ঢাকা,বৃহস্পতিবার,৩১০ ভাদ্র ১৪২৮,১৩,মে,২০২১ বাংলার জন্য ক্লিক করুন
  
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : > সাধারণ মানুষকে অবাক করে খাবার তুলে দিচ্ছেন ইউএনও তানভীর   > করোনা ভাইরাসের মধ্যেও দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রয়েছে: পানিসম্পদ উপমন্ত্রী শামীম   > শ্রীনগরে চাঁদা না দেওয়ায় প্রবাসীকে মারধরের অভিযোগ   > গাইবান্ধায় বেড়েছে কাউন চাষ   > সিরাজদিখানে দেড় হাজার পরিবারের মাঝে ঈদ উপহার   > সিলেটে আতিকুর রহমানের সমর্থনে দক্ষিণ সুরমা জাতীয় পার্টির কর্মীসভা   > অপরিপক্ক ফলে ঝালকাঠির বাজার সয়লাব   > বান্দরবানে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে দু:স্থ ও অসহায়দের উপহার দিল শ্রমিক লীগ   > অনুশীলনে বাধা নেই টাইগারদের   > বলিউড সিনেমায় অভিনয় প্রসঙ্গে যা বললেন নানি  

   স্বাস্থ্য চিকিৎসা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
করোনা ভাইরাস দিয়ে জীবাণু অস্ত্র বানাতে চেয়েছিলো চীন

উইকলি অস্ট্রেলিয়ান/এনডিটিভি : চীনা বিজ্ঞানীরা করোনা ভাইরাসকে জীবাণু অস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের বিষয়ে আলোচনা করেছিলেন ২০১৫ সালে। ‘দ্য আন-ন্যাচারাল অরিজিন অব সার্স অ্যান্ড নিউ স্পেসিস অব ম্যান-মেড ভাইরাসেস অ্যাজ জেনেটিক বায়োউইপনস’ শীর্ষক এক ডকুমেন্টে বলা হয়েছে, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে এই জীবাণুঅস্ত্র দিয়ে যুদ্ধ করা যাবে। ভারতের অনলাইন এনডিটিভিতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে। ওই ডকুমেন্টটি ২০১৫ সালে লিখেছেন চীনের বিজ্ঞানীরা এবং স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। এতে বলা হয়েছে সার্স করোনা ভাইরাস হলো নতুন এক জেনেটিক অস্ত্র। যাকে কৃত্রিমভাবে মানবরোগের ভাইরাস হিসেবে আবির্ভাব করানো যেতে পারে। তারপর তাকে জীবাণুঅস্ত্র হিসেবে অবমুক্ত করা যেতে পারে। অস্ট্রেলিয়ার উইকলি অস্ট্রেলিয়ান-এ প্রকাশিত প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে এসব কথা লিখেছে এনডিটিভি। এতে দেখা যায়, কোভিড-১৯ মহামারি শুরুর ৫ বছর আগে সার্স করোনা ভাইরাসকে জীবাণুঅস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের বিষয়ে আলোচনা করেছিলেন চীনের সামরিক বাহিনীর বিজ্ঞানীরা। এ বিষয়ে উইকলি অস্ট্রেলিয়ানের রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে হবংি.পড়স.ধঁ এই সাইটে। এ বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট (এএসপিআই)-এর নির্বাহী পরিচালক পিটার জেনিংস বলেছেন, আমরা যা পেয়েছি এই ডকুমেন্ট থেকে তা বন্দুকের গুলি ছুড়ে দেয়ার সময় যে ধোয়া বের হয় তারই মতো। আমি মনে করি এটা খুব উল্লেখযোগ্য বিষয়। কারণ এ ডকুমেন্ট খুব পরিষ্কারভাবে দেখিয়ে দেয় যে, করোনাভাইরাসের বিভিন্ন স্ট্রেইনের সামরিক ব্যবহারের বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছিলেন চীনা বিজ্ঞানীরা। তারা চিন্তাভাবনা করছিলেন এই করোনা ভাইরাসের স্ট্রেইনকে কিভাবে ছড়িয়ে দেয়া যায়। আমরা এখন যে অবস্থায় আছি, এটা হতে পারে সামরিক ব্যবহারের প্যাথোজেন (করোনা ভাইরাস) দুর্ঘটনাক্রমে অবমুক্ত হয়ে থাকতে পারে। তিনি আরো বলেন, এই ডকুমেন্টই বলে দেয় কেন কোভিড-১৯ নিয়ে বাইরের দেশগুলোর তদন্তের ক্ষেত্রে চীন এত অনীহা প্রকাশ করে। যদি চীনের সামুদ্রিক খাবারের বাজার থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তো তাহলে নিজেদের স্বার্থেই তদন্তে সহযোগিতা করার কথা ছিল চীনের।কিন্তু আমরা চীনকে দেখতে পাচ্ছি বিপরীত অবস্থানে।
সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ রবার্ট পটার চীন সরকারের ফাঁস হওয়া ডকুমেন্ট বিশ্লেষণ করেছেন। তার কাছে এ বিষয়ে জানতে চেয়েছিলেন দ্য অস্ট্রেলিয়ান পত্রিকার সাংবাদিক। জবাবে রবার্ট পটার বলেছেন, এই ডকুমেন্টটি কোনোভাবেই ভুয়া হতে পারে না। আমরা উচ্চ পর্যায়ে আস্থায় পৌঁছেছি যে, এটা প্রকৃত ডকুমেন্ট। এটা ভুয়া নয়। কিন্তু এ বিষয়টিতে গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে অন্যদের। পটার আরো বলেন, চীন সরকার যে এই গবেষণাকে আরো সামনে এগিয়ে নেয়নি বা নিতে চায়নি তা এই ডকুমেন্ট বলে না। রবার্ট পিটার বলেন, এই ডকুমেন্ট চমৎকার মজার একটি বিষয়। এটা বলে দেয় চীনের বৈজ্ঞানিক গবেষকরা কি চিন্তাভাবনা করছেন।
উল্লেখ্য, সার্স-কোভ-২ নামের করোনা ভাইরাস সারাবিশ্বে কোভিড-১৯ মহামারি সৃষ্টি করেছে। এর উৎপত্তি ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে। করোনা ভাইরাস ভাইরাসের বিশাল একটি পরিবার। এর মধ্যে আছে নানা রকম স্ট্রেইন। এর মধ্যে কিছু স্ট্রেইন মানবদেহে শ্বাসপ্রশ্বাসে মারাত্মক সঙ্কট সৃষ্টি করে। এর মধ্যে সাধারণ ঠাণ্ডা থেকে শুরু করে সেভার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (সার্স) পর্যন্ত সংক্রমণ রয়েছে।

