ঢাকা ১২:২২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo কোটা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি Logo আতঙ্কে হল ছাড়ছেন ঢাবি শিক্ষার্থীরা Logo কোটা সংস্কার আন্দোলনে সহিংসতা, যুক্তরাষ্ট্রের উদ্বেগ Logo নিউইয়র্কে সাবের চৌধুরী-মটোমে তাকিসাওয়ার বৈঠক Logo রাজাকার  স্লোগান দিলে আর ছাড় নয়: রাবি ছাত্রলীগ সভাপতি Logo ঢাবিতে সংঘর্ষে আহত হয়ে ঢাকা মেডিকেলে ২২৬, আতঙ্ক Logo শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা: দেশজুড়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে মঙ্গলবার বিক্ষোভের ডাক Logo শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার জন্য  প্রাধ্যক্ষরা রাতভর হলে অবস্থান করবেন: উপাচার্য  Logo ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন Logo আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলায় দুই শতাধিক আহতের দাবি

২২-এর দুঃস্বপ্ন তাড়া করছে সুনামগঞ্জবাসীকে

গণমুক্তি রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৭:৫১:২২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪ ৪৭ বার পড়া হয়েছে

জলমগ্ন সুনামগঞ্জ শহর : ছবি সংগ্রহ

দৈনিক গনমুক্তি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 

২০২২ সালের ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছিলো সুনামগঞ্জ। বানের জলে জানমালে ক্ষতি হয়েছে। ভেসে গেছে ফসলের মাঠ, মাছের ঘেরসহ নানা সম্পদ। দুঃসহ সেই স্মৃতি ফের তাড়া করছে সুনামগঞ্জবাসীকে।

এরই মধ্যে সুনামগঞ্জের শহরে হাঠু পানির ওপরে। বন্ধ হয়ে গেছে দোকানপাঠ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। আশ্রয়ের খোঁজে বানভাসি মানুষ। জেলার সঙ্গে বিভিন্ন উপজেলার প্রায় সড়ক বন্ধ।

ভারতের ঢলে ডুবছে গেছে সুনামগঞ্জ। আশ্রয়কেন্দ্রে হাজারো মানুষ। মেঘালয়ের পাদদেশে সুনামগঞ্জের ১২টি উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি। জেলার ওপর দিয়ে ঝড়-বৃষ্টি, বজ্রপাতসহ দমকা হাওয়া বয়ে যাচ্ছে। ২২ সালের এই জুন মাসে ভয়াবহ বন্যা কবলিত হয়েছিলো সুনামগঞ্জ।

অব্যাহত বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢল সেই দুঃস্বপ্নই বার বার চোখের সামনে ভেসে ওঠছে সানামগঞ্জবাসীর। পানি যতই বাড়ছে, ততই উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নিয়ে রাত কাটাচ্ছেন হাওর অঞ্চলের মানুষ। সুনামগঞ্জের ৬৯টি ইউনিয়ন ও দুটি পৌরসভার প্রায় চার লাখের অধিক মানুষ বন্যাকবলিত।

এর মধ্যে প্রায় ১২ হাজার ৪৩৯ জন আশ্রয়কেন্দ্রে ওঠেছেন। তাহিরপুর-বিশ্বম্ভরপুর-সুনামগঞ্জ, ছাতক-গোবিন্দগঞ্জ, দোয়ারাবাজার-ছাতক, জামালগঞ্জ-সুনামগঞ্জের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, বন্যার্তদের জন্য ৫৩১টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত। এর মধ্যে ১২ হাজার ৪৩৯ জন বানভাসি মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছেন। বুধবার সকালে সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মামুন হাওলাদার সবাইকে সর্তক করে বলেছেন, আগামী ৬ দিন বৃষ্টি ও মেঘালয় থেকে পাহাড়ি ঢল অব্যাহত থাকবে।

সুনমেগঞ্জের চারিদিকে পানি আর পানি : ছবি সংগ্রহ

তাতে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হবে। সুরমা, জাদুকাটা, খোয়াই, চেলানদীসহ সীমান্তবর্তী সকল নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সুনামগঞ্জে ১০০ মিলিমিটার, লাউড়ের গড়ে ৭৮ মিলিমিটার, ছাতকে ৮৪ মিলিমিটার এবং দিরাইয়ে ৭৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। অপর বাংলাদেশের চারটি সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে হাওয়া অফিস। সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, সক্রিয় মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি হচ্ছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে দমকা/ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

