ঢাকা ০৬:২১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

সরকার ২৯ পণ্যের মূল্য বেঁধে দেওয়া কল্পনাপ্রসূত বলছে দোকান মালিক সমিতি

গণমুক্তি রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০১:০০:১৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০২৪ ১২৭ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

সরকার ২৯ পণ্যের দাম বেঁধে দেওয়াকে অর্থহীন ও কল্পনাপ্রসূত আখ্যা দিয়েছে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি। কৃষি বিপণন অধিদপ্তরকে মূল্যবেঁধে দেওয়া পণ্য বিক্রির দাবি জানিয়েছে।

হেলাল উদ্দিন বলেন, বেঁধে দেওয়া দামে কৃষি বিপণনকে বিক্রি করতে হবে, না হলে এ প্রজ্ঞাপন স্থগিত করতে হবে। আমরা এ দামে বিক্রি করতে পারবো না। দাম বেঁধে দেওয়াটা অযৌক্তিক-অবাস্তব ও অর্থহীন।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) দোকান মালিক সমিতির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে একথা বলেন, সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন। মহাসচিব জহিরুল হক ভুইয়াসহ অন্যান্য ব্যবসায়ীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি কৃষি বিপণন অধিদপ্তর ২৯টি পণ্যের দাম নির্ধারণ করে দেওয়াকে অবিবেচনা, অসার বলেও মন্তব্য করেন এই ব্যবসায়ি নেতা।

পাইকারী ও খুচরা বাজারে মাছ, মাংস, ডিম, ডাল ও সবজিসহ ২৯টি পণ্যের খুচরা পর্যায়ে মূল্যনির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর। রোজার শুরুতেই খেজুর ও চিনির দাম নির্ধারণ করে দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। প্রতি কেজি অতি সাধারণ মানের খেজুরের ১৫০ থেকে ১৬৫ টাকা ও প্রতি কেজি চিনির মূল্য ১৪০ টাকা নির্ধারণ করে মন্ত্রণালয়।

হেলাল উদ্দিন বলেন, মুক্তবাজার অর্থনীতিতে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া যায় না। ২৯ পণ্যের দর নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। আমরা এ দামে এসব পণ্যগুলোকে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর কর্তৃপক্ষকে বিক্রির অনুরোধ করছি। পাশাপাশি এসব পণ্যের বিক্রিত লাভ দিয়ে কর্মকর্তারা বেতনও নেবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

সরকার ২৯ পণ্যের মূল্য বেঁধে দেওয়া কল্পনাপ্রসূত বলছে দোকান মালিক সমিতি

আপডেট সময় : ০১:০০:১৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০২৪

 

সরকার ২৯ পণ্যের দাম বেঁধে দেওয়াকে অর্থহীন ও কল্পনাপ্রসূত আখ্যা দিয়েছে বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি। কৃষি বিপণন অধিদপ্তরকে মূল্যবেঁধে দেওয়া পণ্য বিক্রির দাবি জানিয়েছে।

হেলাল উদ্দিন বলেন, বেঁধে দেওয়া দামে কৃষি বিপণনকে বিক্রি করতে হবে, না হলে এ প্রজ্ঞাপন স্থগিত করতে হবে। আমরা এ দামে বিক্রি করতে পারবো না। দাম বেঁধে দেওয়াটা অযৌক্তিক-অবাস্তব ও অর্থহীন।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) দোকান মালিক সমিতির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে একথা বলেন, সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন। মহাসচিব জহিরুল হক ভুইয়াসহ অন্যান্য ব্যবসায়ীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি কৃষি বিপণন অধিদপ্তর ২৯টি পণ্যের দাম নির্ধারণ করে দেওয়াকে অবিবেচনা, অসার বলেও মন্তব্য করেন এই ব্যবসায়ি নেতা।

পাইকারী ও খুচরা বাজারে মাছ, মাংস, ডিম, ডাল ও সবজিসহ ২৯টি পণ্যের খুচরা পর্যায়ে মূল্যনির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর। রোজার শুরুতেই খেজুর ও চিনির দাম নির্ধারণ করে দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। প্রতি কেজি অতি সাধারণ মানের খেজুরের ১৫০ থেকে ১৬৫ টাকা ও প্রতি কেজি চিনির মূল্য ১৪০ টাকা নির্ধারণ করে মন্ত্রণালয়।

হেলাল উদ্দিন বলেন, মুক্তবাজার অর্থনীতিতে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া যায় না। ২৯ পণ্যের দর নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। আমরা এ দামে এসব পণ্যগুলোকে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর কর্তৃপক্ষকে বিক্রির অনুরোধ করছি। পাশাপাশি এসব পণ্যের বিক্রিত লাভ দিয়ে কর্মকর্তারা বেতনও নেবেন।