ঢাকা ০৫:৪৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

অশান্ত অরণ্য : ১৬ ঘন্টায় ৩ ব্যাংক লুট, উদ্ধার হয়নি ব্যাংক ম্যানেজার

গণমুক্তি রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৭:৩০:২৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ এপ্রিল ২০২৪ ১৪৬ বার পড়া হয়েছে

বান্দরবান জেলা প্রশাসক রুমায় সোনালী ব্যাংক পরিদর্শন করেন

দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

অশান্ত অরণ্য। মাত্র ১৬ ঘন্টার ব্যবধানে পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবানের রুমা ও থানচিতে ৩টি ব্যাংক লুটের ঘটনা ঘটলো। মঙ্গলবার রাতে রুমায় সোনালী ব্যাংকের বিপুল পরিমাণ অর্থ ও ১৪টির মতো অস্ত্র লুট এবং ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণ করে নিয়ে যায় সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী। বুধবার পর্যন্ত উদ্ধার হয়নি ব্যাংক ম্যানেজার।

চাঞ্চল্যকর ব্যাংক ও অস্ত্রলু এবং ম্যানেরজার অপহরণের পর থম থমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এমন পরিস্থিতিতে কাটতেই বুধবার ভরদুপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে ফিল্মী কায়দায় থানচিতে সোনালী ও কৃষি ব্যাংক লুটের ঘটনা ঘটে। ব্যাংক লুটের ঘটনার পর পার্বত্য জেলা বান্দরবানে ৬টি ব্যাংকের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। ব্যাংক ঘিরে নেওয়া হয়েছে ঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

রুমার ব্যাংক ডাকাতির ২১ ঘন্টা পেরিয়ে গেলেও অপহৃত ম্যানেজারকে উদ্ধার হয়নি। দুটো ডাকাতির ঘটনার পর পরই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উর্ধতন কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পর পর দুটো ব্যাংক লুটের ঘটনায় সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বুধবার (৩ এপ্রিল) বেলা ১১টায় রুমায় সোনালী ব্যাংক পরিদর্শন আসেন জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন। তিনি সাংবাদিকদের জানান, সোনালী ব্যাংকের অপহৃত ম্যানেজারকে উদ্ধারে চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ সময় পুলিশ সুপার (এসপি) সৈকত শাহীন উপস্থিত ছিলেন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের প্রতিবাদ সমাবেশ

রুমায় সোনালী ব্যাংকে ডাকাতি, ১০টি অস্ত্র লুট এবং ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণ করা হয়েছে জানিয়ে বান্দরবানের পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনার পর অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) রাত ৯টায় সোনালী ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় বান্দরবান জেলাজুড়ে প্রতিবাদ চলছে। জেলায় সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। বুধবার বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধু মুক্ত মঞ্চে রুমায় সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী কেএনএফ কর্তৃক সোনালী ব্যাংক ডাকাতি, সরকারি অস্ত্র লুট এবং ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সমাবেশ করে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ।

বান্দরবান প্রতিনিধি জানান, প্রতিবাদ সমাবেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কাজী মজিবর রহমান বলেন, সম্প্রতি কুকি চিনের (কেএনএফ) কারণে পাহাড়ে অশান্তির সৃষ্টি হয়েছে। সরকার ও শান্তি কমিটি তাদের নির্মূল করতে ব্যর্থ। যে দেশে সেনাবাহিনীকে হত্যা করা হয়, পুলিশকে হত্যা করা হয়, অস্ত্র লুট হয়। এই ঘটনা সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি। সরকার সিদ্ধান্ত দিলে একদিনেই কেএনএফকে নির্মূল করতে সক্ষম। এখানে সরকারি সিদ্ধান্তের দরকার।

মঙ্গলবার রাত ৯টা নাগাদ রুমা উপজেলায় বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র সংগঠন কুকি চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংকে ডাকাতি, লুটপাট ও অপহরণের অভিযোগ উঠেছে। ব্যাংকের ভল্ট ভেঙে কয়েক কোটি টাকা লুটের পাশাপাশি ম্যানেজারকে অপহরণ করে নিয়ে গেছেন কেএনএফ সদস্যরা। পাশাপাশি ব্যাংকের অস্ত্র ও গুলি লুট করেছে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

