ঢাকা ০৪:০৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

সিলেটে ১০ লাখ পর্যটকের প্রত্যাশা ব্যবসায়ীদের

গণমুক্তি রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৯:৫২:২৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০২৪ ১১৭ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

বৃহত্তর সিলেট অপার সৌন্দর্যের লীলাভূমি। এই সিলেটের মৌলভী বাজার জেলার শ্রীমঙ্গল পর্যটন নগরী। এখানের চা বাগানের সৌন্দর্যে পর্যটকরা মুগ্ধ। এতো নান্দনিক সাজের চা বাগান এই তল্লাটে আছে কিনা সন্দেহ।

পাশাপাশি শ্রীমঙ্গলে রয়েছে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান। দেশের বাইরে থেকে বহু পর্যটক ও গবেষক ছুটে আসেন এই জাতীয় উদ্যানে।

শ্রীমঙ্গল, জাফলং, রাতারকুল, বিছানাকান্দিসহ পর্যটন কেন্দ্রগুলো দু’বাহু বাড়িয়ে রয়েছে।


ঈদের লম্বা ছুটিতে আপনি সপরিবারে ঘুরে আসতে পারেন বৃহত্তর সিলেটের নান্দনিক সব জায়গুলোতে।

জানা গেছে, এরই মধ্যে বৃহত্তর সিলেটের ৬০ শতাংশ হোটেল অগ্রিম বুকিং হয়ে গিয়েছে। ব্যবসায়ীদের আশা শেষ মুহূর্তে সিলেটের সবকটি হোটেল-মোটেল ও রিসোর্ট শতভাগ বুকিং হয়ে যাবে।

পর্যটন সংশ্লিষ্ট বলছেন, এবার ঈদে সিলেটে অন্তত ৮-১০ লাখ পর্যটকের সমাগম হতে পারে। এ অবস্থায় আশায় বুক বাঁধতে শুরু করেছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। জেলার সব হোটেল-মোটেল ও রিসোর্টগুলোকে সাজানো হয়েছে নতুন সাজে। ঘোষণা করা হয়েছে বিশেষ ছাড়।

পর্যটন কেন্দ্রগুলো ঘিরে পর্যটকরা যাতে কোকমের হয়রানির মুখোমুখি না হয়, সে জন্য বাড়ানো হয়েছে বিশেষ নজরদারি। পর্যটকদের সব ধরনের নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

সিলেটে ১০ লাখ পর্যটকের প্রত্যাশা ব্যবসায়ীদের

আপডেট সময় : ০৯:৫২:২৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ এপ্রিল ২০২৪

 

বৃহত্তর সিলেট অপার সৌন্দর্যের লীলাভূমি। এই সিলেটের মৌলভী বাজার জেলার শ্রীমঙ্গল পর্যটন নগরী। এখানের চা বাগানের সৌন্দর্যে পর্যটকরা মুগ্ধ। এতো নান্দনিক সাজের চা বাগান এই তল্লাটে আছে কিনা সন্দেহ।

পাশাপাশি শ্রীমঙ্গলে রয়েছে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান। দেশের বাইরে থেকে বহু পর্যটক ও গবেষক ছুটে আসেন এই জাতীয় উদ্যানে।

শ্রীমঙ্গল, জাফলং, রাতারকুল, বিছানাকান্দিসহ পর্যটন কেন্দ্রগুলো দু’বাহু বাড়িয়ে রয়েছে।


ঈদের লম্বা ছুটিতে আপনি সপরিবারে ঘুরে আসতে পারেন বৃহত্তর সিলেটের নান্দনিক সব জায়গুলোতে।

জানা গেছে, এরই মধ্যে বৃহত্তর সিলেটের ৬০ শতাংশ হোটেল অগ্রিম বুকিং হয়ে গিয়েছে। ব্যবসায়ীদের আশা শেষ মুহূর্তে সিলেটের সবকটি হোটেল-মোটেল ও রিসোর্ট শতভাগ বুকিং হয়ে যাবে।

পর্যটন সংশ্লিষ্ট বলছেন, এবার ঈদে সিলেটে অন্তত ৮-১০ লাখ পর্যটকের সমাগম হতে পারে। এ অবস্থায় আশায় বুক বাঁধতে শুরু করেছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। জেলার সব হোটেল-মোটেল ও রিসোর্টগুলোকে সাজানো হয়েছে নতুন সাজে। ঘোষণা করা হয়েছে বিশেষ ছাড়।

পর্যটন কেন্দ্রগুলো ঘিরে পর্যটকরা যাতে কোকমের হয়রানির মুখোমুখি না হয়, সে জন্য বাড়ানো হয়েছে বিশেষ নজরদারি। পর্যটকদের সব ধরনের নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।