ঢাকা ০৪:২১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

দেশের মানুষকে ডাল-ভাত খাওয়াতে পারেনি, আওয়ামী লীগ মাছ-ভাত খাওয়া নিশ্চিত করেছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:০২:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৬১ বার পড়া হয়েছে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: ভিডিও থেকে নেওয়া

দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

বর্তমান সরকার মাছ-ভাত নিশ্চিত করেছে। নিজেদের আমিষ নিজেরাই উৎপাদন করবো। খাদ্য নিরাপত্তার পর পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই সরকারের লক্ষ্য

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষকে ডাল-ভাত খাওয়াতে পারেনি, আওয়ামী লীগ মাছ-ভাত খাওয়া ব্যবস্থা করেছে।

পুরাতন বাণিজ্য মেলা মাঠে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী-২০২৪ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করে একথা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষকে ডাল-ভাত খাওয়াতে ব্যর্থ হয়েছিলো বিএনপি। আর তত্ত্বাবধায়ক সরকার চেয়েছিলো আলু খাওয়াতে।

বর্তমান সরকার মাছ-ভাত নিশ্চিত করেছে। নিজেদের আমিষ নিজেরাই উৎপাদন করবো। খাদ্য নিরাপত্তার পর পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই সরকারের লক্ষ্য।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সবসময় বলতেন, আমরা কারো কাছে ভিক্ষা চাইব না, কারণ ভিক্ষুক জাতির ইজ্জত থাকে না। আমরা মান-সম্মান নিয়েই বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলতে চাই। সেই আদর্শে আমরা দেশকে এগিয়ে নেওয়ার পদক্ষেপ নিয়েছি।

তিনি বলেন, পার্লামেন্টে যেদিন ঘোষণা দিলাম বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ, তখন বিরোধী দলের নেত্রী খালেদা জিয়া বসা ছিলেন। আর সাইফুর রহমান উঠে দাঁড়িয়ে বলল, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া ভালো না। খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হলে খাদ্যের সাহায্য পাওয়া যাবে না। তাদের চিন্তাধারা ছিল আমরা প্রতিনিয়ত অন্যজনের কাছে হাত পেতে থাকবো। অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকব, আর ভিক্ষা চেয়ে খাবার খাব।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মো. আব্দুর রহমানের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাং সেলিম উদ্দিন। বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ইমরান হোসেন দেশের ডেইরি খাতের প্রতিনিধি হিসেবে এবং বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রি সেন্ট্রাল কাউন্সিলের (বিপিআইসিসি) যুগ্ম আহ্বায়ক মশিউর রহমান পোল্ট্রি খাতের প্রতিনিধি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

এসময় বলেন, আমি চাই বেসরকারি খাত এগিয়ে আসুক। বেসরকারী খাতকেই উদ্যোক্তা হিসেবে দেখতে চাই। তাদের সবরকম সহযোগিতা করতে চান বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। এর ফলে আমার দেশের মানুষের কর্মসংস্থান বাড়বে। আমরা তাই চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৬ সালে বিএনপির আমলে গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল মাত্র ৪ কোটি ২৩ লাখ। এখন ৭ কোটি ৯৮ লাখ। প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়েছে। তাদের আমলে পোলট্রি ছিল ১৮ কোটি ৬ লাখ, এখন তা ৫২ কোটি ৭৯ লাখ। অর্থাৎ আমরা চরা গুণ বৃদ্ধি করেছি। সেই সাথে লবণ, চা, দুধসহ সবকিছুই আমরা বৃদ্ধি করেছি।

দুধ সাত গুণ বৃদ্ধি করেছি। আমরা মাংস আট গুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। ডিম ঋৎপাদন চার গুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। আগে ৫৬২ কোটি ৩০ লাখ ছিল, এখন ২ হাজার ৩৩৭ কোটি ৬৩ লাখ ডিম উৎপাদিত হয়। আমরা কৃষি খাতে ব্যাপকভাবে ভর্তুকি দিয়ে যাচ্ছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