করোনা ভাইরাস দিয়ে জীবাণু অস্ত্র বানাতে চেয়েছিলো চীন
                                  

উইকলি অস্ট্রেলিয়ান/এনডিটিভি : চীনা বিজ্ঞানীরা করোনা ভাইরাসকে জীবাণু অস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের বিষয়ে আলোচনা করেছিলেন ২০১৫ সালে। ‘দ্য আন-ন্যাচারাল অরিজিন অব সার্স অ্যান্ড নিউ স্পেসিস অব ম্যান-মেড ভাইরাসেস অ্যাজ জেনেটিক বায়োউইপনস’ শীর্ষক এক ডকুমেন্টে বলা হয়েছে, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে এই জীবাণুঅস্ত্র দিয়ে যুদ্ধ করা যাবে। ভারতের অনলাইন এনডিটিভিতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে। ওই ডকুমেন্টটি ২০১৫ সালে লিখেছেন চীনের বিজ্ঞানীরা এবং স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। এতে বলা হয়েছে সার্স করোনা ভাইরাস হলো নতুন এক জেনেটিক অস্ত্র। যাকে কৃত্রিমভাবে মানবরোগের ভাইরাস হিসেবে আবির্ভাব করানো যেতে পারে। তারপর তাকে জীবাণুঅস্ত্র হিসেবে অবমুক্ত করা যেতে পারে। অস্ট্রেলিয়ার উইকলি অস্ট্রেলিয়ান-এ প্রকাশিত প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে এসব কথা লিখেছে এনডিটিভি। এতে দেখা যায়, কোভিড-১৯ মহামারি শুরুর ৫ বছর আগে সার্স করোনা ভাইরাসকে জীবাণুঅস্ত্র হিসেবে ব্যবহারের বিষয়ে আলোচনা করেছিলেন চীনের সামরিক বাহিনীর বিজ্ঞানীরা। এ বিষয়ে উইকলি অস্ট্রেলিয়ানের রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে হবংি.পড়স.ধঁ এই সাইটে। এ বিষয়ে অস্ট্রেলিয়ান স্ট্র্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট (এএসপিআই)-এর নির্বাহী পরিচালক পিটার জেনিংস বলেছেন, আমরা যা পেয়েছি এই ডকুমেন্ট থেকে তা বন্দুকের গুলি ছুড়ে দেয়ার সময় যে ধোয়া বের হয় তারই মতো। আমি মনে করি এটা খুব উল্লেখযোগ্য বিষয়। কারণ এ ডকুমেন্ট খুব পরিষ্কারভাবে দেখিয়ে দেয় যে, করোনাভাইরাসের বিভিন্ন স্ট্রেইনের সামরিক ব্যবহারের বিষয়ে চিন্তাভাবনা করছিলেন চীনা বিজ্ঞানীরা। তারা চিন্তাভাবনা করছিলেন এই করোনা ভাইরাসের স্ট্রেইনকে কিভাবে ছড়িয়ে দেয়া যায়। আমরা এখন যে অবস্থায় আছি, এটা হতে পারে সামরিক ব্যবহারের প্যাথোজেন (করোনা ভাইরাস) দুর্ঘটনাক্রমে অবমুক্ত হয়ে থাকতে পারে। তিনি আরো বলেন, এই ডকুমেন্টই বলে দেয় কেন কোভিড-১৯ নিয়ে বাইরের দেশগুলোর তদন্তের ক্ষেত্রে চীন এত অনীহা প্রকাশ করে। যদি চীনের সামুদ্রিক খাবারের বাজার থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তো তাহলে নিজেদের স্বার্থেই তদন্তে সহযোগিতা করার কথা ছিল চীনের।কিন্তু আমরা চীনকে দেখতে পাচ্ছি বিপরীত অবস্থানে।
সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ক বিশেষজ্ঞ রবার্ট পটার চীন সরকারের ফাঁস হওয়া ডকুমেন্ট বিশ্লেষণ করেছেন। তার কাছে এ বিষয়ে জানতে চেয়েছিলেন দ্য অস্ট্রেলিয়ান পত্রিকার সাংবাদিক। জবাবে রবার্ট পটার বলেছেন, এই ডকুমেন্টটি কোনোভাবেই ভুয়া হতে পারে না। আমরা উচ্চ পর্যায়ে আস্থায় পৌঁছেছি যে, এটা প্রকৃত ডকুমেন্ট। এটা ভুয়া নয়। কিন্তু এ বিষয়টিতে গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে অন্যদের। পটার আরো বলেন, চীন সরকার যে এই গবেষণাকে আরো সামনে এগিয়ে নেয়নি বা নিতে চায়নি তা এই ডকুমেন্ট বলে না। রবার্ট পিটার বলেন, এই ডকুমেন্ট চমৎকার মজার একটি বিষয়। এটা বলে দেয় চীনের বৈজ্ঞানিক গবেষকরা কি চিন্তাভাবনা করছেন।
উল্লেখ্য, সার্স-কোভ-২ নামের করোনা ভাইরাস সারাবিশ্বে কোভিড-১৯ মহামারি সৃষ্টি করেছে। এর উৎপত্তি ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে। করোনা ভাইরাস ভাইরাসের বিশাল একটি পরিবার। এর মধ্যে আছে নানা রকম স্ট্রেইন। এর মধ্যে কিছু স্ট্রেইন মানবদেহে শ্বাসপ্রশ্বাসে মারাত্মক সঙ্কট সৃষ্টি করে। এর মধ্যে সাধারণ ঠাণ্ডা থেকে শুরু করে সেভার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিনড্রোম (সার্স) পর্যন্ত সংক্রমণ রয়েছে।

