ঢাকা ১২:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪

মুশতাক-তিশা দম্পতি ডিবি কার্যালয়ে

স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেট সময় : ১২:২৪:০৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১৬ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সদস্য খন্দকার মুশতাক আহমেদ (৬২) একই কলেজের শিক্ষার্থী সিনথিয়া ইসলাম তিশাকে (১৮) বিয়ে করেন।

তাদের এই অসম বিয়ে নিয়ে ব্যাপক আলোচনা তৈরি হয়। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে। তারা নিজেরাও সোশ্যাল মিডিয়ায় অবিরাম বক্তব্য দিয়ে আলোচনা রয়েছেন। এবারের অমর একুশে বইমেলায় তাদের প্রেম কাহিনী নিয়ে বই প্রকাশ করে আরও আলোচনায় আসেন তারা।

কিছু সংখ্যক যুবকের প্রতিবাদে বইমেলা প্রাঙ্গণ ছাড়ার পর নিরাপত্তা চেয়ে শাহবাগ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিলেন খন্দকার মুশতাক আহমেদ ও সিনথিয়া ইসলাম তিশা দম্পতি। এবার নিজের ও স্ত্রীর নিরাপত্তা চাইতে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ কার্যালয়ে গিয়েছেন মুশতাক ও তিশা।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যার দিকে মুশতাক-তিশা দম্পতি রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে গিয়েছেন বলে ডিবির এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
ডিবি জানায়, খন্দকার মুশতাক আহমেদ ও সিনথিয়া ইসলাম তিশা দম্পতি ডিবি কার্যালয়ে এসেছেন। নিজেদের নিরাপত্তার জন্য আবেদন করেন তারা। গত শুক্রবার বিকেলে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বইমেলায় স্ত্রীকে নিয়ে নিজের লেখা বইয়ের প্রচারণায় যান মুশতাক। একপর্যায়ে পাঠক, ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের ক্ষোভের মুখে পড়েন এই দম্পতি। দুয়োধ্বনি দিয়ে তাদের বইমেলা প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে যেতে বাধ্য করা হয়।

ওইদিন বইমেলায় যান মুশতাক-তিশা দম্পতি। সেখানে ছিল মুশতাকের লেখা বই ‘তিশার ভালোবাসা’ ও ‘তিশা অ্যান্ড মুশতাক’। তাদের দেখে রীতিমতো ভিড় করছিলেন মেলায় আসা উৎসুক দর্শনার্থীদের অনেকে। মুশতাক-তিশা দম্পতি তখন ‘তিশার ভালোবাসা’ বইটি হাতে নিয়ে পাঠকদের কিনতে উৎসাহিত করছিলেন। এসময় একদল ক্রেতা-দর্শনার্থী তাদের তাড়া করেন। তাদের উদ্দেশে ‘ভুয়া ভুয়া’ ও ‘ছি ছি ছি ছি’ দুয়োধ্বনি দেন।
পরে মেলা প্রাঙ্গণে থাকা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা এ দম্পতিকে নিরাপদে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটের গেট দিয়ে মেলা প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে যেতে সাহায্য করেন। এ ঘটনায় পরদিন শনিবার রাতে নিজেদের নিরাপত্তা চেয়ে শাহবাগ থানায় গিয়ে জিডি করেন আলোচিত এ দম্পতি। তাদের এসব বই থেকে পাঠকরা কি শিখতে পারবে তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন মেলার মানুষ।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

মুশতাক-তিশা দম্পতি ডিবি কার্যালয়ে

আপডেট সময় : ১২:২৪:০৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রাজধানীর মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের গভর্নিং বডির সদস্য খন্দকার মুশতাক আহমেদ (৬২) একই কলেজের শিক্ষার্থী সিনথিয়া ইসলাম তিশাকে (১৮) বিয়ে করেন।

তাদের এই অসম বিয়ে নিয়ে ব্যাপক আলোচনা তৈরি হয়। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠে। তারা নিজেরাও সোশ্যাল মিডিয়ায় অবিরাম বক্তব্য দিয়ে আলোচনা রয়েছেন। এবারের অমর একুশে বইমেলায় তাদের প্রেম কাহিনী নিয়ে বই প্রকাশ করে আরও আলোচনায় আসেন তারা।

কিছু সংখ্যক যুবকের প্রতিবাদে বইমেলা প্রাঙ্গণ ছাড়ার পর নিরাপত্তা চেয়ে শাহবাগ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছিলেন খন্দকার মুশতাক আহমেদ ও সিনথিয়া ইসলাম তিশা দম্পতি। এবার নিজের ও স্ত্রীর নিরাপত্তা চাইতে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ কার্যালয়ে গিয়েছেন মুশতাক ও তিশা।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যার দিকে মুশতাক-তিশা দম্পতি রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে গিয়েছেন বলে ডিবির এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
ডিবি জানায়, খন্দকার মুশতাক আহমেদ ও সিনথিয়া ইসলাম তিশা দম্পতি ডিবি কার্যালয়ে এসেছেন। নিজেদের নিরাপত্তার জন্য আবেদন করেন তারা। গত শুক্রবার বিকেলে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বইমেলায় স্ত্রীকে নিয়ে নিজের লেখা বইয়ের প্রচারণায় যান মুশতাক। একপর্যায়ে পাঠক, ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের ক্ষোভের মুখে পড়েন এই দম্পতি। দুয়োধ্বনি দিয়ে তাদের বইমেলা প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে যেতে বাধ্য করা হয়।

ওইদিন বইমেলায় যান মুশতাক-তিশা দম্পতি। সেখানে ছিল মুশতাকের লেখা বই ‘তিশার ভালোবাসা’ ও ‘তিশা অ্যান্ড মুশতাক’। তাদের দেখে রীতিমতো ভিড় করছিলেন মেলায় আসা উৎসুক দর্শনার্থীদের অনেকে। মুশতাক-তিশা দম্পতি তখন ‘তিশার ভালোবাসা’ বইটি হাতে নিয়ে পাঠকদের কিনতে উৎসাহিত করছিলেন। এসময় একদল ক্রেতা-দর্শনার্থী তাদের তাড়া করেন। তাদের উদ্দেশে ‘ভুয়া ভুয়া’ ও ‘ছি ছি ছি ছি’ দুয়োধ্বনি দেন।
পরে মেলা প্রাঙ্গণে থাকা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা এ দম্পতিকে নিরাপদে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটের গেট দিয়ে মেলা প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে যেতে সাহায্য করেন। এ ঘটনায় পরদিন শনিবার রাতে নিজেদের নিরাপত্তা চেয়ে শাহবাগ থানায় গিয়ে জিডি করেন আলোচিত এ দম্পতি। তাদের এসব বই থেকে পাঠকরা কি শিখতে পারবে তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন মেলার মানুষ।