ঢাকা ১২:৪৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪

শ্যালকের নির্দেশে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে অপহরণ, ক্ষমা চাইলেন পলক

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:১৫:৫৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৯৫ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

শ্যালকের অনুসারীদের প্রহারে গুরুতর আহত রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেনকে দেখতে আসেন তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) তিনি রাজশাহীতে ছুটে আসেন। তিনি দেলোয়ার হোসেনের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন কথা বলেন। এ সময় দেলোয়ারের ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

অপহরণ

দেলোয়ার হোসেনের অপহরণ ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাদের মধ্যে একজন আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে বলেছেন, আওয়ামী লীগ নেতা ও নির্বাচনের প্রার্থী লুৎফুল হাবীবের পক্ষ হয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে তারা।

পলক শ্যালকের এহেন কাণ্ডে বিব্রত পলক সাংবাদিকদের কাজে ক্ষমা চেয়ে বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত যেই হোক ছাড় পাবে না।

নাটোরের সিংড়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী লুৎফুল হাবীব (প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদের শ্যালক) তার সহযোগীরা এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। শ্যালকের এহেন কাণ্ডে দেশজুড়ে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়।

প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও শ্যালক লুৎফুল হাবীব

সাংবাদিকদের জুনাইদ আহমেদ বলেন, লুৎফুল হাবীব আমার আত্মীয় (শ্যালক) তা অস্বীকার করবো না। আত্মীয়তার সুবাদে বা রাজনৈতিক কারণে কেউ বাড়তি সুবিধা পাবে না। বরং এমন ব্যবস্থা নেওয়া হবে, যা এমপি-মন্ত্রীর স্বজনদের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

অভিযুক্ত ব্যক্তিদের ব্যাপারে আমরা দলের পক্ষ থেকেও খুব অল্প সময়ের মধ্যে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান জুনাইদ আহমেদ পলক।

গত সোমবার পাঁচ ঘণ্টার ব্যবধানে নাটোর জেলা প্রশাসক ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে থেকে দেলোয়ার হোসেন ও তার ভাইসহ দুই আওয়ামী লীগ নেতাকে অপহরণ করে মারধর করে দুর্বৃত্তরা। পরে দুর্বৃত্তরা দেলোয়ারকে মুমূর্ষু অবস্থায় তার গ্রামের বাড়ির সামনে ফেলে রেখে যায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

শ্যালকের নির্দেশে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে অপহরণ, ক্ষমা চাইলেন পলক

আপডেট সময় : ০৬:১৫:৫৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

 

শ্যালকের অনুসারীদের প্রহারে গুরুতর আহত রাজশাহী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেনকে দেখতে আসেন তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) তিনি রাজশাহীতে ছুটে আসেন। তিনি দেলোয়ার হোসেনের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন কথা বলেন। এ সময় দেলোয়ারের ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

অপহরণ

দেলোয়ার হোসেনের অপহরণ ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাদের মধ্যে একজন আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে বলেছেন, আওয়ামী লীগ নেতা ও নির্বাচনের প্রার্থী লুৎফুল হাবীবের পক্ষ হয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছে তারা।

পলক শ্যালকের এহেন কাণ্ডে বিব্রত পলক সাংবাদিকদের কাজে ক্ষমা চেয়ে বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত যেই হোক ছাড় পাবে না।

নাটোরের সিংড়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী লুৎফুল হাবীব (প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদের শ্যালক) তার সহযোগীরা এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। শ্যালকের এহেন কাণ্ডে দেশজুড়ে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়।

প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও শ্যালক লুৎফুল হাবীব

সাংবাদিকদের জুনাইদ আহমেদ বলেন, লুৎফুল হাবীব আমার আত্মীয় (শ্যালক) তা অস্বীকার করবো না। আত্মীয়তার সুবাদে বা রাজনৈতিক কারণে কেউ বাড়তি সুবিধা পাবে না। বরং এমন ব্যবস্থা নেওয়া হবে, যা এমপি-মন্ত্রীর স্বজনদের জন্য দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

অভিযুক্ত ব্যক্তিদের ব্যাপারে আমরা দলের পক্ষ থেকেও খুব অল্প সময়ের মধ্যে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান জুনাইদ আহমেদ পলক।

গত সোমবার পাঁচ ঘণ্টার ব্যবধানে নাটোর জেলা প্রশাসক ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে থেকে দেলোয়ার হোসেন ও তার ভাইসহ দুই আওয়ামী লীগ নেতাকে অপহরণ করে মারধর করে দুর্বৃত্তরা। পরে দুর্বৃত্তরা দেলোয়ারকে মুমূর্ষু অবস্থায় তার গ্রামের বাড়ির সামনে ফেলে রেখে যায়।