কারাগারে মামুনুল হক ও রফিকুল মাদানি
                                  

কোর্ট রিপোর্টার : কয়েক দফা রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে আলোচিত হেফাজত নেতা মামুনুল হক ও শিশুবক্তা হিসেবে পরিচিত রফিকুল ইসলাম মাদানিকে। গতকাল সোমবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নিভানা খায়ের জেসি শুনানি শেষে তাদের কারাগারে পাঠানোর এ আদেশ দেন। আদালতের সংশ্লিষ্ট থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) পুলিশের উপ-পরিদর্শক মোতালেব হোসেন জানান, ‘দুই আসামির বিরুদ্ধে পল্টন ও মতিঝিল থানার পৃথক দুই মামলায় রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করেন মামলা সংশ্লিষ্ট তদন্ত কর্মকর্তারা। একই সঙ্গে তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।’ উল্লেখ্য, গত ১৮ই এপ্রিল রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে মাওলানা মামুনুল হককে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর তার বিরুদ্ধে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের বিরোধিতা করে দেয়া কর্মসূচিতে সহিংসতাসহ নানা অভিযোগে সারাদেশে প্রায় অর্ধশতাধিক মামলা দায়ের হয়। অন্যদিকে রাষ্ট্রবিরোধী উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়ায় গত ৭ এপ্রিল রফিকুল ইসলাম মাদানিকে তার গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনার পূর্বধলার লেটিরকান্দা থেকে আটক করে র‌্যাব। পরদিন ৮ এপ্রিল র‌্যাব বাদী হয়ে গাজীপুর মহানগরীর গাছা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে।

করোনায় আরও ৩৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫১৪ জন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১ হাজার ৯৭২ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া দেশে নতুন করে আরও এক হাজার ৫১৪ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশে মোট সাত লাখ ৭৫ হাজার ২৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে দুই হাজার ১১৫ জন। এ নিয়ে দেশে মোট সাত লাখ ১২ হাজার ২৭৭ জন করোনা থেকে সুস্থ হলেন। গতকাল সোমবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৫৪টি ল্যাবে ১৬ হাজার ৮৪৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১৬ হাজার ৯৬৩টি। করোনা শনাক্তের হার আট দশমিক ৯৯ শতাংশ। মৃত্যুর হার এক দশমিক ৫৪ শতাংশ। সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ৯০ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৩৮ জন মৃত্যুবরণকারীর মধ্যে পুরুষ ২৫ জন ও নারী ১৩ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছেন আট হাজার ৬৭৮ জন ও নারী তিন হাজার ২৯৪ জন। মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে সাতজন ও ষাটোর্ধ্ব ২৫ জন রয়েছেন। ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১১ জন, রাজশাহী বিভাগে ছয়জন, বরিশাল বিভাগে দুজন, সিলেট বিভাগে তিনজন ও রংপুর বিভাগে একজন। সরকারি হাসপাতালে ২৬ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে ১০ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এ ছাড়া বাসায় মৃত্যুবরণ করেছেন দুজন। দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ওই বছরের ১৮ জুন তিন হাজার ৮০৩ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে দিয়ে লাখ ছাড়িয়েছিল করোনার রোগী। সেদিন পর্যন্ত মোট শনাক্ত ছিল এক লাখ দুই হাজার ২৯২ জন। এ ছাড়া দেশে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে গত বছরের ১৮ মার্চ।

অক্সিজেন জেনারেটর আমদানির উদ্যোগ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও মৃত্যু কয়েকদিন ধরে কমে এলেও ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বা ধরন দেশে ধরা পড়ায় উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এই ধরন ছড়িয়ে না পড়ে সেজন্য সার্বক্ষণিক সজাগ রয়েছে সংস্থাটি। একইসঙ্গে অক্সিজেন জেনারেটর আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে স্বস্থ্য অধিদপ্তর। গতকাল রোববার করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম। তিনি বলেন, দেশে চাহিদার তুলনায় প্রায় তিনগুণ অক্সিজেন মজুদ রয়েছে। তবে বিদেশ থেকে অক্সিজেন জেনারেটর আনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। হাসপাতালগুলোতে হাইফ্লো ন্যাজেল ক্যানুলা ও অক্সিজেন কনসেনট্রেটর পর্যাপ্ত সংখ্যক সরবরাহ করা হয়েছে। অক্সিজেন সিলিন্ডারের সংখ্যা এখন ২০ হাজারের অধিক। করোনা নমুনা শনাক্তে ল্যাবরেটরির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে ৪৪৩টি করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সব কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অক্লান্ত পরিশ্রমে চিকিৎসাসেবার উন্নতি হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র বলেন, প্রতিবেশী দেশ ভারতের ধরন দেশে ধরা পড়েছে, এটি নিয়ে সকলের সর্বোচ্চ সতর্ক থাকা উচিত। তবে দেশবাসী ভয় না পেয়ে এ পরিস্থিতি সাহসের সঙ্গে মোকাবিলা করতে পারলে বর্তমানে করোনা সংক্রমণের যে স্থিতি অবস্থা রয়েছে তা ধরে রাখা সম্ভব। ভ্যারিয়েন্ট যেটাই হোক না কেন চিকিৎসা পদ্ধতি প্রায় একই। সুতরাং করোনা সংক্রমণমুক্ত হতে চাইলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই বলে মনে করেন অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম। কয়েকদিন করোনা সংক্রমণের হার ১০ শতাংশের নিচে এমন মন্তব্য করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ কমলেও ঈদের আগমুহূর্তে মানুষ যেভাবে ছোটাছুটি করছেন তাতে ঈদের পর সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

করোনায় একদিনে আবার মৃত্যু ও শনাক্ত বেড়েছে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : মহামারি করোনাভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আরও ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ১১ হাজার ৯৩৪ জনে। একই সময়ে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৩৮৬ জন। এতে মোট শনাক্তের সংখ্যা হলো ৭ লাখ ৭৩ হাজার ৫১৩ জন। এর আগে শনিবার (৮ মে) মৃত্যু হয়েছে ৪৫ জনের এবং শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ২৮৫ জন। রোববার (৯ মে) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে এ তথ্য। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সরকারি-বেসরকারি ল্যাবরেটরিতে ১৬ হাজার ৯১৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। মোট নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা দাঁড়াল ৫৬ লাখ ৩০ হাজার ৮৯৪। একদিনে নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ৮ দশমিক ১৯ শতাংশ। মোট পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৪ শতাংশ। একই সময়ে করোনামুক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৩২৯ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ৭ লাখ ১০ হাজার ১৬২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৫৬ জনের মধ্যে শূন্য থেকে বিশোর্ধ্ব একজন, ত্রিশোর্ধ্ব তিনজন, চল্লিশোর্ধ্ব সাতজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব ১৫ জন এবং ষাটোর্ধ্ব ৩০ জন। বিভাগ হিসাবে মৃত ৫৬ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ২২ জন, চট্টগ্রামের ২১ জন, রাজশাহীর ৩ জন, খুলনার ৪ জন এবং সিলেটের ২ জন। প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

