ঢাকা ০২:৫০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

খুলনায় জুট মিলে আগুনে ক্ষতি প্রায় শত কোটি টাকা

গণমুক্তি ডিজিটাল ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৪:৫১:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ এপ্রিল ২০২৪ ১১৪ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

খুলনায় সালাম জুট মিলে আগুনে প্রায় ৭৫০ টন রফতানির জন্য রাখা পাটজাত পণ্য এবং প্রায় ৩৫ হাজার মণ কাঁচা পাটসহ মিলের যন্ত্রপাতি পুড়ে গেছে। এমন দাবি করেন মালিক এম এ সালাম। প্রায় শত কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি।

২০১২ সালে সালাম জুট মিল চালু হয়। এখানে মূলত পাটের সুতা উৎপাদন হতো। প্রথমে মিলটির ৩ নম্বর গুদামে আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে অন্য গুদামে ছড়িয়ে পড়ে।

সালাম জুট মিলের সিনিয়র প্রোডাকশন অফিসার হাফিজুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, মুহূর্তের মধ্যেই আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়ে। বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। চারটি গোডাউনে মধ্যে একটিতে প্রক্রিয়াজাত পাট আর বাকি তিনটিতে কাঁচা পাট ছিল। চোখের সামনে সব পুড়ে ছাই হয়ে গেলো। অন্তত একশ কোটি টাকার পাট ছিল গোডাউনে।

ফায়ার সার্ভিস বলছে, জুট মিলে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিজস্ব ব্যবস্থা না থাকায় এবং অল্প সময়ে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় নিয়ন্ত্রণে বেগ পেতে হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের ১৬টি ও নৌবাহিনীর দুটি ইউনিটের প্রচেষ্টায় চার ঘণ্টা পর জুট মিলের অগ্নিকাণ্ড নিয়ন্ত্রণে আসে। বুধবার (৩ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসার কথা জানায় জানায় ফায়ার সার্ভিস। এর আগে বিকাল সাড়ে ৫টা নাগাদ জুট মিলে অগ্নিকাণ্ড ঘটে।

শুকনো পাট হওয়ায় দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিস সদস্যদের বেশ বেগ পেতে হয়েছে। গোডাউনে সুতা ও রফতানিযোগ্য পাটজাত পণ্য মজুত ছিল।

মালিক এম এম এ সালামের দাবি তিনটি গুদামে ৭৫০ টন উৎপাদিত পণ্য ছিল। যার আনুমানিক মূল্য ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা। কাঁচাপাট ছিল ১ হাজার ৩০০ টন, যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ২০ কোটি টাকা। সবমিলিয়ে প্রায় ১০০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক ফারুক হোসেন সিকদার জানান, ফায়ার সার্ভিসের খুলনার বয়রা, রূপসা ও বাগেরহাটের ফকিরহাট থেকে ১৬টি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। আগুনে অনেক পাট পুড়ে গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

খুলনায় জুট মিলে আগুনে ক্ষতি প্রায় শত কোটি টাকা

আপডেট সময় : ০৪:৫১:৪৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ এপ্রিল ২০২৪

 

খুলনায় সালাম জুট মিলে আগুনে প্রায় ৭৫০ টন রফতানির জন্য রাখা পাটজাত পণ্য এবং প্রায় ৩৫ হাজার মণ কাঁচা পাটসহ মিলের যন্ত্রপাতি পুড়ে গেছে। এমন দাবি করেন মালিক এম এ সালাম। প্রায় শত কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি।

২০১২ সালে সালাম জুট মিল চালু হয়। এখানে মূলত পাটের সুতা উৎপাদন হতো। প্রথমে মিলটির ৩ নম্বর গুদামে আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে অন্য গুদামে ছড়িয়ে পড়ে।

সালাম জুট মিলের সিনিয়র প্রোডাকশন অফিসার হাফিজুর রহমান সংবাদমাধ্যমকে বলেন, মুহূর্তের মধ্যেই আগুনের লেলিহান শিখা ছড়িয়ে পড়ে। বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। চারটি গোডাউনে মধ্যে একটিতে প্রক্রিয়াজাত পাট আর বাকি তিনটিতে কাঁচা পাট ছিল। চোখের সামনে সব পুড়ে ছাই হয়ে গেলো। অন্তত একশ কোটি টাকার পাট ছিল গোডাউনে।

ফায়ার সার্ভিস বলছে, জুট মিলে আগুন নিয়ন্ত্রণে নিজস্ব ব্যবস্থা না থাকায় এবং অল্প সময়ে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় নিয়ন্ত্রণে বেগ পেতে হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের ১৬টি ও নৌবাহিনীর দুটি ইউনিটের প্রচেষ্টায় চার ঘণ্টা পর জুট মিলের অগ্নিকাণ্ড নিয়ন্ত্রণে আসে। বুধবার (৩ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসার কথা জানায় জানায় ফায়ার সার্ভিস। এর আগে বিকাল সাড়ে ৫টা নাগাদ জুট মিলে অগ্নিকাণ্ড ঘটে।

শুকনো পাট হওয়ায় দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। ফলে আগুন নেভাতে ফায়ার সার্ভিস সদস্যদের বেশ বেগ পেতে হয়েছে। গোডাউনে সুতা ও রফতানিযোগ্য পাটজাত পণ্য মজুত ছিল।

মালিক এম এম এ সালামের দাবি তিনটি গুদামে ৭৫০ টন উৎপাদিত পণ্য ছিল। যার আনুমানিক মূল্য ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা। কাঁচাপাট ছিল ১ হাজার ৩০০ টন, যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ২০ কোটি টাকা। সবমিলিয়ে প্রায় ১০০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক ফারুক হোসেন সিকদার জানান, ফায়ার সার্ভিসের খুলনার বয়রা, রূপসা ও বাগেরহাটের ফকিরহাট থেকে ১৬টি ইউনিট এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। আগুনে অনেক পাট পুড়ে গেছে।