ঢাকা ০৮:৪৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪

ফের রাজপথে কোটা বিরোধীরা, চরম দুর্ভোগে ঘরমুখো মানুষ

গণমুক্তি রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৬:১৯:৩৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ জুলাই ২০২৪ ৩৭ বার পড়া হয়েছে
দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

আদালতের রায়ে সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা ফেরার পর যে আন্দোলন শুরু হয়েছে, তার অংশ হিসেবে ষষ্ঠ দিনের মতো শাহবাগ, মৎস্য ভবন, কাওরানবাজার, ফার্মগেট ও সায়েন্স ল্যাব মোড় অবরোধ করেছেন শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীরা।

সোমবার (৮ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৪টা নাগাদ শাহবাগ মোড় অবরোধ করেন তারা। আন্দোলনকারীদের একটি অংশ হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের সামনের রাস্তায়ও অবস্থধান নেয়। তাতে করে চারপাশের রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

ফার্মগে মোড়ে অবস্থান নেওয়ার পর আশপাশের সকল রাস্তায় যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন ঢাকা কলেজ ও ইডেন কলেজের শিক্ষার্থীরা। এই পথে চলাচলকারী মানুষ দুর্ভোগে পড়েছে। অফিস সময় শেষ হওয়ার পর পরিস্থিতি আরো জটিল আকার ধারণ করে।

এর আগে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন ব্যানারে মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন, মল চত্বর, হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল, ভিসি চত্বর ও রাজু ভাস্কর্য ঘুরে শাহবাগে এসে অবস্থান নেয়।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর সরকারি চাকরিতে নারী কোটা ১০ শতাংশ, মুক্তিযোদ্ধা কোটা ৩০ শতাংশ এবং জেলা কোটা ১০ শতাংশ বাতিল করে পরিপত্র জারি করে সরকার।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের জারি করা পরিপত্রে বলা হয়, নবম গ্রেড (আগের প্রথম শ্রেণি) এবং দশম থেকে ১৩তম গ্রেডের (আগের দ্বিতীয় শ্রেণি) পদে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বাতিল করা হল। এখন থেকে মেধারভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে।

প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরিতে কোটা বাতিল হলেও তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পদে কোটা ব্যবস্থা আগের মতই বহাল থাকবে থাকার কথা পরিপত্রে বলা হয়।

পরিপত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালে হাই কোর্টে রিট আবেদন করেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান অহিদুল ইসলামসহ সাতজন।

গত ৫ জুন কোটা পুনর্বহাল করে রায় দেয় হাই কোর্ট। দিনই রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেন চাকরিপ্রত্যাশী তরুণরা। ১ জুলাই থেকে তারা কোটা বাতিলসহ চার দফা দাবিতে বিক্ষোভ করছেন।

বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন ব্যানারে শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীদের চলমান আন্দোলনের মধ্যে রোববার ঢাকার শাহবাগ, সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড়, নীলক্ষেত, বাংলামোটর, কারওয়ানবাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ সাতটি মোড় প্রায় পাঁচঘণ্টা অবরোধ করে পূর্বঘোষিত বাংলা ব্লকেড পালন করেন আন্দোলনকারীরা।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ফের রাজপথে কোটা বিরোধীরা, চরম দুর্ভোগে ঘরমুখো মানুষ

আপডেট সময় : ০৬:১৯:৩৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ জুলাই ২০২৪

 

আদালতের রায়ে সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটা ফেরার পর যে আন্দোলন শুরু হয়েছে, তার অংশ হিসেবে ষষ্ঠ দিনের মতো শাহবাগ, মৎস্য ভবন, কাওরানবাজার, ফার্মগেট ও সায়েন্স ল্যাব মোড় অবরোধ করেছেন শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীরা।

সোমবার (৮ জুলাই) বিকাল সাড়ে ৪টা নাগাদ শাহবাগ মোড় অবরোধ করেন তারা। আন্দোলনকারীদের একটি অংশ হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের সামনের রাস্তায়ও অবস্থধান নেয়। তাতে করে চারপাশের রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

ফার্মগে মোড়ে অবস্থান নেওয়ার পর আশপাশের সকল রাস্তায় যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন ঢাকা কলেজ ও ইডেন কলেজের শিক্ষার্থীরা। এই পথে চলাচলকারী মানুষ দুর্ভোগে পড়েছে। অফিস সময় শেষ হওয়ার পর পরিস্থিতি আরো জটিল আকার ধারণ করে।

এর আগে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন ব্যানারে মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন, মল চত্বর, হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল, ভিসি চত্বর ও রাজু ভাস্কর্য ঘুরে শাহবাগে এসে অবস্থান নেয়।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে ২০১৮ সালের ৪ অক্টোবর সরকারি চাকরিতে নারী কোটা ১০ শতাংশ, মুক্তিযোদ্ধা কোটা ৩০ শতাংশ এবং জেলা কোটা ১০ শতাংশ বাতিল করে পরিপত্র জারি করে সরকার।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের জারি করা পরিপত্রে বলা হয়, নবম গ্রেড (আগের প্রথম শ্রেণি) এবং দশম থেকে ১৩তম গ্রেডের (আগের দ্বিতীয় শ্রেণি) পদে সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতি বাতিল করা হল। এখন থেকে মেধারভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে।

প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরিতে কোটা বাতিল হলেও তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পদে কোটা ব্যবস্থা আগের মতই বহাল থাকবে থাকার কথা পরিপত্রে বলা হয়।

পরিপত্রের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০২১ সালে হাই কোর্টে রিট আবেদন করেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান অহিদুল ইসলামসহ সাতজন।

গত ৫ জুন কোটা পুনর্বহাল করে রায় দেয় হাই কোর্ট। দিনই রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেন চাকরিপ্রত্যাশী তরুণরা। ১ জুলাই থেকে তারা কোটা বাতিলসহ চার দফা দাবিতে বিক্ষোভ করছেন।

বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন ব্যানারে শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীদের চলমান আন্দোলনের মধ্যে রোববার ঢাকার শাহবাগ, সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড়, নীলক্ষেত, বাংলামোটর, কারওয়ানবাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ সাতটি মোড় প্রায় পাঁচঘণ্টা অবরোধ করে পূর্বঘোষিত বাংলা ব্লকেড পালন করেন আন্দোলনকারীরা।