় দেওয়া যায় এবং ভার্চুয়াল কোর্ট যেটা কোভিডের সময় চালু করা হয়েছিল, সেটা দেশের সব জায়গায় চালুর বিষয়টি তুলে ধরেন।

যেসব কয়েদিকে আনা-নেওয়া রিক্স, তাদের ভার্চুয়াল কোর্টের মাধ্যমে বিচার করা যায় কি না সেটা নিয়েও আলোচনা করেন তারা। নদীপথে যাতে যত্রতত্র বালু উত্তোলন না করে সে বিষয়েও ডিসিদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আপনাদের পাশে নিরাপত্তা বাহিনীর লোকজন থাকবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ বড় চ্যালেঞ্জ, মাঠপর্যায়ে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

আপডেট সময় : ০৪:৪৪:০৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ মার্চ ২০২৪

 

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে মাঠপর্যায়ে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ আমাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে গেছে। এ অবস্থায় নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রয়োজন হলে প্রতি সপ্তাহে জেলা প্রশাসকদের বাজার মনিটরিংয়ের নির্দেশ দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

মঙ্গলবার (৫ মার্চ) ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলনের তৃতীয় দিনের চতুর্থ অধিবেশনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কার্য অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের একথা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

আইনশৃঙ্খলা নিয়ে ডিসিরা জেলখানায় কয়েদিদের ভালো খাবার সরবাহের কথা বলেছেন। শারীরিকভাবে অক্ষম বন্দিদের কীভাবে আরও একটু ছাড় দেওয়া যায় এবং ভার্চুয়াল কোর্ট যেটা কোভিডের সময় চালু করা হয়েছিল, সেটা দেশের সব জায়গায় চালুর বিষয়টি তুলে ধরেন।

যেসব কয়েদিকে আনা-নেওয়া রিক্স, তাদের ভার্চুয়াল কোর্টের মাধ্যমে বিচার করা যায় কি না সেটা নিয়েও আলোচনা করেন তারা। নদীপথে যাতে যত্রতত্র বালু উত্তোলন না করে সে বিষয়েও ডিসিদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আপনাদের পাশে নিরাপত্তা বাহিনীর লোকজন থাকবে।