ঢাকা ০৩:০৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

অবৈধ গরুর প্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে সরকার: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

গণমুক্তি রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৭:৫৫:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২ জুন ২০২৪ ৫৪ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মো. আব্দুর রহমান বলেছেন, আসন্ন কোরবানি উপলক্ষে বাংলাদেশে অবৈধ তথা চোরাই গরু প্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে সরকার।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে সীমান্ত দিয়ে চোরাই পথে বা অবৈধভাবে কোনো গরু যেন বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে সেই বিষয়টি কঠোরভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে।

রোববার (২ জুন) বিশ্ব দুগ্ধ দিবস উপলক্ষে ঢাকার শেরে বাংলা নগরে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেইরি সায়েন্স বিভাগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন, প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী।

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যানিমেল সায়েন্স অ্যান্ড ভেটেরিনারি মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. কে বি এম সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও কৃষিবিদ নজরুল ইসলাম, উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শহীদুর রশীদ ভূঁইয়া, কোষাধ্যক্ষ ড. মো. নজরুল ইসলাম ও বাংলাদেশ কৃষক লীগের সভাপতি ও কৃষিবিদ সমীর চন্দ।

মন্ত্রী বলেন, কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে কিছু দুষ্টু ও মতলববাজ লোক দেশীয় খামারিদের নিরুৎসাহিত করতে চোরাই পথে কিছু কিছু গরু আনছে বলে অভিযোগ। এ ব্যাপারে সরকার অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে রয়েছে এবং বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ করা হবে।

ভারত থেকে অবৈধভাবে গরু আসছে বাংলাদেশে ফাইল ছবি

তিনি বলেন, দেশীয় খামারিদের ভাবনার কারণ নেই। আসন্ন ঈদুল আজহা যাতে মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা উৎসবের সাথে ও সুন্দরভাবে উদযাপন করতে পারে সেই ব্যাপারে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সার্বিকভাবে তত্ত্বাবধানে থাকবে।

দুধের উৎপাদন বাড়ালে দুধ খাওয়া বাড়বে এমনটি নয় বরং দুধ খাওয়ার প্রবণতা বাড়লেই দুধের উৎপাদন বাড়বে। কারণ চাহিদা বাড়লেই সরবরাহ বাড়ানোর বিষয়টি সামনে আসে। দুধের উৎপাদন বাড়িয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে সরকার কাজ যাচ্ছে বলে জানান মন্ত্রী।

শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেইরি সায়েন্স অ্যান্ড অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রিতে স্নাতক ডিগ্রিধারীদের বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটে নিয়োগ না দেওয়ার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রী বলেন, বিষয়টি নিয়ে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব পেলে গভীরভাবে পর্যালোচনা করে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

অবৈধ গরুর প্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে সরকার: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

আপডেট সময় : ০৭:৫৫:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২ জুন ২০২৪

 

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মো. আব্দুর রহমান বলেছেন, আসন্ন কোরবানি উপলক্ষে বাংলাদেশে অবৈধ তথা চোরাই গরু প্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে সরকার।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে সীমান্ত দিয়ে চোরাই পথে বা অবৈধভাবে কোনো গরু যেন বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে সেই বিষয়টি কঠোরভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে।

রোববার (২ জুন) বিশ্ব দুগ্ধ দিবস উপলক্ষে ঢাকার শেরে বাংলা নগরে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেইরি সায়েন্স বিভাগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন, প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী।

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যানিমেল সায়েন্স অ্যান্ড ভেটেরিনারি মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. কে বি এম সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও কৃষিবিদ নজরুল ইসলাম, উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শহীদুর রশীদ ভূঁইয়া, কোষাধ্যক্ষ ড. মো. নজরুল ইসলাম ও বাংলাদেশ কৃষক লীগের সভাপতি ও কৃষিবিদ সমীর চন্দ।

মন্ত্রী বলেন, কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে কিছু দুষ্টু ও মতলববাজ লোক দেশীয় খামারিদের নিরুৎসাহিত করতে চোরাই পথে কিছু কিছু গরু আনছে বলে অভিযোগ। এ ব্যাপারে সরকার অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে রয়েছে এবং বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ করা হবে।

ভারত থেকে অবৈধভাবে গরু আসছে বাংলাদেশে ফাইল ছবি

তিনি বলেন, দেশীয় খামারিদের ভাবনার কারণ নেই। আসন্ন ঈদুল আজহা যাতে মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা উৎসবের সাথে ও সুন্দরভাবে উদযাপন করতে পারে সেই ব্যাপারে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সার্বিকভাবে তত্ত্বাবধানে থাকবে।

দুধের উৎপাদন বাড়ালে দুধ খাওয়া বাড়বে এমনটি নয় বরং দুধ খাওয়ার প্রবণতা বাড়লেই দুধের উৎপাদন বাড়বে। কারণ চাহিদা বাড়লেই সরবরাহ বাড়ানোর বিষয়টি সামনে আসে। দুধের উৎপাদন বাড়িয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে সরকার কাজ যাচ্ছে বলে জানান মন্ত্রী।

শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেইরি সায়েন্স অ্যান্ড অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রিতে স্নাতক ডিগ্রিধারীদের বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটে নিয়োগ না দেওয়ার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে মন্ত্রী বলেন, বিষয়টি নিয়ে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব পেলে গভীরভাবে পর্যালোচনা করে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।