দেশের মানুষকে ডাল-ভাত খাওয়াতে পারেনি, আওয়ামী লীগ মাছ-ভাত খাওয়া নিশ্চিত করেছে: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় : ০২:০২:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

 

বর্তমান সরকার মাছ-ভাত নিশ্চিত করেছে। নিজেদের আমিষ নিজেরাই উৎপাদন করবো। খাদ্য নিরাপত্তার পর পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই সরকারের লক্ষ্য

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের মানুষকে ডাল-ভাত খাওয়াতে পারেনি, আওয়ামী লীগ মাছ-ভাত খাওয়া ব্যবস্থা করেছে।

পুরাতন বাণিজ্য মেলা মাঠে প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী-২০২৪ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করে একথা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষকে ডাল-ভাত খাওয়াতে ব্যর্থ হয়েছিলো বিএনপি। আর তত্ত্বাবধায়ক সরকার চেয়েছিলো আলু খাওয়াতে।

বর্তমান সরকার মাছ-ভাত নিশ্চিত করেছে। নিজেদের আমিষ নিজেরাই উৎপাদন করবো। খাদ্য নিরাপত্তার পর পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই সরকারের লক্ষ্য।

শেখ হাসিনা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সবসময় বলতেন, আমরা কারো কাছে ভিক্ষা চাইব না, কারণ ভিক্ষুক জাতির ইজ্জত থাকে না। আমরা মান-সম্মান নিয়েই বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে চলতে চাই। সেই আদর্শে আমরা দেশকে এগিয়ে নেওয়ার পদক্ষেপ নিয়েছি।

তিনি বলেন, পার্লামেন্টে যেদিন ঘোষণা দিলাম বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ, তখন বিরোধী দলের নেত্রী খালেদা জিয়া বসা ছিলেন। আর সাইফুর রহমান উঠে দাঁড়িয়ে বলল, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া ভালো না। খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হলে খাদ্যের সাহায্য পাওয়া যাবে না। তাদের চিন্তাধারা ছিল আমরা প্রতিনিয়ত অন্যজনের কাছে হাত পেতে থাকবো। অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকব, আর ভিক্ষা চেয়ে খাবার খাব।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মো. আব্দুর রহমানের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাং সেলিম উদ্দিন। বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ইমরান হোসেন দেশের ডেইরি খাতের প্রতিনিধি হিসেবে এবং বাংলাদেশ পোল্ট্রি ইন্ডাস্ট্রি সেন্ট্রাল কাউন্সিলের (বিপিআইসিসি) যুগ্ম আহ্বায়ক মশিউর রহমান পোল্ট্রি খাতের প্রতিনিধি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

এসময় বলেন, আমি চাই বেসরকারি খাত এগিয়ে আসুক। বেসরকারী খাতকেই উদ্যোক্তা হিসেবে দেখতে চাই। তাদের সবরকম সহযোগিতা করতে চান বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। এর ফলে আমার দেশের মানুষের কর্মসংস্থান বাড়বে। আমরা তাই চাই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০৬ সালে বিএনপির আমলে গবাদিপশুর সংখ্যা ছিল মাত্র ৪ কোটি ২৩ লাখ। এখন ৭ কোটি ৯৮ লাখ। প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়েছে। তাদের আমলে পোলট্রি ছিল ১৮ কোটি ৬ লাখ, এখন তা ৫২ কোটি ৭৯ লাখ। অর্থাৎ আমরা চরা গুণ বৃদ্ধি করেছি। সেই সাথে লবণ, চা, দুধসহ সবকিছুই আমরা বৃদ্ধি করেছি।

দুধ সাত গুণ বৃদ্ধি করেছি। আমরা মাংস আট গুণ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। ডিম ঋৎপাদন চার গুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। আগে ৫৬২ কোটি ৩০ লাখ ছিল, এখন ২ হাজার ৩৩৭ কোটি ৬৩ লাখ ডিম উৎপাদিত হয়। আমরা কৃষি খাতে ব্যাপকভাবে ভর্তুকি দিয়ে যাচ্ছি।