করোনায় দেশে ৪৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত কমছে
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১ হাজার ৮৭৮ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া দেশে নতুন করে আরও এক হাজার ২৮৫ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশে মোট সাত লাখ ৭২ হাজার ১২৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে দুই হাজার ৪৯২ জন। এ নিয়ে দেশে মোট সাত লাখ ছয় হাজার ৮৩৩ জন করোনা থেকে সুস্থ হলেন। গতকাল শনিবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৪৩টি ল্যাবে ১৪ হাজার ৭০৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১৪ হাজার ৩২৪টি। করোনা শনাক্তের হার আট দশমিক ৭৪ শতাংশ। মৃত্যুর হার এক দশমিক ৫৪ শতাংশ। সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ৫৪ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৪৫ জন মৃত্যুবরণকারীর মধ্যে পুরুষ ২৬ জন ও নারী ১৯ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছেন আট হাজার ৬১৫ জন ও নারী তিন হাজার ২৬৩ জন। মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ১০ বছরের নিচে দুজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে সাতজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১২ জন ও ষাটোর্ধ্ব ২২ জন রয়েছেন। ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ২১ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১৩ জন, রাজশাহী বিভাগে একজন, খুলনা বিভাগে তিনজন, বরিশাল বিভাগে দুজন, বরিশাল বিভাগে দুজন, সিলেট বিভাগে দুজন, রংপুর বিভাগে দুজন ও ময়নমনসিংহ বিভাগে একজন রয়েছেন। সরকারি হাসপাতালে ৩৫ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে ১০ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ওই বছরের ১৮ জুন তিন হাজার ৮০৩ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে দিয়ে লাখ ছাড়িয়েছিল করোনার রোগী। সেদিন পর্যন্ত মোট শনাক্ত ছিল এক লাখ দুই হাজার ২৯২ জন। এ ছাড়া দেশে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে গত বছরের ১৮ মার্চ।

করোনায় আরও ৬১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৯১৪ জন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৬১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১ হাজার ৭০৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া দেশে নতুন করে আরও এক হাজার ৯১৪ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশে মোট সাত লাখ ৬৫ হাজার ৫৯৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে তিন হাজার ৮৭০ জন। এ নিয়ে দেশে মোট ছয় লাখ ৯৫হাজার ৩২ জন করোনা থেকে সুস্থ হলেন। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪২০টি ল্যাবে ২১ হাজার ৯৮৪ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ২১ হাজার ৯১৪ টি। করোনা শনাক্তের হার ৮ দশমিক ৭১ শতাংশ। মৃত্যুর হার এক দশমিক ৫৩ শতাংশ। সুস্থতার হার ৯০ দশমিক ৭৮ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৬১ জন মৃত্যুবরণকারীর মধ্যে পুরুষ ৩৬ জন ও নারী ২৫ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছেন আট হাজার ৫১২ জন ও নারী তিন হাজার ১৯৩ জন। এ ছাড়া মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে দুইজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১১ জন ও ষাটোর্ধ্ব ৪৪ জন রয়েছেন। ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ২৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ১৮ জন, রাজশাহী বিভাগে সাতজন, খুলনা বিভাগে একজন, বরিশাল বিভাগে দুইজন, সিলেট বিভাগে দুইজন ও রংপুর বিভাগে দুজন, ময়মনসিংহ বিভাগে ১জন । সরকারি হাসপাতালে ৪৩ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে ১৬ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এ ছাড়া বাসায় মৃত্যুবরণ করেছেন দুইজন। দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ওই বছরের ১৮ জুন তিন হাজার ৮০৩ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে দিয়ে লাখ ছাড়িয়েছিল করোনার রোগী। সেদিন পর্যন্ত মোট শনাক্ত ছিল এক লাখ দুই হাজার ২৯২ জন। এ ছাড়া দেশে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে গত বছরের ১৮ মার্চ।

করোনায় দেশে আরও ৬৯ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩৫৯
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৬৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন। এ নিয়ে দেশে করোনায় প্রাণ হারালেন মোট ১১ হাজার ৫৭৯ জন। আর গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণঘাতি ভাইরাসটি ধরা পড়েছে ১ হাজার ৩৫৯ জনের শরীরে। এ নিয়ে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ৬১ হাজার ৯৪৩ জন। গতকাল রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রেস বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা গেছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, একিদেন সুস্থ হয়েছেন আরও ২ হাজার ৬৫৭ জন। এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৬ লাখ ৮৭ হাজার ৩২৮ জন। ২৪ ঘণ্টায় ১৪ হাজার ৪২ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষা করা হয়েছে ১৪ হাজার ১৫৮টি। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ৯ দশমিক ৬০ শতাংশ। দেশে এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৫৪ লাখ ৯৮ হাজার ৯৭৯টি। মোট পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮৬ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৬৯ জনের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৩৮ জন। এছাড়া চট্টগ্রামে ১৪, রাজশাহীতে ১, খুলনায় ৫, বরিশালে ৭, সিলেটে ১, রংপুরে ২ এবং ময়মনসিংহে ১ জন মারা গেছেন। ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে ৪৪ জন পুরুষ এবং ২৫ জন নারী। এদের মধ্যে বাসায় মারা গেছেন ২ জন। বাকিরা হাসপাতালে মারা গেছেন। এ পর্যন্ত এ ভাইরাসে মোট মারা যাওয়া ১১ হাজার ৫৭৯ জনের মধ্যে পুরুষ ৮ হাজার ৪৩৪ জন এবং নারী ৩ হাজার ১৪৫ জন।

