ঢাকা ০২:৪৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪

লেগুনা স্ট্যান্ডের দখল নিয়ে সংঘর্ষে কুমিল্লায় সিহত ১

গণমুক্তি ডিজিটাল ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৪:৫৩:৫৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ মার্চ ২০২৪ ১৯৩ বার পড়া হয়েছে

ছবি : সংগৃহীত

দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

কুমিল্লায় লেগুনা স্ট্যাণ্ডের দখল নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে অর্ণব নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

জানা গিয়েছে, কুমিল্লা নগরীর শাসনগাছা মধ্যমপাড়া আবুল কাশেম গং ও শাসনগাছা মোলা বাড়ির মধ্যে লেগুনা স্ট্যান্ডের দখল নিয়ে সংঘর্ষের জেরে অর্ণব গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়।

মৃত অর্নব (৩০) মধ্যমপাড়ার বাসিন্দা। তার বাবার নাম আজহার। এসময় আরও ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) বিকেল ৩টার দিকে কুমিল্লার শাসনগাছা এলাকার ঘটনা।

কোতোয়ালি থানার ওসি মো. ফিরোজ হোসেন গুলিবিদ্ধ হয়ে অর্ণবের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।

স্থানীয় সূত্রের খবর,  আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শুক্রবার জুমার নামাজের পর  শাসনগাছা বাস টার্মিনালে সততা বাস সার্ভিসে  ছিলেন অর্ণব। তখন একই এলাকার ছাত্রলীগ কর্মী রাব্বি ও আলাউদ্দিন এসে প্রকাশ্যে গুলি করে।  দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।  স্থানীয়রা আহতদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অর্ণবকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

লেগুনা স্ট্যান্ডের দখল নিয়ে সংঘর্ষে কুমিল্লায় সিহত ১

আপডেট সময় : ০৪:৫৩:৫৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৫ মার্চ ২০২৪

 

কুমিল্লায় লেগুনা স্ট্যাণ্ডের দখল নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে অর্ণব নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

জানা গিয়েছে, কুমিল্লা নগরীর শাসনগাছা মধ্যমপাড়া আবুল কাশেম গং ও শাসনগাছা মোলা বাড়ির মধ্যে লেগুনা স্ট্যান্ডের দখল নিয়ে সংঘর্ষের জেরে অর্ণব গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়।

মৃত অর্নব (৩০) মধ্যমপাড়ার বাসিন্দা। তার বাবার নাম আজহার। এসময় আরও ৩ জন গুলিবিদ্ধ হয়।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) বিকেল ৩টার দিকে কুমিল্লার শাসনগাছা এলাকার ঘটনা।

কোতোয়ালি থানার ওসি মো. ফিরোজ হোসেন গুলিবিদ্ধ হয়ে অর্ণবের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।

স্থানীয় সূত্রের খবর,  আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শুক্রবার জুমার নামাজের পর  শাসনগাছা বাস টার্মিনালে সততা বাস সার্ভিসে  ছিলেন অর্ণব। তখন একই এলাকার ছাত্রলীগ কর্মী রাব্বি ও আলাউদ্দিন এসে প্রকাশ্যে গুলি করে।  দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।  স্থানীয়রা আহতদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অর্ণবকে মৃত ঘোষণা করেন।