ঢাকা ০২:৪৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

পরিবেশ সুরক্ষা-টেকসই উন্নয়নে যুবদের অংশগ্রহণ গুরুত্বপূর্ণ: পরিবেশমন্ত্রী

গণমুক্তি রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৬:৪৫:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২ জুন ২০২৪ ৪৯ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, পরিবেশ রক্ষা এবং টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য বাস্তবায়নে নাগরিকদের সক্রিয় অংশগ্রহণ বিশেষ করে তরুণদের অংশগ্রহণ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বে জাতিসংঘ চিহ্নিত জলবায়ু পরিবর্তন, জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি এবং দূষণ এই তিনটি জটিল সমস্যা সমাধানে যুবকদের নিজেদেরকে নিয়োজিত করতে হবে।

রোববার (২ জুন) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যাশনাল মডেল ইউনাইটেড নেশনস (ডনমুন) ২০২৪-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে পরিবেশমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সাবের চৌধুরী বলেন, তরুণদের অবশ্যই সংলাপ শিখতে হবে, কার্যকরভাবে যোগাযোগ করতে হবে এবং চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে। আমাদের অবশ্যই প্রকৃতির সাথে শান্তির জন্য চেষ্টা করতে হবে। ন্যায়বিচারের জন্য আমাদের লড়াই এবং যুক্তি করার ক্ষমতার জন্য সম্মিলিত পদক্ষেপের প্রয়োজন।

মন্ত্রী চৌধুরী বলেন, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় আমাদের পরিবেশ রক্ষা এবং টেকসই উন্নয়ন ও ন্যায়সঙ্গত শান্তির জন্য নীতি বাস্তবায়নে সচেষ্ট। আসুন একসাথে, আমরা এমন একটি বিশ্বের জন্য সংগ্রাম করি যেখানে স্থায়িত্ব এবং শান্তি নিছক আকাঙ্খা নয় বরং বাস্তবতা।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

পরিবেশ সুরক্ষা-টেকসই উন্নয়নে যুবদের অংশগ্রহণ গুরুত্বপূর্ণ: পরিবেশমন্ত্রী

আপডেট সময় : ০৬:৪৫:২৭ অপরাহ্ন, রবিবার, ২ জুন ২০২৪

 

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, পরিবেশ রক্ষা এবং টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য বাস্তবায়নে নাগরিকদের সক্রিয় অংশগ্রহণ বিশেষ করে তরুণদের অংশগ্রহণ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বে জাতিসংঘ চিহ্নিত জলবায়ু পরিবর্তন, জীববৈচিত্র্যের ক্ষতি এবং দূষণ এই তিনটি জটিল সমস্যা সমাধানে যুবকদের নিজেদেরকে নিয়োজিত করতে হবে।

রোববার (২ জুন) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যাশনাল মডেল ইউনাইটেড নেশনস (ডনমুন) ২০২৪-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে পরিবেশমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

সাবের চৌধুরী বলেন, তরুণদের অবশ্যই সংলাপ শিখতে হবে, কার্যকরভাবে যোগাযোগ করতে হবে এবং চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে। আমাদের অবশ্যই প্রকৃতির সাথে শান্তির জন্য চেষ্টা করতে হবে। ন্যায়বিচারের জন্য আমাদের লড়াই এবং যুক্তি করার ক্ষমতার জন্য সম্মিলিত পদক্ষেপের প্রয়োজন।

মন্ত্রী চৌধুরী বলেন, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় আমাদের পরিবেশ রক্ষা এবং টেকসই উন্নয়ন ও ন্যায়সঙ্গত শান্তির জন্য নীতি বাস্তবায়নে সচেষ্ট। আসুন একসাথে, আমরা এমন একটি বিশ্বের জন্য সংগ্রাম করি যেখানে স্থায়িত্ব এবং শান্তি নিছক আকাঙ্খা নয় বরং বাস্তবতা।