বিবিসিকে মৃত মুনিয়ার বোন: হুমকিতে আমরা, নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসিতে গুলশানের বিবিসি জানিয়েছে, ব্যবসায়ী গোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের বিরুদ্ধে ঢাকার গুলশানে একজন তরুণীকে ‘আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার’ জন্য যে অভিযোগ আনা হয়েছে, সেই অভিযোগের ব্যাপারে তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহকে অগ্রাধিকার দিয়ে পুলিশ কাজ শুরু করেছে বলে বিবিসিকে জানিয়েছেন ঢাকার গুলশান অঞ্চলের উপ-পুলিশ কমিশনার।
বসুন্ধরার এই কর্মকর্তা দেশের বাইরে চলে গেছেন বলে সামাজিক মাধ্যমে খবর ছড়িয়ে পড়লেও, পুলিশ বলছে, তাদের কাছে থাকা তথ্য অনুযায়ী, তিনি দেশের ভেতরেই রয়েছেন। আর মৃত তরুণীর পরিবার জানিয়েছে, মামলা করার পর থেকে তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। মৃত তরুণীর বোন ‘আত্মহত্যার প্ররোচনা’র অভিযোগ তুলে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরকে অভিযুক্ত করে মঙ্গলবার ভোররাতে একটি মামলা করেন। সেই মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে ঢাকার গুলশান অঞ্চলের উপ-পুলিশ কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বিবিসিকে বলেন, ‘আমাদের এখন যে কাজটি করতে হচ্ছে, এই যে অভিযোগ আনা হয়েছে, সেক্ষেত্রে অভিযোগ প্রমাণ করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ দালিলিক সাক্ষ্য, ডিজিটাল ফুটপ্রিন্ট বা বস্তুগত সাক্ষ্য- সকল বিষয়কে আমাদের গুরুত্ব দিতে হচ্ছে।’ তিনি জানান, এই মামলার অভিযোগ হচ্ছে, ‘আত্মহত্যায় প্ররোচনার’ অভিযোগ। তিনি বলেন এক্ষেত্রে দুইটি জিনিস খুব গুরুত্বপূর্ণ। একটি হচ্ছে, অভিপ্রায়, আরেকটি হচ্ছে প্ররোচনা। ‘এই জন্য মামলার যে অভিযোগ এসেছে, অভিযুক্ত এবং ভিকটিমের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের সম্পর্কের বিষয়গুলো নিয়ে,’ সেগুলো যাচাই বাছাই করা হবে বলে বিবিসিকে জানান মি. চক্রবর্তী। তিনি বলেন, মোবাইলসহ বিভিন্ন ধরনের ডিভাইসগুলো বিশ্লেষণ করে এবং মৃতদেহের পোস্টমর্টেম ও ফরেনসিক রিপোর্টের মাধ্যমে ওই তরুণীর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ সম্পর্কে তারা নিশ্চিত হতে চান। ‘ভিকটিমের মোবাইল ফোন, সেখান থেকে তথ্য উদ্ধারের চেষ্টার পাশাপাশি অন্যান্যভাবেও তাদের মধ্যে বিভিন্ন ভাবে সম্পর্কের যে অভিযোগ এসেছে, এজাহারে যে পয়েন্টগুলো উল্লেখ করা হয়েছে, তার যৌক্তিকতা, যার বিরুদ্ধে অভিযোগ হয়েছে, সেই ম্যানেজিং ডিরেক্টরের সংশ্লিষ্টতা, সেগুলো আমাদের বেশ গুরুত্ব দিয়ে ভাবতে হচ্ছে,’ বলছেন মি. চক্রবর্তী। মামলায় যার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে, বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরকে গ্রেপ্তারের ব্যাপারে পুলিশ কী ব্যবস্থা নিচ্ছে, জানতে চাইলে পুলিশ কর্মকর্তা সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, ‘এই মামলার অভিযোগ হচ্ছে, আত্মহত্যায় প্ররোচনা। এই জন্য আমাদের যে কাজটি করতে হচ্ছে, (সেটা হল) প্ররোচনার বিষয়টি যথাযথভাবে সংজ্ঞায়িত করা। না হলে মামলার সঠিক তদন্ত নিশ্চিত করা সম্ভব হবে না। এই জন্য আমরা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি প্ররোচনার বিষয়টিকে যৌক্তিকভাবে প্রমাণ করার জন্য পর্যাপ্ত সাক্ষ্যপ্রমাণদি সংগ্রহ করা, বিশ্লেষণ করা- সেই সঙ্গে অভিযোগের মানানসই একটি বিষয় খুঁজে বের করার ওপর।’ তিনি বলেন অভিযুক্তের গ্রেপ্তারের বিষয়টি তারা পরে ভাববেন।
মামলাটি হওয়ার পর মি. আনভীরের বিদেশযাত্রার উপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আদালতে একটি আবেদন করেছিল পুলিশ। আদালত সেই আবেদন মঞ্জুর করেছে। কিন্তু বাংলাদেশের সামাজিক মাধ্যমে একটি তথ্য ছড়িয়ে পড়েছে যে, বসুন্ধরার ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোপনে দেশের বাইরে চলে গেছেন। এই প্রসঙ্গে পুলিশের কাছে কী তথ্য আছে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন ব্যবস্থাপনা একেবারেই ডিজিটাল ব্যবস্থাপনা। এখানে কোন্ যাত্রী কোন্ পাসপোর্ট ব্যবহার করে, শনাক্ত করণ পদ্ধতি কী, সেটা ডিজিটালি অন্তর্ভুক্ত থাকে। একজন যাত্রী যদি দেশের বাইরে যান বা বাইরে থেকে দেশে আসেন, সেটা ডিজিটালি নিবন্ধিত থাকে। ‘ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের যে ডাটাবেজ, সেই ডাটাবেজ অনুযায়ী, অভিযুক্ত যিনি, তিনি বাংলাদেশ ছেড়ে যাননি, তিনি বাংলাদেশেই আছেন,’ জানান মি. চক্রবর্তী। এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে বসুন্ধরা গ্রুপের গণমাধ্যম বিষয়ক উপদেষ্টা মোঃ আবু তৈয়ব বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, যেহেতু এই বিষয়ে মামলা হয়েছে, তারা আইনগতভাবেই এগোবেন। তিনি আরও বলেন, এই মামলা করা এবং পুরো ঘটনাকে তারা বসুন্ধরা গ্রুপের বিরুদ্ধে ‘ষড়যন্ত্র’ হিসাবে দেখছেন। বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরকে অভিযুক্ত করে ‘আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার’ মামলা করার পর হুমকিধামকি দেয়া হচ্ছে বলে বিবিসিকে জানিয়েছেন মামলার বাদী নুসরাত জাহান। বিবিসি বাংলাকে তিনি বলছেন, ‘কালকে রাত ১২টার, সাড়ে ১২টা থেকে আমি খুব ডিপ্রেসড। আমাকে বিভিন্নভাবে ফোন দিয়ে অনেক আজেবাজে কথা বলা হচ্ছে। অনেক হুমকির মুখে আছি। আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতেছি।’ তিনি দাবি করেন, অনেক কিছুই তো প্রুফ হয়ে গেছে। যদি প্ররোচিত মৃত্যু হয়ে থাকে,তাহলে কে প্ররোচিত করেছে? এখন শুধু বিচারের অপেক্ষা।

