×
  • প্রকাশিত : ২০২২-১১-১৭
  • ৭০ বার পঠিত
স্বাস্থ্য ডেস্ক : পানির অপর নাম জীবন। শরীরে সত্তর শতাংশেরও বেশি পানি। পানির মাধ্যমেই শরীরের অভ্যন্তরে বেশির ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়। শরীরকে সুস্থ রাখতে একজন প্রাপ্তবয়স্ককে অবশ্যই দৈনিক ৩ লিটার পানি পান করা উচিত। শরীরের বর্জ্য বের করে দিতে, শরীরের তাপমাত্রা রক্ষায়, সংবেদনশীল টিস্যু সুরক্ষাসহ বহু কারণে পরিমিত পরিমাণে পানি খাওয়া দরকার।  শরীরে দৈনন্দিন পানির চাহিদা পূরণ না হলে হাজারও শারীরিক সমস্যা দেখা যায়। শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দিলে শরীর নিজে থেকে কিছু সংকেত দিয়ে জানিয়ে দেয়। জেনে নিন যেসব লক্ষণ জানিয়ে দিচ্ছে শরীরে পানির ঘাটতি রয়েছে।
১) শরীরে পানির অভাবে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় এবং ঠোঁট ফাটতে শুরু করে। হঠাৎ করে ত্বক রুক্ষ বোধ করতে শুরু করলে বুঝতে হবে শরীরে পানির ঘাটতি রয়েছে।
২) পানির অভাবে প্রস্রাবের রং হলুদ হয়ে যায়। শরীরে পানির ঘাটতির কারণে প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যায় এবং প্রস্রাব করার সময় জ্বালা বোধ হয়।
৩) পানির অভাবে শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি মুখে দুর্গন্ধও হয়।
৪) পরিমাণের কম পানি পান করলে ডিহাইড্রেশন হতে পারে।তাছাড়া শরীরে প্রয়োজনীয় লবনের ঘাটতি হয়ে ইলেক্ট্রোলাইট ইমব্যালেন্স হতে পারে। 
৫) পানির অভাবে শরীরে অনেক সময় নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা দেখা যায়।উচ্চ রক্তচাপের সমস্যাও হতে পারে শরীরে পানির ঘাটতির কারণে।
৬) পানির অভাবে রক্ত স্বল্পতাও দেখা দেয়।
৭)  কম পানি পানের কারনে পিত্তথলি,
কিডনী,মূত্রনালী ও মুত্রথলি তে পাথর হতে পারে
৮) কম পানি খেলে কোষ্ঠ্যকাঠিন্য হতে পারে।
৯)গর্ভাবস্থায় পানি কম ফেলে বাচ্চার স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যহত হয়।
পানি পানের একটা অন্যতম প্রধান সময় হলো খাবার খাওয়ার মুহূর্ত।তবে খাবার টেবিলে নয়, সারা দিনই পানি পান করা উচিত। সকালের নাশতা, দুপুরের খাবার বা রাতের খাবারের মতো বড় খাবারের অন্তত আধঘণ্টা আগে থেকে বেশি পানি পান না করাই ভালো। কারণ, এতে পেট ভরার অনুভূতি হয়, তাতে খাবার কম খাওয়া হয় এবং পরে আবার ক্ষুধা লাগে। মানে আপনি কতটুকু খাবেন, তা নির্ধারণ করতে সমস্যা হয়। তা ছাড়া খাওয়ার শুরুতে মুখে যে লালা নিঃসরণ শুরু হয়, বেশি পানি খেলে তা ধুয়ে যায়। খাওয়ার সময় খাবারের পরপর বা খাবারের সঙ্গে মধ্যবর্তী সময় বেশি পানি খেলে খাওয়ার হজমপ্রক্রিয়ায় ব্যাঘাত ঘটে। পাকস্থলি বেশি ভরাট হয়ে অস্বস্তি তৈরি হতে পারে। তবে খাবারের সময় অল্প অল্প করে চুমুকে পানি খেতে পারেন। খাবারটিও ধীরেসুস্থে ভালো করে চিবিয়ে সময় নিয়ে গ্রহণ করুন। তাড়াহুড়া করবেন না। এতে হজম ভালো হয়, খাবার ভালো করে চূর্ণ হয়।  খাবারের সময় ঢক ঢক করে গ্লাসভর্তি পানি একবারে খাবেন না। পরিমিত পানি পান করুন,সুস্থ থাকুন, ভালো থাকুন।

ডাঃ রিফাত আল হাসান 
এমবিবিএস 
হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...
ক্যালেন্ডার...

Sun
Mon
Tue
Wed
Thu
Fri
Sat