বাংলাদেশের ওপর দিয়ে সম্প্রতি বয়ে গেছে ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় রিমেল । ঝড়ে রিমেলের তান্ডবে ২২জনের মৃত্যু হয়। রিমেলের পর টানা অনাবৃষ্টি দেখা দেয়। এরই মধ্যে ১৫ জুন থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিপাতের খবর আসে। ১৬ জুন থেকে দেশটির উত্তর-পূর্ব জেলা সিলেট ও সুনামগঞ্জে অতিবর্ষণের সঙ্গে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে বন্যা দেখা দেয়। জেলা দুটি এখন জলমগ্ন। প্রতিনিয়ত এখানে পানি বাড়ার কারণে সুনামগঞ্জ ও সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির অবণতি ঘটেছে। সুনামগঞ্জ শহর ডুবে গেছে। বাড়িঘর ফেলে নিরাপদ আশ্রয়ে বানভাসি মানুষ।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

২২-এর দুঃস্বপ্ন তাড়া করছে সুনামগঞ্জবাসীকে

আপডেট সময় : ০৭:৫১:২২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

 

২০২২ সালের ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছিলো সুনামগঞ্জ। বানের জলে জানমালে ক্ষতি হয়েছে। ভেসে গেছে ফসলের মাঠ, মাছের ঘেরসহ নানা সম্পদ। দুঃসহ সেই স্মৃতি ফের তাড়া করছে সুনামগঞ্জবাসীকে।

এরই মধ্যে সুনামগঞ্জের শহরে হাঠু পানির ওপরে। বন্ধ হয়ে গেছে দোকানপাঠ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। আশ্রয়ের খোঁজে বানভাসি মানুষ। জেলার সঙ্গে বিভিন্ন উপজেলার প্রায় সড়ক বন্ধ।

ভারতের ঢলে ডুবছে গেছে সুনামগঞ্জ। আশ্রয়কেন্দ্রে হাজারো মানুষ। মেঘালয়ের পাদদেশে সুনামগঞ্জের ১২টি উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি। জেলার ওপর দিয়ে ঝড়-বৃষ্টি, বজ্রপাতসহ দমকা হাওয়া বয়ে যাচ্ছে। ২২ সালের এই জুন মাসে ভয়াবহ বন্যা কবলিত হয়েছিলো সুনামগঞ্জ।

অব্যাহত বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢল সেই দুঃস্বপ্নই বার বার চোখের সামনে ভেসে ওঠছে সানামগঞ্জবাসীর। পানি যতই বাড়ছে, ততই উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নিয়ে রাত কাটাচ্ছেন হাওর অঞ্চলের মানুষ। সুনামগঞ্জের ৬৯টি ইউনিয়ন ও দুটি পৌরসভার প্রায় চার লাখের অধিক মানুষ বন্যাকবলিত।

এর মধ্যে প্রায় ১২ হাজার ৪৩৯ জন আশ্রয়কেন্দ্রে ওঠেছেন। তাহিরপুর-বিশ্বম্ভরপুর-সুনামগঞ্জ, ছাতক-গোবিন্দগঞ্জ, দোয়ারাবাজার-ছাতক, জামালগঞ্জ-সুনামগঞ্জের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, বন্যার্তদের জন্য ৫৩১টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত। এর মধ্যে ১২ হাজার ৪৩৯ জন বানভাসি মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছেন। বুধবার সকালে সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মামুন হাওলাদার সবাইকে সর্তক করে বলেছেন, আগামী ৬ দিন বৃষ্টি ও মেঘালয় থেকে পাহাড়ি ঢল অব্যাহত থাকবে।

সুনমেগঞ্জের চারিদিকে পানি আর পানি : ছবি সংগ্রহ

তাতে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হবে। সুরমা, জাদুকাটা, খোয়াই, চেলানদীসহ সীমান্তবর্তী সকল নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সুনামগঞ্জে ১০০ মিলিমিটার, লাউড়ের গড়ে ৭৮ মিলিমিটার, ছাতকে ৮৪ মিলিমিটার এবং দিরাইয়ে ৭৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। অপর বাংলাদেশের চারটি সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে হাওয়া অফিস। সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, সক্রিয় মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি হচ্ছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে দমকা/ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

বাংলাদেশের ওপর দিয়ে সম্প্রতি বয়ে গেছে ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় রিমেল । ঝড়ে রিমেলের তান্ডবে ২২জনের মৃত্যু হয়। রিমেলের পর টানা অনাবৃষ্টি দেখা দেয়। এরই মধ্যে ১৫ জুন থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিপাতের খবর আসে। ১৬ জুন থেকে দেশটির উত্তর-পূর্ব জেলা সিলেট ও সুনামগঞ্জে অতিবর্ষণের সঙ্গে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে বন্যা দেখা দেয়। জেলা দুটি এখন জলমগ্ন। প্রতিনিয়ত এখানে পানি বাড়ার কারণে সুনামগঞ্জ ও সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির অবণতি ঘটেছে। সুনামগঞ্জ শহর ডুবে গেছে। বাড়িঘর ফেলে নিরাপদ আশ্রয়ে বানভাসি মানুষ।