করোনায় একদিনে আরও ৭৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৯৫৫
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে কেরোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও ৭৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৩০৫ জন। গত চব্বিশ ঘণ্টা নতুন করে শনাক্ত হয়েছে ২ হাজার ৯৫৫ জন। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্ত হয়েছেন ৭ লাখ ৫৪ হাজার ৬১৪ জন। গতকাল বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রেস বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা গেছে। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন পাঁচ হাজার ৩৯২ জন। এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ ছয় লাখ ৭২ হাজার ৩১৯ জন। স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয় ২৮ হাজার ৪২৭টি। অ্যান্টিজেন টেস্টসহ নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ২৮ হাজার ২০৬টি। এখন পর্যন্ত ৫৪ লাখ ২৩ হাজার ৭৩০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। শনাক্ত বিবেচনায় গত ২৪ ঘণ্টায় প্রতি ১০০ নমুনায় ১০ দশমিক ৪৮ শতাংশ এবং এখন পর্যন্ত ১৩ দশমিক ৯১ শতাংশ শনাক্ত হয়েছেন। শনাক্ত বিবেচনায় প্রতি ১০০ জনে সুস্থ হয়েছেন ৮৯ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ এবং মারা গেছেন এক দশমিক ৫০ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ৪৩ জন পুরুষ এবং নারী ৩৪ জন। এখন পর্যন্ত পুরুষ আট হাজার ২৬৯ জন এবং নারী মৃত্যুবরণ করেছেন তিন হাজার ৩৬ জন।

নতুন করে আরও ৭৮ মৃত্যু, শনাক্ত ৩০৩১ জন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে একদিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৭৮ জন। এর আগে গতকাল ৯৭ ও গত পরশু ১০১ জন মারা গেছেন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১১ হাজার ২২৮ জন। একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও তিন হাজার ৩১ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন সাত লাখ ৫১ হাজার ৬৫৯ জন। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত অ্যান্টিজেন ও আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে ২৪ হাজার ২৩৭টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনায় আক্রান্ত আরও তিন হাজার ৩১ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১২ দশমিক ৫১ শতাংশ। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৭৮ জনের মধ্যে ৪৫ জন পুরুষ ও ৩৪ জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে তিন জনের বয়স ৩১-৪০ বছরের মধ্যে, সাত জনের বয়স ৪১-৫০ বছরের মধ্যে, ১৫ জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ও ষাটোর্ধ্ব ৫৩ জন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন পাঁচ হাজার ২৩৪ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ছয় লাখ ৬৬ হাজার ৯২৭ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ৫৩ লাখ ৯৫ হাজার ৫২৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দেশে মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৮ দশমিক ৭৩ শতাংশ ও মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৯ শতাংশ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে সারাদেশে মোট আইসিইউ শয্যার সংখ্যা এক হাজার ৬৯। এর মধ্যে বর্তমানে ফাঁকা রয়েছে ৩৯৯টি। এখন পর্যন্ত সারাদেশে ৫৮ লাখ ১৯ হাজার ২৯১ জনকে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। আর ২৪ লাখ ৫৮ হাজার ২২৩ জনকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে।

করোনায় একদিনে ৯৭ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৩০৬ জন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে একদিনে মারা গেছেন আরও ৯৭ জন। এর আগের দিন রোববার ১০১ ও গত পরশু ৮৩ জন মারা গেছেন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১১ হাজার ১৫০ জন। একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও তিন হাজার ৩০৬ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন সাত লাখ ৪৮ হাজার ৬২৮ জন। গতকাল সোমবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, রোববার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টা পর্যন্ত অ্যান্টিজেন ও আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে ২৫ হাজার ৭৮৬টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনায় আক্রান্ত আরও তিন হাজার ৩০৬ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১২ দশমিক ৮২ শতাংশ। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৯৭ জনের মধ্যে ৬১ জন পুরুষ ও ৩৬ জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে একজনের বয়স ১১-২০ বছরের মধ্যে, দুই জনের বয়স ২১-৩০ বছরের মধ্যে, চার জনের বয়স ৩১-৪০ বছরের মধ্যে, ১০ জনের বয়স ৪১-৫০ বছরের মধ্যে, ২১ জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ও ষাটোর্ধ্ব ৫৯ জন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন চার হাজার ২৪১ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ছয় লাখ ৬১ হাজার ৬৯৩ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ৫৩ লাখ ৭১ হাজার ২৮৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দেশে মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৮ দশমিক ৩৯ শতাংশ ও মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৯ শতাংশ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে সারাদেশে মোট আইসিইউ শয্যার সংখ্যা এক হাজার ৬৯। এর মধ্যে বর্তমানে ফাঁকা রয়েছে ৩৮৪টি। এখন পর্যন্ত সারাদেশে ৫৮ লাখ ১৮ হাজার ৪০০ জনকে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। আর ২৩ লাখ ২৬ হাজার ৮৬৬ জনকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে।

দেশে একদিনে মৃত্যু আবার শতাধিক, শনাক্ত ২৯২২
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে একদিনে আবার মারা গেছেন ১০১ জন। এর আগে গতকাল ৮৩ ও গত পরশু ৮৮ জন মারা গেছেন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১১ হাজার ৫৩ জন। একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও দুই হাজার ৯২২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন সাত লাখ ৪৫ হাজার ৩২২ জন। গতকাল রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, শনিবার সকাল ৮টা থেকে রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত অ্যান্টিজেন ও আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে ২১ হাজার ৯২২টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনায় আক্রান্ত আরও দুই হাজার ৯২২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ১০১ জনের মধ্যে ৫২ জন পুরুষ ও ৪৯ জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে একজনের বয়স শুন্য থেকে ১০ বছরের মধ্যে, তিন জনের বয়স ২১-৩০ বছরের মধ্যে, তিন জনের বয়স ৩১-৪০ বছরের মধ্যে, ১১ জনের বয়স ৪১-৫০ বছরের মধ্যে, ১৮ জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ও ষাটোর্ধ্ব ৬৫ জন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন চার হাজার ৩০১ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ছয় লাখ ৫৭ হাজার ৪৫২ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ৫৩ লাখ ৪৫ হাজার ৫০১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দেশে মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯৪ শতাংশ। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৮ দশমিক ২১ শতাংশ ও মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৮ শতাংশ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে সারাদেশে মোট আইসিইউ শয্যার সংখ্যা এক হাজার ৬৮। এর মধ্যে বর্তমানে ফাঁকা রয়েছে ৩৫৫টি। এখন পর্যন্ত সারাদেশে ৫৭ লাখ ৯৮ হাজার ৮৮০ জনকে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। আর ২১ লাখ ৫৫ হাজার ২৯৬ জনকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে।