অশান্ত অরণ্য : ১৬ ঘন্টায় ৩ ব্যাংক লুট, উদ্ধার হয়নি ব্যাংক ম্যানেজার

আপডেট সময় : ০৭:৩০:২৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ এপ্রিল ২০২৪

 

অশান্ত অরণ্য। মাত্র ১৬ ঘন্টার ব্যবধানে পার্বত্য চট্টগ্রামের বান্দরবানের রুমা ও থানচিতে ৩টি ব্যাংক লুটের ঘটনা ঘটলো। মঙ্গলবার রাতে রুমায় সোনালী ব্যাংকের বিপুল পরিমাণ অর্থ ও ১৪টির মতো অস্ত্র লুট এবং ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণ করে নিয়ে যায় সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী। বুধবার পর্যন্ত উদ্ধার হয়নি ব্যাংক ম্যানেজার।

চাঞ্চল্যকর ব্যাংক ও অস্ত্রলু এবং ম্যানেরজার অপহরণের পর থম থমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এমন পরিস্থিতিতে কাটতেই বুধবার ভরদুপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে ফিল্মী কায়দায় থানচিতে সোনালী ও কৃষি ব্যাংক লুটের ঘটনা ঘটে। ব্যাংক লুটের ঘটনার পর পার্বত্য জেলা বান্দরবানে ৬টি ব্যাংকের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। ব্যাংক ঘিরে নেওয়া হয়েছে ঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

রুমার ব্যাংক ডাকাতির ২১ ঘন্টা পেরিয়ে গেলেও অপহৃত ম্যানেজারকে উদ্ধার হয়নি। দুটো ডাকাতির ঘটনার পর পরই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উর্ধতন কর্মকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পর পর দুটো ব্যাংক লুটের ঘটনায় সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

বুধবার (৩ এপ্রিল) বেলা ১১টায় রুমায় সোনালী ব্যাংক পরিদর্শন আসেন জেলা প্রশাসক শাহ মোজাহিদ উদ্দিন। তিনি সাংবাদিকদের জানান, সোনালী ব্যাংকের অপহৃত ম্যানেজারকে উদ্ধারে চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এ সময় পুলিশ সুপার (এসপি) সৈকত শাহীন উপস্থিত ছিলেন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের প্রতিবাদ সমাবেশ

রুমায় সোনালী ব্যাংকে ডাকাতি, ১০টি অস্ত্র লুট এবং ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণ করা হয়েছে জানিয়ে বান্দরবানের পুলিশ সুপার সৈকত শাহীন সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনার পর অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) রাত ৯টায় সোনালী ব্যাংক ডাকাতির ঘটনায় বান্দরবান জেলাজুড়ে প্রতিবাদ চলছে। জেলায় সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। বুধবার বেলা ১১টায় বঙ্গবন্ধু মুক্ত মঞ্চে রুমায় সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠী কেএনএফ কর্তৃক সোনালী ব্যাংক ডাকাতি, সরকারি অস্ত্র লুট এবং ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সমাবেশ করে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ।

বান্দরবান প্রতিনিধি জানান, প্রতিবাদ সমাবেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি কাজী মজিবর রহমান বলেন, সম্প্রতি কুকি চিনের (কেএনএফ) কারণে পাহাড়ে অশান্তির সৃষ্টি হয়েছে। সরকার ও শান্তি কমিটি তাদের নির্মূল করতে ব্যর্থ। যে দেশে সেনাবাহিনীকে হত্যা করা হয়, পুলিশকে হত্যা করা হয়, অস্ত্র লুট হয়। এই ঘটনা সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি। সরকার সিদ্ধান্ত দিলে একদিনেই কেএনএফকে নির্মূল করতে সক্ষম। এখানে সরকারি সিদ্ধান্তের দরকার।

মঙ্গলবার রাত ৯টা নাগাদ রুমা উপজেলায় বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র সংগঠন কুকি চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংকে ডাকাতি, লুটপাট ও অপহরণের অভিযোগ উঠেছে। ব্যাংকের ভল্ট ভেঙে কয়েক কোটি টাকা লুটের পাশাপাশি ম্যানেজারকে অপহরণ করে নিয়ে গেছেন কেএনএফ সদস্যরা। পাশাপাশি ব্যাংকের অস্ত্র ও গুলি লুট করেছে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।