ঢাকা ০৯:৩৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::

ভূমিহীনের বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন

আব্দুল মজিদ, পাইকগাছা
  • আপডেট সময় : ০৩:০৭:০৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জুলাই ২০২৪ ১২০ বার পড়া হয়েছে

খুলনার পাইকগাছা প্রেস ক্লাবে ভূমিহীন আনিছেন সংবাদ সম্মেলন

দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

খুলনার পাইকগাছায় এক ভূমিহীনকে মুজিববর্ষের উপহার পাকা ঘর না দিয়ে বাড়ি-ঘর জায়গা-জমি রয়েছে, এমন এক ব্যক্তির নামে বরাদ্দ করা হয়।

অথচ ভূমিহীন আনিছ গাজী একজন ভূমিহীন বলে যাচাইবাচাই করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়। কিন্তু ভূমিহীন আনিছ গাজীর পরিবর্তে মুজিবর্ষের সেই ঘর বরাদ্দ হয় তালেব সানা নামের একজনের নামে।

বিষয়টি জানার পর সাবেক উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যানের মাধ্যমে ইউএনও মমতাজ বেগম এর কাছে যান আনিছ। তালেব সানার কয়েকটি বাড়ি ও জমিজায়গা রয়েছে বলে অবগত করলে ইউএনও মমতাজ বেগম বিষয়টি যাচাই-বাছাই করে সত্যতা পান।

এরপর ভূমিহীন আনিছকে সেই ঘরে বসবাসের ব্যবস্থা করেন ইউএনও মমতাজ বেগম। মমতাজ বেগমের এই মানবিক উদ্যোগের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় আনিছ। তিনটি সন্তান এবং স্ত্রীকে সেই ঘরেই প্রায় ৩ বছর ধরে বসবাস করে আসছেন আনিছ।

শনিবার পাইকগাছা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য তুলে ধরেন আনিছ গাজী।

লিখিত বক্তব্যে আনিছ বলেন, গত ৪ জুলাই চাঁদখালী ইউনিয়নের তালেব সানা আমার নামে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন একটা অভিযোগ করে আমাকে উক্ত ঘর থেকে উচ্ছেদের পায়তারা করছে।

এ বিষয়ে কয়েকটি সংবাদপত্রে বিভ্রান্তিকর ও জবরদখল শিরোনামে খবর প্রকাশ করে। শনিবার বেলা ১১ টায় পাইকগাছা প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানান আনিছ।

লিখিত বক্তব্য আনিছ গাজী বলেন, আমি পাইকগাছার চাঁদখালী ইউনিয়নের গড়েরডাঙ্গা আশ্রায়ন প্রকল্প বাসিন্দা ও একজন দিনমজুর ও ভূমিহীন মানুষ এমনকি আমার নিজের এক শতকও জায়গা জমি নাই।

 

 

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ভূমিহীনের বিরুদ্ধে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট সময় : ০৩:০৭:০৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জুলাই ২০২৪

 

খুলনার পাইকগাছায় এক ভূমিহীনকে মুজিববর্ষের উপহার পাকা ঘর না দিয়ে বাড়ি-ঘর জায়গা-জমি রয়েছে, এমন এক ব্যক্তির নামে বরাদ্দ করা হয়।

অথচ ভূমিহীন আনিছ গাজী একজন ভূমিহীন বলে যাচাইবাচাই করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়া হয়। কিন্তু ভূমিহীন আনিছ গাজীর পরিবর্তে মুজিবর্ষের সেই ঘর বরাদ্দ হয় তালেব সানা নামের একজনের নামে।

বিষয়টি জানার পর সাবেক উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যানের মাধ্যমে ইউএনও মমতাজ বেগম এর কাছে যান আনিছ। তালেব সানার কয়েকটি বাড়ি ও জমিজায়গা রয়েছে বলে অবগত করলে ইউএনও মমতাজ বেগম বিষয়টি যাচাই-বাছাই করে সত্যতা পান।

এরপর ভূমিহীন আনিছকে সেই ঘরে বসবাসের ব্যবস্থা করেন ইউএনও মমতাজ বেগম। মমতাজ বেগমের এই মানবিক উদ্যোগের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় আনিছ। তিনটি সন্তান এবং স্ত্রীকে সেই ঘরেই প্রায় ৩ বছর ধরে বসবাস করে আসছেন আনিছ।

শনিবার পাইকগাছা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য তুলে ধরেন আনিছ গাজী।

লিখিত বক্তব্যে আনিছ বলেন, গত ৪ জুলাই চাঁদখালী ইউনিয়নের তালেব সানা আমার নামে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন একটা অভিযোগ করে আমাকে উক্ত ঘর থেকে উচ্ছেদের পায়তারা করছে।

এ বিষয়ে কয়েকটি সংবাদপত্রে বিভ্রান্তিকর ও জবরদখল শিরোনামে খবর প্রকাশ করে। শনিবার বেলা ১১ টায় পাইকগাছা প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে প্রকাশিত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানান আনিছ।

লিখিত বক্তব্য আনিছ গাজী বলেন, আমি পাইকগাছার চাঁদখালী ইউনিয়নের গড়েরডাঙ্গা আশ্রায়ন প্রকল্প বাসিন্দা ও একজন দিনমজুর ও ভূমিহীন মানুষ এমনকি আমার নিজের এক শতকও জায়গা জমি নাই।