একদিনে আরও ৮৩ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬৯৭ জন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৮৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১০ হাজার ৯৫২ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া দেশে নতুন করে আরও দুই হাজার ৬৯৭ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশে মোট সাত লাখ ৪২ হাজার ৪০০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে পাঁচ হাজার ৪৭৭ জন। এ নিয়ে দেশে মোট ছয় লাখ ৫৩ হাজার ১৫১ জন করোনা থেকে সুস্থ হলো। গতকাল শনিবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৫০টি ল্যাবে ২০ হাজার ৫৭১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ২০ হাজার ২২৮টি। করোনা শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ১১ শতাংশ। মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৮ শতাংশ। সুস্থতার হার ৮৭ দশমিক ৯৮ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় নতুন ৮৩ জন মৃত্যুবরণকারীর মধ্যে পুরুষ ৫৮ জন ও নারী ২৫ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছেন আট হাজার ৬৮ জন ও নারী দুই হাজার ৮৪৪ জন। এ ছাড়া মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৭ জন ও ষাটোর্ধ্ব ৫৬ জন রয়েছেন। ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ৫২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ১৩ জন, রাজশাহী বিভাগের তিনজন, খুলনা বিভাগের পাঁচজন, বরিশাল বিভাগের চারজন, সিলেট বিভাগের তিনজন ও রংপুর বিভাগের তিনজন। হাসপাতালে ৮১ জন ও বাড়িতে দুইজন মারা গেছে। দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ওই বছরের ১৮ জুন তিন হাজার ৮০৩ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে দিয়ে লাখ ছাড়িয়েছিল করোনার রোগী। সেদিন পর্যন্ত মোট শনাক্ত ছিল এক লাখ দুই হাজার ২৯২ জন। এ ছাড়া দেশে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে গত বছরের ১৮ মার্চ।

বাবুবাজারে রাসায়নিকের গুদামে আগুন, নিহত ৪
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : পুরান ঢাকার বাবুবাজার ব্রিজের কাছে হাজী মুসা ম্যানশনের একটি ছয়তলা ভবনের নিচ তলার রাসায়নিক দ্রব্যের গুদামে অগ্নিকাণ্ড ঘটে। আগুনে ঘটনাস্থলে তিনজন এবং হাসপাতালে এক নারী মিলে মোট চারজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। তারা ওই ভবনটির বাসিন্দা। এ ছাড়া অগ্নিকাণ্ডে ফায়ার সার্ভিসের তিনজনসহ ওই ভবনের ১৪ জন দগ্ধ হয়েছেন বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে চারজনকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়েছে। তারা কেউ আশঙ্কামুক্ত নয় বলে জানা যায়। এই ঘটনা তদন্তের জন্য কমিটি গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩টা ১৮ মিনিটে লাগা এই আগুন গতকাল শুক্রবার সকাল ৬টা ১০ মিনিটের দিকে নিয়ন্ত্রণে আনতে ফায়ার সার্ভিসের ২০টি ইউনিট কাজ করে। ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা মাহফুজ বলেন, ‘৩টা ১৮ মিনিটে খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ঘটনাস্থলে ছয়টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। এরপর পর্যায়ক্রমে সদর দপ্তর, সূত্রাপুর ও মোহাম্মদপুরসহ আশপাশের বেশ কয়েকটি স্টেশন থেকে মোট ২০টি ইউনিট পাঠানো হয়।’ তিনি বলেন, ‘ভবনের নিচতলায় রাসায়নিকের গোডাউন এবং দোতলা থেকে পাঁচতলা পর্যন্ত লোকজন বসবাস করে বলে আমরা শুনেছি। ভবনের ওপরে কিছু মানুষ আটকা পড়েছিল। আগুনে আহত ১৪ জনকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়াও ফায়ার সার্ভিসের তিনজন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে চারজনকে আইসিইউতে নেওয়া হয়েছে।’ আগুন লাগার কারণ এখনও জানা যায়নি বলে উল্লেখ করেন ফায়ার সার্ভিসের এই কর্মকর্তা।

দেশে একদিনে মৃত্যু ৮৮, নতুন শনাক্ত ৩৬২৯ জন
                                  

স্টাফ রিপোর্টার : দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৮৮ জন। এর আগের দিন ৯৮ ও গত পরশু ৯৫ জন মারা গেছেন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১০ হাজার ৮৬৯ জন। একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও তিন হাজার ৬২৯ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন সাত লাখ ৩৯ হাজার ৭০৩ জন। গতকাল শুক্রবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ভার্চ্যুয়াল স্বাস্থ্য বুলেটিনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত অ্যান্টিজেন ও আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে ২৫ হাজার ৮৯৬টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনায় আক্রান্ত আরও তিন হাজার ৬২৯ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৮৮ জনের মধ্যে ৬২ জন পুরুষ ও ২৬ জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে একজনের বয়স ০-১০ বছরের মধ্যে, ছয় জনের বয়স ৩১-৪০ বছরের মধ্যে, ছয় জনের বয়স ৪১-৫০ বছরের মধ্যে, ১৫ জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ও ষাটোর্ধ্ব ৬০ জন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন পাঁচ হাজার ২২৫ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ছয় লাখ ৪৭ হাজার ৬৭৪ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ৫৩ লাখ তিন হাজার আটটি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দেশে মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৯৫ শতাংশ। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৭ দশমিক ৫৬ শতাংশ ও মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৭ শতাংশ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল মিলিয়ে সারাদেশে মোট আইসিইউ শয্যার সংখ্যা এক হাজার ৬৮। এর মধ্যে বর্তমানে ফাঁকা রয়েছে ৩১০টি। এখন পর্যন্ত সারাদেশে ৫৭ লাখ ৭৮ হাজার ৬৮৬ জনকে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। আর ১৯ লাখ ৬৭ হাজার ৯৭৫ জনকে দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়েছে।


