ঢাকা ১০:৪৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

বাংলাদেশে আরও ৪৬ মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী

গণমুক্তি ডিজিটাল ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১২:৪১:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪ ৫৩ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর আরও ৪৬ সদস্য বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) রাতে নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউপির আশারতলী-জামছড়ি ও ঘুমধুম ইউনিয়নের রেজু সীমান্তপথে বাংলাদেশে প্রবেশ করে আশ্রয় নেয়।

স্থানীয়দের দাবি, মঙ্গলবার সকাল-সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৮ বিজিপি সদস্য বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয় এবং রাতের বেলা আরও ৪৬ জন এসে আশ্রয় নিয়েছে। এসব সশস্ত্র সদস্যদের নিরস্ত্র করে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

কয়েক দিন বাংলাদেশ সীমান্তের ওপারে মিয়ানমার প্রান্তে গোলাগুলি কিছু থেমে ছিলো। কিন্ত গত কয়েক দিন ফের ওপারে ব্যাপক গোলাগুলি চলছে।

মিয়ানমারের অভ্যন্তরে ক্ষমতা দখলকে কেন্দ্র করে সরকারি জান্তা বাহিনীর সঙ্গে আরাকান বিদ্রোহীদের মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। মঙ্গলবার রাতেও ওপারে ব্যাপক গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। সংঘাতে আরাকান বিদ্রোহীদের সঙ্গে টিকতে না পেরে প্রাণ বাঁচাতে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিচ্ছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষীরা।

বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) এর জনসংযোগ কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম জানাচ্ছেন, এখনও পর্যন্ত কয়েক দফায় মিয়ানমারের মোট ২৬০ জন বিজিপি সদস্যকে নাইক্ষ্যংছড়ির বিজিবি ক্যাম্পের পার্শ্ববর্তী একটি স্কুলে রাখা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

বাংলাদেশে আরও ৪৬ মিয়ানমার সীমান্তরক্ষী

আপডেট সময় : ১২:৪১:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪

 

মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর আরও ৪৬ সদস্য বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) রাতে নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউপির আশারতলী-জামছড়ি ও ঘুমধুম ইউনিয়নের রেজু সীমান্তপথে বাংলাদেশে প্রবেশ করে আশ্রয় নেয়।

স্থানীয়দের দাবি, মঙ্গলবার সকাল-সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৮ বিজিপি সদস্য বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয় এবং রাতের বেলা আরও ৪৬ জন এসে আশ্রয় নিয়েছে। এসব সশস্ত্র সদস্যদের নিরস্ত্র করে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

কয়েক দিন বাংলাদেশ সীমান্তের ওপারে মিয়ানমার প্রান্তে গোলাগুলি কিছু থেমে ছিলো। কিন্ত গত কয়েক দিন ফের ওপারে ব্যাপক গোলাগুলি চলছে।

মিয়ানমারের অভ্যন্তরে ক্ষমতা দখলকে কেন্দ্র করে সরকারি জান্তা বাহিনীর সঙ্গে আরাকান বিদ্রোহীদের মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। মঙ্গলবার রাতেও ওপারে ব্যাপক গোলাগুলির শব্দ শোনা যায়। সংঘাতে আরাকান বিদ্রোহীদের সঙ্গে টিকতে না পেরে প্রাণ বাঁচাতে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিচ্ছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষীরা।

বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) এর জনসংযোগ কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম জানাচ্ছেন, এখনও পর্যন্ত কয়েক দফায় মিয়ানমারের মোট ২৬০ জন বিজিপি সদস্যকে নাইক্ষ্যংছড়ির বিজিবি ক্যাম্পের পার্শ্ববর্তী একটি স্কুলে রাখা হয়েছে।