ঢাকা ০৫:৩৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

ধর্ষণ মামলা থেকে বাঁচতে বিয়ে, সপ্তাহ না গড়াতেই তালাক

রাজশাহী ব্যুরো
  • আপডেট সময় : ০৮:৪৬:৩৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০২৪ ২৬৪ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

আতিকুর রহমান পেশায় স্বণালঙ্কার দোকানী। এই সুযোগে বিভিন্ন নারীর সঙ্গে তার পরিচয় এবং অতি সহজেই স্বর্ণালঙ্কারের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিক নারীর সাথে পরোকিয়ায় মজেন। মোহনপুর উপজেলার মৌগাছী গ্রামের বাসিন্দা আতিকুর।

মৌগাছী বাজারে তার স্বার্ণালঙ্কারের দোকান। এখানে বিভিন্ন বয়সের নারীর যাওয়া করেন। এদের কারো কারো সঙ্গে আলাপ জমিয়ে কৌশলে জেনে নেন সংসারের দুর্বলতা। পড়ে তা টোপ হিসাবে কাজে লাগায় আতিকুর।

অভিযোগ রয়েছে,  স্বামী সংসারে অশান্তি রয়েছে বা তালাকপ্রাপ্ত নারীদের টার্গেট করে বিভিন্ন প্রলোভনে অবৈধ সম্পর্কে লিপ্ত হতেন তিনি। তার খপ্পরে পড়ে অনেকেই খুয়েছেন টাকা পয়সা ও সম্রম। এদের তালিকায় মৌগাছি বাটুপাড়া গ্রামের পাখি বয়স (৩৫)। তালাক হয়ে দীর্ঘদিন ছিলেন বাবার বাড়িতে। বছর খানেক আগে গহনা বানাতে গিয়ে পরিচয় হয় স্বর্ণ ব্যবসায়ী আতিকুর রহমানের সঙ্গে।

আতিকের দৃষ্টি পড়ে পাখির ওপর। নানা প্রলোভনে প্রেম ভালবাসা থেকে পাখির সাথে গড়ে তোলে শারিরীক সম্পর্ক। কখনো শহরে, কখনো বন্ধুর বাসায়, আবার কখনো পাখির বাবার বাড়িতে দিনে পর দিন চলে আতিক পাখির রঙ্গলীলা। এরই মধ্যে পাখি সন্তান সম্ভবা হয়ে পড়েন।

পাখির শারিরীক অবস্থা খারাপ হতে থাকলে ১৩ জানুয়ারি সে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের স্ত্রীরোগ বর্হি বিভাগে ডাক্তার দেখায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক পাখির পেটে কয়দিনের বাচ্চা আছে তা জানার জন্য আল্ট্রাসনোগ্রাফি করার পরামর্শ দেন ডাক্তার। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে সে জানতে পারে তার পেটে বাচার বয়স ৬০ দিন।

হাসপাতাল থেকে ফিরে পাখি আতিককে সব খুলে বললে সে বাচ্চাটি নষ্ট করতে পাখিকে চাপ দেয়। আতিক ধর্ষন মামলা থেকে বাঁচতে বাচ্চা পেটে থাকা অবস্থায় ১১ ফেব্রুয়ারী স্থানীয় সহকারি কাজি দবির উদ্দিনের কাছে চার লাখ টাকা দেন মোহরানা ধার্য করে পাখিকে বিয়ে করে। এরপর ১৪ ফেব্রুয়ারী বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে বেড়ানোর কথা বলে আতিক পাখিকে নিয়ে রাজশাহী নগরীর পদ্মার পাড়ে ঘুরতে যায়।

সেখানে আতিক ফুচকার মধ্যে কৌশলে বাচ্চা নষ্ট করার ঔষধ খাইয়ে দেয়। কিছু ক্ষণ পর পাখী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বাড়ি পৌছে দেয়া হয়। রাতের পাখির বাচ্চা এ্যাবোরশান হয়ে যায়।

পাখির শারিরীক অবস্থা আরো খারাপ হতে থাকলে সে আবারো গত ১৫ ফেব্রুয়ারি লক্ষীপুর ঝাউতলা মোড়ে আরএমবি হসপিটাল এ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ডা: তাহসিনা শামীম (তাসু) আল্ট্রাসাউন্ড করলে রিপোর্টে এ্যাবোরশানের কথা উল্লেখ করা হয়।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি আতিক তার শশুর বাড়িতে গেলে পাখি আতিকের বাড়িতে ঘর সংসার করার জন্য যেতে চায়। এসময় আতিক তাকে নিয়ে সংসার করতে হলে ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে এবং তাকে মারধোর করে। পরের দিন অর্থাৎ ১৬ ফেব্রুয়ারি আতিক পাখিকে তালাক দেয়।

এঘটনায় পাখি রাজশাহী বিজ্ঞ মোহনপুর থানা আমলী আলালতে যৌতুক ২০১৮ সালের যৌতুক নিরোধ আইনের ৩ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত থেকে আতিকের নামে নোটিশ আসলে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি মামলাটি মিটমাট করে নিতে আতিক তার শাশুড়ি ও শ্যালক হাসানকে (প্রথম পক্ষের) পাখির বাড়িতে পাঠিয়ে মামলাটি উঠিয়ে নিতে সাড়ে তিন লাখ টাকার প্রস্তাব দেন।

এ ব্যাপারটি নিয়ে আতিকুর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি জানান, এটা আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার। প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ছাড়াই প্রয়োজন হয়েছে বিয়ে করেছি। তাতে আপনাদের সমস্যা?

