ঢাকা ১১:৩৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

মুক্তিপণে সন্তুষ্ট জলদস্যুরা, ঈদের আগেই দেশে ফিরতে পারেন ২৩ নাবিক!

গণমুক্তি ডিজিটাল ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১২:১০:১১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ মার্চ ২০২৪ ১১৪ বার পড়া হয়েছে

ছবি সংগ্রহ

দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

বাংলাদেশি জাহাজ ছিনতাইকারী সোমালিয়ান জলদস্যুরা মুক্তিপণ সংক্রান্ত আলোচনায় সন্তুষ্ট হয়েছে। বুধবার থেকে নাবিকদের কেবিনে থাকতে দেওয়ার পাশাপাশি জাহাজে কাজ করার সুযোগও মিলছে নাবিকদের। ঈদের আগেই জিম্মি দশা থেকে নাবিক ও জাহাজটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। এমন তথ্য জানিয়েছেন কবীর গ্রুপের মুখপাত্র মিজানুল ইসলাম।

তিনি জানান, জলদস্যুদের কবল থেকে মুক্তি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আকাশ পথে ২৩ নাবিককে দেশে ফেরানো হবে। তারা পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে পারবেন বলেও আশা করছেন জাহাজ কর্তৃপক্ষ।

কয়লা বোঝাই জাহাজটি দুবাইয়ে পৌঁছে দিতে জাহাজের মালিক পক্ষ এরই মধ্যে ২৩ নাবিকের আরেকটি দলকে প্রস্তুত রেখেছে। তারাই নতুন করে এমভি আবদুল্লাহর দায়িত্ব নেবে।

একই সঙ্গে কয়লাবাহী এমভি আবদুল্লাহ জাহাজটিকেও দুবাইয়ে পৌঁছাতে প্রস্তুত রাখা হয়েছে নাবিকদের আরেকটি দলকে। জলদস্যুদের সঙ্গে দফায় দফায় আলোচনার পর তাদের মুক্তিপণ দিয়েই ফিরিয়ে আনা হচ্ছে ২৩ নাবিকসহ জাহাজটিকে।

এর আগে মোজাম্বিকের মাপুতু বন্দর থেকে কয়লা নিয়ে দুবাইয়ে যাওয়ার পথে ১২ মার্চ বাংলাদেশ সময় দুপুরে জাহাজটি জিম্মি করে সোমালিয়ার জলদস্যুরা।

২০১০ সালে একই প্রতিষ্ঠানের জাহাজ এমভি জাহান মণি ছিনতাই হওয়ার তিন মাস পর মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়িয়ে অনা হয়েছিলো।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

মুক্তিপণে সন্তুষ্ট জলদস্যুরা, ঈদের আগেই দেশে ফিরতে পারেন ২৩ নাবিক!

আপডেট সময় : ১২:১০:১১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৯ মার্চ ২০২৪

 

বাংলাদেশি জাহাজ ছিনতাইকারী সোমালিয়ান জলদস্যুরা মুক্তিপণ সংক্রান্ত আলোচনায় সন্তুষ্ট হয়েছে। বুধবার থেকে নাবিকদের কেবিনে থাকতে দেওয়ার পাশাপাশি জাহাজে কাজ করার সুযোগও মিলছে নাবিকদের। ঈদের আগেই জিম্মি দশা থেকে নাবিক ও জাহাজটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে। এমন তথ্য জানিয়েছেন কবীর গ্রুপের মুখপাত্র মিজানুল ইসলাম।

তিনি জানান, জলদস্যুদের কবল থেকে মুক্তি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আকাশ পথে ২৩ নাবিককে দেশে ফেরানো হবে। তারা পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে পারবেন বলেও আশা করছেন জাহাজ কর্তৃপক্ষ।

কয়লা বোঝাই জাহাজটি দুবাইয়ে পৌঁছে দিতে জাহাজের মালিক পক্ষ এরই মধ্যে ২৩ নাবিকের আরেকটি দলকে প্রস্তুত রেখেছে। তারাই নতুন করে এমভি আবদুল্লাহর দায়িত্ব নেবে।

একই সঙ্গে কয়লাবাহী এমভি আবদুল্লাহ জাহাজটিকেও দুবাইয়ে পৌঁছাতে প্রস্তুত রাখা হয়েছে নাবিকদের আরেকটি দলকে। জলদস্যুদের সঙ্গে দফায় দফায় আলোচনার পর তাদের মুক্তিপণ দিয়েই ফিরিয়ে আনা হচ্ছে ২৩ নাবিকসহ জাহাজটিকে।

এর আগে মোজাম্বিকের মাপুতু বন্দর থেকে কয়লা নিয়ে দুবাইয়ে যাওয়ার পথে ১২ মার্চ বাংলাদেশ সময় দুপুরে জাহাজটি জিম্মি করে সোমালিয়ার জলদস্যুরা।

২০১০ সালে একই প্রতিষ্ঠানের জাহাজ এমভি জাহান মণি ছিনতাই হওয়ার তিন মাস পর মুক্তিপণ দিয়ে ছাড়িয়ে অনা হয়েছিলো।