ঢাকা ০১:২৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪

তীব্র গরমে ৬ দিনে পাকিস্তানে ৫৬৪ জনের মৃত্যু

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৩১:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪ ৫১ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

পাকিস্তানে তীব্র দাবদাহ চলছে। এরই মধ্যে তীব্র দাবদাহে গত ৬ দিনে ৫৬৪ জনের মৃত্যু খবর পাওয়া গেছে। দেশটিতে শুধু মঙ্গলবারই উদ্ধার হয়েছে ১৪১ জনের মরদেহ। করাচি শহরে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে গেছে।

দেশটির ইধি অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা জানিয়েছে, প্রতিদিন শহরটির মর্গে প্রায় ৩০ থেকে ৪০ জনের মরদেহ পরিবহন করছে তারা। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

প্রতিটি মৃত্যুর কারণ এখনই অলাদা করে বলা যাচ্ছে না। করাচির তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১০৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট) ছাড়িয়ে যাওয়ায় মৃতের সংখ্যাও বেড়ে চলেছে। বাতাসের আর্দ্রতার কারণে এই তাপমাত্রা ৪৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মতো অনুভূত হচ্ছে।

সাহায্যের জন্য মানুষ হাসপাতালে ছুটে যাচ্ছে। করাচির সিভিল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের প্রধান ডা. ইমরান সারওয়ার শেখ জানিয়েছেন, গত রবিববার থেকে বুধবারের মধ্যে হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত ২৬৭ জনকে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১২ জনই মারা গেছেন।

হাসপাতালে আসা এসব মানুষদের প্রায় সবাই বৃদ্ধ ও মধ্য বয়স্ক। তাদের সবারই বমি, ডায়রিয়া এবং উচ্চমাত্রায় জ্বরসহ নানা উপসর্গ রয়েছে।

ডা. ইমরান বলছেন, হাসপাতালে আসা মানুষদের অনেকেই বাইরে কাজ করছিলেন। আমরা তাদের প্রচুর পানি পান করতে এবং হালকা পোশাক পরিধান করতে বলেছি।

এদিকে, উচ্চ তাপমাত্রার সঙ্গে নিয়মিত লোডশেডিং করাচিবাসীর জীবন আরও অতিষ্ট করে দিয়েছে। নিজেদের ঠান্ডা রাখতে অনেকেই ফ্যান ও এয়ার কন্ডিশনারের ওপর নির্ভরশীল।

শুধু করাচি শহরই নয়, পাকিস্তানের অন্যান্য অঞ্চল তীব্র তাপপ্রবাহের সঙ্গে লড়াই করছে। রয়টার্সের তথ্যানুসারে, গত মাসে সিন্ধ প্রদেশে প্রায় রেকর্ড-ব্রেকিং ৫২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে চরম আবহাওয়ার ঘটনাগুলো আরও ঘন ঘন ও তীব্র হয়ে উঠছে। করাচির এই তীব্র তাপপ্রবাহ আগামী সপ্তাহেও অব্যাহত থাকবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

তীব্র গরমে ৬ দিনে পাকিস্তানে ৫৬৪ জনের মৃত্যু

আপডেট সময় : ০১:৩১:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪

 

পাকিস্তানে তীব্র দাবদাহ চলছে। এরই মধ্যে তীব্র দাবদাহে গত ৬ দিনে ৫৬৪ জনের মৃত্যু খবর পাওয়া গেছে। দেশটিতে শুধু মঙ্গলবারই উদ্ধার হয়েছে ১৪১ জনের মরদেহ। করাচি শহরে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে গেছে।

দেশটির ইধি অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা জানিয়েছে, প্রতিদিন শহরটির মর্গে প্রায় ৩০ থেকে ৪০ জনের মরদেহ পরিবহন করছে তারা। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

প্রতিটি মৃত্যুর কারণ এখনই অলাদা করে বলা যাচ্ছে না। করাচির তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১০৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট) ছাড়িয়ে যাওয়ায় মৃতের সংখ্যাও বেড়ে চলেছে। বাতাসের আর্দ্রতার কারণে এই তাপমাত্রা ৪৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মতো অনুভূত হচ্ছে।

সাহায্যের জন্য মানুষ হাসপাতালে ছুটে যাচ্ছে। করাচির সিভিল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের প্রধান ডা. ইমরান সারওয়ার শেখ জানিয়েছেন, গত রবিববার থেকে বুধবারের মধ্যে হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত ২৬৭ জনকে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১২ জনই মারা গেছেন।

হাসপাতালে আসা এসব মানুষদের প্রায় সবাই বৃদ্ধ ও মধ্য বয়স্ক। তাদের সবারই বমি, ডায়রিয়া এবং উচ্চমাত্রায় জ্বরসহ নানা উপসর্গ রয়েছে।

ডা. ইমরান বলছেন, হাসপাতালে আসা মানুষদের অনেকেই বাইরে কাজ করছিলেন। আমরা তাদের প্রচুর পানি পান করতে এবং হালকা পোশাক পরিধান করতে বলেছি।

এদিকে, উচ্চ তাপমাত্রার সঙ্গে নিয়মিত লোডশেডিং করাচিবাসীর জীবন আরও অতিষ্ট করে দিয়েছে। নিজেদের ঠান্ডা রাখতে অনেকেই ফ্যান ও এয়ার কন্ডিশনারের ওপর নির্ভরশীল।

শুধু করাচি শহরই নয়, পাকিস্তানের অন্যান্য অঞ্চল তীব্র তাপপ্রবাহের সঙ্গে লড়াই করছে। রয়টার্সের তথ্যানুসারে, গত মাসে সিন্ধ প্রদেশে প্রায় রেকর্ড-ব্রেকিং ৫২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে চরম আবহাওয়ার ঘটনাগুলো আরও ঘন ঘন ও তীব্র হয়ে উঠছে। করাচির এই তীব্র তাপপ্রবাহ আগামী সপ্তাহেও অব্যাহত থাকবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।