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ধর্ষণ মামলা থেকে বাঁচতে বিয়ে, সপ্তাহ না গড়াতেই তালাক

আপডেট সময় : ০৮:৪৬:৩৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০২৪

 

আতিকুর রহমান পেশায় স্বণালঙ্কার দোকানী। এই সুযোগে বিভিন্ন নারীর সঙ্গে তার পরিচয় এবং অতি সহজেই স্বর্ণালঙ্কারের প্রলোভন দেখিয়ে একাধিক নারীর সাথে পরোকিয়ায় মজেন। মোহনপুর উপজেলার মৌগাছী গ্রামের বাসিন্দা আতিকুর।

মৌগাছী বাজারে তার স্বার্ণালঙ্কারের দোকান। এখানে বিভিন্ন বয়সের নারীর যাওয়া করেন। এদের কারো কারো সঙ্গে আলাপ জমিয়ে কৌশলে জেনে নেন সংসারের দুর্বলতা। পড়ে তা টোপ হিসাবে কাজে লাগায় আতিকুর।

অভিযোগ রয়েছে,  স্বামী সংসারে অশান্তি রয়েছে বা তালাকপ্রাপ্ত নারীদের টার্গেট করে বিভিন্ন প্রলোভনে অবৈধ সম্পর্কে লিপ্ত হতেন তিনি। তার খপ্পরে পড়ে অনেকেই খুয়েছেন টাকা পয়সা ও সম্রম। এদের তালিকায় মৌগাছি বাটুপাড়া গ্রামের পাখি বয়স (৩৫)। তালাক হয়ে দীর্ঘদিন ছিলেন বাবার বাড়িতে। বছর খানেক আগে গহনা বানাতে গিয়ে পরিচয় হয় স্বর্ণ ব্যবসায়ী আতিকুর রহমানের সঙ্গে।

আতিকের দৃষ্টি পড়ে পাখির ওপর। নানা প্রলোভনে প্রেম ভালবাসা থেকে পাখির সাথে গড়ে তোলে শারিরীক সম্পর্ক। কখনো শহরে, কখনো বন্ধুর বাসায়, আবার কখনো পাখির বাবার বাড়িতে দিনে পর দিন চলে আতিক পাখির রঙ্গলীলা। এরই মধ্যে পাখি সন্তান সম্ভবা হয়ে পড়েন।

পাখির শারিরীক অবস্থা খারাপ হতে থাকলে ১৩ জানুয়ারি সে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের স্ত্রীরোগ বর্হি বিভাগে ডাক্তার দেখায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক পাখির পেটে কয়দিনের বাচ্চা আছে তা জানার জন্য আল্ট্রাসনোগ্রাফি করার পরামর্শ দেন ডাক্তার। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আল্ট্রাসনোগ্রাফি করে সে জানতে পারে তার পেটে বাচার বয়স ৬০ দিন।

হাসপাতাল থেকে ফিরে পাখি আতিককে সব খুলে বললে সে বাচ্চাটি নষ্ট করতে পাখিকে চাপ দেয়। আতিক ধর্ষন মামলা থেকে বাঁচতে বাচ্চা পেটে থাকা অবস্থায় ১১ ফেব্রুয়ারী স্থানীয় সহকারি কাজি দবির উদ্দিনের কাছে চার লাখ টাকা দেন মোহরানা ধার্য করে পাখিকে বিয়ে করে। এরপর ১৪ ফেব্রুয়ারী বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে বেড়ানোর কথা বলে আতিক পাখিকে নিয়ে রাজশাহী নগরীর পদ্মার পাড়ে ঘুরতে যায়।

সেখানে আতিক ফুচকার মধ্যে কৌশলে বাচ্চা নষ্ট করার ঔষধ খাইয়ে দেয়। কিছু ক্ষণ পর পাখী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বাড়ি পৌছে দেয়া হয়। রাতের পাখির বাচ্চা এ্যাবোরশান হয়ে যায়।

পাখির শারিরীক অবস্থা আরো খারাপ হতে থাকলে সে আবারো গত ১৫ ফেব্রুয়ারি লক্ষীপুর ঝাউতলা মোড়ে আরএমবি হসপিটাল এ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ডা: তাহসিনা শামীম (তাসু) আল্ট্রাসাউন্ড করলে রিপোর্টে এ্যাবোরশানের কথা উল্লেখ করা হয়।

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি আতিক তার শশুর বাড়িতে গেলে পাখি আতিকের বাড়িতে ঘর সংসার করার জন্য যেতে চায়। এসময় আতিক তাকে নিয়ে সংসার করতে হলে ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে এবং তাকে মারধোর করে। পরের দিন অর্থাৎ ১৬ ফেব্রুয়ারি আতিক পাখিকে তালাক দেয়।

এঘটনায় পাখি রাজশাহী বিজ্ঞ মোহনপুর থানা আমলী আলালতে যৌতুক ২০১৮ সালের যৌতুক নিরোধ আইনের ৩ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত থেকে আতিকের নামে নোটিশ আসলে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি মামলাটি মিটমাট করে নিতে আতিক তার শাশুড়ি ও শ্যালক হাসানকে (প্রথম পক্ষের) পাখির বাড়িতে পাঠিয়ে মামলাটি উঠিয়ে নিতে সাড়ে তিন লাখ টাকার প্রস্তাব দেন।

এ ব্যাপারটি নিয়ে আতিকুর রহমানের সাথে কথা বললে তিনি জানান, এটা আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার। প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ছাড়াই প্রয়োজন হয়েছে বিয়ে করেছি। তাতে আপনাদের সমস্যা?