   Page 1 of 51
     স্বাস্থ্য চিকিৎসা
করোনা ভাইরাস দিয়ে জীবাণু অস্ত্র বানাতে চেয়েছিলো চীন
.............................................................................................
কারাগারে মামুনুল হক ও রফিকুল মাদানি
.............................................................................................
করোনায় আরও ৩৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫১৪ জন
.............................................................................................
অক্সিজেন জেনারেটর আমদানির উদ্যোগ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের
.............................................................................................
করোনায় একদিনে আবার মৃত্যু ও শনাক্ত বেড়েছে
.............................................................................................
করোনায় দেশে ৪৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত কমছে
.............................................................................................
করোনায় আরও ৬১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৯১৪ জন
.............................................................................................
করোনায় দেশে আরও ৬৯ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৩৫৯
.............................................................................................
বিবিসিকে মৃত মুনিয়ার বোন: হুমকিতে আমরা, নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি
.............................................................................................
করোনায় একদিনে আরও ৭৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৯৫৫
.............................................................................................
নতুন করে আরও ৭৮ মৃত্যু, শনাক্ত ৩০৩১ জন
.............................................................................................
করোনায় একদিনে ৯৭ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৩০৬ জন
.............................................................................................
দেশে একদিনে মৃত্যু আবার শতাধিক, শনাক্ত ২৯২২
.............................................................................................
একদিনে আরও ৮৩ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৬৯৭ জন
.............................................................................................
বাবুবাজারে রাসায়নিকের গুদামে আগুন, নিহত ৪
.............................................................................................
দেশে একদিনে মৃত্যু ৮৮, নতুন শনাক্ত ৩৬২৯ জন
.............................................................................................
করোনায় আরও ৯৫ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৪২৮০ জন
.............................................................................................
দেশে একদিনে আরও ৯১ মৃত্যু, নতুন ৪৫৫৯ শনাক্ত
.............................................................................................
দেশে প্রতি ১৫ মিনিটে একজনের মৃত্যু
.............................................................................................
এক বছরের মধ্যে তৃতীয় ডোজ টিকার প্রয়োজন হতে পারে
.............................................................................................
করোনায় একদিনে ৮৩ মৃত্যু, আগের সকল রেকর্ড ভঙ্গ
.............................................................................................
মুখের ঘা হতে পারে মারাত্মক রোগের লক্ষণ
.............................................................................................
সাধারণ রোগিরাও আইসিইউ শয্যার জন্য হাসপাতালে ঘুরছেন
.............................................................................................
করোনায় আবার ৬৩ মৃত্যু আক্রান্ত ৭ হাজার ৪৬২ জন
.............................................................................................
করোনায় দেশে সর্বাধিক সংক্রমণ ও মৃত্যুর রেকর্ড
.............................................................................................
একদিনে আরও মৃত্যু ৫৮ জন শনাক্ত হার ২৩.১৫
.............................................................................................
একদিনে সংক্রমণ ৫ হাজারের বেশি, ৪৫ মৃত্যু
.............................................................................................
আবার সংক্রমণ সাড়ে তিন হাজার ছাড়িয়েছে, ৩৯ জনের মৃত্যু
.............................................................................................
তরমুজের বীজেই দূর হবে হৃদরোগ-ডায়াবেটিস
.............................................................................................
সংক্রমণ হুহু করে বাড়ছে
.............................................................................................
করোনার ভয়াবহ ছোবল : একদিনে আক্রান্ত সাড়ে ৩ হাজার ছাড়ালো
.............................................................................................
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩০ মৃত্যু নতুন শনাক্ত ২৮০৯ জন
.............................................................................................
আক্রান্ত আবার ২ হাজার ছাড়ালো ২৪ ঘন্টায় ২২ মৃত্যু
.............................................................................................
করোনায় আক্রান্ত হলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক
.............................................................................................
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৬ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১৮৬৮ জন
.............................................................................................
দেশে করোনার দাপট বাড়ছে, নতুন শনাক্ত ১ হাজার ৮৯৯
.............................................................................................
একদিনে শনাক্ত ১৮৬৫, আরও মৃত্যু ১১ জনের
.............................................................................................
দেশে করোনায় একদিনে আরও ২৬ জনের মৃত্যু
.............................................................................................
করোনায় আক্রান্ত ও প্রাণহানি বাড়ছে একদিনে মৃত্যু ২৬
.............................................................................................
করোনায় আরও ১৮ জনের মৃত্যু শনাক্ত ১১৫৯
.............................................................................................
করোনায় দেশে একদিনে মারা যাওয়া ১৩ জনের ১২ জন পুরুষ
.............................................................................................
করোনায় আরও ১১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৬০৬
.............................................................................................
একদিনে প্রাণ গেল আরও ১০ জনের, মোট মৃত্যু ৮৪৫১
.............................................................................................
একদিনে করোনায় আরও ৬ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬৩৫
.............................................................................................
একদিনে করোনার শনাক্তের হার ৩.৭৪ শতাংশ, মৃত্যু ৫
.............................................................................................
করোনায় আরও ৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫১৫
.............................................................................................
একদিনে শনাক্তের হার ৪.৩১ শতাংশ, মৃত্যু ৮ জন
.............................................................................................
করোনায় একদিনে ৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩৮৫ জন
.............................................................................................
করোনায় আরও ১১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৪৭০ জন
.............................................................................................
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৪২৮
.............................................................................................

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মো: রিপন তরফদার নিয়াম
প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক : মফিজুর রহমান রোকন
নির্বাহী সম্পাদক : শাহাদাত হোসেন শাহীন
বাণিজ্যিক কার্যালয় : "রহমানিয়া ইন্টারন্যাশনাল কমপ্লেক্স"
(৬ষ্ঠ তলা), ২৮/১ সি, টয়েনবি সার্কুলার রোড,
মতিঝিল বা/এ ঢাকা-১০০০| জিপিও বক্স নং-৫৪৭, ঢাকা
ফোন নাম্বার : ০২-৪৭১২০৮০৫/৬, ০২-৯৫৮৭৮৫০
মোবাইল : ০১৭০৭-০৮৯৫৫৩, 01731800427
E-mail: dailyganomukti@gmail.com
Website : http://www.dailyganomukti.com
   © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত । এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop